choti 2021 পরিবর্তন প্রথম পর্ব – 2 By mblanc

bangla choti 2021. ভবানীপুর যখন পৌঁছলাম, ঘড়ির কাঁটা তখন ওপরের দিকে একটা সমকোণ এঁকেছে। জগুবাজারের বাসস্টপের উলটো দিকে ফুটপাথে কিছু দোকান, আমি তার জটলার মাঝে সেঁধিয়ে গেলাম। বাসস্টপে সামান্য কিছু লোকজন; অনু নামলে হারিয়ে ফেলার কোনো চান্সই নেই।

আশ্চর্য, আমি এখন চাইছি যাতে আমি হারিয়ে ফেলি ওকে।

ওই তো। বাস থেকে নামছে। বেশ সাজুগুজু করা হয়েছে তো! তা হবে না আর, বয়ফ্রেন্ডের কাছে যাচ্ছে যে, একটু শৃঙ্গার করতে হবে বৈকি! শৃঙ্গার হবে, রতি হবে, কামকলা হবে – আর আমার জীবন ফুলে কলাগাছ হবে!

ইচ্ছে হল খুব এই ভরা বাসস্টপের মাঝেই কনফ্রন্ট করি। মজলিশের মধ্যে কাপড় খুলে নিই। অনেক কষ্টে ইচ্ছেটা দমন করে পা বাড়ালাম। অনু যাচ্ছে মেন রোড ধরে, আমি যাচ্ছি কুড়ি কদম পিছনে ফুটপাথের দোকানের জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে।

তুমি চলো ডালে ডালে,আমি চলি পাতায় পাতায়!

choti 2021

অনু রাস্তা পার হয়ে ডানদিকে ঘুরল, ভেতরে ঢুকল হরিশ মুখার্জী রোডের দিকে, একটা সরু গলি দিয়ে। মোড়ে জঞ্জালের স্তুপে কুকুরের কলরব। আমি তাড়াতাড়ি মোড় পর্যন্ত গিয়ে দাঁড়িয়ে গেলাম। ভিতরে তাকিয়ে দেখতে পেলাম সে আবার ডানদিকে ঘুরে আরো সরু একটা গলির মধ্যে অদৃশ্য হয়ে গেল। আবার একই রুটিন – মোড় অবধি যাও, ভেতরে উঁকি মারো, তারপর এগিয়ে চলো।

গলির গলি, তস্য গলি। এ কোন গোলকধাঁধাঁয় ঢুকছে অনু? এখানে রাস্তা জানলই বা কী করে?

শেষ গলিটা অতি সরু – একজনের বেশি দুজন পাশাপাশি যেতে পারবে না। এই গলিতেই অনু একটা বাড়ির সামনে থমকে গিয়ে এদিক-ওদিক তাকাল। আমি ছিলাম কোণায় একটা বাড়ির রোয়াকে, আর মেঘলা দুপুরে এ সরু গলি প্রায় অন্ধকার – সুতরাং অনুর দিক থেকে আমি প্রায় অদৃশ্য। সে বাড়িটার গেটের কাছে এগিয়ে গেল। choti 2021

পুরনো আমলের দালানবাড়ি। সামনের দিকের পুরোটা চওড়া বারান্দা ঢাকা, তিনটে তলাতেই। একতলার বারান্দার একসাইডে কোলাপসিবল গেট, বাকিটা কালো রঙের গ্রীলে ঢাকা, তা আবার ঢাকা মানিপ্ল্যান্টের লতায়-পাতায়। ভারী প্রাইভেট জায়গা।

বারান্দার পাশেই, বাড়ির সাইডের দিকে একটা জানালা, পুরনো স্টাইলের, খড়খড়ি দেওয়া। গেটের পাশের বেলটা না টিপে অনু সেই জানালায় টোকা দিল আস্তে আস্তে। আমি সুযোগ বুঝে পা টিপে টিপে আর একটু এগিয়ে গিয়ে আরেকটা ছায়াপড়া কোনায় গিয়ে দাঁড়ালাম, যাতে বারান্দার ভেতরটা আর পরিষ্কারভাবে দেখা যায়।

বারান্দার ভেতরের দরজাটা খুলল।

একজন বেরিয়ে এল। অনুকে দেখে একটু হেসে, গেট খুললও।

একটি মেয়ে। পরনে নেভি ব্লু  নাইটগাউন, স্বাস্থ্যবতী গড়ন (কিন্তু মোটা বলা যায় না), ভারী বুক আর এক ঢাল এলো চুল কোমর ছাপিয়ে পাছা ঢেকে ফেলছে।

হঠাৎ করে আমার পায়ের তলাটা ফাঁকা ফাঁকা লাগলো। এতক্ষণের সব যোশ ফুঁয়ে উড়ে গেলো। দৃষ্টি নেমে এলো মাটির দিকে। choti 2021

আমি তা হলে মিথ্যে সন্দেহ করছিলাম? অনু তা হলে নির্দোষ? তা হলে আমি…. আমি…. ছিঃ!

নিজেকে ইঁদুর-ছুঁচোর মত কিছু একটা মনে হতে লাগল আর ইঁদুরের মতই পালাবার ইচ্ছেটাই প্রবল হয়ে উঠলো।

চকাৎ !

যাবার জন্যে পা বাড়াতে গিয়েও হঠাত শব্দটা শুনে থেমে গেলাম। পা ফিরে এলো আগের জায়গায়, দৃষ্টি ফিরে গেল যথাস্থানে। যৌন অভিজ্ঞতা খুব বেশি না থাকলেও, এ শব্দ ভুল হবার কথা না।

– “বাব্বাঃ, কি জোরে, সারা পাড়া শুনে ফেলবে যে….”

– “শুনুক গিয়ে, আমার মিষ্টি সখীটাকে একটু আদর করব তাতে কার কী?”

দুজনের খিলখিল হাসি।

মেয়েরা কি নিজেদের মধ্যে এতখানি ভালবাসা প্রকাশ করে? এটা কি স্বাভাবিক?

– “এই আজ কি ভেতরে যাবি না এখানেই খুলতে শুরু করবি!” choti 2021

দাঁড়াও দাঁড়াও। এটা ডেফিনিটলি অস্বাভাবিক।

দুজনে হাসতে হাসতে ঘরে ঢুকে গেল। দরজা বন্ধ হল সাবধানে, ঠুক। মনে হল যেন আমার মুখের ওপরেই বন্ধ হল।

এ কী করছে অনু?

আমি গেট পর্যন্ত এগিয়ে গেলাম। কলিং বেল-এ আঙ্গুল দিতে যাচ্ছিলাম, কিন্তু সরিয়ে নিলাম।

না, বোধহয় ব্যাপারটা আগে নিজের চোখে দেখাই ভাল। কিন্তু কিভাবে দেখবো? একটু পিছিয়ে এসে বাড়িটার দিকে ভাল করে তাকালাম। পুরনো বাড়ি, তিনতলা। সব দরজা-জানালা বন্ধ। সেটা একটা অন্যতম অস্বাভাবিক ব্যাপার।

পাশের বাড়িটাও পুরনো, আর দুই বাড়ির মাঝে সরু একটু ফাঁক। সেটা দিয়েই ঢুকে গেলাম। পিছনেও একই অবস্থা – তবে একটু ডানদিকে এগিয়ে একটা ছোট চৌকো জায়গা একটু ফাঁকা, সেখানে আম-জাম কিছু একটা গাছ উঠেছে। আমি ঘাড় বাঁকিয়ে – যতটা সম্ভব – দেখতে চেষ্টা করতে লাগলাম যে কোন জানালা খোলা আছে কি না। choti 2021

ঐ তো। একটু ফাঁক দেখতে পাচ্ছি না? ঐ যে বাঁদিক থেকে দু নম্বর জানালাটা?

না, জানালাটা বন্ধ, কিন্তু একটা পাল্লার খড়খড়িটা একটু ফাঁক। কার্ণিশটা সেকালের রীতি অনুযায়ী চওড়া, প্রায় একালের বারান্দার মতোই। একবার উঠতে পারলে অনায়াসে দাঁড়ানো যাবে।

কবে সেই ছেলেবেলায় চড়েছি গাছে, পারব এখনো?

অনুর অনুরাগ

শেষ পর্যন্ত দেখা গেলো, আমি এখনো পারি গাছে চড়তে – যদিও খুব সাবধানে। জানালার কাছে পৌঁছে দেখলাম, আমার লাক ভালো – আমার ছায়া পড়ছে না আর একচিলতে ফাঁক দিয়ে ভেতরে ঘরটা দেখা যাচ্ছে।

মাঝারি সাইজের ঘর ছিল সেটা। দু’দেয়ালে দুটো CFL জ্বলছিল। নীল চুনকাম জায়গায় জায়গায় খসে গেছে। জিনিসপত্রে ঠাসা – একটা সেকেলে কুইন সাইজ খাট, একটা আলমারি (মনে হয় কামান দাগলেও টসকাবে না), টেবিলের ওপরে একটা ল্যাপটপ আর সারা পৃথিবীর ছোটবড় জিনিস, আলনা গোছানো কিন্তু উপচে পড়ছে, এক দেয়ালে মাতা মেরীর ক্যালেন্ডার লটকানো আর তার উল্টোদিকে একটা বাঁধানো ছবি এখন কালোকালো হয়ে গেছে। choti 2021

কিন্তু এ সবই আমি দেখেছি পরে। আগে চোখে পড়েছে ঘরের ভেতরের মাথা খারাপ করে দেওয়া দৃশ্য।

ঘরে তিনটি মেয়ে। আমার ধর্মপত্নী, অনুপমা, অন্য একটা মেয়েকে জড়িয়ে ধরে গভীর চুম্বনে মগ্ন। দুজনই সম্পূর্ণ নগ্ন; অনুর শাড়ি-জামা-অন্তর্বাস মেঝেতে লুটোচ্ছে – মনে পড়ল আমি ঐ শাড়িটা কিনে দিয়েছিলাম গতবছর বিবাহ বার্ষিকীতে – আর অন্য মেয়েটির ঘননীল (এই আলোয় প্রায় কালো দেখাচ্ছে) নাইটিটা খাটের ছত্রীর থেকে ঝুলে আছে অবহেলায়। এ মেয়েটি অনুর মতো অত ফর্সা নয়, কিন্তু শরীরের বাঁকে বাঁকে যৌনতা। অনুর শরীরও দেখলাম অনেকদিন পরে – পেটে অল্প মেদ জমলেও ফিগারটা ভালোই রয়েছে বলা চলে।

দুজনেরই চোখ বন্ধ। নগ্নসুন্দর চারটি স্তনের মর্দনে মদন পিষ্ট হয়ে যৌন উত্তেজনা তেলের মতো গড়িয়ে গড়িয়ে পড়ছে।

এ আমি কী দেখছি? এই কলকাতার বুকে…. বাঙ্গালী মেয়ে…. আমার স্ত্রী…. এতদিনের চেনা, এতদিনের জানা….

আমার স্ত্রীই বেশী অ্যাকটিভ। একহাতে অন্য মেয়েটির ঘাড়টা ধরেছে আলগা করে, অন্য হাতটা তার পিঠে কি যেন খুঁজে বেড়াচ্ছে। কোমর দিয়ে ঠেলছে ঘষছে নাড়ছে পিষছে সামনের দিকে। অন্য মেয়েটি শক্ত করে জড়িয়ে ধরে আছে অনুকে। ভাবটা, এক ইঞ্চি ত্বক যেন মিস না করে। choti 2021

অনু… লেসবিয়ান?!!!

অন্য মেয়েটি নিজেকে একটু ছাড়িয়ে নিয়ে বড় করে দম নিল একটা। এখন ওরা একহাত দিয়ে জড়িয়ে আছে একে অপরকে। অনু এক আঙ্গুল দিয়ে মেয়েটির ডান স্তনবৃন্তে একটু খুঁটে আদর করে দিল।

– “রাণু, আমার রাণু!”

– “আহহহহহহ্, অনু!”

এই মেয়েটির নাম তা হলে রাণু। আমার বউয়ের ‘গার্লফ্রেন্ড’। বেশ বেশ।

বাতাসে সোঁদা গন্ধ। বৃষ্টি নামবে এখনি।

নিয়ে যাবে তখনি!…

– “আর আমি বুঝি কেউ না?”

বিছানার থেকে হাস্কি, অভিমানী গলায় প্রশ্ন এলো।

ঘরের তৃতীয় মেয়েটির দিকে এতক্ষণ নজর না পড়ার কারণ সে বিছানায় চাদরমুড়ি দিয়ে আমার দিকে পেছন ফিরে শুয়ে ছিল, শুধু চুলগুলো ছাড়া আর কিছুই দেখতে পাই নি। এখন অনু, রাণুকে ছেড়ে একগাল হাসল এই মেয়েটির দিকে ঘুরে। choti 2021

– “ভুলব কেন রে ছুঁড়ি? তুই ওখানে অমন গুটিসুটি মেরে থাকলে কিছুই পাবি নে। উঠে আয় না!”

অনুকে কতদিন হাসতে দেখিনি। আমার বৌ সত্যি সুন্দরী, কিন্তু….

– “আমি কিছু জানি না, না?” মেকি রাগ মাখিয়ে মাখিয়ে বললে মেয়েটি, “এসের থেকে শুধু রাণুদিকে আদর করছ, আমার দিকে ফিরেও তাকাও নি। যাও আমি কথা বলব না।”

মেয়েটি ঘুরে উপুড় হয়ে শুলো মুখ পুরোপুরি ঢেকে।

অনু আর রাণু একে অপরের দিকে তাকিয়ে মৃদু হাসল। আমার বুকের ভেতরটায় কে যেন আঁচড়ে দিল – ওরকম চোখে চোখে কথা তো আমরা বলতাম, বিয়ের পর বছরখানেক তো পাবলিকের মধ্যে কখনো মুখ খুলতে হয় নি, সবকিছুর জন্যেই ইশারা যথেষ্ট ছিল। আর এখন এই সব রাণু-ফানুর সাথে সেই চেনা অন্তরঙ্গতা…. choti 2021

মনে হল কেউ যেন আমার পার্সোনাল ডায়েরী পড়ে নিয়েছে।

অনু ঝুঁকে পড়ে বিছানায় বাঁহাতের ভর দিয়ে অন্য হাতে মেয়েটার একটা পাছা ধরে টিপে দিল একটু। “অ রে আমার মনুর রাগ হয়েছে!” এ তবে হল মনু? “না রে না, তুই ওঠ, দেখ কত আদর করি।”

সব চুপচাপ। রাণু মিটিমিটি হাসছে। অনু-মনু-রাণু তাহলে? থ্রী মাস্কেটিয়ার্স?

থ্রী লেসবিটিয়ার্স, কেউ বলল আমার ভেতরে।

অনু এবার বিড়ালের মত চার-হাতেপায়ে এগিয়ে গেল মনুর দিকে। “কই রে, ওঠ?” অনু, মনুর পিঠের ওপর সোজা শুয়ে পড়ল। মুখটা গুঁজে দিল মনুর গালে, আবার সেইরকম চকাৎ করে চুমু খেল একটা। choti 2021

– “উঠবি না?” চকাৎ! “এতো রাগ?” চকাৎ!

কোন সাড়াশব্দ নেই। নিঃসন্দেহে আমার বউয়ের কাছ থেকেই শিখেছে কিভাবে মান করতে হয়।

রাণু এগিয়ে এসে খাটের ধারে সুন্দর পাছাগুলো নামিয়ে বসল। “ঢাকাটা খুলে নে তো!”

অনুকে দুবার বলতে হয় না। উঠে সড়াৎ করে একটানে ফুল-ফুল ছাপা চাদরটা সরিয়ে ফেললো, আর আমার হৃৎস্পন্দন এক সেকেন্ডের জন্যে থেমে গেল। চাদরের নীচে লুকোনো ছিল অসাধারণ এক সম্পদ। মনু মেয়েটার গায়ের রঙ ঘোর কালো, কিন্তু শরীরের গড়ন অসাধারণ! পাতলা হালকা শরীর, পর্নস্টারদের মতো শরীরের বাঁকগুলি, লম্বা লম্বা সুগঠিত দুটি পা সামান্য ফাঁক, ডিমের মতো পাছাগুলি, হিলহিলে সরু কোমর, পিঠের মাঝের খাঁজে যেন গঙ্গা-যমুনা-সিন্ধু-কাবেরী একসাথে বয়ে যাচ্ছে। choti 2021

হালকা নীল বিছানার ওপর যেন একটা কেউটে সাপ পড়ে আছে। দীপালিরও বোধহয় এতো সুন্দর শরীর নয়। এ মেয়ের গায়ের রঙটা একটু ভাল হলে মডেলিং করে কোটি টাকা কামাতে পারতো। বাঙ্গালীর তো নয়ই, ভারতীয় মেয়েদের গড়ন এরকম হয়ই না!

– “মনু আমার, সনু আমার, ওঠ বোনটি!”

নিথর নিস্তব্ধ। জেদী মেয়ে।

– “এই মনু, কী হচ্ছে কি?” রাণু এবার তার কাঁধ ধরে ঝাঁকায়, “দিদি জানিস এইটুকু সময় নিয়ে এসেছে, সন্ধে হতেই আবার চলে যেতে হবে ‘পতিসেবা’ কত্তে, আর তুই কি না অমনি করছিস?”

অনু বললে, “ওর ওষুধ অন্য, জানিস তো। তুই ওপর দিকটা নে, আমি নীচের দিকটা নিচ্ছি।”

choti 2021অনু মাথা নামিয়ে, মনুর পিঠের খাঁজের ঠিক নিচেটায় আস্তে করে একটা চুমো খেল। একটু কেঁপে উঠল মনু। আর অনুর হাত ঢুকে গেল মনুর দু’পায়ের মাঝে। অন্য হাতটা খেলে বেড়াতে লাগল পাছার ওপরে আর খাঁজে। জিভ আর ঠোঁট হাতের সাথে সঙ্গত দিতে লাগলো। অন্যদিকে রাণু ওপরে মনুর কাঁধে ঘাড়ে পিঠে ক্রমাগত চুম্বনবর্ষণ করে চলেছে। choti 2021

বৃষ্টি নেমেছে বাইরেও, ফোঁটা ফোঁটা গরম জল আমার জামা ভিজিয়ে দিচ্ছে। কিন্তু বুকের ভেতরে জষ্টিমাসের খরা। ধুলো উড়ছে।

দুদিক থেকে আক্রমণ মনু বেশিক্ষণ সইতে পারল না – ছটফট করে উঠে ঘুরে সরে যেতে চেষ্টা করল। কিন্তু যেতে দিলে তো? চিত হতেই অনু সট করে মনুর গায়ের ওপর উঠে গিয়ে তীব্র আশ্লেষে তার ঠোঁট চুষতে শুরু করেছে। আর রাণু নীচে নেমে গিয়ে – মনুর আত্মরক্ষার চেষ্টা সত্ত্বেও – তার পা দুটি টেনে ফাঁক করে যোনির মাঝে মুখ ডুবিয়ে দিল।

বার্মিজ ধূপের গন্ধের মতো, ঘর ভরে যাচ্ছে তীব্র অব্যয় শীৎকারে। রানু দুটো আঙ্গুল ভরে দিল অনুর উঁচিয়ে থাকা রতিছিদ্রে।

ভিজে যাচ্ছি আমি। ভিজে যাচ্ছি বৃষ্টিতে, গ্লানিতে, আত্মধিক্কারে। এতটাই কিম্পুরুষ ছিলাম আমি যে পৌরুষ জিনিষটার প্রতিই অনুর বিকর্ষণ জন্মে গেল। আর এরা? এদেরও কি একই কেস?

– “উঃ মাগো!” হিসিয়ে উঠল মনু। কুঁকড়ে গিয়ে খামচে ধরল অনুর পিঠে। “আর না…. আর না!”

রাণু উঠে গিয়ে মনুর পাশে শুল তার দিকে পাশ ফিরে। গোটা মুখে মনুর রসে মাখামাখি। অনু এখনো মনুর ওপরে, কিন্তু পা ছড়িয়ে টান করে দিয়েছে আর হাতদুটো মনুর বগলের নীচ দিয়ে উঠে ওর মাথাটা অঞ্জলির মত ধরে রেখেছে। আমার মনে পড়ল, এই একই ভঙ্গিমায় আমাদের হানিমুনের বেশিরভাগ সময়টাই কেটেছে। শুধু তফাত একটাই, তখন অনু থাকত নীচে আর আমি ওপরে। choti 2021

অনু-মনু চোখে চোখ রেখে তাকিয়ে আছে। রানুর মাথা মনুর গালে, চোখ বন্ধ।

এর চেয়ে অন্তরঙ্গ মুহুর্ত কখনো দেখিনি, পড়িনি, শুনিনি।

মনুর চোখের কোনা বেয়ে এক ফোঁটা জল গড়িয়ে পড়ল রানুর কপালে।

– “আমার খুব ভয় করে, দিদি।”

– “কিসের ভয়, বোন আমার?”

– “তোমরা….” মনু সড়াৎ করে নাক টানল, “তোমরা আমাকে কখনো ছেড়ে যাবে না তো?”

– “দূর পাগলী!” রাণু বললে। “তোকে ছেড়ে আমরা বাঁচব কী করে?”

– “আমাকে কালো বলে কেউ চায় না।” মনু চোখ বন্ধ করল, “আমার কখনো বিয়ে হবে না। কিন্তু তোমাদের স্বামী-সংসার আছে। তোমাদের তো…. একদিন না একদিন…. ম্*ম্*ম্*….” choti 2021

অনু মুখ দিয়ে মনুর মুখ চেপে ধরেছে।

– “অমন বলিস না, বোন। তোরও একদিন বিয়ে হবে দেখিস।” রাণু হাসল, “এত সুন্দর বডি তোর, আমাদেরই নোলা সড়সড় করে আর ছেলেরা চাইবে না তা কি হয়? চিন্তা করিস না, সময় হলে সব পাবি।”

মনুর চোখ আবার উপচে পড়ল। “পেয়ে কি হবে? তোমরাও তো পেয়েছিলে সব। কোন লাভ নেই বিয়ে করে। তোমরাই আমার বয়ফ্রেন্ড হাজবেন্ড, তোমরাই আমার সব!”

– “ও, তাআআআআই?” অনু পাশে নেমে শুল, “তা আমাদের মধ্যে কোনটি তোর হাজবেন্ড আর কোনটি তোর বয়ফ্রেন্ড বল তো শুনি?”

মনু এই প্রথম একটু হাসল। “বোথ আর বোথ।” ঘুরে সে রানুর ঠোঁটে ঠোঁট ডুবিয়ে দিল। কল্পনার চোখে দেখলাম, মনুর চোখের জল আর যোনির রস মিশে যাচ্ছে।

আমি আর সেখানে থাকতে পারলাম না।

এক বৈজ্ঞানিকের চিতা

কীভাবে নেমে এলাম, কীভাবে ফিরে এলাম জানি না। ঘোরের মধ্যে ছিলাম, হঠাৎ হুঁশ হতে ইতিউতি চেয়ে দেখি অফিসের সামনে দাঁড়িয়ে আছি। ঘড়িতে দেখি পাঁচটা বেজে দশ।

এতোটা রাস্তা হেঁটেই এসেছি তবে? বড় তেষ্টা পেয়েছে।

অনু….?

যাক, যা গেছে তা যাক।

একটা বড় নিশ্বাস নিয়ে নিজেকে স্টেডি করলাম। আমার একটা প্রফেশনাল ইমেজ রাখা জরুরী। কোথায় যেন শুনেছিলাম – টু বি সাকসেসফুল, লুক সাকসেসফুল।

গটগট করে ঢুকে গেলাম অফিসের ভেতরে। দীপালি কি একটা যেন বলল। কান না দিয়ে চলে এলাম ল্যাবে। ছেলেমেয়েরা সব কাজে ঢিলে দিয়েছে, তিনজোড়া শুকসারি তিনটে কোনায় গল্প জুড়েছে – একটা জোড়া অবশ্যই সুজাতা-পিনাকী। আমাকে দেখে সব হড়বড় করে নিজের নিজের ডেস্কে ফিরে গেল। choti 2021

– “অ্যাটেনশন এভরিওয়ান!”

যতটা প্রফেশনাল গলাটা করতে চেয়েছিলাম, কিছুই হল না – দুর্বল শোনাল।

– “আজকের মত এখানেই গুটিয়ে ফেলো। আমার কিছু নতুন ফর্মুলা টেস্ট করার আছে, সেজন্য ল্যাব ফাঁকা চাই। আবার কাল সকালে দেখা হবে, গুড ইভনিং!”

ধীরে ধীরে ল্যাব খালি হতে লাগল। সু-পি জোড়া হেল্পিং হ্যান্ড হিসেবে থাকতে চাইছিল, কিন্তু জোর করে তাড়ালাম। কারণ আজকের গবেষণায় শিক্ষা কিছু নেই, বরং কুশিক্ষা আছে। আমার পরের স্টেপ ঠিক করা হয়ে গেছে; এই বিশেষ টেস্ট-এর জন্যে আমার ফাঁকা ঘর চাই – একদম ফাঁকা!

এখন বসে আছি আমার ডেন-এ। আমার সামনে দুটো টেস্টটিউব। বামে সবজেটে দুধের মতো ফর্মুলা-৪৮ – আমাদের “হার্বাল ভায়াগ্রা”; আর ডাইনে স্বচ্ছ নীল একটা তরল, ফর্মুলা বি-১১। এটার কাজ হওয়া উচিত মানুষের যৌন হরমোনগুলোর চরিত্র একটু-আধটু পাল্টানো আর হরমোন ক্ষরণকারী গ্ল্যান্ডগুলোকে শক্ত করা। choti 2021

করা তো অনেক কিছুই উচিত, কিন্তু মানুষের ওপর পরীক্ষা না করলে কীভাবে বুঝব কাজ করছে কী না? এখানে শিম্পাঞ্জী অবধি পাই নি। এখনো পারমিট পাওয়া যাচ্ছে না। কিন্তু হাতে আর একমাস! কে এমন ভলান্টিয়ার আছে, অজানা-অচেনা দুটো তরল নির্দ্ধিধায় গলায় ঢেলে দেবে বিজ্ঞানের স্বার্থে?

এমন কেউ, যার আর কিছুই হারানোর নেই।

যেমন আমি।

কী আছে আমার ভবিষ্যতের থেকে আশা করার? আমার জীবনের কাজ সময়ের অভাবে আর ব্যুরোক্র্যাসির ফাঁসে পড়ে নষ্ট হতে বসেছে। আমার বন্ধু বলে এমন কেউ নেই যে আমাকে ল্যাং মারবার চেষ্টা করবে না। আমার স্ত্রীকে এতোটাই ইগনোর করেছি যে পুরুষজাতের ওপরেই তার বিতৃষ্ণা জন্মে গেছে। কী হাতিঘোড়া করলাম এজন্মে তা হলে?

এমন একটা জিনিস আবিষ্কার করেছি যেটা এমনিতেই যাদের কোনো সংযম নেই তাদের আরো হেল্প করবে? যাদের খাড়া করার জন্যই ওষুধ লাগে তাদের সুখের কাবাবের মাঝে রেস্পনসিবিলিটির হাড্ডি না পড়ার ব্যাবস্থা করেছি ও করছি এখনও? এই আমার লাইফ? এমন লাইফ থাকার চেয়ে না থাকা, এমনকি কোমায় থাকাও ভালো! choti 2021

আমি কি অপ্রকৃতিস্থ? হা হা হা। আমার লাইফে কোনটা প্রাকৃতিক, ব্রাদার?

হাত বাড়িয়ে কফি মেশিনের পাশ থেকে একটা কাপ তুলে নিলাম।

এই মুহুর্তে আমার চাইতে যোগ্য টেস্ট সাবজেক্ট আর নেই।

কাপটা ধোয়া নেই। একমুহুর্তের জন্য ইতঃস্তত করলাম…. তারপর হাসি পেলো। রবিঠাকুরের সেই একটা কবিতা আছে না, অমুকে জনম যার ইয়েতে ভয় কি তার?

শান্তভাবে ফর্মুলা-৪৮-টা কাপে ঢাললাম। তারপর বি-১১। একটা চামচে নিয়ে নাড়তে থাকলাম। ভাল করে না ফেটালে টেস্ট হবে না যে…..

অনু-মনুর মুখ, ওপরে-নীচে, ভেসে উঠল চোখের সামনে। জেনুইন ভালবাসায় দুজোড়া চোখ ভেসে যাচ্ছে। এমনভাবে ভাল মেয়েরাই বাসতে পারে।

সাদা কাপে ফিরোজা রঙের তরলটায় ফেনা কাটছে। কিছু একটা গ্যাস বেরচ্ছে, কিন্তু কোন গন্ধ নেই।

সরি অনু। সরি তোমার গোপন প্রেম লুকিয়ে দেখার জন্য। সরি তোমার লাইফটা নষ্ট করার জন্য। সরি ফর এভরিথিং।

একফোঁটা নোনতা জল আমার গাল থেকে টপ করে পড়ল কাপের মধ্যে। choti 2021

সরি দীপালি, সুজাতা, পিনাকী, দেবব্রত, রাকেশ, প্রিয়াঙ্কা, অনুরাধা, অভিজিত, নাজমা। তোমাদের প্রত্যাশা পূর্ণ করতে পারলাম না। সরি।

চিয়ার্স!

এক চুমুক মুখে দিতেই ওয়াক তুলে কাপটা নামিয়ে রাখতে হল। শালার বোধহয় শুয়োরের পেচ্ছাপও এর চেয়ে ভাল খেতে।

কি করা যায়? কাপটার দিকে তাকাতেও ঘেন্না লাগছে, এত বিশ্রী স্বাদ মালটার। হাত বাড়িয়ে র‍্যাক থেকে সুগারফ্রী-র ডিব্বাটা পাড়লাম। মাসপাঁচেক হল আমার হাই সুগার দেখা দেওয়ায় আমাকে চা-কফিতে কৃত্রিম চিনি খেতে হয়। ভাল লাগে না, কিন্তু কী আর করা যাবে।

ওয়েল, আজ ভাল লাগবে, কিছুটা হলেও। অকাতরে ডিব্বা খালি করে ঢেলে দিলাম কাপে। সামান্য কয়েকটাই ছিল।

ভাল করে না ফেটালে টেস্ট হবে না যে….

ঠিক ঠিক। ফেটাই ভাল করে। এখন মনে পড়ল – ঐ কথাটা অনু বলত, যখন আমি চা দিতে দেরি হলে বিরক্ত হতাম। এই দেখো অনু, আজ আমি ভালোভাবে মিক্স করব। একটি দানা পড়ে থাকবে না, দেখো।

গুলতে গুলতে তরলটার মধ্যে একটা পরিবর্তন লক্ষ্য করলাম।

জিনিসটা ক্রমেই স্বচ্ছ হয়ে আসছে। দুধের মতো থেকে জলের মতো হয়ে আসছে। আর রং-ও পালটে যাচ্ছে – ফিরোজা থেকে আকাশী, আকাশী থেকে হাল্কা সবুজ, কচি কলাপাতি রঙ, হলদে…. choti 2021

কী জিনিস মেশালাম রে ভাই? হাত বাড়িয়ে সুগারফ্রী-র ডিব্বাটা নিয়ে গায়ে লেখা ইনগ্রেডিয়েন্ট গুলো দেখলাম। হুমম…. ল্যাকটোজ, অ্যাস্পারটেম, সোডিয়াম ক্রোজকারমেলস, ম্যাগনেসিয়াম স্টিয়ারেট, ম্যাগনেসিয়াম….

আমার কোন আইডিয়া নেই এতোগুলো জটিল রাসায়নিক একসাথে আমার ফর্মুলায় পড়লে কী হতে পারে। নিকুচি করেছে, মিষ্টি হলেই হল।

কিছু পরে, যখন আর কোন চেঞ্জ হচ্ছে না, তখন ভাল করে দেখলাম কাপের ভিতরে।

তরলটা এখন স্বচ্ছ, গাঢ় কমলা রঙের। কেমন যেন শ্যাম্পুর মত দেখতে, কিন্তু জলের মত পাতলা। আলোর নীচে ধরলে ভেতরে ভাসমান দু-একটা দানার মতো কী যেন চিকচিক করছে – আজকার কিছু কিছু জেল টুথপেষ্টে যেমন করে। কোন গন্ধ নেই। choti 2021

চিয়ার্স, অনু। চিয়ার্স এভরিবডি! গুডবাই!

নাক টিপে ধরে ঢকঢক করে গিলে নিলাম কাপের পুরোটাই। স্বাদ? খারাপ কিছু লাগল না, তবে ভালও লাগেনি। মিষ্টিও নয়।

চেয়ারে হেলান দিয়ে হাত-পা ছড়িয়ে বসলাম। কতক্ষণ লাগবে কিছু এফেক্ট হতে, তাও জানি নে। যতক্ষণ লাগে লাগুক, আমার এখন অফুরন্ত সময়।

গরম লাগছে। এসিটা একেবারে নামিয়ে দিয়েছি, আমার মুখে সোজা লাগছে ঠাণ্ডা বাতাসটা।

তবু গরম লাগছে। বেশ গরম।

ইন ফ্যাক্ট, ল্যাবের দেওয়াল গুলো গরমে লালচে হয়ে উঠছে আস্তে আস্তে।

সবকিছুই গরমে কমলা হয়ে উঠছে। আমার দরদর করে ঘাম দিচ্ছে। মাথার ভেতরটা কেমন করছে।

নিশ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে। চারিদিকের সবকিছু গরম হয়ে লাল-কমলা আলো ছড়াচ্ছে, আর তাতে আমার চোখ ধাঁধিয়ে যাচ্ছে। হৃৎপিণ্ডটা দুম-দুম করে চলছে, মনে হয় যেন পাঁজর ভেঙ্গে বেরিয়ে আসবে।

আমি আর বসে থাকতে পারছি না – কিন্তু উঠে দাঁড়াতে গিয়ে মাথা ঘুরে টাল খেয়ে পড়ে গেলাম। হাত-পা ছড়িয়ে পড়ে থাকলাম ব্লাস্ট ফার্নেসের মেঝেতে। দেখলাম প্লাস্টিকের চেয়ারগুলো গলে তরল হয়ে গেলো। choti 2021

গলে যাচ্ছে – গলে গলে পড়ে যাচ্ছে সবকিছু। স্টিল, কংক্রীট, টেবিলের কাঠ – না পুড়ে সব কিছুই গলে লাভা হয়ে যাচ্ছে। এই গোটা শহর – কংক্রীটের জঙ্গল গলে পড়ছে, আর তার মাঝ দিয়ে লাভার নদী বয়ে যাচ্ছে। সেই নদীতে ভাসছি আমি, যাচ্ছি কোন অচিন দেশের অগ্নিসমুদ্রে।

সেই নদীতে স্নান করছে তিনটি মেয়ে। অনু-মনু-রাণু।

আগুনের তৈরী দেহ তাদের, আগুনের হাত-পা, আগুনের চোখ-মুখ, আগুনের যৌনাঙ্গ। আর আগুনের মতোই জ্বালাময় সৌন্দর্য তাদের। অগ্নিকন্যারা খেলা করছে লাভায়, ছিটোচ্ছে, ডুব দিচ্ছে। জলকেলি? না না, লাভাকেলি। জড়িয়ে ধরছে একে অপরকে, চুমো খাচ্ছে গভীর ভালোবাসায়। মুখে, গালে, ঘাড়ে, বুকে, স্তনে, পেটে, যৌনাঙ্গে। আগুনের হলকা দিয়ে দীর্ঘশ্বাস ফেলছে তারা, গলে গলে মিশে যাচ্ছে একে অপরের মধ্যে। choti 2021

আশ্চর্য, আমি ওদের ভালোবাসা বুঝতে পারছি। অনুভব করতে পারছি ওদের তীব্র সুখ। দিগন্তজোড়া লেলিহান শিখার গর্জনের মধ্যেও ওদের রমণশ্বাসের শব্দ আসছে কানে।

সুখে দগ্ধ হচ্ছি আমি, লাভার নদী তো ঠাণ্ডা। মাথার ওপরে লালচে আকাশের কমলা তারাগুলোও গলে গলে উল্কা হয়ে পড়ছে।

তিন অগ্নিকন্যা অসম্ভব সাদা শিখায় জ্বলে উঠে চরম শীৎকার ছাড়ল, আমি কেঁপে উঠলাম থরথর করে অন্তিম পুলকে। আমি ভিসুভিয়াস, মাইলের পর মাইল উৎক্ষেপ করলাম আমার জ্বলন্ত পৌরুষ। ভেঙ্গে যাচ্ছি আমি, টুকরো টুকরো হয়ে ছড়িয়ে যাচ্ছি চারদিকে।

আঃ, ঠাণ্ডা হল ভেতরটা এতক্ষণে। ইন ফ্যাক্ট, এবার জুড়িয়ে আসছে সবকিছু। জুড়িয়ে আসছি আমি, আমার টুকরোরা। ঠাণ্ডা হচ্ছে পৃথিবী। কমে আসছে আলো, কুয়াশার মতো অন্ধকার ধীরে ধীরে জমাট বাঁধছে।

তিনটি নগ্ন নারীদেহ অঘোরে ঘুমোচ্ছে জমাট বাঁধা লাভানদীর ঠিক মাঝখানে। ত্রিভুজ আকারে শুয়েছে তারা, একের মাথা অন্যের রমণাঙ্গ ঢেকে। নিঝুম রাতের কোলে নিশ্চিন্তে ঘুমোয় অনু-মনু-রাণু।

এখন সব আঁধার, সব ঠাণ্ডা, সব শান্ত। আআহহহ….

আমারও ঘুম পাচ্ছে। ঘুম…..

পরিবর্তন প্রথম পর্ব – 1 By mblanc

1 thought on “choti 2021 পরিবর্তন প্রথম পর্ব – 2 By mblanc”

Leave a Comment