bengali choti world পরিবর্তন তৃতীয় পর্ব – 3 (সতী)

bengali choti world. আধ ঘণ্টারও বেশী হয়ে গেল দিদি আসছে না। নানা রকম ঘরকন্নার শব্দ পাচ্ছি শুনতে।

আমার একটু কুঁচকিতে ব্যাথা হওয়াতে ঘুরে চিৎ হয়ে শুয়েছি। এতক্ষণ পা তুলে রেখেছিলাম, হবে না ব্যাথা? ক্লান্তি আছে, কিন্তু ঘুম নেই। প্যাটপ্যাট করে তাকিয়ে তাকিয়ে ভাবছি কি হোলো এটা।

দিদিকে আমি – ওর সামনে ওরই ব্রা নিয়ে নোংরামো করে হাতেনাতে ধরা পড়ে গিয়েছিলাম আমি। নিঃসন্দেহে দিদির বিরাট রাগ হয়েছিল, ওই মুখ ভুল করা সম্ভব নয়। তারপরে আত্মগ্লানিতে নিজের যৌনাঙ্গের ক্ষতি করতে চেয়েছিলেম – তাতেও ধেড়িয়ে বসে আবার ধরা পড়ি, এবং এবারে বোধহয় দিদি আমার প্রাণই বাঁচায়। তারপর দিদি যে শুধু আমাকে সন্তানস্নেহের সাথে শুশ্রূষা করেছে তাই নয় – কী অদ্ভুত এক উপায়ে আমার সবচেয়ে নোংরা জায়গাটার মধ্যে অজানা সব কলকাঠি নেড়ে আমার সমস্ত কুরস, কুচিন্তা নিংড়ে বের করে দিলো! কেন? কিভাবে? কোত্থেকে?

প্রশ্ন হাজারটা, কিন্তু আমি জানি আমি ওকে একটাও জিজ্ঞেস করতে পারবো না। নিজের থেকে না বললে আমি ওর রেসপেক্ট ডিঙ্গিয়ে যেতে পারি না।

আশ্চর্যভাবে, একটু আগেই আমার গোপন গভীরে যা কিছু ফিল করছিলাম, আস্তে আস্তে সব ভুলে যাচ্ছি। যেন কেউ মাথার থেকে একটা একটা করে ফাইল ডিলিট করছে। ঘটনা সব পরিষ্কার কিন্তু শারীরিক অনুভূতির স্মৃতিগুলোয় কুয়াশা পড়ছে।

bengali choti world

দিদি এসে ঢুকলো। আমার দিকে একবার তাকিয়ে নিয়ে, আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে চুল আঁচড়াচ্ছে। আমি নির্দ্বিধায় ওর দিকে তাকিয়ে দেখছি। ভাল-মন্দ কোনো অনুভূতি নেই আমার মনে, আমি জাস্ট কৃতজ্ঞ। দিদি একবার আমার দিকে তাকিয়ে, ফিক করে একটা দুষ্টু হাসি দিয়ে পিছন ফিরে সটান পরনের নাইটিটা খুলে ফেললো। আগেই জানতাম আজ ব্রা পরেনি, আর প্যান্টি তো এখনো আমার মুখের পাশেই পড়ে, তাই দিদি এখন সম্পুর্ণ নগ্ন।

গলায় একটা পাতলা দড়ির হার আর কোমরে ঘুনসিটা বাদে আর কিচ্ছু নেই। অন্যদিন হলে শুদু একথা চিন্তা করলেও আমার টং হয়ে যেতো, দেখা তো দুরের কথা। কিন্তু আজ আমার আর কোনো রিঅ্যাকশন নেই – শুধু শারীরিক সৌন্দর্য উপভোগ করছি। দিদির সুন্দর পেছনগুলো দেখে আমার হার্ট অ্যাটাক হওয়া উচিৎ – আজ আমি শুধু মনে মনে গ্রেসফুল রেখাগুলোর তারিফ করছি।

দিদি আমাকে দেখিয়ে দেখিয়েই যেন রাতের প্রসাধন শুরু করল। পিছন ফিরে আয়নায় ঝুঁকে পড়ে, আমার দিকে পাছা ঠেলে দিয়ে নাড়িয়ে নাড়িয়ে মুখে ক্রিম মাখছে। পাশে ঘুরে একটা পা টুলের ওপর তুলে ঝুঁকে পড়ে ভেসলিন মাখাচ্ছে, সুডৌল বুকগুলো দুলছে। আমি আর আশ্চর্য হচ্ছি না আমার উত্তেজনার অভাবে, শুধু প্রাণভরে দেবীদর্শন করছি। কফির মতো সৌন্দর্য পান করছি দিদির দেহের। দিদি টান টান হয়ে দাঁড়িয়ে, একটু পিছনে হেলে সারা গায়ে লোশন মাখছে। bengali choti world

বুকগুলো তুলে তুলে তার তলায় মাখাচ্ছে, আর আমার মাথায় শুধু আসছে যে আমি কল্পনায় দিদির নিপলগুলো যতোটা লম্বা লম্বা ভাবতাম আসলে ততোটা না, তবে বাকী বাদামী বৃত্তটা আরো বড়। কত সেমি হতে পারে, ইত্যাদি পরিমিতির পরিমিত প্রশ্ন। শেষমেষ দিদি টুলটায় আমার দিকেয় মুখ করে বসে, খাটের ধারে পাগুলো তুলে ছড়িয়ে, নিজের গোপন জায়গায় ক্রিম মাখানোর ছলে সব দেখিয়েই দিলো। আমি মাথায় শুধু এলো, প্রতিদিন কি এতোটা করে কেমিক্যাল জিনিস মাখা উচিত। নাকি আজ স্পেশাল। তাই হবে।

কি যাদু করলি দিদি, নিষ্কাম চোখে মেয়েদের দিকে তাকাতে পারবো এবার। কটা লোক পারে। লাখে এক। তাদেরও কি এমনি সুন্দর দিদি আছে।

দিদি একটা স্লিপ গলিয়ে নিলো শুধু, পাছার নীচে অবধি পড়লো। শেষবারের মতো আয়নায় নিজেকে একঝলক মেপে, বড় আলো নিবিয়ে ঢুকে পড়লো মশারির ভেতর। ঘরে নাইটল্যাম্প জ্বালাতে হয় না আমাদের কখনো, সামনেই স্ট্রীটল্যাম্প – রাতের জন্য যথেষ্ট। আমার চাদরটা উলটে একবার আমার নীচেটা দেখে নিলো দিদি, মুখে প্রাইজ জেতার মতো একটা হাসি ফুটেছে। আমার উপর উঠে কোমরের দুপাশে পা রেখে বসল চেপে। হাতগুলো আমার বুকে। bengali choti world

– “কিরে, মেয়ে দেখে পছন্দ হল? বিয়ে করবি আমায়?”

– “হুঁউউ। কিন্তু রেজিস্ট্রি শুধু।” আমার গলা পরিষ্কার, স্বাভাবিক। “আর একটা ছোটো প্রাইভেট পার্টি, ব্যস।”

দিদি খিলখিল করে হেসে গড়িয়ে পড়ল আমার উপর। আমার কাঁধে মুখ রেখে শ্বাস ফুরোনো অবধি হেসে নিলো। তারপর আমার সারা মুখে চুমোয় চুমোয় ঢেকে দিলো। “দীপু, আমার দীপু, দীপু, দীপু, দীপু, দীপু দীপু দীপু, ভাইটি আমার, দীপু আমার, ভাইটি রে… এমন ভয় পাওয়াতে আছে দিদিকে?”

– “আয়্যাম সো, সো সরি দিদি। আর কখনো হবে না। তোমাকে ছুঁয়ে বলছি।”

– “পাগল ছেলে, এতো মাথা খারাপ করে একটা কথায়? আমি তো শুধু কাপড়টা ধুয়ে দিতে বলেছিলাম, আর কিছু না! তিলটা থেকে এতোবড় তাল করে ফেললি তুই? ভাবলি একবার এই অভাগা দিদিটার কথা? তোর কিছু হলে কী হবে আমার!”

– “আর কখনো তোমাকে নিয়ে ওসব ভাববো না দিদি, কথা দিচ্ছি।”

– “ভাববিনা কী রে? কেন ভাববিনা!” আমার চুলগুলো খামচে ধরেছে দিদি। “আমাকে কী ভাবিস তুই, মধ্যযুগীয় বুড়ী একটা? কি মনে করিস, তুই আমার চোখের জল দেখতে পাস, আমি তোর ভেতরের কষ্ট বুঝতে পারি না? কী ভাবিস আমি তোকে নিয়ে এসব ভাবি না? আমি মানুষ নই? আমার ভ্যাজাইনা কি মরে গেছে, সে চলে গেছে বলে?” bengali choti world

দিদি আমার নিস্তব্ধ ধোনের ওপর যোনীটা ঘষছে। লোশনে মলমে মেখে যাচ্ছে। “আমিও তোর কথা ভেবে করতাম রে। কিন্তু কখনো সীমা ছাড়াইনি। শুধু আজ, আজ আর প্রাণ মানছে না…. আহ। আমি অলমোস্ট সরি আজই তোকে নির্বীজ করে দিয়েছি বলে!”

আবার খিলখিল করে হেসে উঠলো দিদি, আমার বুকে স্তনভার নামিয়ে শুলো। আমার গলার চামড়ায় দাঁতে কাটছে একটু একটু।

– “দিদি? …. এই দিদি। কী করেছিস আমাকে? আমার… আমার এতকিছুতেও কিছু ফিল হচ্ছে না কেন?”

দিদির মুখে আবার দুষ্টু হাসি। “কী ফিল করার কথা বলছিস, ভাই? আমি তো কিছু বুঝতে পারছি নে।”

– “ন্যাকামো করিস না দিদি। আমি সিরিয়াস। কী হয়েছে আমার?”

– “বলবো না, বলবো না….”

– “অ্যাই শয়তানী করবি না একদম, একটা দেবো এমন!”

– “তুই দিবি? তুউউউইই দিবি? হাঃ! এতক্ষণ ধরে একটা ন্যাংটো মেয়ের এত ঘষামাজা খেয়েও যার এতোটুকু নড়েনি, সে আবার দেবে, কি দিবি রে? ধানি লংকা? হি হি।”

একঝটকায় ঘুরে দিদিকে নীচে নিয়ে চেপে ধরে কাতুকুতু দিতে শুরু করেছি। ওপরে নীচে দুসাইডে ওখানে, কিছু বাদ দিচ্ছি না। দিদি টুথ অ্যান্ড নেইল ফাইট করছে, কিন্তু আমার শরীর ওর চেয়ে বড়, পারবে কেন। কাঁদিয়ে ছাড়লাম। তারপর আমার বুকের নীচে চেপে শুলাম। বিশাল চোখজোড়া আমার খুব কাছে। bengali choti world

– “এই এতো জোরে দিতে আছে? যদি হিসু বেরিয়ে যেতো?”

– “তুই আমার এতোটা বের করে দিয়েছিস যে। শোধ-বোধ।”

– “ওহ মাগো পেটে ব্যথা করছে। বদমাশ। কাঁদালি কেন?”

– “তুই আমার ওখানে ব্যথা দিয়েছিস কেন?”

– “হুমমমম। তেমন খুশীও তো দিয়েছি সোনা।”

একটুক্ষণ ওর চোখের গভীরে হারিয়ে থাকলাম। আমাদের নগ্ন পাগুলোকে সময় দিলাম আলাপ পরিচয় সারতে।

– “দিদি?”

– “হুঁ, ভাইটি আমার?” চুলে বিলি কাটছে।

– “একটা ইনটিমেট কথা জিজ্ঞেস করবো, কিছু মনে করবি না তো?”

ফিকফিক করে হাসছে। “সোনা, আজ তোর সবচেয়ে অন্ধকারে খেলেছি আমি। তোর ওটা আমার রস মেখেছে। এর চেয়েও ইনটিমেট? আচ্ছা বল শুনি।”

– “একটু আগে বললি, তুই আমার কথা ভেবে করিস।” bengali choti world

মাথাটা ঘুরিয়ে দিলো পাশের দিকে। “হুম।”

– “আমি তোর কথা ভেবে করতাম, এই ধর মাসে একবার, কি দুমাসে তিনবার। তুই কবার করতিস আমার কথা ভেবে?”

– “কি হবে তোর জেনে? রেস লাগাবি?”

– “বল না।”

নীচের ঠোঁটটা কামড়ে ধরলো। “হুমমমম, ঐ রকমই কিছু।”

– “বেশি না কম?”

…. …. …. ….

– “বেশি না কম?!”

আমার বুকের মধ্যে মাথা গুঁজে, প্রায় ফিসফিস করে বললো দিদি, “বেশী।”

– “ওকে। তবে আমার প্রপোজালটা শোন। তুই আমাকে আজ প্রচুর সুখ দিয়েছিস, কিন্তু একটা সিক্রেটও সামনে রেখেছিস, না জানলে আমার ঘুম নেই। তাই আমি যদি তোকে ভালো করে সুখ দিই, তখন বলবি আমায়?” bengali choti world

দিদি আমার বুকের মধ্যে থেকে বেরিয়ে এসে আমার চোখে চোখ রাখলো। গভীর শ্বাস নিলো একটা, বুকগুলো চাপ দিলো আমার বুকে। গলার ওখানটা ওঠানামা করল একবার।

কপালে একটা চুমু দিয়ে নেমে গেলাম নীচের দিকে। বেশি ডিটেলে যাবো না, দিদির অন্তরঙ্গ শীৎকারগুলো ঢেলে বর্ণনা করতে কেমন লাগছে। শুধু এটুকু বলে রাখি, পর্ণ দেখে কিছু জানা এবং মাথা বরফের মতো ঠাণ্ডা থাকার দরুন দিদির প্রতিটি উত্তেজনার সঠিক অর্থ বুঝে ফেলাতে দশ মিনিটের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন হয়ে গেলাম। আমার প্রথম এবং এখনো পর্যন্ত সেরা মৌখিক পরীক্ষা। অবিশ্যি দিদি অনেকক্ষণ থেকেই গরম থাকাতে আমার একটা আনফেয়ার সুবিধা ছিল।

কিন্তু ওই যে কথা আছে না, যুদ্ধে আর প্রেমে সবই ফেয়ার!

এটা কি প্রেম আমার, দিদির সঙ্গে? বাঙ্গালীর উপন্যাস বই মতে এ তো প্রেমের পার্ট কবে পেরিয়ে গিয়েছে, চতুর্থ খণ্ডের গল্প। কিন্তু আমার জীবনে প্রথম খণ্ড, অন্তত নারীবিষয়ক নভেলে, এটাই। অত চুলচেরা জানিনে, তবে দিদি যখন পা দাপিয়ে চাদর খামচে গরুর মতো হাম্বা দিয়ে আমার মাথাটা ধরে ছুঁড়ে ফেলে দিলো, বুঝেছিলাম এটাকে ক্লাসিফিকেশন করা কঠিন হবে।

আমি চুলের থেকে দিদির মরণমুঠো ছাড়িয়ে নিয়ে ছটফট করতে থাকা দিদির শরীরটা আবার নিজের নীচে চেপে ধরে শুলাম। দিদি আমাকে আঁচড়ে খামচে দিলো। আমার কোমরের দুপাশে দিদির ঊরুর ভেতরের দিকের পেশীগুলো কেঁপে কেঁপে উঠছে। ভারী সুন্দর লাগছে দিদিকে। ভালো করে জল ঝরলে মেয়েদের আরো সুন্দর লাগে। তবে কেন যে এতো ক্রীম-লোশন মাখে ওরা। bengali choti world

– “ওঃ, ভাইরে, সোনা আমার, দীপু ভাই আমার। কতদিন পর আঃ।”

আমাকে এলোপাথাড়ি চুমো খাচ্ছে দিদি আর এরকম সব বলে যাচ্ছে। আমি চুপ করে সহ্য করছি, কারণ, আমি কিছুই ফিল করতে পারছিনা এখনো।

কিছুটা ঠাণ্ডা হলে পরে দিদি হাত বাড়িয়ে আমার নিঃসাড় ওটা ধরল। “কী রে, আমার এতো রস খেয়েও তোর জাগল না একটু। বাবা এতদূর ভাবি নি। আচ্ছা আমি মুখে নিলে হবে?”

দিদি ঘাড় বাঁকিয়ে তাকালো আমার মুখের দিকে, পড়তে চেষ্টা করছে।

আমি কাঁধ ঝাঁকালাম। “মনে হয় না। আমার ওখানে ওরকম কোন চাপই নেই। কি মারণ-উচাটন-বশীকরণ করেছিস রে আমাকে? কী হয়েছে আমার?”

– “কি হয়েছে তোর?” খিলখিল, খিলখিল। “কি হয়েছে?” খিলখিল। “এখুনি আমার যা হল, তোর তাই হয়েছে!”

– “এঁহ?”

– “তোর ফিমেল অরগ্যাজম হয়েছে!”

– “(ডবল) এঁহ?!!!”

খিলখিল, খিলখিল, খিলখিল… আমি ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করতে লাগলাম। খুব খানিক হেসে নিয়ে দিদি বললো, “দাঁড়া খালি করে আসি, খুব পেয়েছে। তোর মুখেই ছেড়ে দিইনি ভাগ্য ভালো!” খিলখিল খিলখিল। bengali choti world

নেমে বাথরুমে চলে গেল দিদি। আমি এই সুযোগে একটু হাত দিয়ে করে দেখবার চেষ্টা করলাম। নাঃ, কোনো খবর নেই।

দিদি এসে আমার ওপর উঠে ভালো করে জাপটে ধরে শুয়ে, বিড়ালের মত খুব খানিকক্ষণ আদর খেয়ে নিলো।

– “নে এবার তো বল, দিদি। আর জ্বালাস না।”

আমার মাথার চুলে বিলি কাটতে কাটতে একটু ভেবে নিলো দিদি। “আমার এক নার্স বন্ধু আছে চন্দ্রিমা, জানিস কী?

মাথা নাড়লাম।

– “তোর… দাদা থাকতে থাকতে আমার কিছু ইয়ের প্রবলেম হয়। একটা ছোটো অপারেশন করতে হয় আমার ওখানে। তো চন্দ্রিমার সাথে আলাপ অপারেশন থিয়েটারে, বুঝলি। গাইনির স্পেশাল নার্স। আমি তো, হি হি, ভয়ে কাঁপছিলাম। ওই এসে আমার সাথে হেসে গল্প করে হালকা করে দেয় অনেকটা। আর আমার আগের পেশেন্টের কি প্রবলেম হওয়াতে আমার জন্য অনেক দেরীও হয়। তো অনেক মিল টিল ছিলো আমাদের, ফোন নাম্বার দেয়ানেয়া হল। আর তারপর রিকভারিতেও এসে গল্প করে গেছে। সেই থেকেই আমাদের লম্বা বন্ধুত্ব। ওর যাবার পর থেকে আমাকে শক্ত হতে অনেক সাহায্য করেছে চন্দ্রিমাই।” bengali choti world

“তো, চন্দ্রিমার পেশা হলো গাইনি সার্জেনকে হেল্প করা। কিন্তু ওর নেশা কী বল তো? সেক্সোলজি! রাজ্যের সব বই ভর্তি ওর বেডরুমে, আর সবই সেক্স নিয়ে। মানে নোংরা বই নয়, সায়েন্সের বই, কিন্তু সবই ওই নিয়ে লেখা।”

“এই আইডিয়াটা ওর কাছ থেকেই পেয়েছি। থিওরি, আইডিয়া এবং কাজের বেলায় একশো-দশ পার্সেন্ট সাহায্য। অবিশ্যি তোর ওপরেই যে করবো এমনটা ঠিক ভাবিনি। কখনো যে এ কপাল হবে তাই ভাবিনি, কিন্তু যখন দেখলাম তুই সুস্থ আছিস মোটামুটি, তেমন কিছু ড্যামেজ নেই, তখন ওই কথাটা পাড়লো। হ্যাঁ তোর বিপদে ওকেই ডেকেছিলাম, তোর কীর্তি দেখে। পাগলা ভাইটা।” নাকটা নেড়ে দিলো দিদি।

– “বল তো, তোদের চরমসুখ আর আমাদের চরমসুখের সবচেয়ে বড়ো তফাৎটা কোথায়?”

– “আমাদেরটা একজায়গায় হয়, তোদেরটা অনেকখানি জুড়ে হয়?”

– “উঁহু।”

– “আমাদেরটাতে রস বেরোয়, আর তোদেরটাতেও বেরোয় কিন্তু অমনি না?”

– “এইবার ঠিক পথে যাচ্ছিস, কিন্তু এখনো অনেকদূর যেতে হবে।”

একটু ভাবলাম। “আমার, এঁএএএএ, যখন হয় তখন ভেতর থেকে চাপ পড়ে, তাই পিচকিরির মতো বেরোয়, কিন্তু তোর কোন চাপ পড়ে না?”

দিদি হাসিমুখে মাথা উপরনিচ করে আমাকে উৎসাহ দিচ্ছে।

– “এঁএএ, তা হলে, আমার সময় মেক্যানিক্যাল ব্যাপারটাই বেশী, আর তোর সময় নার্ভের ব্যাপার?” bengali choti world

– “একদম! একদম কারেক্ট। ছেলেদের যখন ওটা হয় তখন তাদের শরীরের সবচেয়ে বড়ো তাগিদ থাকে পাম্প করে রস বের করা, মেয়েটার ভেতরটা ভরিয়ে দেওয়া। কিন্তু মেয়েদের সেসব কোনো ব্যাপার নেই। যেটুকু রস হয় সেটা লুব্রিকেশন আর অ্যান্টিসেপটিক দরকারে, আর কোনো কাজ নেই। এখন, প্রকৃতি খুব একচোখো, জানিস তো। ছেলেদের বডিটা এমন করে তৈরী করেছে যাতে একাই অনেকগুলো মেয়েকে দিতে পারে। এজন্যেই তোদের একটা মেয়েতে ভালো লাগে না, ঘরে মিষ্টি বৌ থাকলেও বাইরে খালি ছোঁক ছোঁক!” দিদি মিষ্টি করে আমার গালে একটা চড় মারলো।

“আদিম কালে তাই হোতো, গুহামানবদের মধ্যে যে সবচেয়ে বেশী শক্তিশালী, সেই লীডার হোতো আর তার মানেই বেশীরভাগ ফার্টাইল মেয়েগুলোতে বাচ্চা করবার অধিকার পেতো। কিন্তু এখানে একটা মুশকিল আছে। ধরা যাক এখন একটা গুহামানব একটা মানবীকে করলো, পুরো রস ঢেলে দিলো, পাশ ফিরে ভোঁস ভোঁস করে ঘুমিয়ে গেলো। রস তো আর সঙ্গে সঙ্গে তৈরী হবে না। বাহাত্তর ঘণ্টা লাগে তোদের হাউসফুল হতে। তার মানে তিনদিন পরে আবার সফল মিলন হবে? bengali choti world

প্লাস একজনের সাথে মিলনে সম্পুর্ণ তৃপ্ত হয়ে পড়লে তো আর অন্যদের কী হবে? তা হলে তো চলবে না, প্রকৃতির চাই তাড়াতাড়ি গুষ্টির পাল বাড়ানো। তিনদিনে একবার নয়, যেন দিনে তিনটে করে সুপার-অ্যাকটিভ ফর্মুলা ঢালতে পারে ঘিয়ের কলসীতে। তো কী উপায়? সিম্পল, ছেলেদের যেন সম্পূর্ণ তৃপ্তি না হয় মিলনে, একটা চরমসুখে যেন পুরো রস বেরিয়ে না যায়। কিছু যেন খিদে থাকে, কিছু যেন চাপ থাকে। তাই তোদের সুখ এতো ক্ষণস্থায়ী, আর এতো সীমাবদ্ধ।”

“কিন্তু মেয়েদের তো এই প্রবলেম নেই, বরং উলটো। যত বেশী পুরুষের সাথে মিলিত হতে পারবে ততই ভালো, যত ভিন্ন ভিন্ন ডিএনএ ধরবে ততই ভালো। তাই আমাদের তৈরী করেছে অরগ্যাজম-মেশিন করে। একবারেও তৃপ্তি পেলে খুব শান্তি, আবার পাঁচবারেও সুখ। দৈহিক শক্তি বজায় রাখার উপায় থাকলে নারীদেহ অনন্তকাল টানা চরমসুখ ভোগ করতে পারে।”

দিদির নিজের সুগন্ধী কোমল নারীদেহ একটু সরে আমার পাশে নেমে এলো। শুলো আমার গলা জড়িয়ে।

– “কিন্তু আজ এই সমাজে তো সে দরকার নেই। জনসংখ্যাটাই বরং বিরাট প্রবলেম। তাই পুরুষের বহুগামী হবার প্রথা সভ্যতার সাথেই লোপ পেয়েছে। তাই আর সেই অসম্পূর্ণ রাগমোচনের দরকার নেই, বরঞ্চ খুব ভালো হবে যদি পুরুষেরও নারীর মতোই সম্পুর্ণ স্খলন হয়। সংসার আঁট হবে। যৌনক্ষুধা থেকে নোংরামি লোপ পাবে। কিন্তু তা বললে তো চলে না, ইভোল্যুশন উল্টো দিকে বয় না। প্রথা গেছে কিন্তু প্রবৃত্তি যায় নি, যাবেও না। এটা তোদের জিনের মধ্যে জড়ানো, ঠিক যেমন আমাদের মাতৃত্ব। bengali choti world

তাই আজ বেশীরভাগ ছেলেরাই অতৃপ্ত, অর্ধতৃপ্ত অবস্থায় থাকে। এমমকি যারা প্রতিদিন মিলিত হয় তারাও না – সাধারণ মানুষ শুধুমাত্র বিশেষ দিনেই দু-চারবার করে থাকে। নর্ম্যালি কিন্তু দিনে একবার । আর আমাদের দেশে? সপ্তাহে একবার। মাসে একবার। একটা সো-কলড ‘ভালো ছেলের’ কথা যদি ধরি, সে বড় হয়েছে বারোয় কিন্তু প্রথম আউট করলো একুশে, মানে নয় বছরে একবার!”

“কিন্তু তোদের শরীর তো তাতে সম্পুর্ণ সুখী হচ্ছে না, ভেতরে লুকোনো চাপ থেকেই যাচ্ছে। প্রতিদিন চার-পাঁচবার সেক্স করা আউট অফ কোয়েশ্চন। আর সমাজের অদ্ভুতুড়ে কিছু নিয়মে কচিদের তো প্রাণ ওষ্ঠাগত অবস্থা। সাধারণ, স্বাভাবিক যৌনতাও তোদের মেলে না। কিন্তু টিভি-সিনেমা মিডিয়াতে সুড়সুড়ি দেওয়া চলতেই থাকে। একদিকে হাফন্যাংটো মেয়েরা নাচছে অন্যদিকে সংযম শেখাচ্ছে। সমাজে যে আনরেস্ট দিনকে দিন বাড়বে, যৌন বিকৃতি বাড়বে, মেয়েদের ওপর অত্যাচার, হিংসা, রেপ বাড়বে তাতে আর আশ্চর্য কী।” bengali choti world

আমি দিদির বক্তৃতা শুনতে খুব একটা আগ্রহী ছিলাম না। থিওরিটা নতুন, কিন্তু তার সাথে আজকের কী সম্পর্ক? একটু উসখুস করে উঠতে দিদি ভাবলো বোধহয় আমার শুতে অসুবিধা হচ্ছে। নড়েচড়ে আমার পা গোটাবার জায়গা করে দিয়ে, নিজে চার হাতপায়ে আমায় আঁকড়ে ধরলো। চুক চুক করে চুমো খেলো কটা।

– “ভাবছিস তো, তাতে তোর কী?”

– “উম।”

– “দেখ, এতকিছু প্রবলেম সবই ছেলেদের সম্পূর্ণ তৃপ্তি হয় না বলে। তোর মাথায় আমাকে নিয়ে নোংরামি এসেছিলো কারণ তোর ভেতরের চাপের সামনে আমি তোর সবচেয়ে কাছের, সবচেয়ে ইজি মহিলা। কিন্তু জানিস নিষিদ্ধ। তাই বলতে পারিসনি, তাই আমি দেখে ফেলতে এতোটা অপরাধ লেগেছিলো তোর। এমনকি যখন তোর হলো আমার কথা ভেবে, তখনো পুরোটা পড়েনি, পুরো চাপ খালি হয়নি বলেই বাকিটা অপরাধবোধের সঙ্গে মিশে তোর মাথায় উঠে গেছিলো।” দিদি আমার বুকে একটা আঁচিল খুঁটছে। “বিশ্বাস কর ভাইটি, আমি তোর ওপর এতোটুকু রাগ করিনি। bengali choti world

রাগ হয়েছিলো নিজের ওপর, অন্য… অন্য একটা কারণে। তারপর মাথায় এলো যে আমি যদি তোর সম্পুর্ণ রিলিজের ব্যবস্থা করতে পারি, যে কলা আমি শিখেছি চন্দ্রিমার বইগুলো থেকে, তাহলে গ্যারান্টি সহকারে বলা যায় যে আমাদের মধ্যে সম্পর্কে ফাটল ধরবে না। সেক্সের মানসিক ফল যা কিছু, সেক্স না করেই তার দশগুণ দিতে পারি তোকে। তাহলে কেন তোর সামনে আমার… আমার এই পোড়া যৌবন নিয়ে দেখিয়ে দেখিয়ে ঘুরে বেড়াই, কাছে আসি, কিন্তু কখনো শান্তি দিই না? আমি কী জানি না তুই আমাকে কতখানি ভালবাসিস, জানি না যে আমার ক্ষতি করার আগে তুই নিজের ক্ষতি করে বসবি?”

দিদির গলা ধরে এলো। “কেন আমি কাল তোর সামনে এলাম না তক্ষুনি? কেন মুখোমুখি হলাম না? কেন মান দেখিয়ে ঘরে বসে রইলাম, তোর যখন সাপোর্ট সবচেয়ে বেশী দরকার জানি?”

একটু ভেবে আমি বললাম, “মে বি, তোরও হয়তো একটু অপরাধ লাগছিলো? নন্দদার কথা ভেবে?”

দিদি চমকে মুখ তুললো, বড়ো বড়ো চোখ আরো বড়ো বড়ো। আবার একটু পরে মাথা গুঁজে দিলো আমার বুকে। “কাল এতো ডেপথ কোথায় ছিলো তোর, দীপু, ভাইটি আমার। নাকি ফিমেল-টাইপ অর্গ্যাজম হলে ছেলেদেরও মেয়েলি বুদ্ধি গজায়? ফিকফিক। চন্দ্রাকে জিজ্ঞেস করতে হবে তো!” bengali choti world

“…হ্যাঁ, ঠিকই ধরেছিস রে। আমি তোর দাদাকে ভুলতে পারিনা। যতই আধুনিক হই, যতই শারীরিক বই পড়ি, ততই আমার এ ধারণা আরো দৃঢ় হয় যে সত্যিকারের ভালোবাসার সাথে শরীরের কোনো যোগ নেই। ওটা আলাদা, এটা আলাদা। কিন্তু হাজার বছরের সংস্কার বসে থাকা রক্তে, ছোটবেলার থেকে সুচর্চিত লজ্জা যাবে কোথায়। তাই আটকে দিলো দীপু আমায়, সময়ে তোর পাশে দাঁড়াতে। আই অ্যাম সো সরি, ভাই, ভাইটি আমার – আই অ্যাম সো, সো সরি!”

– “আমার কাছে এসবই নতুন, দিদি।”

আমি এবার ওর চুলে বিলি কাটছি, সান্ত্বনা দিচ্ছি। “ওকথা থাক। আমিও কি কম স্টুপিডিটি দেখিয়েছি। গোড়াতেই দেখ, মাস্টারবেট করছি কিন্তু দরজা দিইনি, কী বলবি! তারপর, আমিও তো তোর কাছে যেতে পারতাম, যাইনি কেন। যাকগে, কালকের কথা কালকে হয়ে গেছে। আজ কী জাদুটোনা মারলি আমায় সেটা বল!”

– “এখনো বুঝিসনি বোকা?”

দিদি আমাকে ছেড়ে দিয়ে, চিৎ হল। আমার একটা হাত টেনে নিয়ে ওর সুগভীর নাভি ঢেকে রাখলো। “আজ তোর ভিতরের যে গ্রন্থিতে রস জমা হয়, সেটা নিংড়ে নিংড়ে পুরো রসটা; পু-উ-রো রস সব বার করে ফেলেছি। ছেলেদের ওই থলির থেকে একগোছা নার্ভ শিরদাঁড়া বেয়ে মাথায় খবর দেয় কখন কতটা সেক্স দরকার। তোদের খিদে ডাইরেক্টলি ওটার ভিতর কত ওজন তার ওপর নির্ভর করে। সোজাসুজি, ওর ভেতরে ফাঁকা মানে তোর সেক্সও ঢাকা!” bengali choti world

দিদি আবার খিলখিল করে হেসে উঠে, আমাকে জিরিয়ে ফেলে নিজের সব উত্তল-অবতল দিয়ে পিষে পিষে আদর করতে লাগলো।

– “এখন দশ-বারো ঘণ্টা অবধি তোর কোনো সেক্স আসবে না, ফ্রাসট্রেশন আসবে না, চাহিদা জাগবে না, আর ইলেকট্রিক শক না দিলে তোর এটা দাঁড়াবে না চব্বিশ ঘণ্টা অবধি!”

দিদি হঠাৎ আমার কোমরে উঠে পড়ে আবার যোনি দিয়ে আমার ওখানটা জোরে জোরে, পিষে পিষে ঘষছে। “আমি যা খুশি করি না কেন, তোর ইচ্ছে হবে না, শরীর জাগবে না আজ। তোর সামনে আমি আজ উদোম, অসভ্য, বন্য নোংরা হতে পারি – তোর কোনো এফেক্ট হবে না। আজ রাতে এই শহরে একটা মেয়ের পক্ষে তুই সবচেয়ে বিশ্বাসযোগ্য, সবচেয়ে সেফ পুরুষ!”

হাঁপিয়ে দিদি থপাস করে একতাল কাদার মতো আমার বুকে পড়ে গেলো। “আজ রাতে তুই আমার পারফেক্ট জীবন্ত কোলবালিশ।”

আমরা কিছুক্ষণ ওইভাবে পড়ে রইলাম। দিদির কথাগুলো আমার মনে পাক দিয়ে যাচ্ছে, দিদিকে ভালো লাগছে, অন্য রকমের ভালো। আমার বুকের ওপর পড়ে থাকা নিথর নরম শরীরটা, পিঠ থেকে স্লিপটা গুটিয়ে তুলে নিয়ে, ঘাম গুলো হাত দিয়ে ঠেলে ঠেলে নীচে নামিয়ে দিচ্ছি। দিদি বিড়ালের মতো গুড়গুড় করছে আরামে, ফিসফিস করছে আমার কানে, “তোর সঙ্গে প্রপার সেক্স করতে পারি না। bengali choti world

রিলিজ করার জন্যে যতোটুকু নাহলে নয় তার একফোঁটা বেশী প্লেজার দিইনি তোকে। একটু মালিশ করেছি, কারণ সোজাসুজি শুধু চাপ দিলে ব্যাথায় মরে যেতিস কিন্তু বেরোতো না। নীরস করার আগে অবধি তোর ওটা ছুঁইনি, অন্তত সেক্সের জন্য না, মেডিক্যাল দরকারে শুধু। বদলে পেয়েছি একরাতের জন্য এই অমূল্য বিশ্বাস, এই ভরসা, এই অন্তরঙ্গতা। গাড়ি গয়না সন্তানে ঘর ভরে গেলেও যা পায়না বেশীরভাগ ‘সফল’ দম্পতিগুলো, আমি পেয়েছি আজ আধঘণ্টার কাজে।”

“বল দীপু, আমি কি একটা খারাপ মেয়ে? তোর এখন মাথা সবচেয়ে ঠাণ্ডা, তোর এখন আমার শরীরের জন্য কোনো টান নেই, তার জন্য তোর চিন্তায় বায়াস পড়বে না। তুই ঠিক বলবি এখন। বল ভাই বল, আমি কি এর মাধ্যমে ওর প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা করলাম? বল ভাই!”

– “কিন্তু দিদি, আমার উত্তর আনবায়াসড হবে কী করে। আমি হয়তো তোর শরীর চাই না, কিন্তু তোকে ভালোবাসা কী বন্ধ হয়ে গেছে। তুই তো নিজেই বললি যে তুই জানিস আমি তোর ক্ষতি করার আগে নিজের ক্ষতি করবো। আমার পেনিস হয়তো জেগে থাকলে তোর শরীরটা ভালোবাসে, কিন্তু আমার মন?” bengali choti world

দিদির শরীরটা আমার আলিঙ্গনের ভেতর একটু অসাড় হয়ে গেল। আমি ওকে নিয়ে ঘুরে নিজেকে ওপরে নিয়ে এলাম। “দেখ দিদি, একথা তোকে অনেকে বলেছে, আমিও বলেছি, কিন্তু আমাদের সবার মনেই তোকে নিয়ে চাহিদা আছে। আজ সুস্থ, নিষ্কাম, নিষ্পাপ মনে বলছি। তুই ওই একটা লোকের স্মৃতি নিয়ে পড়ে থাকিস না। যে চলে গেছে, নিজের থেকে গেছে, তাকে কেন আঁকড়ে ধরে থাকিস? তোর কোনো তো দায় নেই এতে। কোনো বোঝা নেই। তার জায়গা নেবার লোকের অভাব তো নেই, দিদি। আমাকে নিবি? আমায় বিয়ে করবি, দিদি? খুব ভালোবাসি তোকে, বৌ হবি আমার?

আদরে আদরে ভরে রাখবো তোকে। আমার আত্মা দিয়ে মুড়ে রাখবো তোকে।” দিদি কেঁদে ফেলেছে আমার নীচে। মাথা নাড়ছে ক্রমাগত। “প্লীজ দিদি, তুই আমাকে এতকিছু দিয়েছিস, এবার আমাকে কিছু দিতে দে তোর জন্য। কীসের টানে পড়ে আছিস একা, নিজের খাঁচায় নিজে বন্দী? আমার সারা জীবন তোর ছোট্ট দুটি হাতে, এবার তোর নরম বুকটা আমার দুহাতে ধরে কাল সকালের নতুন সূর্যের আলোয় অঞ্জলি দিয়ে দে না দিদি, প্লিজ, সুনন্দা, সুন্দরী নন্দা, মিষ্টি নরম দিদি আমার প্লীজ!” bengali choti world

হাউ হাউ করে কাঁদছে দিদি, খামচে খামচে ধরছে আমার কাঁধ। “পারবো না দীপু, পারবো না আমাকে ক্ষমা কর। ও ফিরে আসবে একদিন, এই একটা জিনিসের ভরসায় এতদূর হেঁটেছি ভাইটি আমার, এটা নিয়ে নিস না আমার থেকে। আমি ভগবানে আর বিশ্বাস করি না দীপ, স্বর্গ-নরক কিছুতে না। কিন্তু এই একটা বিশ্বাস আমার জীবনের খুঁটি, ও আসবে একদিন, ফিরে আসবে, ভুলটা বুঝবে নিজের, আমাকে চাইবে আবার। সব ঠিক হবে, আমাকে অপয়া বলবে না আর কেউ। প্লীজ দীপ এটুকু রাখতে দে আমায়। আমি তোকে খুশি রাখবো, ভালো রাখবো, ভালবাসবো আরও আরও বেশি। কিন্তু এটুকু নিয়ে নিস না দীপু। এটা আমার জিয়নকাঠি-মরণকাঠি। ভেঙ্গে দিস না দীপু!”

– “দিদি প্লীজ…?”

– “না দীপু, ভাইটি আমার, ক্ষমা করে দে আমাকে। সব আমার ভুল। আমি পারবো না। ওকে ভুলতে পারবো না। প্লীজ আমাকে ছেড়ে দে ভাই। তোর শরীরের আঁচ দিয়ে আমাকে দূর্বল করে দিস না। আমায় ছেড়ে দে ভাইটি, প্লীজ!”

আমার বুকের নীচে দিদির কুঁকড়ে যাওয়া শরীরটা কেঁপে কেঁপে উঠছে। স্থির হয়ে রইলাম এক মিনিট, দু মিনিট… আরো কতক্ষণ। দিদির উচ্ছ্বাস থামলো একসময়। আমার থেকে কোনো যৌন ভয় নেই জানা সত্ত্বেও পাগুলো চেপে ক্রস করে রেখেছে, যেন ওকে রেপ করে দেবো। হয়তো নন্দদার স্মৃতি হারানো ওর কাছে মানসিকভাবে ধর্ষনেরই সমান। আমার শরীরের মাংস ওর মাংসে প্রবেশের ভয় না থাকলেও, মনের মাংস মনে জোর করে ফেড়ে ফেড়ে ঢুকছে। দিদির বডি ল্যাঙ্গুয়েজে তারই প্রতিকৃতি। bengali choti world

একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে ওকে ছেড়ে দিলাম। দিদি সঙ্গে সঙ্গে পাশ ঘুরে কুণ্ডলী পাকিয়ে গেলো। স্লিপটা বুকের ওপর অবধি তোলা, যতোটা পারি টেনেটুনে নীচে নামিয়ে দিলাম।

– “থ্যাঙ্ক ইউ, ভাই।” দিদি ফিসফিস করে বললো।

অনেকটা সরে শুলাম। ভারী মনের ওজনে টায়ার্ড চোখগুলো আস্তে আস্তে বন্ধ হয়ে এলো।

পরিবর্তন তৃতীয় পর্ব – 2

1 thought on “bengali choti world পরিবর্তন তৃতীয় পর্ব – 3 (সতী)”

Leave a Comment