bangla chiti ত্রিভূজ প্রেম বন্ধন প্রথম অধ্যায় – 1

bangla chiti. আমার জন্ম কলকাতায়, এবং সেখান থেকেই লেখাপড়া করে পশু চিকিৎসায় স্নাতক পরীক্ষা পাস করি। আমার বাবা – মা দুজনেই চাকরি করেন এবং আমি তাঁদের একমাত্র সন্তান। পশু চিকিৎসায় স্নাতক হবার পর, আমি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অধীনে পশু চিকিৎসকের একটি চাকরি পাই এবং আমার প্রথম চাকরিস্থল মালদা শহরে হয়।

আমার মাসি, মা এর দিদি, মালদা শহরে থাকেন এবং আমি আমার বাবা – মায়ের সাথে স্কুলের গরমের ছুটির সময় ছোটবেলায় কয়েক বার মালদা, মাসি বাড়ি বেড়াতে এসেছিলাম। তিন বছর আগে, আমার মাসতুতো দাদা, সুভাষ যখন হটাৎ বিয়ে করলো, এবং মাসি মেসো বিয়েটা শেষ পর্যন্ত মেনে নিয়ে সব আত্মীয় দের ডেকে একটি বিয়ের অনুষ্ঠান করলো, তখন আমরা সবাই মালদা গিয়েছিলাম। শেষ বার আমি মালদা গিয়েছিলাম, প্রায় আড়াই বছর আগে, আমার মেশোমশাই এবং আমার মাসতুতো দাদার মৃত্যু সংবাদ পেয়ে।

bangla chiti

(লেখকের দ্রষ্টব্য:

১. এই গল্পটি, পশ্চিমবঙ্গের একটি যুবক, কৌশিক, তার মাসতুতো বোন রত্না, এবং তার মাসতুতো ভাইয়ের বিধবা স্ত্রী গীতা, কে নিয়ে একটি কাল্পনিক অজাচারের কাহিনী।

২. গল্পের সমস্ত চরিত্রের বয়স ১৮ বছরের বেশি।

৩. গল্পটি কিছুটা বড় এবং তাই সব পাঠকদের কাছে আমার অনুরোধ, আপনারা একটু ধৈর্য্য ধরে গল্পটি পড়ুন। আশা করি ভালো লাগবে।)

আমার মেশোমশাই, মাসি এবং তাঁদের ছেলে, সুভাষ,(আমার মাসতুতো দাদা), আসানসোল থেকে মালদায় বাসে করে ফিরছিলো। রাস্তার অবস্থা খুবই খারাপ ছিল, এবং বাসের চালক হটাৎ নিয়ন্ত্রণ হারায়, আর একটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা মারে, ফলে পাশে বিরাট এক পুকুরের মধ্যে বাসটি উল্টে পরে।

আমার মেশোমশাই এবং আমার মাসতুতো দাদা, দুজনাই ঘটনাস্থলেই মারা যান এবং আমার মাসি তার দুটো পা হারান। ওদের পরিবারে শুধু তাঁদের মেয়ে রত্না এবং তাদের পুত্রবধূ গীতা, একমাত্র সক্ষম দেহী ব্যক্তি রয়ে গেলো। তারা দুইজন বেঁচে গিয়েছিলো কারণ ওরা আসানসোলে, গীতার বাপের বাড়িতে এক সপ্তাহের জন্য থেকে গিয়েছিলো। bangla chiti

তাহাদের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সমাপ্ত হলে আমি বাড়ি ফিরে আসি। লেখাপড়ায় ব্যস্ত থাকার জন্য আমি আর মালদায় যাইনি। কেবলমাত্র আমার বাবা-মা প্রতি মাসে একবার বা দুইবার, সপ্তাহের শেষে মালদায় গিয়ে তাদের যত্ন সহকারে পরিদর্শন করে আসতেন। এই যাওয়া নিয়ম মাফিক এক বছর চলেছিল, যতক্ষণ না তারা কিছুটা সচ্ছল হয়ে উঠতে পড়লো।

ব্যক্তিগতভাবে আমি আমার মাসতুতো দাদা সুভাষ, বা আমার মাসতুতো বোন রত্নার সাথে খুব যে একটা সংযুক্ত ছিলাম তাহা নয়। সুভাষ, আমার চেয়ে দুই বছরের বড় ছিল এবং রত্না, আমার থেকে তিন বছরের ছোট ছিল। মালদায় বিবাহ অনুষ্ঠানের সময় আমার প্রথম আলাপ হয় সুভাষদার নতুন বৌ, গীতা বৌদির সাথে, কিন্তু খুব একটা কথা হয়নি। আসলে আমি পরের দিন কলকাতায় ফেরত চলে আসি।

সুভাষদা আসানসোলে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে গিয়েছিলো। সেখানেই গীতার সাথে দেখা, আলাপ আর প্রেম হয়। গীতার বাবা – মা যখন জানতে পারলো তখন তারা গীতার প্রেম করা টাকে ভীষণ ভাবে আপত্তি করে, আর গীতাকে ঘর থেকে বেরোনো প্রায় বন্ধ করে দেয়। কিন্তু গীতার কলেজের বি. এ. দ্বিতীয় বছরের পরীক্ষার শেষ দিন গীতা আর সুভাষদা পালিয়ে গিয়ে একটি মন্দিরে বিয়ে করে। গীতার বাবা – মা জানতে পেরে মেয়েকে তেজ্য কন্যা করেন। bangla chiti

আমার মাসি এবং মেসো এই বিয়েটা মেনে নেয়, আর প্রায় ছয় মাস ধরে চেষ্টার পর গীতার বাবা – মা কে রাজি করাতে সক্ষম হন তাঁদের সাথে কথা বলতে আর বিয়েটা মেনে নিতে। সেই কারণেই মেসো তার সম্পূর্ণ পরিবার নিয়ে আসানসোল গেলেন। মোটামুটি বাপ – মেয়ের মধ্যে বিবাদ কিছুটা শান্ত হবার পর, গীতার মায়ের অনুরোধে, গীতা আর রত্না এক সপ্তাহের জন্য আসানসোল থেকে গেলো আর মেসো, মাসি এবং সুভাষদা আসানসোল থেকে মালদা বাসে করে ফিরছিলো, কিন্তু এমনি দুর্ভাগ্য, একটি মর্মান্তিক দুর্ঘটনায়.

পরিবারের দুজনার মৃত্যু হলো আর একজন দুটো পা কাঁটা যাবার ফলে, সারা জীবনের জন্য পঙ্গু হয়ে গেলো। মর্মান্তিক দুর্ঘটনার পরপরই গীতার বাবা-মা তাদের মন বদলেছিল এবং তাদের মেয়েকে তাদের পরিবারে মেনে নিতে অস্বীকার করে নিন্দা করে। যাইহোক, রত্না এবং গীতা একে অপরকে আঁকড়ে ধরে একসাথে থাকতে লাগলো এবং আমার মাসির দেখাশোনা করতে লাগলো, যিনি পঙ্গু হয়ে বিছানায় শয্যাশায়ী হয়ে পড়েছিলেন।

রত্না তার স্নাতক শেষ করে এবং প্রায় এক বছর আগে, একটি স্থানীয় স্কুলে চাকরি অর্জন করে এবং তার উপার্জনের ফলে পরিবারটি কিছুটা সচ্ছল হয়। তারা সুবিচারের সাথে বীমার অর্থ বিনিয়োগ করেছিল এবং ব্যয়িত সুদের থেকে একটি মাসিক বার্ষিকী পেতো। তারা আর্থিক দিক থেকে পুরোপুরি সচ্ছল না হলেও তারা কোনও আর্থিক সমস্যায় পড়েনি। bangla chiti

আমার বাবা-মা যখন জানতে পারলেন যে আমি মালদায় পোস্ট হয়েছি তখন তারা স্বস্তি পেয়েছিল যে আমাকে থাকা খাওয়া নিয়ে কোনো সমস্যায় পড়তে হবে না এবং আমার মাসির বাড়িতেই থাকতে পারব। সেই অনুসারে তারা আমার মাসিকে জানায়। আমি তাদের সাথে থাকতে দ্বিধা বোধ করছিলাম কারণ আমি তাদের উপর বোঝা হতে চাইনি, আমার মাসির পঙ্গু হওয়ার সাথে এবং অসুস্থ বৃদ্ধ মহিলাকে দেখাশোনা করার জন্য দুটি যুবতী কঠোর প্রচেষ্টা করে যাচ্ছিল।

তবে আমার বাবা-মা জোর দিয়ে বলেছিলেন যে তাদের পরিবারের কোনও পুরুষ সদস্য নেই, আর আমি গেলে, তারা আরও সুরক্ষিত বোধ করবে এবং আমি পরিবারের সদস্য হিসাবে তাদের প্রতিদিনের কাজে তাদের সাহায্য করতে পারবো। আমি এক শনিবার বিকেলে মালদা পৌঁছলাম, আমার মাসির সাথে দেখা করলাম এবং আড়াই বছর পর রত্না এবং গীতার সাথে দেখা হলো। উভয় মেয়েই প্রায় সমবয়সী ছিল। আমি জানতাম যে রত্না ২২ বছর বয়সী, কারণ সে আমার থেকে ৩ বছর ছোট ছিল। গীতা, রত্নার প্রায় একই বয়সের কাছাকাছি মনে হলো। bangla chiti

তারা আমাকে দোতলায় আমার ঘরটি দেখাল, যার বাইরে থেকে একটি আলাদা সিঁড়ি ছিল এবং অন্য কক্ষগুলির থেকে স্বতন্ত্র ছিল। তাঁদের বাড়িটি দোতলা ছিল, একতলায় একটি বড় হল ঘর, একটি রান্নাঘর এবং একটি শোবার ঘর, যার সাথে লাগোয়া একটি বাথরুম ছিল। একটি সিঁড়ি বড় হল ঘরটির থেকে দোতলায় উঠে গিয়েছিলো। দোতলায় দুটো আরো শোবার ঘর বা বেডরুম ছিল, এবং প্রত্যেকটি শোবার ঘরের সাথে একটি করে লাগোয়া বাথরুম ছিল এবং একটি খুব ছোট ঘর ছিল।

একটি বেডরুম, তার লাগোয়া ছোট ঘর বা ড্রেসিংরুম বলা যায়, এবং বাথরুমকে অন্য বেডরুম থেকে আলাদা করে, বাইরের থেকে প্রবেশ করার জন্য একটি সিঁড়ি তৈরী করেছিল, ঘরটিকে ভাড়া দেবার উদ্দেশ্যে। তাহলেও, দুটো বেডরুমের মধ্যে একটি সংযোগকারী দরজা ছিল, এবং সেটা তালা লাগানো ছিল। কিন্তু আমি তাঁদের বাড়িতে পৌঁছাবার পর তারা সেই সংযোগকারী দরজাটি খুলে দিলো আর আমাকে বললো যে আমি যেন ঘরের ভেতরের সিঁড়ি দিয়ে খাবার খেতে ওঠানামা করি। bangla chiti

আমার বেডরুমটি বেশ প্রশস্ত এবং আলো বাতাস ময় ছিল। অবিবাহিত থাকায়, আমার বিশেষ মালপত্র ছিলোনা আর আমি তাড়াতাড়ি আমার জামাকাপড় স্যুটকেস থেকে বের করে গুছিয়ে রাখলাম। স্নান করে ঘরে রাখা বড় খাটে বিছানা পাতা ছিল, তার উপর শুয়ে পড়লাম এবং পরিশ্রান্ত থাকার জন্য ঘুমিয়ে পড়লাম। আমার ঘুম ভাঙলো, সংযোগকারী দরজায় টোকা মারার আওয়াজে। দরজাটা খুলে দিতে দেখি রত্না আর গীতা চা আর হালকা ভাজাভাজি নিয়ে দাঁড়িয়ে। তারা ঘরে ঢুকলো, আর যেহেতু ঘরে কোনো চেয়ার ছিলোনা, আমরা চা জলখাবার নিয়ে বিছানায় বসলাম।

আমার মধ্যে একটা ইতস্তত ভাব ছিল, ঠিক কি বলবো ভেবে পাচ্ছিলাম না। রত্না পরিবেশটিকে হালকা করলো আমাকে সরাসরি উদ্দেশ্য করে কথা বলে, “কৌশিকদা, তুমি আর গীতা বৌদি তো একে অপরকে খুব ভালো ভাবে চেনোনা।”

আমি উত্তর দিলাম, “আমার সাথে ওনার মাত্র দুবার দেখা হয়েছে এবং আমি ওনার সাথে কথা বলার বিশেষ সুযোগ পাইনি।”

গীতা বৌদিও বললো, “আমি তোমাকে আমাদের বিয়ের অনুষ্ঠানে আর শ্রাদ্ধের দিন দেখেছি। তোমার বাবা – মায়ের সাথে বেশ কয়েকবার দেখা হয়েছে, যখন ওনারা আসতেন, এবং তাঁদের মুখেই তোমার কথা শুনেছি।”

“হ্যা, বাবা – মা ও তোমাদের খুব প্রশংসা করে,” আমি উত্তর দিলাম। আমরা চা খেতে খেতে গল্প করে গেলাম। আমি গীতা বৌদিকে, বৌদি বলে সম্বোধন করছিলাম গল্প করার সময়, রত্না তখন বললো, “আমরা একে অপরকে নাম ধরে ডাকি, বৌদি, ঠাকুরঝি ইত্যাদি, বলে সম্বোধন করি না।” bangla chiti

আমি গীতা বৌদির দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞাসা করলাম, “তোমাকে কি বলে ডাকবো?”

“কেন আমার নাম ধরে, শুধু গীতা বলে ডাকবে,” গীতা উত্তর দিলো।

তাহারা কথায় কথায় জিজ্ঞেসা করলো আমার কিছু চাই কিনা আর কোনো অসুবিধা হচ্ছে কিনা, আর আমি জানালাম যে আমি বেশ আরামেই আছি এবং কিছুই আপাতত লাগবে না।

আমি তাঁদের জিজ্ঞেস করলাম, “তোমরা এই ঘরটিকে পুরোপুরি আলাদা কবে করলে, শেষ বার যখন এসেছিলাম তখন তো এই ঘরটা আলাদা ছিল না আর বাইরের থেকে সিঁড়িও ছিল না?”

রত্না উত্তর দিলো, “আসলে আমরা ঘরটিকে ভাড়া দেবো ভেবেছিলাম তাই এই ঘরটিকে আলাদা করা হয়েছিল। আমরা কোনো স্বামী – স্ত্রী দুজনেই কাজ করে সেই রকম ভাড়াটে দম্পতি খুজছিলাম, কিন্তু সেই রকম কোনো ভাড়াটে পাই নি।”

আমি এই শুনে সঙ্গে সঙ্গে বললাম, “তাহলে তো আমার কাছ থেকেও তোমাদের বাড়ি ভাড়া নিতে হবে, অন্যথা আমাকে তোমরা বাধ্য করবে অন্য কোনো বাড়ি খুঁজতে।” bangla chiti

আমার কথা শুনে, দুজনেই একটু স্তব্ধ হয়েগেলো, আর গীতা তারপর বললো, “কৌশিক, তুমি আমাদের বাড়ির একজন সদস্য, আর আমরা ভীষণ খুশি হয়েছিলাম যে তুমি আমাদের সঙ্গে আমাদের বাড়িতে থাকবে জেনে। আজ আমাদের এই ঘরটির জন্য ভাড়া দেবার চেষ্টা করে আমাদের অপমান কোরোনা, আমরা খুব দুঃখ পাবো। রত্না আর আমি দুজনেই খুব একাকী, আর আমরা যখন শুনলাম তুমি আমাদের এখানে আসছো, আমরা দুজন প্রচন্ড ভাবে উৎফুল্ল হয়ে উঠেছিলাম, তাই আমাদের মন ভেঙে দিও না।”

আমি অনেক যুক্তি দিয়ে ওদের বোঝাতে চেষ্টা করলাম, কিন্তু ওরা তাঁদের সিদ্ধান্তে অনড় রইলো আর আমাকে জানালো যে ঘরটি ভাড়া দেবার পরিকল্পনাটা তখন নেওয়া হয়েছিল যখন তাঁদের আর্থিক অবস্থা খারাপ হতে পারে ভেবে, কিন্তু রত্না চাকরি পাবার পর তাঁদের আর কোনো আর্থিক সমস্যা হয় নি, তাই তারা আর ভাড়াটে খোঁজেনি। আমার আর তার উপর বলার কিছুই ছিল না।

আমি তাদের কাছ থেকে শুনলাম যে তারা দুজনেই খুব সকালে ঘুম থেকে উঠে তাদের মায়ের সমস্ত কাজ সম্পাদন করে, তাকে পরিষ্কার করা, খাওনো, স্নান করানো, ইত্যাদি। রত্না সকাল ৮ টা নাগাদ তার কাজে বেরিয়ে যায় আর ফেরে দুপুর ১ টা নাগাদ। সে কাছেই একটি প্রাইমারি স্কুলে শিক্ষিকার কাজ করে। গীতা বাড়িতেই থাকে, দুপুরের রান্নাবান্না করে, ঘরদোর পরিষ্কার করে, শাশুড়ির দেখাশুনা করে। বিকেলে দুজনে মিলেমিশে রাতের রান্না করে আর মাসির দেখাশুনা করে। bangla chiti

রাত ১০ টা নাগাদ মাসিকে খাইয়ে, বিছানায় শুইয়ে দেওয়া হয়। রত্না আর গীতা পালা করে একজন মাসির সাথে রাত্রে তার ঘরে শোয়। এক রাতে রত্না তার মায়ের সাথে ঘুমাতো এবং পরের রাতে গীতা তার শাশুড়ির সাথে ঘুমাতো। এই ব্যবস্থাটি করা হয়েছিল যাতে প্রয়োজনে রাতে তারা মাসিকে সাহায্য করতে পারে। আমার কর্মস্থল মাসির বাড়ির থেকে প্রায় ৫ কি.মি. দূরে ছিল আর সকাল ১০ টার থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত আমাকে সেখানে থাকতে হতো। এটি একটি সরকারি পশু চিকিৎসালয়।

আমি সকালে বাড়ির থেকে জলখাবার খেয়ে চিকিৎসালয় যেতাম। দুপুরের খাবার, পাশেই একটি হোটেল থেকে আনিয়ে নেবার ব্যবস্থা করেনিলাম। রাত্রের খাবার মাসি বাড়িতেই খেতাম। এই রাতের খাবারের সময়, একমাত্র সেই সময়, মাসি আমাদের সকলের সাথে তার হুইল চেয়ার এ বসে খাবার টেবিলে আমাদের সঙ্গে গল্প করতে করতে রাতের খাবার খেতো। আমরা খাবার টেবিলে বোসে সবাই বেশ খোলাখুলি গল্প করতাম আর বেশ হাসি ঠাট্টা করতাম।

তাহারা সাধারণত রাত সাড়ে আটটায় রাতের খাবার খেতে বসতো, আর সাড়ে নয়টায় গল্প শেষ করে উঠতো। আমিও সেই নিয়মেই চলতে লাগলাম। রাত ১০ টার মধ্যে মাসিকে শুইয়ে, হয় রত্না বা গীতা, যে মাসির সঙ্গে রাত্রে থাকছে না, সে দোতলায়, আমার শোবার ঘরের লাগোয়া, তাঁদের শোবার ঘরে গিয়ে ঘুমোতো।

প্রথম প্রথম আমি চেষ্টা করতাম, ওরা উপরে উঠে আসার আগে,আমি আমার শোবার ঘরে ঢুকে, সংযোগকারী দরজাটি বন্ধ করে দেবার, যাতে তারা যখন মাসিকে তার বিছানায় শুইয়ে, শুতে আসবে, তখন মেয়ে দুজনার কারো যেন অপ্রস্তুত না হতে হয় তাই। কিন্তু এক সপ্তাহ পর, সেই সংযোগকারী দরজায় টোকার আওয়াজ শুনে দরজা খুলে দেখি গীতা দাঁড়িয়ে আছে। আমাকে জিজ্ঞাসা করলো, “তুমি কি পরিশ্রান্ত, এখনি শুয়ে পড়বে?” bangla chiti

আমি উত্তর দিলাম, “না।”

গীতা বললো, “আমার ঘুম পাচ্ছে না, ভাবলাম একটু গল্প করি।”

আমি দুদিন আগে একটি চেয়ার কিনে এনেছিলাম, সেটিকে এগিয়ে দিয়ে গীতাকে বসতে দিলাম। গীতা একটি নাইট গাউন পরে ছিল, যেটি সে ভালো করে গুছিয়ে চেয়ারে বসলো আর আমি খাটে বিছানার উপর বসলাম। গীতা আমাকে আমার শৈশবের কথা নিয়ে অনেক প্রশ্ন করেছিল আর আমরা প্রায় এক ঘন্টা গল্প করলাম। গীতা তার শোবার ঘরে চলে গেলে পরে আমি আবার আমাদের দুটি ঘরের সংযোগকারী দরজা বন্ধ করে দিলাম।

এক সপ্তাহ ধরে, এক দিন বাদে একদিন রাত দশটায় গীতা আমার ঘরে এসে গল্প করে যেতো। এক সপ্তাহ পর, রত্নাও একই নিয়মে রাত দশটায় আমার ঘরে এসে গল্প করতে শুরু করলো। তাই প্রতি রাতেই খাওয়া দেওয়ার পর, আমি হয় গীতা বা রত্নার সাথে, প্রায় একঘন্টা আমার ঘরে বসে, গল্প করতে লাগলাম। ধীরে ধীরে আমাদের বন্ধুত্ব আরো গভীর হলো, আমরা আরো একে অপরের সাথে খোলাখুলি মিশতে লাগলাম। গীতা একদিন এইরকম গল্প করতে করতে আমাকে জিজ্ঞেস করলো, “কৌশিক, তোমার কি কোনো গার্ল ফ্রেন্ড আছে কলকাতায়, মানে কোনো ভালোবাসার পাত্রী?” bangla chiti

আমি হেঁসে ফেললাম এবং ওর দিকে তাকিয়ে উত্তর দিলাম, “আচ্ছা, তুমি বলতো, কোন মেয়ে আমার গার্ল ফ্রেন্ড হবে, যখন সে জানতে পারবে যে আমি একজন গরু, ভেড়ার ডাক্তার? সারা দিন কুকুর, বিড়াল, গরু, মোষ, ইত্যাদি, ঘাঁটাঘাঁটি করে, হয়তো আমার শরীর থেকেও গবাদি পশুদের গন্ধ বের হয়।”

গীতা হেসে বললো, “যে কোনও মেয়ে তোমার সাথে থাকতে পছন্দ করবে, তুমি কিন্তু খুব সুদর্শন। আমার মনে হয় তুমি কোনো মেয়ের সাথে সঠিকভাবে বন্ধুত্ব করতে চেষ্টা করোনি।”

আমি উত্তর দিলাম, “আমাদের কলেজে খুবই কম মেয়ে পড়তো, একেবারে গুনতিতে না ধরার মতন, আর যে দু – এক জন ছিল, তাঁদের রূপ দেখে, তাঁদের সামনে থেকে পালতে পারলে আমরা বেঁচে যেতাম।”

সে ঠাট্টার ছলে প্রশ্ন করলো, “ওঃ, তা তুমি কি ধরণের মেয়ে পছন্দ কারো শুনি? কিরকম মেয়ে তুমি খুঁজছো?”

আমিও ঠাট্টার ছলে বললাম, “এই একটু সুন্দর মুখশ্রী হবে, কমনীয়, ভালো ফিগার থাকবে আর বেশ সেক্সি হবে।”

আমার বর্ণনা শুনে গীতা খালি হাঁসলো।

দুইদিন পর, শনিবার, আমি কর্মস্থল থেকে সাড়ে পাঁচটা নাগাদ বাড়ি ফিরলাম এবং সোজা আমার ঘরে ঢুকে গেলাম। বাথরুমের কল থেকে জল পড়ার আওয়াজ পেলাম এবং বাথরুম ভেতর থেকে বন্ধ দেখলাম। বুঝলাম কেউ বাথরুম ব্যবহার করছে। হয় গীতা বা রত্না আমার বাথরুম ব্যবহার করছে বুঝতে পারলাম, এবং আমি ঘর থেকে বেরিয়ে যাবো কিনা ভাবছিলাম যখন বাথরুমের দরজা খুলে গীতা বেরিয়ে আসলো। সে খালি একটি সায়া আর ব্লাউস পরে ছিল। তার ভিজে দুদু দুটো ব্লাউস এর ভিতর থেকে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল, দুধের বোটা দুটো খাড়া হয়ে ছিল। bangla chiti

আমি মুহূর্তের জন্য স্তব্ধ হয়ে তাকিয়ে রইলাম। গীতা, যেন এমন কিছুই হয়নি ভাব দেখিয়ে, হাসি হাসি মুখে বললো, “রত্না অন্য বাথরুমে স্নান করতে ঢুকেছে, তাই আমি ভাবলাম এই বাথরুমটি ব্যবহার করি।” আমি মাথা নাড়িয়ে জানালাম যে আমি বুঝেছি, আর গীতা আমার ঘর থেকে যেন পাছা দুলিয়ে তাঁদের ঘরে ঢুকে গেলো। তার পাছার গোল গোল ঢিপি দুটো বেশ বোঝা যাচ্ছিলো তোর সায়ার ভিতর থেকে, যেহেতু সায়াটি তার ভিজে শরীরের সাথে যেন লেপ্টে ছিল। তার পাছা দুলোনি আমার মনে হলো দুর্দান্ত সেক্সি।

গীতার দুদু এবং পাছার দৃশ্য আমাকেও উত্তেজিত করে তুলেছিল আর আমার লিঙ্গটি শক্ত হয়ে খাড়া হয়ে প্যান্টের ভিতর সোজা হয়ে দাঁড়াবার চেষ্টা করছিলো। রাত্রের খাওয়া দেওয়ার পর যখন গীতা গল্প করতে আসলো, আমার শান্ত হয়ে বসে গল্প করতে ভীষণ অস্বস্তি হচ্ছিলো। এক বার গীতা সামনের দিকে ঝুকে বসেছিল আর আমি তার দুধের খাজ পুরো দেখতে পারছিলাম। গীতা কোনো ব্রা পড়ে ছিল না আর আমি তার অর্ধেক দুদু দেখতে পারলাম। সেই রাত্রে আমি গীতাকে কল্পনা করলাম, আমার শরীরের নিচে নগ্ন অবস্থায় শুয়ে, যৌন তৃপ্তিতে তার শরীর মোচড়াচ্ছে, আর এই দৃশ্য কল্পনা করে, আমি হস্তমৈথুন করলাম।

স্বামী যখন দূরে

 

2 thoughts on “bangla chiti ত্রিভূজ প্রেম বন্ধন প্রথম অধ্যায় – 1”

Leave a Comment