bastob golpo শেষের পাতায় শুরু – 9 by Pinuram

bangla bastob golpo choti. সেবার কোন এক কারনে তিনদিনের ছুটি পেয়েছিল রিশু। ঘরকুনে ছেলে, সকালেই কোলকাতার ফ্লাইটের টিকিট কেটে নিয়েছিল ছিল তাই বিকেলে হসপিটাল থেকেই সোজা এয়ারপোরটে পৌঁছে গিয়েছিল। এর আগেও বেশ কয়েকবার বাড়িতে না জানিয়ে বাড়ির সবাইকে চমক দেবে বলে এইভাবে গেছে। আর প্রত্যেক বার রাতের ফ্লাইটে বাড়ি পৌঁছাতে দেরি হয়ে যেত, ওর মা ঘুমিয়ে পড়ত আর সেই জন্য খুব বকা খেত। তবে সেই বকুনির মধ্যে কতটা স্নেহ আর ভালোবাসা লুকিয়ে সেটা অনুধাবন করতে পারত রিশু।

ছেলে বড় হয়ে গেলেও, রাতের বেলা পৌঁছালেই কান টেনে মৃদু বকুনি দেওয়া চাই, একবার বলতে পারতিস না? কি খাবি এই রাতে? দিপ আর দিয়া নাচানাচি শুরু করে দিত। রাতের বেলাতেই ওর মা প্রেসার কুকারে ডালে চালে বসিয়ে দিত আর সেই সাথে রাগে গজগজ করত যতক্ষণ না সেই ছোট বেলার মতন রিশু মাকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে বলবে, মাম্মা প্লিজ। বর্ষাকাল ছিল তখন, ঝমঝম করে বৃষ্টি নামার ফলে ফ্লাইট একটু লেট।

বিকেলে ফোনে কথা হয়েছিল মায়ের সাথে, দিপ দিয়ার সাথে কিন্তু ঘুনাক্ষরেও বুঝতে দেয়নি যে ও আসছে। তাই তখন ফোন দেখতে দেখতে মনে মনে হেসে ফেলছিল মাঝে মাঝে। ঠিক সেই সময়ে চন্দ্রিকার ফোন পেয়ে বেশ ভালো লাগে রিশুর, “অফিস কেমন গেল?” জিজ্ঞেস করে চন্দ্রিকাকে।

bastob golpo

চন্দ্রিকা উত্তর দেয়, “গেছে এই আর কি। খুব বৃষ্টি হচ্ছে জানো।”

হাসে রিশু, “হ্যাঁ মুষলধারে বৃষ্টি নেমেছে, দেখো এই একটু খানি হবে আর থেমে যাবে…”

কথাটা টেনে নিয়েই চন্দ্রিকা হেসে বলে, “ব্যাস রাস্তা ঘটা গুলো সব ডুবে যাবে…”

রিশু ইয়ার্কি মেরে বলে, “তুমি নৌকা নিয়ে নেমে পড়বে।”

খিলখিল করে হেসে ফেলে চন্দ্রিকা, “তুমি দাঁড়ে বসবে আমি পাল তুলবো।” একটু থেমে নিচু গলায় জিজ্ঞেস করে, “তুমি বাড়ি কখন ফিরছ?” কেমন যেন একটু আনমনা ওর কন্ঠের স্বর, “এই আসব তোমার ফ্লাটে?”

নিচের ঠোঁট চেপে হেসে ফেলে রিশু, “না গো আমি মানে বাড়ি যাচ্ছি।”

অবাক হয়ে যায় চন্দ্রিকা, “আরে হটাত করে, কি ব্যাপার?”

রিশু জানায় ওকে, “মাকে সারপ্রাইজ দেব তাই।” বলেই হেসে ফেলে। bastob golpo

চন্দ্রিকা হয়ত ভেবেছিল যে সেই রাতে রিশুর ফ্লাটে একত্রে কাটাবে। ভীষণ মা ভক্ত ঘরকুনে ছেলে, কথায় কথায় মায়ের রান্না ভালো, মা এই করে দেয়, মা ওই করে বলতে থাকে।

একটু মনক্ষুন্ন হয়ে রিশুকে বলে, “একবার এই ভাবে না গেলে কি এমন হত?”

কথাটা শুনে একটু আহত হয় রিশু তাও চন্দ্রিকাকে বলে, “আরে বাবা, তোমার সাথে ত রোজদিন দেখা হয়ে যায় মায়ের সাথে ত হয় না।” একটু থেমে হেসে বলে, “আমার রান্নার লোক একদম ডাল বানাতে জানে না তাই মাঝে মাঝে মায়ের হাতের ডাল খেতে খুব ইচ্ছে করে।”

আহত হলেও চন্দ্রিকা মুখে হাসি টেনে বলে, “আচ্ছা আমি এরপর তোমার মায়ের মতন ডাল রান্না করা শিখে নেব আর তোমাকে ডাল বানিয়ে খাওয়াব।”

মাথা নাড়ায় রিশু, মায়ের হাতের ডালের মধ্যে যে মিষ্টতা লুকিয়ে সেটা কারুর দ্বারা রান্না করা সম্ভব নয়। ওই ডালের মধ্যে মায়ের ভালোবাসা মায়ের স্নেহ মায়ের বকুনি মায়ের আশা ভরসা মিশে থাকে, অন্য কেউ সেই ডাল কি করে বানাবে? bastob golpo

একটু হেসে উত্তর দেয় রিশু, “আচ্ছা ঠিক আছে।”

চন্দ্রিকা জিজ্ঞেস করে, “ফিরছ কবে?”

রিশু উত্তর দেয়, “তিন দিন পরে।”

চন্দ্রিকা চোখ বড় বড় করে জিজ্ঞেস করে, “তিনদিন পরে? বাপরে, এই তিনদিন ছুটি ছিল ভেবেছিলাম এক সাথে কাটাবো। ধ্যাত তুমি না শুধু বাড়ি আর বাড়ি।”

শেষের কথাটা খুব খারাপ লাগে রিশুর, হ্যাঁ ওর কাছে ওর বাড়ি সব থেকে আগে। মাকে ছেড়ে দিল্লীতে একদম আসতে চায়নি, অনেক ঘ্যানর ঘ্যানর করেছিল কিন্তু ওর পড়াশুনার জন্যেই ওর মা ওকে এই দুরদেশে পাঠিয়েছে। ছোট বেলা থেকে ওকে ক্ষনিকের জন্য চোখের আড়াল হতে দেয়নি ওর মা, রিশু ভালো ভাবেই জানে বুকের ওপরে কত বড় পাথর রেখে ওর মা ওকে এতদুরে ডাক্তারি পড়াতে পাঠিয়েছে। চন্দ্রিকার সাথে কথা বলার ইচ্ছেটাই চলে যায় ওর। bastob golpo

ওকে কাটানর জন্য বলে মুখে হাসি টেনে বলে, “এই শোন, বোর্ডিং কল হচ্ছে। আমি কাল ফোন করব।”

চন্দ্রিকা মুখ ব্যাজার করে উত্তর দেয়, “বাড়ি গেলে তুমি কি আর আমাকে ফোন করবে নাকি? আচ্ছা কাল অপেক্ষা করব দেখি তুমি ফোন কর কি না।”

সারাটা রাস্তা চন্দ্রিকার কথা রোমন্থন করে “ধ্যাত শুধু বাড়ি আর বাড়ি” আর ভাবে, এখন থেকেই ওর বাড়ি যাওয়া নিয়ে মুখ গোমড়া করতে শুরু করে দিয়েছে, এরপরে কি করবে জানা নেই। রিশুর ইচ্ছে এমএস এর পরে কোলকাতা ফিরে যাওয়ার, কিন্তু চন্দ্রিকার সাথে এখন পর্যন্ত সেই বিষয়ে কোন কথাবার্তা হয়নি ওর। শেষের কথা শুনে ওর মনে হল যে কোলকাতা গিয়ে ওদের বাড়ির সাথে হয়ত তেমন ভাবে মিশতে পারবে না চন্দ্রিকা। কোলকাতা পৌঁছে যথারীতি চন্দ্রিকা কে রাতেই ফোন করেছিল রিশু। bastob golpo

রাতে অনেকক্ষণ দুজনে মিলে গল্প করেছিল। সেবার ওর মা বেশ কয়েকটা দামী সুতির জামা কিনে দিয়েছিল। রিশু কোনদিন নিজের জামা কাপড় কেনেনি, এমন কি ওর পরনের গেঞ্জি গুলো পর্যন্ত মা কিনে দেয়। প্রত্যেক বার এসে মায়ের কাছে বকুনি খায়, তোর এই গেঞ্জিটা এইভাবে বগল থেকে ছিঁড়ে গেছে একটা কিনতে পারিস নি? অপরাধীর মতন মায়ের সামনে দাঁড়িয়ে হেসে ফেলত রিশু।

রিশু মাঝে মাঝেই বাড়ির গল্প করত চন্দ্রিকার কাছে, রিশুর জামা কাপড় এমন কি গেঞ্জি পর্যন্ত ওর মা কিনে দেয় সেটা শুনে চন্দ্রিকা খুব হেসেছিল। রিশুর একটু খারাপ লেগেছিল বটে কিন্তু হেসে উড়িয়ে দিয়েছিল সেই কথা। পরে অবশ্য ওর মনে হয়েছিল তখন যদি চন্দ্রিকাকে ঠিক ভাবে বুঝিয়ে উঠতে পারত ওদের বাড়ির সম্পর্ক তাহলে হয়ত রিশুকে সঠিক ভাবে চিনতে পারত চন্দ্রিকা।

কোলকাতা থেকে ফিরে আসার কয়েক মাস পার হয়ে যায়। সেইদিন কথা ছিল হসপিটাল শেষে কাছাকাছি কোন এক রেস্টুরেন্টে রাতের খাওয়া সারবে। ওপিডিতে ডিউটি ছিল তখন, ছুটি হতে হতে সন্ধ্যে গড়িয়ে যায়। bastob golpo

বারেবারে চন্দ্রিকার ফোন আসাতে একটু বিরক্তি প্রকাশ করেই বলে, “বললাম ত আসছি, এত বার করে ফোন করছ কেন?”

চন্দ্রিকা ঘাবড়ে যাওয়ার পাত্রি নয়, হসপিটালের ওপিডি ব্লকেই প্রায় আধা ঘন্টা অপেক্ষা করে দাঁড়িয়ে তাই একটু বিরক্তি প্রকাশ করে বলে, “আধা ঘন্টা হয়ে গেল আমি দাঁড়িয়ে আছি, একবার বলতে পারতে যে সময় নেই তাহলে আসতাম না।”

কথাটা শুনে রিশু একটু রেগে যায়, চাপা গলায় ফোনে বলে, “দেখো আমি ডাক্তার ডিউটিতে আছি এখন। যতক্ষণ না আমার কাজ শেষ হচ্ছে ততক্ষন আমি আসতে পারব না।”

অন্যপাশ থেকে ঝাঁঝিয়ে ওঠে চন্দ্রিকা, “হ্যাঁ জানা আছে, এখন যদি তোমার মা এসে দাঁড়িয়ে থাকত তাহলে তুমি দৌড়ে আসতে তাই না?”

কথাটা শুনতেই ওর মনে হল কেউ যেন ওর কানে গরম লাভা ঢেলে দিয়েছে। হাত মুঠো করে ক্রোধ সংবরণ করে দাঁতে দাঁত পিষে উত্তর দেয় রিশু, “আমার মা হলে এইভাবে বার বার ফোন করে জ্বালাতন করত না আমাকে। আমার মা জানে আমি কোথায় আছি কি করছি আর কাজ শেষ হলেই যে আসব সেটা আমার মা বোঝেন।”

কথাটা যে ঠিক হয়নি সেটা বুঝতে অসুবিধে হয় না চন্দ্রিকার, তাই ক্ষমা চেয়ে নেয়, “না রিশু সরি আমি তেমন ভাবে বলতে চাইনি কথাটা।” bastob golpo

চোয়াল চেপে রিশু উত্তর দেয়, “দ্বিতীয় বার এই কথা একদম বলবে না যে মায়ের জন্য এটা করতে মায়ের জন্য ওটা করতে।”

সেদিন অবশ্য তাড়াতাড়ি কাজ সেরে বেড়িয়ে এসেছিল রিশু। সহজে রেগে যাওয়ার পাত্র নয় কিন্তু মায়ের নামে অথবা বাড়ির কারুর নামে কোন দ্বিরুক্তি শুনতে নারাজ। রিশুর শেষ বাক্য শুনে চন্দ্রিকা বুঝতে পারে ওর ওইভাবে কথাটা বলা একদম ঠিক হয়নি। চুপচাপ রিশুর অপেক্ষা করেই দাঁড়িয়েছিল ওপিডিতে। রিশু নিজের কাজ শেষ করে বেড়িয়ে এসে দেখে একটা চেয়ারে মাথা নিচু করে চুপচাপ বসে চন্দ্রিকা।

চন্দ্রিকার ওই অবস্থা দেখে রিশু মনে মনে হেসে ফেলেছিল, হয়ত ওই ভাবে চোয়াল চেপে কথাটা বলা ওর ঠিক হয়নি, কিন্তু বাড়ির কাউকে নিয়ে ওই ভাবে কোন তৃতীয় ব্যাক্তি যদি কিছু বলে তাহলে কি আর চুপ করে থাকা যায়। চন্দ্রিকার সামনে দাঁড়িয়ে গলা খ্যাঁকরে নিজের আসার জানান দেয় রিশু। চন্দ্রিকা অপরাধীর মতন এক হাসি দিয়ে ক্ষমা চায় রিশুর কাছে।

বাইকের পেছনে চেপে, চন্দ্রিকা ওকে পেছন থেকে আস্টেপিস্টে জড়িয়ে ধরে আদুরে কন্ঠে বলে, “রাগ করেছ আমার ওপরে?” কান ধরে আদুরে কন্ঠে বলে, “এই দেখো কান ধরছি আর বলব না।” bastob golpo

পিঠের ওপরে চন্দ্রিকার নধর কোমল দেহবল্লরীর উষ্ণ চাপে মাথার মধ্যে তালগোল পাকিয়ে যায় রিশুর, মাথা দুলিয়ে হেসে ফেলে শেষ পর্যন্ত, “তুমি না সত্যি। আচ্ছা বল কোথায় যাবে?”

চন্দ্রিকা ওর বাম কাঁধের ওপরে থুঁতনি রেখে কানের কাছে ফিসফিস করে বলে, “কোথায় নিয়ে চলেছ ডক্টর?”

হেলমেট পড়া ছিল তাই বাঁচোয়া না হলে চন্দ্রিকার উষ্ণ শ্বাসের ফিসফিসানিতে সেদিন নির্ঘাত একটা এক্সিডেন্ট করে বসত রিশু। “তোমায় একদিন কামড়ে খাবো বুঝলে।”

চন্দ্রিকার কোমল চাঁপার কলির মতন আঙ্গুল গুলো মেলে ধরে রিশুর প্রসস্থ বুকের ওপরে, জামা খামচে ধরে পেছন থেকে, নিজেকে ঢেলে উজাড় করে দেয় রিশুর পিঠের ওপরে, “খাও কে বারন করেছে।”

হেসে ফেলে রিশু, চন্দ্রিকা যেভাবে ওকে জড়িয়ে উত্তেজিত করে তুলছে ওর মাথা ঠিক রাখা দায় হয়ে পড়েছে, শরীরের প্রত্যেকটা স্নায়ু যেন উন্মুখ হয়ে ওঠে প্রেয়সীর ত্বকের সাথে মিশিয়ে নেওয়ার জন্য। কিন্তু ওদের এলাকায় রিশুকে সবাই চেনে, বিশেষ করে নিচের তলার বুড়ো প্রমথেশ বাবু, উদ্ভিন্ন যৌবনা কোন মেয়েকে দেখতে পেলেই হল, ক্ষুধার্ত হায়নার মতন লোলুপ দৃষ্টি নিয়ে তাকিয়ে সেই নারীর শ্লীলতা হানি করে শুধু মাত্র চোখ দিয়েই। bastob golpo

চন্দ্রিকা যখনি ওর ফ্লাটে যেত তখনি কোন না কোন আছিলায় প্রমথেশ বাবুর ওর বাড়ি আসা চাই, আজকে জ্বর হয়েছে কোন ওষুধ আছে কি তোমার কাছে? ভীষণ পেট খারাপ একটা ট্যাবলেট পেলে বড় ভালো হত, অথবা একটু প্রেসার টা চেক করে দেবে ডাক্তার? এই প্রমথেশ বাবুর জ্বালায় চন্দ্রিকা ওর বাড়িতে আসা কমিয়ে দিয়েছিল, তাই আর সেই ভাবে চন্দ্রিকার সাথে একান্তে বসে কোনদিন প্রেমালাপ করা সম্ভব হয়নি ওর।

সেদিন একটা শপিং মলে গিয়ে দুজনে শুধু ঘুরেই বেড়িয়েছিল, অগত্যা ওই যে “খেতে কে বারন করেছে” সেই খাওয়া আর হয়নি ওদের। তবে রাতের দিকে দুজনে মিলে বেড়িয়ে পড়েছিল একটা হাইওয়ে ধরে। শহর ছাড়িয়ে বেশ অনেক দূরে একটা ধাবায় রাতের খাওয়া সেরেছিল। সেদিন দুজনের একদম ইচ্ছে ছিল না একে অপর কে ছাড়ে। কিন্তু পরের দিন রিশুর হসপিটাল ডিউটি ছিল আর চন্দ্রিকার অফিস, অগত্যা ফিরে আসতে হয় ওদের। bastob golpo

সারাটা রাস্তা চুপ করে রিশুর পিঠের ওপরে মাথা রেখে গাল ঠেকিয়ে বসেছিল চন্দ্রিকা, এমন ভাবে পেছন থেকে জাপ্টে ধরেছিল রিশুকে যেন কোন শক্তি ওদের বিচ্ছেদ করতে সক্ষম নয়। চন্দ্রিকা যেখানে পেয়িং গেস্ট থাকত, সেই বাড়ির সামনে পৌঁছে যখন বাইক দাঁড় করায়, তখন চন্দ্রিকার চোখে প্রেমের এই ক্ষনিকের বিচ্ছেদের জন্য একটু জল এসে গিয়েছিল।

রিশুর একবার মনে হয়েছিল নিজের বাড়িতে নিয়ে যায় চন্দ্রিকাকে, সারা রাত ধরে প্রেম আর ভালোবাসায় ভরিয়ে দেয় হৃদয় জুড়ে থাকা এই মিষ্টি মধুর প্রেমিকাকে। হাত ধরে আঙ্গুলে চুমু খেয়ে বাইক নিয়ে ফিরে এসেছিল রিশু। সেই রাতে দুইজনের মধ্যে কারুর ঘুম হয়নি।

এমবিবিএস পড়ার সময় থেকেই ইন্দ্রজিতের সাথে ওর পরিচয়, এক ব্যাচের বন্ধু। ডাক্তারি পাশ করার পরে ইন্দ্রজিত এক জুনিয়ার ডাক্তার, শালিনীর প্রেমে পাগল। ইন্দ্রজিতের বাড়ি চণ্ডীগড়ে আর শালিনী হরিদ্বারের মেয়ে। শালিনী বেশ মিশুকে মেয়ে অনায়াসে সবার সাথে মিশে যেতে পারত, রিশুকে দাদা হিসাবে সন্মান করত শালিনী। bastob golpo

তবে ইন্দ্রজিতের একটা বদ অভ্যেস ছিল, কোন মেয়ে যদি একটু ওর দিকে ঢলে পড়ত তাহলে ইন্দ্রজিত নিজেকে একদম সামলাতে পারত না, কোন না কোন আছিলায় সেই মেয়ের সাথে প্রেমের ঢলানিতে ঢলে যেত। শালিনীর সাথে প্রেম করার সময়েও ওর এই স্বভাব বদলায়নি, এই নিয়ে শালিনীর সাথে অনেকবার ঝগড়া মন কষাকষি হয়েছে, রিশুও ওকে অনেকবার এইসব করতে বারন করেছে, কয়েক মাসের জন্য সব কিছু বন্ধ থাকার পরে আবার সেই পুরানো স্বভাব ফিরে আসে ইন্দ্রজিতের।

বারবার বারন করা সত্ত্বেও শালিনীর অবর্তমানে ইন্দ্রজিত বেশ কয়েক জন মেয়ের সাথে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছিল, সেটা রিশুর অজানা ছিল না।

সেদিন ওপিডিতে ডিউটি ছিল রিশুর, দুপুরের দিকে হটাত ওর হসপিটালে শালিনী এসে উপস্থিত, বলে যে ওর বাড়ির চাবি চাই। রিশু বুঝে যায় যে নিশ্চয় আবার ইন্দ্রজিতের সাথে রাগারাগি হয়েছে। শালিনীকে বাড়ির চাবি দিয়ে বুঝায় যে হসপিটাল থেকে ফিরে সোজা ইন্দ্রজিতের সাথে দেখা করে একটা ফয়সলা করবে। শালিনী বিশেষ কথা না বাড়িয়ে জল ভরা চোখে ওর হাত থেকে বাড়ির চাবি নিয়ে চলে যায়। bastob golpo

বাড়ি ফিরতে সন্ধ্যে হয়ে যায় রিশুর, দরজায় নক করতেই দরজা খুলে যায়। বসার ঘরে পা রেখে শালিনীর বিধ্বস্ত চেহারা দেখে হতভম্ব হয়ে যায়। সোফার ওপরে ওর একটা শারট গায়ে অর্ধ শায়িত শালিনীকে দেখেই রিশুর মনে দুশ্চিন্তা জেগে ওঠে। শালিনী ওর দিকে ভগ্ন হৃদয়ে তাকায়, দুই চোখের কোলে জল টলমল করছে, এক হাতে মদের গেলাস অন্য হাতের দুই আঙ্গুলের মাঝে একটা আধা জ্বলা সিগারেট। ঘর ভর্তি সিগারেটের বোটকা গন্ধ যেটা রিশুর একদম সহ্য হয় না।

শারটের সামনের দিকে বেশ কয়েকটা বোতাম খোলা, অনায়াসে বুঝে যায় যে ওই শারটের নিচে কিছুই পরে নেই শালিনী। এলোমেলো মাথার চুল, চোখে চুড়ান্ত নেশার ঘোর, ঘাড়ে গালে লাল দাগ মনে হয় দাঁতের, সুগোল মোটা ঊরুর ওপরে নখের আঁচর। মেঝের ওপরে শালিনীর পরনের পোশাক এদিকে ওদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে, সোফার পাশেই একটা অর্ধেক শেষ হয়ে যাওয়া মদের বোতল। শালিনীর এই অবস্থা দেখে রিশুর চোয়াল কঠিন হয়ে যায়, কিন্তু ওর নিজের ঘরের এই অবস্থার কারণ খুঁজে পায় না। bastob golpo

রিশু ওর সামনে হাঁটু গেড়ে বসতেই রিশুর কলার ধরে কেঁদে ফেলে শালিনী, “ইওর সিস্টার ইজ আর হোড় ডক্টর অম্বরীশ, তোমার বোন একজন বেশ্যা হয়ে গেছে।”

শালিনীর হাত থেকে মদের গেলাস কেড়ে নেয়, সিগারেট নিভিয়ে জিজ্ঞেস করে, “কি করেছ তুমি? তোমার এমন অবস্থা কেন?”

চোয়াল চেপে কাঁপা গলায় উত্তর দেয় শালিনী, “আই ফাকড আ গাই, আমি একজনের সাথে সেক্স করেছি, ভাইয়া।” ভাঙা বুক নিয়ে পাগলের মতন হেসে ওঠে শালিনী, “যদি ইন্দ্রজিত অন্য মেয়ের সাথে শুতে পারে তাহলে আমি কেন পারব না? আমিও তাই অন্য একজনের সাথে সেক্স করেছি।” বলেই ওর বুকের ওপরে মাথা রেখে কেঁদে ফেলে।

রিশু শালিনীর মুখ আঁজলা করে ধরে জিজ্ঞেস করে, “ইন্দ্রজিত কি করেছে?”

উলটো হাতে চোখ নাক মুছে সম্পূর্ণ বিবরন দেয় শালিনী, “আমি কয়েক দিনের জন্য বাড়ি গিয়েছিলাম, আমার আজকে ফেরার কথাও ছিল না। গতদিন যখন ইন্দ্রজিতের সাথে কথা হল তখন আমার একটু সন্দেহ হয়েছিল, মনে হল কিছু একটা লুকাচ্ছে। আমিও রাতের বাস ধরে হরিদ্বার থেকে ওকে না বলেই রওনা দিলাম, সকালে এসে দিল্লী পৌঁছে সোজা বাড়ি গেলাম। আমাকে এই সময়ে বাড়ির দরজায় দেখতে পাবে সেটা একদম আশা করেনি। ভীষণ ভাবেই আশ্চর্য হয়ে যায় ইন্দ্রজিত, চেহারা ফ্যাকাসে হয়ে যায়। bastob golpo

ওর ইতস্তত ভাব দেখেই বুঝতে পারি কিছু একটা লুকাচ্ছে। জিজ্ঞেস করলাম কি হয়েছে, সঠিক উত্তর দিতে পারল না। শোয়ার ঘরের দিকে যেতেই আমার পথ আটকে দাঁড়িয়ে পরল, আমার মাথায় রক্ত চেপে গেল, বুঝে গেলাম কামুক স্বভাবের সেই পুরানো ইন্দ্রজিত ফিরে এসেছে। ওকে ঠেলে দিয়ে দরজা খুলতেই দেখি আমার বিছানায় এক অর্ধ উলঙ্গ মেয়ে ঘুমিয়ে। আমার সারা শরীর ঘৃণায় রিরি করে জ্বলে উঠল, দিগ্বিদিক জ্ঞান শুন্য হয়ে ঘুমিয়ে থাকা মেয়েটাকে সপাটে এক চড় কসিয়ে দিলাম।

ঘুমন্ত মেয়েটা হটাত করে ওইভাবে চড় খেয়ে ধরমর করে উঠে বসে। ইন্দ্রজিত আমাকে শান্ত করতে চেষ্টা করে, আমি ইন্দ্রজিতকে যথেচ্ছ গালিগালাজ করে জিনিস পত্র লন্ডভন্ড করে বেড়িয়ে এলাম বাড়ি থেকে। কি করব ভাইয়া, বলতে পার? আমি ত শুধুমাত্র ইন্দ্রজিতকেই মন থেকে ভালোবেসে ছিলাম ভাইয়া।”

কথা গুলো শুনতে শুনতে রিশুর চোয়াল শক্ত হয়ে যায় রাগে। শালিনী তারপরে বলে, “বাড়ি থেকে বেড়িয়ে কোথায় যাবো, কারুর কাছে যেতে ইচ্ছে করল না। তারপরে ভাবলাম, আমার ভাইয়া আছে ওর বাড়িতে যাবো। তাই হসপিটাল গিয়ে তোমার কাছ থেকে চাবি নিয়ে তোমার বাড়ি চলে এলাম। বসে বসে অনেকক্ষণ কাঁদলাম, কিন্তু মন কে কিছুতেই সান্ত্বনা দিতে পারলাম না। আমিও ভাবলাম যে আমিও অন্যের সাথে শোব, ওকে দেখাব যে আমিও করতে পারি তখন হয়ত বুঝবে যে প্রেমে এইভাবে ভীষণ ধাক্কা খেলে কেমন লাগে। bastob golpo

আমি ইন্টারনেট খুলে গিগোলো খুঁজলাম, খুঁজে পেলাম একটা ছেলেকে। বললাম যে টাকা দেব এসে আমার সাথে উদ্দম সেক্স করতে হবে। তোমরা ছেলেরা সব এক জাত, পায়ের মাঝের কুকুরটাকে সামলে রাখতে পার না। এক কথায় রাজি হয়ে গেল ছেলেটা, ওকে বললাম যে হুইস্কি আর সিগারেট নিয়ে এস। এল সে ছেলেটা, জানি না কে, নামটাও হয়ত ভুয়ো।”

দুই চোখে অঝোর ধারায় বন্যা বয়ে চলেছে শালিনীর, রিশুর বুকের ওপর আছড়ে বলে, “আই হ্যাড আ অয়াইল্ড সেক্স, পাগলের মতন সেক্স করেছে আমার সাথে। আমি ছেলেটাকে খুব মেরেছি আর গালাগালি দিয়েছি, চুপ করে সব শুনে গেছে। আমি সেই ভিডিও ইন্দ্রজিত কে পাঠিয়ে দিয়েছি।”

সব কিছু শোনার পরে দীর্ঘশ্বাস ফেলে রিশু, ইন্দ্রজিতের ওপরে ভীষণ ক্রোধে সারা শরীর জ্বলে ওঠে। এই অচেনা দেশে কেউই কারুর হয় না, সবাই কোন মতলবে বন্ধুত্ত পাতায়, সেখানে ইন্দ্রজিতের সাথে একমাত্র ওর ভালো সম্পর্ক ছিল। সেই সুত্রে শালিনীর সাথে খুব ভালো সম্পর্ক হয়ে যায় রিশুর। bastob golpo

যতদিন শালিনীর সাথে ওর প্রেম হয়নি ততদিন রিশু ওকে বারন করত না। কিন্তু শালিনীর সাথে প্রেম করার পরে রিশু বারন করে অন্য মেয়েদের দিকে তাকাতে, অন্য কোন মেয়ের সাথে সম্পর্ক রাখতে। হটাত ছেলেটার কি যে হয়ে গেল, এবারে শেষ বারের মতন একটা বোঝা পরা করতে হবে ওর সাথে।

ইন্দ্রজিতের সাথে এখুনি একবার কথা বলা দরকার, ফোন উঠাতেই শালিনী ওর হাত থেকে ফোন কেড়ে নিয়ে বলে, “না ভাইয়া আর নয় আর তুমি ওকে ফোন করবে না। ওর সাথে আমার সব সম্পর্ক শেষ হয়ে গেছে।”

রিশু ওকে বুঝানোর শেষ চেষ্টা করে বলে, “তাও একবার ওর সাথে কথা বলতে দাও।”

শালিনীর চোখ জোড়া বুজে আসে, মাথা ধরে টলে পরে রিশুর দিকে, সেই সাথে হড়হড় করে বমি করে দেয়। রাগে দুঃখে এতক্ষন যত মদ খেয়েছিল সব রিশুর গায়ের ওপরে বমি করে দেয়। থরথর করে বার কয়েক সকেঁপে ওঠে শালিনীর দেহ, বমি করে চোখ বুজে নিস্তেজ হয়ে ঢলে পরে রিশুর গায়ের ওপরে। নিজের দিকে তাকিয়ে দেখে রিশু, সারা জামায় বমির দুর্গন্ধে রিরি করে ওঠে ওর শরীর। তাও নিস্তেজ হয়ে যাওয়া শালিনীর দেহ পাঁজাকোলা করে তুলে বিছানায় নিয়ে গিয়ে শুয়েই দেয়। bastob golpo

বমি করে এতটাই নিস্তেজ হয়ে পড়েছিল শালিনী যে চোখ খুলে দেখার মতন শক্তি টুকুও ছিল না ওর দেহে। শালিনীকে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে বাথরুমে ঢুকে তোয়ালে ভিজিয়ে নিয়ে এসে চোখ মুখ মুছিয়ে দেয়। শালিনী ততক্ষনে গভীর ঘুমে তলিয়ে যায়। বুক ভরে শ্বাস নিয়ে শালিনীর দিকে তাকিয়ে দেখে, ঊরুর ভেতর দিকের নরম মাংসে, দুই পেলব বাজুতে নখের আঁচর, ঘাড়ে কাঁধে দাঁতের দাগ, মেয়েটাকে সেই ছেলেটা নরখাদক রাক্ষসের মতন সম্ভোগ করেছে। চোখ ফেটে জল বেড়িয়ে আসার যোগার হয় ওর।

বাথরুমে ঢুকে জামা কাপড় খুলে স্নান সেরে বেড়িয়ে আসতেই আরো এক আশাতীত চমক ওর জন্যে ওর বসার ঘরে অপেক্ষা করেছিল, চন্দ্রিকা। ঘরে ঢুকে শালিনীর ওই অবস্থা দেখে হয়ত দরজা বন্ধ করতেই ভুলে গিয়েছিল রিশু। চন্দ্রিকার চোখের দিকে তাকিয়ে রিশু বুঝে যায় যে ওর ঘরের এই দুরাবস্থা দেখে ওর মনের মধ্যে হাজার প্রশ্নের ঝড় উঠেছে।

চোয়াল চেপে কাঁপা কন্ঠে জিজ্ঞেস করে রিশুকে, “এসবের মানে কি অম্বরীশ?”

রিশু তোয়ালে দিয়ে মাথা মুছতে মুছতে মুচকি হেসে বলে, “কেমন আছো?”

ঝাঁঝিয়ে ওঠে চন্দ্রিকা, “এসবের মানে কি অম্বরীশ?”

চড়া গলার আওয়াজ শুনে দাঁড়িয়ে পরে রিশু, ওর দিকে হাত তুলে থামিয়ে বলে, “কিসের মানে জানতে চাইছ?” bastob golpo

মেঝের ওপরে ছড়ান শালিনীর জামাকাপড় আর মেঝেতে পড়া মদের বোতল দেখিয়ে বলে, “তুমি নাকি ড্রিঙ্ক কর না, তুমি নাকি সিগারেট খাও না? আর এই মেয়েদের পোশাক এইভাবে তোমার মেঝেতে ছড়িয়ে?” শোয়ার ঘরের মধ্যে উঁকি মেরে দেখে বিছানায় অর্ধ নগ্ন শালিনী রিশুর একটা জামা গায়ে বেহুঁশ হয়ে ঘুমিয়ে। কাঁপা কন্ঠে চাপা চেঁচিয়ে ওঠে রিশুর দিকে, “শেষ পর্যন্ত তুমি আমার সাথে…”

রিশু চোয়াল চেপে দাঁত পিষে উত্তর দেয়, “তুমি যা ভাবছ তার বিন্দুমাত্র কিছুই সত্য নয়। এইসব দেখে তুমি যা ধারনা করছ ……”

ছলছল চোখে চেঁচিয়ে ওঠে চন্দ্রিকা, “আমি যা দেখছি তা সব মিথ্যে? সেই দুপুর থেকে তোমাকে ফোন করে যাচ্ছি, এক বারের জন্যেও আমার ফোন রিসিভ করনি। তুমি ব্যাস্ত জানি তাই ভেবেছিলাম বাড়ি ফিরলে একটু গল্প করব, কিন্তু তুমি যে এইভাবে এত ব্যাস্ত সেটা ঘুনাক্ষরেও টের পাইনি। তুমি কি না শেষ পর্যন্ত নিজের বেস্ট ফ্রেন্ডের প্রেমিকার সাথে সেক্স করলে?”

ভীষণ রেগে যায় রিশু, চন্দ্রিকার দিকে আঙ্গুল তুলে গর্জে ওঠে, “চুপ, একদম চুপ, আগে আমার কথা ঠিক করে শোন তারপরে নিজের কথা বলবে।” bastob golpo

চন্দ্রিকা কিছুই শুনতে নারাজ, চেঁচিয়ে ওঠে রিশুর দিকে, “কি ভাবতে বলছ অম্বরীশ, তোমার বিছানায় তোমার জামা পরে শালিনী শুয়ে রয়েছে, দেখেই বোঝা যায় ওর গায়ে শারট ছাড়া আর কিছুই নেই। এইদিকে তুমি শুধু মাত্র একটা তোয়ালে কোমরে জড়িয়ে দাঁড়িয়ে আছ।

শালিনীর জামা কাপড় থেকে পরনের অন্তর্বাস পর্যন্ত তোমার ঘরের মেঝেতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে। সিগারেট আর মদের গন্ধে ঘরে টেকা দায়। এইসব দেখার পরেও তুমি বলবে যে তুমি কিছু করনি? তুমি নাকি শালিনীকে বোন বলে ডাকো? ও নাকি তোমাকে রাখী পড়িয়েছে, এই তোমাদের ভাই বোনের সম্পর্ক?”

শেষের কথাটা কানে যেতেই মাথায় রক্ত চেপে যায় রিশুর, চোয়াল চেপে চন্দ্রিকার দিকে আঙ্গুল তুলে দরজা দেখিয়ে বলে, “তোমার যখন আমার প্রতি কোন বিশ্বাস নেই, তুমি যখন আমার কথা কিছু শুনতে চাইছ না তখন বেড়িয়ে যাও বাড়ি থেকে। মিস চন্দ্রিকা পশুপতি, আমার মা ছাড়া অন্য কারুর কাছে আমি জবাবদিহি দিতে নারাজ। আমি আজ পর্যন্ত আমার মা ছাড়া অন্য কারুর সামনে মাথা নত করিনি, এমন কি পাপার সামনেও নয়। তবে যাওয়ার আগে একটা কথা জেনে রাখো, ভুল আমি নই ভুল তুমি করছ।” bastob golpo

খোলা দরজা দিয়ে ভাঙা বুক নিয়ে সেদিন বেড়িয়ে যায় চন্দ্রিকা, সেদিনের পরে আর কোনদিন ওদের দেখা হয়নি, সেটাই ছিল ওদের শেষ দেখা। চন্দ্রিকা বেড়িয়ে যাওয়ার পরে অনেকক্ষণ চুপচাপ বসেছিল রিশু, রাগে দুঃখে সারা শরীর জ্বলে উঠেছিল ওর, ভালোবাসার অপর নাম বিশ্বাস, সেই বিশ্বাস যখন নেই তখন ভালোবাসার ওপর থেকে বিশ্বাসটাই চলে যায়।

রিশু এটাও বুঝতে পেরেছিল যে চন্দ্রিকা কোনদিন হয়ত কোলকাতা যেত না, হয়ত ওকে জোর করত দিল্লীতেই থেকে যেতে, ওর বাড়ির সাথে যে মানিয়ে নিতে পারবে না সেটা অবশ্য অনেক আগেই বুঝে গিয়েছিল রিশু। সেদিন প্রতিজ্ঞা করে রিশু আর কাউকে প্রেম করবে না, কোন তৃতীয় ব্যাক্তিকে নিজের পরিবারের মধ্যে টেনে আনবে না।

শেষের পাতায় শুরু – 8 by Pinuram

1 thought on “bastob golpo শেষের পাতায় শুরু – 9 by Pinuram”

Leave a Comment