মা ছেলে চটি মহুয়ার মাধুর্য্য- 10 by Rajdip123

মা ছেলে চটি. মায়ের সামনে বসে, হটাত করে মহুয়ার একটা পা নিজের কোলে তুলে নেয়। চমকে ওঠে মহুয়া। কি করতে যাচ্ছে ওর দস্যু ছেলেটা। পা টা ওর তোয়ালের নীচে কিছু না পড়া পুরুষাঙ্গের সাথে ঘষা খেয়ে যায়। “কি হল, বল না সোনা, কেন এমন পাগলামো করছিস রে তুই?”, “তুমি এখন কিছু বোলো না মা”, বলে প্যাকেট টা খুলে, মহুয়ার জন্য কেনা রুপোর মল টা বের করে আনে রণ।

শাড়ী টা মহুয়ার হাঁটু অব্দি উঠিয়ে দেয় রণ। মহুয়ার ফর্সা রোমহীন সুন্দর পা টা রণের চোখের সামনে উদ্ভাসিত হয়ে ওঠে। মায়ের পায়ের ওপর একটু ঝুকে একটা চুমু খায় রণ। ইসসস কি করতে চাইছে ছেলেটা, মনে মনে ভেবে শিউরে ওঠে মহুয়া। মহুয়ার তলপেটের রোমকূপ উন্মিলিত হয়ে যায়। ছেলের বিশাল হাতের থাবা ওর পা টা শক্ত করে ধরে রয়েছে। “অনেক হয়েছে রণ ছাড় এবার, মহুয়ার কণ্ঠস্বর ভারী হয়ে ওঠে”।

“ইসসস শয়তানটা চুমু খেল, ওর উদম পায়ে। ইসসস ও কি একটুও বুঝতে পারছে, আমার এখন কেমন অবস্থা হচ্ছে, আবার বাথরুমে গিয়ে প্যান্টি বদলাতে হবে, শয়তান টা আবার ভিজিয়ে দিলো”। মনে মনে গুঙিয়ে উঠলো মহুয়া। ইসসসসস আজকের রাত টা কেমন যেন। বাইরে অঝোরে বৃষ্টি, যেন মানুষের সমস্ত পাপ কে ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করে দেবে। আজকের রাতের পরিবেশ টা যেন মানুষকে পাপ করার জন্য উস্কে দিচ্ছে।

মা ছেলে চটি

“এটা কি রে? কখন কিনলি? দেখ ছেলের কাণ্ড। ওমাআআ……কি সুন্দর রে। আমার জন্য পায়ের মল কিনে নিয়ে এসেছিস? তাই তো বলি” মহুয়ার দুচোখ আনন্দ অশ্রুতে ভরে এলো, “এতো ভালবাসিস তুই আমাকে? আমাকে কেও কোনোদিনও কিছু দেয় নি সোনা। তুই এতো ভালবাসিস তোর মাকে?” মহুয়ার দুচোখ বেয়ে জলের ধারা নেমে এলো। রণ ততক্ষনে মায়ের দুই পা নিজের কোলে উঠিয়ে, দুই পায়ে নতুন কেনা মল পড়িয়ে দিয়েছে। রুমের আলোতে ঝক ঝক করে উঠলো মহুয়ার সুন্দর পা গুলো।

আস্তে আস্তে মায়ের সুন্দর পায়ে হাত বোলাতে থাকে রণ। ওত সুন্দর নরম তুলতুলে পায়ের পাতাগুলো বার বার ঘষা খাচ্ছে, রণের পুরুষাঙ্গের সাথে, ধীরে ধীরে মাথা তুলে দাঁড়াতে শুরু করেছে, ওর দু পায়ের মাঝের অজগর সাপটা। বাইরে এক ভাবে বৃষ্টিটা পড়ে চলেছে। “আয় সোনা, আমার পাশে এসে বস একটু, আমিও দেখি আমার সাহেবকে”। বলে পা টা নামিয়ে নিল মহুয়া। মহুয়া রণ কে কাছে ডাকতেই, চেয়ার ছেড়ে উঠে এলো রণ মায়ের পাশে। মাকে দুহাতে জড়িয়ে ধরে মায়ের বুকে মুখটা গুঁজে দিলো মহুয়ার সাহেব। মা ছেলে চটি

“উম্মম মা কি সুন্দর একটা মিষ্টি গন্ধ ভেসে আসছে তোমার গায়ের থেকে…ঠিক একটা শিশির ভেজা গোলাপের মতন লাগছে তোমাকে”। ছেলের মুখে এমন করে ভালবাসার কথা শুনে, মনটা ফুরফুরে হয়ে যায় মহুয়ার। বুকের রক্ত ছলকে ওঠে, ছেলের এই প্রেমের বুলিতে। ছেলের প্রগাঢ় বাহু বেষ্টনী তে বাঁধা পরে শিথিল হয়ে আসে মহুয়ার দেহ। আদুরে কণ্ঠে ছেলেকে বলে ওঠে, “হ্যাঁ, অনেক হয়েছে, বুঝতে পারছি……”, বলে ছেলের কপালে স্নেহ ভরা চুম্বন এঁকে দেয় মহুয়া।

রণের মাথাটা নিজের বুকের থেকে উঠিয়ে, চোখ পাকিয়ে নীচের ঠোঁট দাঁতের মাঝে চেপে ধরে বলে, “খুব প্রেমের বুলি বলতে শিখেছিস…রাত্রে খাবি না? খিদে পায়নি তোর? চল এবার ওঠ, আর কতক্ষন মা কে আদর করবি? তোকে আজ ডাক্তারের কাছে হয়ে আসতে বলেছিলাম, গিয়েছিলি কি”? মহুয়ার মনে পড়ে গেলো রণের ব্যাথাটার কথা। ব্যাথাটা যে কোথায়, সেটাও জানে মহুয়া। পায়ের পাতাটা ঘষা খাচ্ছিল কিছুক্ষন আগেই ওর ভীমাকৃতি পুরুষাঙ্গটার সাথে। ব্যাথা থাকলে কুঁকড়ে উঠত রণ। মনে হয় ব্যাথা কমেছে। মা ছেলে চটি

“ক্ষিদে তো খুব পেয়েছে মা, তোমার ও তো ক্ষিদে পেয়েছে? পায়নি কি? সত্যি করে বলো তো মা”? মা কে আরও নিবিড় ভাবে জড়িয়ে ধরে জিজ্ঞেস করে রণ। “তুই কি বলছিস, আমি বুঝতে পারছিনা। আমি শুধু চেয়েছি যে তুই ভালো থাক”। রণের চোখের থেকে নিজের চোখ সরিয়ে বলে ওঠে কিঞ্চিত লজ্জা পেয়ে বলে ওঠে মহুয়া।

মায়ের মুখটা হাতে ধরে নিজের দিকে ফিরিয়ে নিয়ে বলে ওঠে রণ, “আমিও চাই যে তুমি ভালো থাকো মা। কম বয়সের মেয়েদের আমার কেন জানিনা দেখতে ইচ্ছে করেনা। তুমি আর আমি এই তো বেশ আছি। আর কাউকে কি দরকার আছে মা আমাদের মধ্যে”?

ছেলের কোথায় মহুয়ার সংযমের বাঁধে ফাটল দেখা দেয়। ঠিক একইরকম চিন্তা তো সেও করছে। বুকের রক্ত এলোপাথারি ছুটতে শুরু করে দেয়। খুব ইচ্ছে করছে এই বিশাল দেহি পুরুষটার সাথে কামনার ঘূর্ণি ঝরে ভেসে যেতে। এখন ওর ছেলে যেমন ভাবে ওকে ধরে আছে, তাতে ওর অভিসন্ধি বুঝতে কষ্ট হয়না মহুয়ার। তোয়ালের নীচে ওর বিশাল পুরুষাঙ্গটা মাথা উঁচিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। জাঙ্গিয়া পড়েনি আজকে রণ। সেই দিকে একবার আড়চোখে তাকিয়ে উঠে দাঁড়ায় মহুয়া। মা ছেলে চটি

সঙ্গে সঙ্গে মায়ের হাত টা ধরে নেয় রণ, “মা তুমি আজকে বাইরে বেড়িয়েছিলে, কি কি কিনলে দেখালে না তো”? “পরে দেখিস, এখন খাবি চল, দেখ বাইরে কেমন ঝড় বৃষ্টি চলছে। এখনি ডিনার করে নে, পরে আবার বাতি না চলে যায়, ওঠ সোনা, ডাইনিং টেবিলে গিয়ে বস, আমি খাবার বেড়ে নিয়ে আসছি। তুই কি আজ তোয়ালে পড়েই থাকবি”? বলতে বলতে রান্নাঘরের দিকে এগিয়ে গেলো মহুয়া।

“হুম্মম আজ রাত্রে তোয়ালে পড়েই থাকতে হবে। ওষুধ লাগিয়েছি, ব্যাথার জায়গায়, আর একবার রাত্রে লাগাতে হতে পারে”, বলে রণ সোফা থেকে উঠে ওয়াশ বেসিনে হাত ধুতে লাগলো। রান্নাঘরে মহুয়ার দেহটা অজানা এক আশঙ্কায় শিরশির করে উঠলো। তলপেট টা চিনচিন করে উঠলো। দুর্যোগ চলছে বাইরে, আর ঘরের ভেতরে মহুয়ার মাথায় চলছে এক অবৈধ কামনার ঝড়, যা কিনা মহুয়ার শরীর মনকে ধীরে ধীরে গ্রাস করে নিতে চাইছে। “নাহহহহ…এই চিন্তাটাকে বেশী প্রশ্রয় দেওয়া ঠিক হবে না”।

মনে মনে ভাবল বটে, মহুয়া কিন্তু সেও ভালো করে জানতে পারছে, এই চিন্তাটা প্রশ্রয় পেয়ে পেয়ে তার দেহ মনে ছড়িয়ে পড়ছে। ভয়ঙ্কর একটা দ্বন্দ্ব চলছে, যা কিনা মহুয়ার চিত্তকে স্থির থাকতে দিচ্ছেনা। অস্থির করে তুলেছে ওকে। অসুর আর দেবতার লড়াই, যেখানে কিনা অসুরের জিতে যাওয়া নিশ্চিত, দেবতাদের বাধা ক্ষীণ থেকে ক্ষীণতর হয়ে আসছে। খড়কুটোর মতন উড়ে যাচ্ছে যে বাধাই সামনে আসছে অসুরদের সামনে। ধীরে ধীরে আত্মসমর্পণ করতে শুরু করে দিয়েছে, দেবতা রুপী শুভ চিন্তাধারা। মা ছেলে চটি

ইসসসসস……প্যান্টি টা আবার কামরসে ভিজে চ্যাটচ্যাট করছে। ডিনার করে ড্রেস বদল করে শুতে যাওয়ার, বরাবরের অভ্যেস মহুয়ার। রান্নাঘর থেকে খাবার গুলো থালায় সাজিয়ে ডাইনিং টেবিলে নিয়ে আসলো মহুয়া। রণ তখন ওর মোবাইলে কিছু একটা করছিলো। “নে এবার মোবাইল টা ছাড়, খাবার গুলো খেয়ে নে। পরে আর খেতে ইচ্ছে করবেনা। তখন তো খুব বলছিলি, খুব ক্ষিদে পেয়েছে বলে, এখন খাবার সামনে আছে, আর চোখ অন্যদিকে”?

কথাগুলো ছেলেকে বলে মুখে একটা মৃদু হাসি নিয়ে, অর্থপূর্ণ চাহনি নিয়ে ছেলের দিকে তাকাল মহুয়া? চোখে মুখে দুষ্টুমি ঝরে পড়ছে মহুয়ার। ছেলের পেছনে লাগতে ইচ্ছে করছে তার। মায়ের শেষ কথাটা শুনে, মোবাইলের থেকে চোখ সরিয়ে একবার মায়ের মুখের দিকে তাকিয়ে হাসি মুখে বলে উঠলো, “ক্ষিদে তো তোমার ও পেয়েছে মা। তোমার সামনেও তো এতো ভালো খাবার পরে আছে, তুমি খাওয়া শুরু করো। তুমি ইচ্ছে মতন খাবার খাও মা, দেখবে আমারও পেট ভরে গেছে”।

রণের কথাটার যে দুরকম মানে আছে, সে ব্যাপার বুঝতে পেরে কেঁপে উঠলো মহুয়ার নধর দেহ পল্লবী। ছেলেটা যে তার শরীরে দেহে যৌনতার আগুন লাগাতে চাইছে, সেটা ভালোই বুঝতে পারে মহুয়া। কিছুক্ষণ পরেই রণ নিজের খাবার শেষ করে উঠে পড়লো। মায়ের হাতের রান্না তার কাছে দারুন প্রিয়। মোবাইলটা টেবিলে পড়েই থাকে। মহুয়ার খাওয়া শেষ হতেই হাত ধুতে যাওয়ার সময় চোখে পড়লো রণের মোবাইলটা। কি দেখছিল রণ মোবাইলে? কৌতূহল চেপে রাখতে পারলো না মহুয়া। মা ছেলে চটি

রণ নিজের রুমে ঢুকে গেছে, এখন যে ও বেরোবে না, সেটা জানে মহুয়া। হাত ধুয়ে এসে, রণের মোবাইলের গ্যালারিটা ওপেন করে মহুয়া। বেশ কিছু ছবি তাঁর আর রণের, তার পর বেশ কিছু ভিডিও লোড করা আছে। কি মনে করে একটা ভিডিও অন করলো মহুয়া।
ইসসসসস একি……একটা শ্বেতাঙ্গনা বিবস্ত্র মেয়েকে দুজন নিগ্রো পুরুষ নির্মম ভাবে সম্ভোগ করছে। কি প্রকাণ্ড পুরুষাঙ্গ নিগ্রো দুটোর। ইসসসসস……দেখে মাথা ঘুরতে থাকে মহুয়ার। পা দুটো আটকে যায় মাটিতে। বুকের মধ্যে যেন হাতুরি পিটছে কেও মহুয়ার।

হৃৎপিণ্ডটা এবার মনে হয় বুকের খাঁচার থেকে বের হয়ে আসবে। আর দেখতে পারছেনা মহুয়া। বন্দ করে দিলো ভিডিওটা সঙ্গে সঙ্গে। রণকে মোবাইলটা দিয়ে আসা উচিৎ, ভেবে রণের রুমে ঢুকল মহুয়া। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে চুল আঁচড়াচ্ছিল রণ। বেশ ঘন কালো ব্রাসের মতন চুল রণের। পেছনটা মিলিটারিদের মতন করে ছাঁটা। পেশীবহুল পুরুষালি পিঠ, সোজা টানটান মেরুদণ্ড, তার নীচে শক্ত পাছা গোটা শরীরের মধ্যে কেমন একটা বন্য ভাব। রুমের মধ্যে ঢুকে, একদৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিল মহুয়া তার ছেলের দিকে। মা ছেলে চটি

রণ আর তার সেই ছোট্ট ছেলেটা নেই। ধীরে ধীরে পুরুষ হয়ে উঠেছে। আর এমন স্বপ্নের পুরুষ যাকে কাছে পেলে তাঁর মতন যে কোনও মহিলা তাঁর স্বামী থাকা সত্ত্বেও এমন পুরুষের দাসত্ব স্বস্নেহে স্বীকার করতে দ্বিধা করবেনা। “শুনছিস, আমার কথা? এদিকে একবার তাকা বলি, এবার তোয়ালে টা ছেড়ে অন্য কিছু একটা পড়ে নে বাবু। সেই স্নান করার পর থেকে ওটা পড়ে আছিস সোনা। এবার ওটা খুলে ফেল। আমি কিছু দিচ্ছি, সেটা পড়ে রাত্রে শুয়ে পড়”, বলে তো দিলো মহুয়া, তারপর ভাবতে লাগলো, কি দেওয়া যায় পড়তে রণকে।

ধুতি তো নেই, লুঙ্গি রণ পড়েনা। এটা সেটা ভাবতে ভাবতে, পাশের রুমের থেকে দৌড়ে গিয়ে নিজের সালওয়ার কামিজের একটা পাতলা ফিনফিনে ওড়না নিয়ে রণের হাতে দিয়ে বলল, “এটা দেখ, পড়তে পারিস কিনা”?
“হাহাহাহা……মা এটা কি দিলে গো? এটা তো পড়া না পড়া সমান। একে সাদা রঙ, তার ওপর প্রচণ্ড রকমের ফিনফিনে। এটার নীচে হাতের তালু মেলে ধরলে, হাতের রেখা পড়তে কোনও জ্যোতিষীর অসুবিধা হবেনা।

তুমি কি চাও, তোমার ছেলে এটা পড়ে তোমার সামনে ঘোরাঘুরি করুক? বলে জোরে হেসে উঠলো রণ। ছেলের কথা শুনে একটু বাঁকা হাসি হেসে লজ্জায় চোখ নামিয়ে নিল মহুয়া। একটু অন্যমনস্ক ভাবে অদৃশ্য কিছু একটা ভেবে মনে মনে বলে উঠলো, ওরে আমি তোকে এইরকম ভাবেই দেখতে চাই। কিন্তু কথাটা মুখ ফুটে বলে উঠতে পারলনা। মা ছেলে চটি

“তোকে কি আমি এটা পড়ে ঘুরে বেড়াতে বলেছি রে শয়তান? তুই এটা পড়ে রাত্রে শুয়ে পড়। সকালে উঠে এটা খুলে অন্য কিছু পড়ে নিস। অসভ্য হয়ে উঠছিস আজকাল দিনের পড় দিন”। কথাগুলো রণকে বলে, কল্পনায় ছেলেকে খালি গায়ে নিম্নাঙ্গে ওই সাদা পাতলা ফিনফিনে ওড়না পড়া অবস্থায় চিন্তা করে নিজের দেহে একটা কাঁপুনি অনুভব করলো মহুয়া। মনে হল শরীরের সমস্ত তরল বেড়িয়ে যাচ্ছে কুলকুল করে।

নাহহহ আর দাঁড়ানো যাবেনা ছেলের কাছে, এখনি একবার বাথরুমে যেতে হবে ওকে ভেবে ঘুরে দাঁড়াতেই, একটা শক্ত পুরুষালি থাবা ওর হাত টা ধরে টান মারলো। বাইরের বৃষ্টির মাঝে হটাত করে বিদ্যুতের ঝলকানি, সাথে তীব্র আওয়াজ, পুরো আকাশ টাকে মুহূর্তের জন্য সাদা আলোতে ভরিয়ে দিলো। রণের হাতের টানে নিজেকে সামলাতে না পেরে, ছেলের প্রশস্ত পেশীবহুল বুকের ওপর এসে পড়লো মহুয়া। দুই পা ফাঁক করে নিজের কোমর টা এগিয়ে দিয়ে, মহুয়াকে নিজের বুকে চেপে ধরল রণ।

মহুয়ার কামঘন নিঃশ্বাস রণের বুকে পড়তে লাগলো। একহাত দিয়ে, মায়ের পিঠ, আর একহাত মায়ের কোমরের নীচে ধরে, সজোরে নিজের শরীরের সাথে চেপে ধরল মায়ের লোভনীয় রসে ভরা শরীরটাকে। মহুয়ার ভারী ডাঁসা স্তনগুলো চেপে বসে গেলো রণের বুকে। রণের বুকে মুখের থুতনি আর নিজের হাতের পাতা দুটো রেখে ছেলের চোখে কামনার বিচ্ছুরণ দেখে বুক কেঁপে উঠলো মহুয়ার। মা ছেলে চটি

“ইসসসসস কি করতে চাইছে, শয়তানটা। আবার শরীরে আগুন জ্বালিয়ে দিলো দস্যুটা। ইসসসস কি ভাবে নিজের তোয়ালে জড়ানো কোমর টা এগিয়ে দিয়ে নিজের রাক্ষুসে পুরুষাঙ্গটা ঠেসে ধরেছে তার ছেলে। ভাগ্যিস শাড়ী পড়ে আছে, না হলে নির্ঘাত উরুসন্ধিতে এসে ধাক্কা মারত”। মনে মনে বলে উঠলো মহুয়া। যতই শাড়ী, সায়া আর প্যান্টি পড়ে থাকুক মহুয়া, ওত বড় আর মোটা উত্থিত পুরুষাঙ্গের উষ্ণতা ভালোই টের পেতে থাকে নিজের তলপেটের নীচে।

ইসসসস……কত বড় ওর ওইটা। মাগোওওও……মনে হচ্ছে তলপেট ফাটিয়ে দেবে…ইসসস…কি গরম হয়ে আছে, মনে হচ্ছে তোয়ালের আড়ালে একটা গরম লোহার শাবল। আধবোজা চোখে রণের দিকে তাকিয়ে অস্ফুস্ট আওয়াজে বলে উঠলো কামাসিক্তা মহুয়া, “কি হল রে সোনা, কেন এমন করে ধরে রেখেছিস আমাকে? ছেড়ে দে আমাকে। প্লিস যেতে দে”। মুখে বলছে বটে মহুয়া, তবে নিজেকে ছাড়াবার একটুও চেষ্টা করতে চাইছে না কামাসিক্তা মহুয়া।

“ইসসসসস কি নরম শরীরটা মা তোমার। মনে হচ্ছে সারারাত তোমাকে এমন করে জড়িয়ে ধরে থাকি। আহহহহহ……মা গো……”, বলে মহুয়ার কোমরের পেছনে চাপ দিয়ে আরও জোরে নিজের নিম্নাঙ্গের সাথে চেপে ধরল রণ। মাথাটা টলে যাচ্ছে মহুয়ার। চোখের পাতা ভারী হয়ে ভারী হয়ে বন্ধ আসছে। কি সুন্দর একটা মাতাল করা গন্ধ ভেসে আসছে রণের শরীর থেকে। রণ মাথাটা ঝুকিয়ে মুখটা নিচু করে মহুয়ার গলার কাছে নিয়ে এলো। খড়খড়ে জিভটা বার করে মহুয়ার গলার কাছটা চাটতে শুরু করলো। মা ছেলে চটি

ওফফফফফ……কি শুরু করেছে ছেলেটা। ইসসসস……কি মারাত্মক সুখে ভরিয়ে দিচ্ছে ও আমাকে। আর দাঁড়াতে পারছেনা মহুয়া। আহহহহহ……করে একটা শীৎকারের আওয়াজ বেড়িয়ে আসলো মহুয়ার গলা থেকে। যেন রণ কে তার সুখের কথা জানান দিলো। মায়ের মুখে আওয়াজ টা শুনে রণের দেহে মনে যেন আগুন লেগে গেলো।

“আহহহহ…কেমন লাগছে মা”? মহুয়ার গলার কাছ টায় ঠোঁট আর জিভ টা আসতে আসতে ঘসতে ঘসতে কানের কাছে ফিসফিস করে বলে উঠলো রণ। “আহহহহহ……” মনে হল কানের মধ্যে কেও গরম উত্তপ্ত লাভা ঢেলে দিলো মহুয়ার। ভীষণ দুষ্টুমিতে পেয়ে বসেছে ছেলেকে। “ওফফফফফ……প্রান আমার তুমি, একটু ভালো করে আদর করতে দাও না মা”।

উম্মম্মম্ সোনা আমার…বড্ড দুষ্টু হয়ে গেছিস……ভীষণ ভালো লাগছে রে………উম্মম একি করছিস…………… আমাকে……আহহহহ…নাআআ……আর নাআআ…”, অস্ফুস্ট হিসহিসানি শীৎকারে, রণের রক্তে আগুন ধরিয়ে দেয় মহুয়া। মাকে ধরে পুতুলের মতন ঘুরিয়ে দেয় রণ। আক্রমন করতে চায় মায়ের সুডৌল নিতম্বকে। মহুয়ার শাড়ীর আঁচল নীচে পড়ে লুটোতে লাগলো। পেছন থেকে মহুয়াকে জড়িয়ে ধরে, হালকা ঠেলে সামনের দেওয়ালের সাথে চেপে ধরে। মা ছেলে চটি

মহুয়ার পীনোন্নত স্তন পিষ্ট হতে থাকে সামনের দেওয়ালে। “আহহহহ……লাগছে সোনা……গোঙানির মতন আওয়াজ বেড়িয়ে আসে মহুয়ার গলার থেকে। পেছন থেকে দেওয়ালের সাথে মহুয়াকে ঠেসে ধরে কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিসফিস করে বলে ওঠে রণ, “আহহহহ…কিছু বোলো না মা…… ওফফফফ……”, মায়ের নাভির কাছ টা চেপে ধরে টেনে নিজের পুরুষাঙ্গের সাথে ঘসে দেয় রণ। “ইসসসসস……ছেলেটা পাগল হয়ে গেছে আজকে। মাগো কি গরম হয়ে আছে, ওর শাল গাছের গুঁড়ির মতন লিঙ্গটা”।

মহুয়ার ঘাড়ের কাছটা কামড়ে ধরে থাকে রণ। দুহাত দিয়ে মায়ের মসৃণ কোমরের মাংস খামচে ধরে রণ। “ওফফফফ……মা গো……আর ও ভালো করে আদর করতে দাও মা”। দাঁতে দাঁত চিপে বলে ওঠে রণ। রণ ধীর গতিতে কোমর নাড়িয়ে নাড়িয়ে নিজের বিশাল পুরুষাঙ্গ ঘসতে শুরু করে মহুয়ার সুগোল মাংসল নিতম্বের খাঁজে। নিতম্বের ওপর কঠিন উত্তপ্ত লিঙ্গের পরশে মহুয়ার দেহ অবশ হয়ে আসে।

ছেলের পুরুষাঙ্গ ঘষার তালে তালে না চাইতেও মহুয়া নিজের নিতম্ব পেছন দিকে উঁচিয়ে ধরে ছেলের নিষ্পেষণের কামুক আদর উপভোগ করতে শুরু করে। মহুয়ার বুকের আগুন দাউ দাউ করে জ্বলে ওঠে। মদমত্ত বিশাল বলশালী রণের দেহের চাপে মহুয়ার বড় সুগোল স্তন গুলো থেবড়ে যায় দেওয়ালের সাথে। স্তনবৃন্ত শক্ত হয়ে ওঠে, ব্লাউস আর ব্রায়ের ভেতর বন্দিনী পায়রার মতন কোমল স্তন জোড়া মুক্তি পাওয়ার জন্য হাঁসফাঁস করে ওঠে। মা ছেলে চটি

রণ নিজের পা দুটো অনেক টা ফাঁক করে ভারী প্রশস্ত বুক নিয়ে মায়ের পিঠে ঝুকে পড়ে দুল সুদ্ধ কানের লতিটা মুখের মধ্যে পুরে চুষতে শুরু করে। একহাত দিয়ে মায়ের শাড়ীর কুঁচির জায়গাটা টেনে ধরে, নিজের পুরুষাঙ্গটা প্রচণ্ড গতিতে ঘসতে শুরু করে। রণের তোয়ালের ভেতরে ফুঁসে ওঠে ওর বিশাল পুরুষাঙ্গ।

তোয়ালের গিঁট প্রায় খুলে এসেছে। মহুয়ার কানের লতি চুষে চুষে লাল করে দিচ্ছে রণ। মাথাটা আরও ঝুকিয়ে রণ মহুয়ার কানের কাছে মুখটা এনে ধীর কিন্তু আদেশের সুরে বলল, ওফফফ…… আরও ছড়িয়ে দিতে পারছো না তোমার পা দুটো?

থরথর করে কেঁপে ওঠে মহুয়ার পুরুষ্টু জঙ্ঘা। নিজের থেকেই নিজের ভারী সুডৌল নিতম্বকে আরও পেছনে ঠেলে রণের বিশাল লিঙ্গকে পাছার খাঁজে ঘসতে শুরু করে ধীরে ধীরে। পা দুটো যতটা সম্ভব মেলে ধরার চেষ্টা করে, কিন্তু শাড়ীর জন্য সুবিধা করতে পারেনা। ব্যাপারটা রণের ও নজর এড়ায় না। কি হল মা, কষ্ট হচ্ছে তোমার? আমার আদর তোমার ভালো লাগছে না? মহুয়ার শরীর যেন আর তার আয়ত্তে নেই। “না রে সোনা। এবারে ছেড়ে দে আমাকে। তুই কি পাগল হয়ে গেছিস রে”? মা ছেলে চটি

বলে দেওয়ালের থেকে মুখ তুলে ঘুরে দাঁড়াল, রণের বিশাল বুকে হাত দিয়ে। রণ তখন হাঁপাচ্ছে। থরে থরে সাজানো পেশীগুলো নিঃশ্বাসের সাথে সাথে উঠছে নামছে। রণ বুঝতে পারে, শাড়ী পড়ে থাকায় মায়ের অসুবিধা হচ্ছিল। ও নিজেও যেন ঠিক আরাম পাচ্ছিলো না। “ইসসস যদি শাড়ী টা না থাকতো ভীষণ সুবিধা হতো রণের। মাগোওও………আজকের রাতটা কেমন করে কাটবে” ভাবতে ভাবতে শিউরে ওঠে মহুয়ার লাস্যময়ী ভরাট শরীর।

“এখন আমি বাথরুমে যাই সোনা। পরে তোকে আমি অনেক আদর করে দেব। তুইও করিস আদর। তোর আদর পেলে আমার বয়স কমে যায় রে। নে লাইট বন্ধ করে শুয়ে পড়, আমার কথা চিন্তা করতে করতে, দেখবি ঘুম এসে যাবে”। “না মা, তুমি যেও না আমার কাছ থেকে। কত ইচ্ছে করে তোমার পেটে একটু হাত রেখে ঘুমোই, তুমি টো হাতই দিতে দাও না। একটুও ভালবাসনা তুমি আমাকে। আদুরে কণ্ঠে বলে উঠলো রণ মায়ের হাত টা ধরে”। “দুষ্টু ছেলে আমার, অনেক ভালবাসি রে তোকে। তোকে ভালবাসব না তো কাকে বাসবো রে?

তুই আমার সবকিছু। তুই আমার ছেলে, তুই আমার প্রেমিক, সবকিছু তো তুই। এখন আমাকে যেতে দে, তোর ইচ্ছা দেখবি ঠিক পুরন হবে। তোকে যে ওড়নাটা দিলাম সেটা পড়ে শুয়ে পড়। নাহলে কিন্তু আমি খুব বকবো তোকে”। কথাটা বলার সময় মহুয়ার চোখে মুখে কেমন একটা দুষ্টুমির হাসি লক্ষ্য করলো রণ। “তাহলে কি রাত্রে মায়ের মনে কোনও গুপ্ত পরিকল্পনা আছে? দেখাই যাক না। নাহহহ… আজকের রাতটা দেরী করেই ঘুমবে সে”। মা ছেলে চটি

বাইরের বৃষ্টিটা কিছুক্ষনের জন্য থেমেছিল। এখন আবার মেঘের আওয়াজ আর বিদ্যুতের ঝলকানি শুরু হল। প্রকৃতি যেন উন্মাদ হয়ে উঠেছে, তাঁদের মতন। দরজাটা হালকা করে বন্ধ করে তোয়ালে টা খুলে, মায়ের দেওয়া ওড়নাটা কোমরে জড়িয়ে নিল, লুঙ্গির মতন করে। রণের বেশী উচ্ছতার জন্য, ওড়নাটা চওড়ায় ওর হাঁটু অব্দি এসে শেষ হয়ে গেলো। আয়নার সামনে দাড়িয়ে নিজেকে ভালো করে দেখে নিল। ওড়নাটা এতোটাই পাতলা ফিনফিনে যে, ওর যৌনাঙ্গের চারিপাশের কুঞ্চিত কেশগুলো অব্দি স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে।

ক্রিমটা বের করে আনল রণ। হাতে অনেকটা ক্রিম বের করে, নিম্নাঙ্গে পড়ে থাকা ওড়নাটা সরিয়ে বের করে আনল তার উত্থিত বিশালাকার পুরুষাঙ্গকে, ছড়ে যাওয়া জায়গাটা এখন অনেক ভালো। ব্যাথাটাও কমে গেছে। ভালো করে অনেকটা ক্রিম লাগাল রণ ওই জায়গাটায়। রাত বেড়েই চলেছে। বাইরের একঘেয়ে বৃষ্টির আওয়াজ ছাড়া চারিদিক নিস্তব্ধ। কোথাও একটা কুকুর ডেকে উঠলো। একটা কুকুরের ডাক শেষ না হতেই ওদের কলোনির ভেতর থেকে আরও কয়েকটা কুকুর ডেকে উঠলো, প্রায় উদম হয়ে শুয়ে আছে রণ।

তার দেহে বস্ত্র বলতে মায়ের দেওয়া একমাত্র ফিনফিনে ওড়না। যেটা পরা না পরা সমান। রাত তখন গভীর। তীব্র যৌন আবেদনময়ী মায়ের কথা চিন্তা করতে করতে কখন যে একটু ঘুমিয়ে পড়েছিল রণ, বুঝতে পারেনি। কড়……কড়…কড়াত……আওয়াজে বাজ পড়লো কোথাও। সাদা আলোর ঝলকানিতে আকাশ ভরে গেলো কয়েক মুহূর্তের জন্য। ঘুম টা ভেঙ্গে গেলো রণের। শুধু চোখ বুজে শুয়ে থাকল।
খুঁটটট……করে একটা কিসের শব্দ হল। সচকিত হয়ে উঠলো রণ। কারো অতি সন্তর্পণে চলা পায়ের আওয়াজ। মা ছেলে চটি

আওয়াজ টা ধীরে ধীরে তার ঘরের দরজার সামনে এসে থেমে গেলো। দরজাটা ধীরে ধীরে খুলে গেলো রণের ঘরের। ঘরের মধ্যে জমাট বাঁধা অন্ধকারের মধ্যে রণ বুঝতে পারলো তার মা মহুয়া এসে তার বিছানার পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু এটা কি পরে আছে মা? তখনি আর একবার বিদ্যুতের ঝলকানি তে আকাশ ফালা ফালা হয়ে গেলো। সেই আলোতে দেখতে পেল, মায়ের পরনে শুধু মাত্র একটা ছোট্ট স্কার্ট। ওপরে একটা একটা ঢিলে টপ।

শুতে যাওয়ার আগে মহুয়া রণের রুম থেকে বেড়িয়ে এসে বাথরুমে এসে নিজের পরনের শাড়ী সায়া ভিজে প্যান্টিটা খুলে ভালো করে নিজের গায়ে হাত পা জল দিয়ে সাবান দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করে একটা তোয়ালে জড়িয়ে নিজের রুমে এসে বেডরুমের দরজা বন্ধ করে দেয়। ছেলেটা আজকে পাগল হয়ে আছে একদম। “ইসসসস…কি ভাবে ওকে দেওয়ালের সাথে চেপে ধরে ওর সুডৌল নিতম্বের খাঁজে নিজের বিশাল লিঙ্গটা ঘসছিল। ভাগ্যিস শাড়ী পরা অবস্থায় ছিল সে, নাহলে কি হতো কে জানে”।

ভাবতে ভাবতে সকালের কেনা ড্রেস গুলো বার করে আনে আলমারি থেকে। একটা ঢিলা ছোট স্কার্ট কিনে এনেছে নিজের জন্য। ইসসসস দোকানে কি লজ্জা করছিলো, এটা কেনার সময়, দোকানের ওই ছেলেটা এই স্কার্ট টা দেওয়ার সময় কেমন ভাবে ওর দিকে তাকাচ্ছিল। ভেতরে একটা প্যান্টি পড়ে নেয় মহুয়া। ওপরে সুদু একটা ঢিলা ছোট টপ পড়ে নেয়। ছেলের ভীষণ ইচ্ছে ওর পেটে হাত দেওয়ার। বিছানায় শুয়ে রণের কথা চিন্তা করতে করতে রাত গভীর হওয়ার অপেক্ষা করে। আজ সে মনে মনে ঠিক করে নেয়। মা ছেলে চটি

রণ ঘুমিয়ে পড়লে, চুপটি করে ওর পাশে গিয়ে শুয়ে পড়ে ওকে চমকে দেবে। কথাটা চিন্তা করে, নিজের ঠোঁটে একটা বাঁকা হাসি খেলে যায় মহুয়ার। ছেলের বিছানার পাশে দাড়িয়ে থাকে মহুয়া। জমাট অন্ধকারে কিছুই দেখা যাচ্ছেনা। ছেলেটা ওষুধ লাগাল কি না কে জানে? রণের মাথার বালিশের পাশেই ওর মোবাইল টা থাকার কথা। অন্ধকারের মধ্যে হাতড়ে মোবাইল টা হাতে পেয়ে গেলো মহুয়া। বড় লাইট টা অন করলে ছেলের ঘুম ভেঙ্গে যেতে পারে। সেই ভেবে বড় লাইট টা না জ্বালিয়ে মোবাইলের আলোটা অন করলো মহুয়া।

মোবাইলের আলোটা রণের শরীরে পড়তেই শিউরে উঠলো মহুয়া। ইসসসসস কি ভাবে শুয়ে আছে ছেলে। পরনের ওড়নাটা সরে গেছে। দুপায়ের মাঝে যেন একটা দৈত্য মাথা উঁচু করে দাড়িয়ে আছে। এতো বড় পুরুষাঙ্গ হয় নাকি কারো। মাগো, রণের বিশাল উত্থিত দৈত্যাকার পুরুষাঙ্গ দেখে মহুয়ার শরীরে কাঁপন দেখা দেয়। এতো বড় আর মোটা……বিস্ফারিত চোখে তাকিয়ে দেখতে দেখতে শিরশির করে ওঠে মহুয়ার দেহ। লিঙ্গের গায়ে মোটা মোটা শিরা গুলো উঠে আছে।

লিঙ্গের মাথায় চামড়া না থাকায় লিঙ্গের মাথাটা টমাটোর মতন লাল হয়ে চকচক করছে। ইসসস…… ভীষণ হাত দিতে ইচ্ছে করছে। মহুয়ার ঠোঁটে এক কাম মোহিনী হাসি খেলে যায়। জ্বল জ্বল করে ওঠে ওর চোখ গুলো। যেন ক্ষুধার্ত নেকড়ের সামনে তার শিকার পড়ে রয়েছে। মহুয়ার মাথা ঝিমঝিম করে ওঠে। ওফফফফ একি পেটানো পেশীবহুল শরীর বানিয়েছে তার ছেলে। ঝড় বৃষ্টি ভরা এই দুর্যোগের রাত্রে ছেলেকে এমন অবস্থায় পেয়ে দেহের ভেতরে এক উষ্ণ রক্ত প্রবাহ খেলে গেলো মহুয়ার।

মহুয়ার মাধুর্য্য- 9 by Rajdip123

Leave a Comment