bangla fuck story অসতী – 2 by অনঙ্গপাল

bangla fuck story choti. ঘরটা বেশ বড়, একদম মধ্যিখানে ডাবলবেড। ঢোকার কয়েক সেকেণ্ডেই দুগ্ধফেননিভশয্যায় আছড়ে পড়েছি। একা নই, আমার ঠিক উপরে শুয়ে পাগলের মত চুমু খেয়ে চলেছে রাফা। উন্নত গ্রীবা, সুডৌল কাঁধ বেয়ে বুকের নরম চাতাল- সর্বত্র দংশন করছে তীব্র কামনায়। কানের লতিতে জিভের গরম স্পর্শে হিসিয়ে উঠলাম। দু’হাতে বেড় দিয়ে কাছে টেনেছি ওকে। দু’জনের চোখেই প্রজ্বলিত ধিকিধিকি আগুন। প্রবল আশ্লেষে ঠোঁট চুষছি পরস্পরের। ধীরে ধীরে ওর হাত উন্মোচিত করছে আমায়।

মিনিস্কার্ট সরে গেল, পরনে শুধু অন্তর্বাস। এই প্রথম কোনও পরপুরুষের সামনে নিরাবরণ আমার বুকজোড়া। বিভাজিকার উপরে দুলছে সোনার লকেট, আমার আর উদ্দালকের বিবাহ-অভিজ্ঞান। নাকি আমার পরকীয়ার সাক্ষী? ভাবার সময় নেই। প্রগাঢ় সোহাগে দ্রবীভূত নারীসত্তা মিলনাকাঙ্ক্ষায় প্রসারিত করল দু’পা। সরাসরি আমন্ত্রণ গোপন বিবরে প্রবেশ করার।

রাফা কিন্তু এত অল্পে ধরা দিতে অনিচ্ছুক। ঈষৎ কর্কশ মুঠোয় ধরেছে নিটোল স্তন, অদ্ভুত দক্ষতায় সামান্য চাপ দিল। জীবনে প্রচুর নারীশিকারে অভিজ্ঞ হাতের স্পর্শে জেগে উঠল বৃন্তেরা। গোলাপকাঁটার আগায় দংশনের আকুল প্রত্যাশা। নিপুণ শিল্পীর হাতে অভ্রান্ত সুরে বাঁধা বাদ্যযন্ত্রের মত বেজে চলেছি। শরীর আর বশে নেই।

bangla fuck story

‘উম্মম্ম’, ভিতরের তোলপাড় শীৎকার হয়ে বেরিয়ে এল। বুকে ওর লেহনের সিক্ত অনুভব। নির্দয়ভাবে চুষছে উন্মুখ বোঁটাদের। কামড়াচ্ছে অ্যারিওলায়। অসহ্য পীড়নে কতকাল বাদে আবারও রোমাঞ্চিত এ নারীবক্ষ!

শরীর জুড়ে কামনাপোকার দংশন। আর পারছি না। বেশ কিছুক্ষণ ধরে নাভির কাছে প্রত্যাশিত আঘাতে বারেবারে কেঁপে উঠছিলাম। এবারে উদ্যত হয়েছি তার উৎস সন্ধানে। হাতের মুঠিতে ওর স্পর্ধিত পৌরুষ। ‘ওঃ!’ অজান্তেই চমকে উঠেছি। এত বড়? বহুদিনের উপবাসী নারীদেহ ভুলে গেছে সব সংস্কার। এক হাতে ওর লৌহোত্থানকে চটকাচ্ছি মনের সুখে, অন্যটা ওর চুলের মাঝে… বুকের উপরে মাথাটা চেপে ধরেছে তীব্র লালসায়।

নির্মম পুরুষ এই সুযোগের অপেক্ষাতেই ছিল বুঝি, অসহনীয় মোচড়ে ব্যথায় কাতরে উঠল দুই স্তনবৃন্ত। একইসাথে যন্ত্রণা আর সুখের সম্মিলিত আঘাতে ভেঙে যাচ্ছে রমণীর যাবতীয় প্রতিরোধ। ভিতরের আগ্নেয়গিরি জেগে উঠে উগরে দিল এতকালের সঞ্চিত লাভা। উন্মুক্ত দুই জঙ্ঘা ভেসে যাচ্ছে দুর্নিবার স্রোতে। থিরিথিরি কাঁপছে শরীর, গোটা সত্তা। সারা ঘরময় এখন আমার জান্তব শীৎকারধ্বনি। bangla fuck story

কত যুগের পরে প্রথম রাগমোচন।

সমে ফিরতে বেশ কিছুটা সময় গেল। শরীর যেন ভেসে বেড়াচ্ছে মেঘেদের উপর দিয়ে, এতটাই হাল্কা লাগছিল নিজেকে। কামনার জ্বালা যদিও পুরোপুরি স্তিমিত হয়নি। চেতনা আসতে বুঝলাম রাফা তার ঠোঁটের পরশ বুলিয়ে চলেছে আমার সারা অঙ্গে। দামাল দু’টো হাত খেলায় মত্ত শরীরের রহস্যময় চড়াই-উৎরাইয়ে। ওর কি কোনও ক্লান্তি নেই?

আবেশে চোখ বুজে আদর উপভোগ করতে করতে টের পেলাম ওর মুখ আমার মুখের খুব কাছে। বন্ধচোখে নির্ভুল নিশানায় বাড়িয়ে দিলাম ওষ্ঠাধর। নিবিড় চুম্বনে বাঁধা পড়েছি। কামনার তরঙ্গেরা এক শরীর থেকে আরেক শরীরে প্রবাহিত হয়ে আবারও আমায় জাগিয়ে তুলল। হ্যাঁচকা টানে ওকে শুইয়েছি বিছানায়, উপরে আমি।

উদ্দালক বলে দাম্পত্যশয্যায় আমি নাকি ভয়ানক হিংস্র। কথাটা মিথ্যে নয়, পুরুষকে ডমিনেট করার মধ্যে চোরা একটা আনন্দ খুঁজে পাই। এবারে রাফাকে সেটা দেখানোর পালা। bangla fuck story

উন্মত্ত বাঘিনীর মত হামলে পড়েছি, অনাবৃত করছি বিদেশী পুরুষের দেহসৌষ্ঠব। টিশার্ট-জিন্সের আবরণ ছাড়িয়ে বেরিয়ে পড়ল পেশীবহুল শরীর। প্রশস্ত ছাতি, চওড়া কাঁধ, মজবুত বাহুর সমাহারে অপূর্ব ভাস্কর্য। নির্নিমেষ চেয়ে থাকি। এমন প্রবল পুরুষের রমণের আকাঙ্ক্ষায় আবারও সিক্ত হচ্ছে অন্তঃস্থল। সিংহের মত কোমরের নীচে সগর্বে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে বিষাক্ত অজগর, উন্মোচিত রমণীকে দেখে উল্লাসে ফুঁসে উঠল।

মুখ নামিয়ে আনি, কামার্ত চুম্বনে ভরিয়ে দিই ওর সারা শরীর। দংশন করি পুরুষবৃন্তে, ঘাড়-গলায় জিভের আগ্রাসী লেহনে পাগল করে তুলি ওকে। সুপ্রশস্ত বুক, উন্মুক্ত গভীর নাভিতে খুঁজে বেড়াই পুরুষের আদিম ঘ্রাণ। ধীরে ধীরে আমার মুখ নিকটবর্তী হয় দৈত্যাকৃতি লিঙ্গের। আঙুলের সামান্য নিষ্পেষণ, তারপরেই মুখের ভিতর টেনে নিই আট ইঞ্চির জাগ্রত পৌরুষ। চুষতে থাকি পাগলিনীর মত। মাতাল করা বন্য স্বাদে ভরে যায় মুখ। উম্মম্ম, ঠিক যেন চকোলেট আইসক্রিম! চেটে চেটে কিছুতেই আশ মেটে না। bangla fuck story

আমার উদ্দাম মুখমেহনে কাতরে ওঠে ও, চুলে টান পড়তে বুঝি নীরবে অনুরোধ জানাচ্ছে গতি কমানোর। পুরোটা মুখে নেওয়ার চেষ্টা ব্যর্থ হয়, এতটাই বড়! অগত্যা লিঙ্গের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত জিভের তুলি বুলিয়ে চলি চিত্রকরের মত। বাদ পড়ে না ঝুলতে থাকা অণ্ডকোষেরাও। আমার মুখের মধুস্পর্শে আরও তীব্রভাবে আস্ফালন করছে রাফার পৌরুষ। নীলছবিতে দেখা বিবসনাদের ঢংয়ে লেহন করাকালীন চোখ রাখি ওর চোখে। নির্লজ্জ দৃষ্টিতে আমন্ত্রণের হাতছানি। ওর চোখেও সম্মতির ইশারা।

সেই বহুপ্রতীক্ষিত লগ্ন আসন্ন তবে!

বিছানার উপরে উঠে বসি। রাফার লৌহকঠিন পুংদণ্ড সোজা খাড়া হয়ে দাঁড়িয়ে মাথা তুলে। ঔদ্ধত্যে, অপেক্ষায়। একপলকের জন্য চোখ বন্ধ হয়ে আসে আমার, মনকে প্রস্তুত করি। অসতীত্বের শেষ ধাপটিতে পা দেওয়ার আগে ঝেড়ে ফেলতে থাকি সমস্ত সংকোচ, সংস্কার, জড়তা-লাজলজ্জা। bangla fuck story

অবশেষে এল সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। চোখ বুজেই অনুভব করলাম এক পরপুরুষের উদ্ধত পৌরুষ জায়গা করে নিচ্ছে আমার যোনিপাত্রে। আমার অন্দরের নরম, আতপ্ত দেওয়ালে ঘষা খেতে খেতে এগিয়ে চলেছে দৃপ্তভঙ্গিমায়। উঃ কি অসহ্য সুখ! পা দু’টোকে সামান্য এগিয়ে-পিছিয়ে নিই যাতে আরও সাবলীল, আরও উন্মত্তভাবে দোল খেতে পারি আমার স্পেনীয় নাগরের পৌরুষের দোলনায়। বরাবরই কাউগার্ল আমার অন্যতম পছন্দের রতিপদ্ধতি। বহুবছরের অভ্যাসে লব্ধ অভিজ্ঞতার সবটুকু উজাড় করে উপর-নীচ করতে থাকি শরীর দুলিয়ে।

প্রথমে ধীরলয়ে। ক্রমে বাড়ে লাফানোর গতিবেগ। নিষিদ্ধ প্রণয়ের রোমাঞ্চ আর প্রচণ্ড পুরুষের রমণে ভিতরের নারীত্বের ক্ষরণ বেড়ে যাচ্ছে প্রতিমুহূর্তে, গলিত-লাভার রূপ ধরে অনবরত ভিজিয়ে চলেছে যোনিদেশ। সেই প্রণোদনায় লৌহশলাকা অতিরিক্ত ইন্ধন পাচ্ছে আরও বেগে, আরও নির্মমভাবে কর্ষণের। শিরদাঁড়াকে একটু পিছিয়ে নিই, বক্র দেহভঙ্গিমার ফলে অনায়াস যাতায়াত বেড়ে যায় রাফার। ঠোঁটের চটুল ইঙ্গিতে তাকে আহ্বান করি প্রবলতর মন্থনের জন্য। bangla fuck story

সাইডবানে আবদ্ধ চুলের সমুদ্রের বাঁধ ভেঙে যায় আমার হাতের টানে, ঝরনার মত উন্মুক্ত কেশভার আছড়ে পড়ে দেহতটে। দুই বাহু মাথার উপর উত্তোলিত করতেই নির্লজ্জ পুরুষ্টু স্তনেরা সামনে উঁচিয়ে যেন ভর্ৎসনা করতে থাকে পুরুষকে। রাফা সেই অমোঘ আকর্ষণ অগ্রাহ্য করতে পারে না। ছটফটিয়ে এগিয়ে আসে ওর মুখ। দু’হাতে আমায় জাপটে ধরে ডুব দেয় বুকের গভীর অতলে। অমৃতের সন্ধানে চুষছে আমার তীক্ষ্ন্মুখী বোঁটাদের।

ছন্দোবদ্ধ তালে মিলিত হতে থাকে দু’টো শরীর, কামনার আবেগে জারিত হয়। ক্রমে বাড়ে ওর কর্ষণের বেগ, নির্দয় পৌরুষের আক্রোশে ছিন্নভিন্ন করে চলে নারীর অভ্যন্তর। অস্ফুটে গোঙাতে থাকি, শীৎকারের মাত্রা আরও তীব্র হয় ওর প্রতিটি লক্ষ্যভেদের সাথে। পাগলের মত আঁকড়ে ধরি ওকে। দু’জনেরই রাগমোচন আসন্ন।

যৌথ বিস্ফোরণের পরে কেটে যায় অনন্তকাল। চেতনা হারিয়ে শুয়ে থাকি। পালকের মত হাল্কা হয়ে গেছে আমার নারীসত্তা, মেঘেদের দেশে সে ভেসে বেড়ায় অবাধে। শরীর বেয়ে ঢল নামে নাম না জানা অনুভূতিদের। এত সুখও লুকিয়ে থাকে দেহমিলনে? bangla fuck story

সহসা তন্দ্রার ঘোর ছুটে যায়। ঘরের মধ্যে অপরিচিত কার যেন গলার আওয়াজ। এ তো রাফা নয়! চকিতে দরজার দিকে তাকাতেই চক্ষুস্থির। অদূরে সোফায় বসে দু’জন মানুষ নীচুস্বরে বার্তালাপে মগ্ন। একজন রাফা, অপরিচিত ব্যক্তিটি মাঝেমাঝেই লোলুপদৃষ্টি দিচ্ছে এদিকে।

ওঃ, আমি যে একদম নিরাবরণা! সভয়ে চাদর টেনে নিজের নগ্নতাকে ঢাকি। বুকের ভেতরটা ধড়ফড় করছে।

এতক্ষণে রাফা লক্ষ্য করেছে ব্যাপারটা। অন্যজনকে নিয়েই এগিয়ে এল খাটের কাছে।

‘হাই জাগ্স, দিস ইজ ফার্নান্দো, মাই পার্টনার’। ফার্নান্দো এগিয়ে এসে করমর্দন করে, একহাতে কোনওমতে নিজের আব্রুরক্ষা করতে করতেই প্রতিসম্ভাষণ জানাই, সাথে নিজের নামটাও।

‘আয়্যাম যাজ্ঞসেনী’

ফার্নান্দো এখনও লুব্ধচোখে তাকিয়ে, ওর ঐ দৃষ্টির সামনে কেমন কুঁকড়ে যাই। রাফা আবার একে এখন জোটালো কি জন্য?

মনের কথা পড়তে পেরেছে রাফা। খাটে বসে কানে-কানে যা বলল… প্রথমে বিশ্বাস করতে পারলাম না। bangla fuck story

‘উড ইউ লাইক টু টেক বোথ অফ আস ইনসাইড… টুগেদার?’

নির্বাক বিস্ময়ে ওর দিকে তাকিয়ে আছি। কোনও প্রত্যুত্তর না পেয়ে ভরসা দেওয়ার চেষ্টা করল, ‘থ্রীসাম উইল বি মাচ মোর ফান’

যুক্তিবুদ্ধি সব কেমন গুলিয়ে যাচ্ছে। চোখের সামনে যা ঘটছে তা কি বাস্তব?

ফার্নান্দোর দিকে চোখ চলে গেল অজান্তেই। একটু কৃশকায়, রাফার মত অতটা স্বাস্থ্যবান নয়। কিন্তু হাতপায়ের গড়ন আকর্ষণীয়। সম্ভবত খেলাধুলো করত এককালে। সবথেকে দর্শনীয় হল ওর উচ্চতা। কিছু নাহোক ছয় তিন হবে!

কি সমস্ত ভাবছি আমি? সত্যিসত্যিই কি থ্রীসামে রাজি হয়ে গেল মন? এরা কি মনে করেছে আমায়, সহজভোগ্যা লম্পট নারী? সামান্য লোভ দেখালেই রাজি হয়ে যাবে জামাকাপড় খুলে পা ফাঁক করে শুয়ে পড়তে?

মনের ভিতরে আরেক মনে কষে ধমক দেয় আমাকে। ওরা কি ভাবছে তাতে আদৌ কিছু যায় আসে? ঐ দু’জন তো অচিন পাখি আমার জীবনে, রাত পোহালেই ফুড়ুৎ। কস্মিনকালে আর দেখাও হবে না। bangla fuck story

আর সতীত্ব? হাঃ! সে তো এখনই খুইয়ে বসে আছি। একজনের সাথে করি বা দু’জনের সাথে, ব্যাপারটা তো একই। আমি নিজেই কি চাইনি আজকের রাতটা ঘটুক? যেচে নির্লজ্জার মত ডিস্কোথেকে নিজেই তো গিয়েছিলাম পুরুষ-শিকারে।

চিন্তায় মগ্ন হয়ে যাই, চারপাশের পরিবেশ, এই ঘর, রাফা আর ফার্নান্দো, লিসবনের কনফারেন্স- সবকিছু চলে যায় বিস্মরণে। মনের কন্দরে চলতে থাকে ছায়াযুদ্ধ।

ভাবনায় ছেদ পড়ে আচমকা। রাফা ডাকছে।

‘হেই জাগ্স, ডু ইউ নিড সাম ড্রিঙ্কস?’

হলে মন্দ হয় না। মাথায় যেমন জট পাকিয়েছে, একমাত্র তরল মদিরাই হয়তো পারবে এ সমস্যার সমাধান করতে।

কিছুক্ষণের মধ্যেই আবিষ্কার করলাম তিনজনে মিলে আড্ডা দিচ্ছি। রাফা বসে সোফায়, আমি সেই আগের মতই একখণ্ড চাদরে আবৃতা হয়ে খাটে আধশোয়া, আর বিছানার উপরে একটু দূরে শালীনতার দূরত্ব বজায় রেখে ফার্নান্দো। সকলের হাতে হুইস্কির গ্লাস। bangla fuck story

সত্যি বলতে লোকটা অভদ্র নয় একেবারেই, কথাবার্তায় যথেষ্ট মার্জিত, রসবোধও আছে। অদ্ভুত সব জোক বলে ক্রমাগত হাসিয়ে চলেছে আমাদের। একবার তো হাসতে হাসতে বিষম খেয়ে হুইস্কির গ্লাস না চাদর কোনটা সামলাবো ঠিক করতে না পেরে বুকের বেশ খানিকটা দেখিয়েই ফেললাম। অবশ্য পরমুহূর্তেই সামলেছি, তবে তার মধ্যে ও দেখে নিয়েছে যা দেখার। দৃষ্টিতে ফুটে উঠল মুগ্ধতা।

এবারে আর ব্রীড়ার অভিনয় নয়, আপনা থেকেই কর্ণমূল আরক্তিম। আজ রাতে প্রকৃত অর্থেই আমার শরীর-মনে কি যেন রূপান্তর ঘটে গেছে! দু’জন অচেনা পুরুষের সাথে এভাবে অর্ধোন্মোচিতা হয়ে গল্প করছি- কয়েকঘণ্টা আগেও তো ছিল অকল্পনীয়!

হঠাৎই চোখ গেছে ফার্নান্দোর দু’পায়ের ফাঁকে। ওঃ মাই গড! আমায় এভাবে দেখলে একজন পুরুষের দেহে কি প্রতিক্রিয়া হয় সেটা এতগুলো বসন্ত কাটিয়ে আর মোটেই অজানা নয়, কিন্তু তা বলে… হি ইজ নট জাস্ট হিউজ, হি ইজ ইনর্মাস! রাফার চাইতেও বেশ খানিকটা বড়। রীতিমত দানবাকৃতি। bangla fuck story

উদ্গত বিস্ময় আরেকটু হলে সশব্দে বেরিয়ে আসছিল, কোনওমতে মুখে হাতচাপা দিয়ে আটকেছি। রাফা বোধহয় সেটা লক্ষ্য করেছিল, আগের প্রশ্নটারই প্রতিধ্বনি ওর কথায়ঃ

‘সো জাগ্স, আর ইউ আপ ফর দ্যাট?’

এবারে আর আগের মত ত্রস্তভাব নেই, পরিবেশটাও অনেক হাল্কা হয়েছে। তবু নারীসুলভ সতর্কতায় চুপ করে রইলাম। মনের ভিতর কে যেন প্রতিনিয়ত বলে চলেছে, ‘জাস্ট ডু ইট যাজ্ঞসেনী। এমন সুযোগ জীবনে আর নাও আসতে পারে। ইফ ইউ গো ফর ইট, দেয়ার ওণ্টবি এনি রিগ্রেট’

শেষমেষ জয়ী হল সত্তার গভীরে লুকিয়ে থাকা অসতী, আজ রাতের জন্য যার কব্জায় অসহায় আমি।

মুখে কিছু না বলে হুইস্কির গ্লাসে একটা দীর্ঘ চুমুক দিলাম। সেইসঙ্গে খসে পড়ল এযাবৎ আমার ভারী বুকদু’টোকে ঢেকে রাখা চাদরটা। পুরুষের আবেদনে সাড়া দেওয়া নারীর চিরন্তন নীরব সম্মতি। bangla fuck story

মাত্র কয়েকমিনিটের ব্যবধান। আবারও শয্যায় চিত হয়ে শুয়ে আমি। হাতের আঙুলগুলো খেলা করে বেড়াচ্ছে ফার্নান্দোর খোলা বুকে। সে এখন ব্যস্ত পাগলের মত আমার দেহের প্রতিটি বিন্দু অশান্ত চুম্বনে ভরিয়ে তুলতে। ঠিক যেমনটি করছিল রাফা, কিছুক্ষণ আগে। তফাত শুধু নামে, আর ফার্নান্দোর আদরের ভঙ্গিতে। রাফার চাইতে আরেকটু মোলায়েম, কিন্তু ওর হাতের ছোঁয়ায় বুঝি জাদু আছে!

এত অল্পসময়েই সিক্ত করে তুলেছে আমাকে। আবেশে চোখ বন্ধ করে উপভোগ করছি বিবশকরা সুখ, মন আর শরীর কোনওটাই নিজের নিয়ন্ত্রণে নেই। ফার্নান্দোর উত্তুঙ্গ পৌরুষের স্পর্শ পাচ্ছি উরুসন্ধির কাছে, আর থেকে থেকে আমূল কেঁপে উঠছে ভিতরটা।

আচমকা অন্যদিক থেকে আক্রমণ। রাফা এসে দখল করল বাঁদিকের বুকটা। আমার দুই স্তন এখন দু’জন বিদেশী পুরুষের কবলে। উন্মত্তের মত তারা যা খুশি তাই করে চলেছে উল্টোনো জামবাটির মত নধর বক্ষদেশে। bangla fuck story

সোহাগে, শিহরণে, ভাললাগায় চোখ বন্ধ হয়ে গেল আপনা থেকেই। শরীর দিয়ে প্রাণপণে শুষে নিচ্ছি দুই প্রবল পুরুষের স্পর্শ। কি অনির্বচনীয় এ অনুভূতি!

সত্যি, তোমার অসতী হওয়া সার্থক, যাজ্ঞসেনী!

‘জাগ্স, আর ইউ রেডি নাউ?’

উত্তরের প্রয়োজন ছিল না, নীরব সম্মতি ফুটিয়ে তুললাম চোখের ভাষায়। রাফা উঠে কোথায় চলে গেল জানি না। ভাবার অবকাশও পেলাম না, মুহূর্তেই আমায় পরিপূর্ণভাবে অধিকার করেছে ফার্নান্দো। উন্মুখ আমিও, ওর পৌরুষের ভালবাসার স্বাদ পেতে।

bangla fuck storyদুই জানুর মাঝে মুখ নামিয়ে আমার গোপনদ্বারের গন্ধ নিচ্ছে ও। শিরশিরানি সারা শরীরের প্রতিটি কোষে। গোলাপকাঁটারা জেগে উঠেছে আবার, ফার্নান্দোর যোনিলেহনের অপূর্ব কৌশলে বইতে শুরু করল আমার গভীরের অন্তঃসলিলা ফল্গুধারা।

কতক্ষণ এইভাবে কেটেছে জানি না, নিজেকে একরকম ছেড়ে দিয়েছিলাম ওর কাছে। সমগ্র সত্তা আবারও কেঁপে উঠল যোনিমুখে ওর উদগ্র পৌরুষের স্পর্শে। নিবিড়ভাবে তাকালাম ওর চোখে। এবারে মন্থনের পালা। bangla fuck story

বিছানায় চিত হয়ে শুয়ে ফার্নান্দো, আকাশের অভিমুখে সটান দৃপ্তভঙ্গিতে দণ্ডায়মান ওর বিস্ময়কর পৌরুষের ধ্বজা। এমন কোনও নারী বুঝি আজও জন্মায়নি যে এই ভয়ঙ্কর সুন্দর দৃশ্যে ভয় পাবে না।

কিন্তু আমি যে এযুগের যাজ্ঞসেনী। সেই কুরুক্ষেত্রযুদ্ধের সময় থেকে ভয় শব্দের অস্তিত্ব নেই আমার অভিধানে।

বারো বছরের বনবাস, অন্ধকারকক্ষে ধর্ষোন্মাদ কীচকের আস্ফালন, পাঁচ সন্তানের মৃত্যু কিছুই টলাতে পারেনি আমায়। ভরা রাজসভায় সম্মানহানির সময়েও অবিচল থেকেছি, মনের গোপন কোটরে জ্বলতে থাকা প্রতিশোধস্পৃহায় রুক্ষ চুলে মেখেছি বলাৎকারীর রক্ত।

আজ অসতী কলঙ্ক সগর্বে মাথায় নিয়ে নিজেকে সমূলে প্রোথিত করলাম ঐ ভীমলিঙ্গের উপর। মনে হল একটা ধাতবশলাকা যেন ঢুকে গেছে আমার অন্দরে, ফালাফালা করে চিরে ফেলছে নারীত্ব।

উন্মাদিনীর মত উপর-নীচ করছি, পীনোন্নত স্তনজোড়া লাফাচ্ছে অস্থির হয়ে। প্রবল কালবৈশাখীর দাপটে যেমন দুলতে থাকে গাছের ডালে ঝুলতে থাকা পক্ববিল্ব।

ফার্নান্দোও পারেনি এই অপার্থিব দৃশ্য দেখে স্থির থাকতে। আমাকে টেনে নিল নিজের দিকে। সতৃষ্ণ কামড় পাকা আঙুরের মত টসটসে বোঁটায়। শিশুর মত আকুতি নিয়ে পান করছে আমার যৌবন। bangla fuck story

হঠাৎ পিছনে কি এক শীতল স্পর্শ। অপাঙ্গে তাকাতে দেখি রাফা… সযত্নে জেল মাখাচ্ছে আমার নিতম্বে, পায়ুদ্বারের চারপাশে, গুহাভ্যন্তরে, নিজের উত্থিত পৌরুষে।

মনে মনে প্রস্তুত হলাম।

অবশেষে সে প্রবেশ করল এতদিনের নিষিদ্ধ দুয়ারে। ফার্নান্দো তখনও একইভাবে কর্ষণ করে চলেছে। সমুদ্রমন্থনের অভিলাষে ওর বাসুকী সন্ধান করছে অজানা মণিমুক্তোর, আমার যোনিসাগরে।

তারপর…

যন্ত্রণা-ভাললাগা-উত্তেজনায় একাকার আমি!

সুখসায়রে তলিয়ে যেতে যেতে মনে পড়ল…

পাঁচ স্বামী থাকা সত্ত্বেও নিজেদের চুক্তি অনুযায়ী প্রত্যেক ভাই দ্রৌপদীকে নিরবচ্ছিন্নভাবে ভোগ করার অধিকার পেতেন গোটা একটা বছর। বাকি চার জন তখন পাঞ্চালীর চোখে পরপুরুষ!

এযুগের যাজ্ঞসেনী আমি, একইরাত্রে একসাথে দুই অচেনা পুরুষকে ধারণ করেছি নিজদেহে।

ধন্য এ অসতী জন্ম!

(সমাপ্ত)

পুনশ্চঃ কতক্ষণ তন্ময় হয়ে বসে এসব এলোমেলো ভাবছিলাম জানি না, সংবিৎ ফিরল টিভি বন্ধের আওয়াজে। উদ্দালক সোফা থেকে উঠে পড়েছে, তার গন্তব্য এখন বেডরুম। শয্যায় নিজের পিঠটা ঠেকাতে যতটুকু সময়ের অপেক্ষা, তারপরেই শুরু হবে নাসিকাগর্জন। এ আমার রোজনামচায় অধিকাংশ রাতের অভিজ্ঞতা। bangla fuck story

ভূতের মত একা একা বসে থাকি। অদূরেই এলসিডি স্ক্রিনের বুকে আমার অস্বচ্ছ প্রতিবিম্ব।

কে ও? আমি, না লিসবনের স্বপ্নঝরানো সেই রাতের নারী?
কি যেন বলতে চায় সে।

নীরব সে ভাষা বুঝতে একটুও অসুবিধে হয় না। মোহাচ্ছন্নের মত শুনে যাই।

‘অসতীত্বের পথ এখনও অনেক বাকি যাজ্ঞসেনী…’

অসতী – 1 by অনঙ্গপাল

Leave a Comment