erotic incest মহুয়ার মাধুর্য্য- 18 by Rajdip123

bangla erotic incest choti. অফিস ছিল না রণের আজকে। সারাদিনটা আজকে ঘরেই কাটবে তাঁর। তাই আজ বিশেষ তাড়া ছিল না ভোরে ঘুম থেকে ওঠার মহুয়ার। ভোর রাত্রে তাঁর ছেলে তাঁকে যেভাবে ভোগ করেছে, তারপর আর বিছানা থেকে ওঠার শক্তি প্রায় হারিয়ে ফেলেছিল মহুয়া। প্রায় ঘণ্টা খানেক ওই একি ভাবে শুয়ে থাকার পর, বাথরুম পেলো মহুয়ার, তাই কোনোরকমে নিজেকে রণের আলিঙ্গন থেকে মুক্ত করে, বিছানা থেকে উঠে বসলো মহুয়া।

বিছানা থেকে নেমে দাঁড়াতেই, মনে হল এই বুঝি সে পড়ে যাবে। টাল খেয়ে গেলো মাথাটা, কোনোরকমে বিছানার ধারটা ধরে নিজেকে সামলাল মহুয়া। একটু হাঁটতে গিয়েই বুঝতে পারলো যে, গতকাল থেকে দু দুবার মারাত্মক সম্ভোগের ফলে সে হাঁটতে পারছেনা ঠিক মতন। সারা গায়ে চরম যন্ত্রণা হচ্ছে। ঊরুসন্ধি থেকে, কোমর হয়ে ব্যথা টা সারা শরীরে বিষের মতন ছড়িয়ে পড়েছে। আর যন্ত্রণা হবে নাই বা কেন? বহু বছরের অভুক্ত শরীর মহুয়ার।

erotic incest

দীর্ঘকাল ধরে সম্ভোগ না হওয়ার ফলে তাঁর নিম্নাঙ্গ, কোমর, উরু, স্তন এহেন চরম সম্ভোগের জন্য তৈরি ছিলনা। শারীরিক খিদে টা প্রায় শেষ হয়েই গিয়েছিলো মহুয়ার। এমনিতেও রণ হওয়ার আগে বার কয়েক বিকাশের সঙ্গে তাঁর শারীরিক মিলন হয়েছিলো। তাঁর পরের বছরই রণ এসে যায় পেটে। আর রণ জন্মাবার দুবছর পরেই তাঁকে ছেড়ে অন্য এক কম বয়সি মেয়ের প্রেমে পড়ে তাঁকে নিয়ে কানাডা চলে গেছিলো লম্পট বিকাশ।

মাঝের দুবছর সময় টুকু যেটা তাঁদের দুজনের মধ্যে যেটুকু শারীরিক মিলন হয়েছিলো, তাকে স্বামী স্ত্রীর পরস্পরের ভালবাসা মিশ্রিত যৌন মিলন না বলে, বোধহয় ধর্ষণ বলাই ভালো হবে। মদ মাতাল বিকাশ তাঁর নাতিদীর্ঘ পুরুষাঙ্গ নিয়ে মহুয়ার মতন কম বয়সী অতীব সুন্দরী নিরীহ একজন গৃহবধুর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে কোনওরকমে তাঁর ছোট পুরুষাঙ্গটা মহুয়ার নরম মোলায়েম যোনিতে প্রবেশ করিয়ে কিছুক্ষনের মধ্যে বীর্যপাত করে, বেহুশের মতন ঘুমিয়ে পড়ত। erotic incest

যার মধ্যে ছিলনা কোনও ভালবাসা, যার মধ্যে ছিলনা একে অন্যকে খুশী করার কোনও রকম প্রচেষ্টা। পরস্পরের প্রতি প্রেম তো কবেই শেষ হয়ে গিয়েছিলো। যার ফলে এক রকম ঘৃণা জন্ম নিয়েছিল বিকাশের প্রতি মহুয়ার। যেটা সুস্থ স্বাভাবিক স্বামী স্ত্রীর শারীরিক মিলনে চরম বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

তারপর বিকাশের কিছু লম্পট মাতাল বন্ধুর আগমন ঘটে তাঁর ঘরে। সেই লম্পট বন্ধুদের হাতে মহুয়াকে তুলে দেওয়ার নীচ চেষ্টা, মহুয়ার দেহ মনকে বিষিয়ে দেয়, বিকাশের প্রতি। সেই সময় থেকেই নিজেকে অভুক্ত, উপোষী রাখতে বাধ্য হয় মহুয়ার মতন এমন একজন লাস্যময়ী, রমণী।

বিকাশের তাঁকে ছেড়ে চলে যাওয়ার পর নিজের একমাত্র সন্তানকে ঠিক মতন মানুষ করাই নিজের জীবনের একমাত্র উদ্দেশ্য হয়ে দাড়ায় মহুয়ার। নিজের প্রতি মনোযোগ দিতে, নিজের প্রতি যত্ন সহকারে তাকাতে একরকম প্রায় ভুলেই যায় মহুয়া। নিজের স্বর্গীয় দেহ সম্পদ অযত্নে নষ্ট হতে থাকে মহুয়ার। erotic incest

কিন্তু রণ একটু বড় হতেই, রণকে নিয়ে স্কুলে যাওয়া আসা, নিজের দৈনন্দিন জীবনের কাজ কর্মের জন্য ঘরের বাইরে বেরোলেই পর পুরুষের লালসা মাখা দৃষ্টি যে তাঁর শরীরটাকে বিশ্রী ভাবে চাটছে সেটাই ভালোই বুঝতে শুরু করে মহুয়া। বুঝতে পারে, ঠাকুর যেন নিজেকে উজাড় করে তাঁকে সাজিয়েছেন। কেননা তাঁর আশে পাশে অন্য মহিলারা থাকলেও, সব পুরুষের কুনজর যে শুধু তাঁর শরীরটাকে জরিপ করছে, সেটা বুঝতে অসুবিধা হয়না মহুয়ার।

তাছাড়া মহুয়া নিজের জীবনে যে একা মানুষ সেটা টের পেতেই, অনেক পুরুষই তাঁর একাকিত্যের সুযোগ নেওয়ার চেষ্টা শুরু করে। রণ ছোট থাকতে অনেক বার তার মা কে নিজের বাবার কথা জিজ্ঞেস করেও উত্তর না পেয়ে পরবর্তী জীবনে বাবা শব্দের অর্থ ভুলে যায়। ছোট্ট স্কুল ফেরত রণ অন্য বন্ধুদের বাবাদের দেখে, মায়ের কোলে ঝাঁপিয়ে পড়ে, জিজ্ঞেস করতো, “মা, আমার বাবা কোথায়? কোথায় গেছে আমার বাবা”? ছোট্ট রণের এই সরল স্বাভাবিক প্রশ্নের কোনও উত্তর থাকতো না মহুয়ার কাছে। erotic incest

রণ মা কে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে পড়লে, রাতের অন্ধকারে হাউ হাউ করে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ত অসহায় মহুয়া। বিকাশের প্রতি ঘৃণাটা ধীরে ধীরে আক্রোশে পরিবর্তিত হতে শুরু করেছিল সেই সময় থেকে। ধীরে ধীরে রণও মহুয়াকে বাবা সম্পর্কে প্রশ্ন করা ভুলে যায়। নতুবা প্রশ্ন থাকলেও সেটা আর মুখ থেকে বের করে না রণ। সেই ছোট বয়স থেকেই বুঝতে পেরে যায়, এই প্রশ্নটা করলেই তার মায়ের চোখ জলে ভরে আসে।

তাই ধীরে ধীরে একটু একটু করে রণ বড় হতেই, সে মনে মনে এটা মেনে নিতে থাকে যে এই পৃথিবীতে যদি তাঁর কেউ একমাত্র নিজস্ব থেকে থাকে, তাহলে সেটা হচ্ছে শুধু তাঁর মা। আর কেউ নেই তাঁর। তাই ছোট থাকতে কোন ও কারণে মায়ের চোখে একটু জল দেখলেই দৌড়ে এসে কোলে ঝাঁপিয়ে পড়ত রণ। আজ সেই রণ এক তরতাজা, সুঠাম চেহারার এক শক্তিশালী যুবক। যার অভিধানে নেই বাবা নামের কোনও শব্দ। erotic incest

মহুয়াও নিজেকে অনায়াসে সুখের সাগরে ভাসিয়ে দিতে পারতো। অনিমেষের তরফ থেকে বহুবার প্রস্তাব পেয়েও শুধু মাত্র তাঁর একমাত্র ছেলে রণের কথা ভেবে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছিল মহুয়া। ছিঃ রণ যখন বড় হয়ে জানতে পারবে, তখন সে কি ভাববে নিজের মায়ের সম্পর্কে? এই প্রশ্নটা মনের মধ্যে জাগতেই, সব রকম লোভ, সমস্ত রকম সুখের হাতছানি থেকে নিজেকে আলাদা রেখেছিল। সেই কালকের ছোট্ট রণ আজকের পরিপূর্ণ যুবক রণজয় ঘোষ। তাঁর কাছে মহুয়া নিজেকে সমর্পণ করবে না তো কার কাছে করবে?

কথাটা মাথায় আসতেই, একটা শারীরিক, দৈহিক পরিপূর্ণতা মহুয়ার দেহ মনে মস্তিষ্কে জাঁকিয়ে বসে। একটা মৃদু হাসি খেলে যায় তাঁর সুন্দর ঠোঁটের কোনায়। মনে মনে ঠিক করে ফেলে, আজ অব্দি যত রকম সুখ আর যাবতীয় ইচ্ছের থেকে নিজেকে বঞ্চিত করে এসেছিলো সে, নিজের একমাত্র ছেলের ভালবাসা, প্রেম, আদর, স্নেহ পেয়ে নিজেকে নতুন করে তৈরি করবে। erotic incest

এখন সে আর অসহায় নয়। তাঁর রণ তাঁর সঙ্গে আছে। যার ভালবাসা আর আদরে গতরাত থেকে তাঁর অভুক্ত, উপোষী, অভিশপ্ত শরীরের প্রতিটা কোনা, প্রতিটা রোমকূপ এক মিষ্টি মধুর সম্পূর্ণতায় কানায় কানায় ভরে গেছে। তাঁর ছেলের আদরের মিষ্টি ব্যথায় সে এখন কাতর। তাঁর ছেলের ঘন বীর্য, তাঁর দেহের যোনি গহ্বরকে আবার সবুজ করে তুলেছে। ভাবতে ভাবতে শারীরিক দৈহিক সুখে মাতাল মহুয়া কোনও রকমে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে বাথরুমে ঢুকে পড়ে।

ওফফফফফফ………কি পাশবিক, কি নির্মম ভাবে গতরাত থেকে তাঁর ছেলে তাঁকে দু দুবার চরম ভাবে ভোগ করেছে। শরীরের প্রতিটা অঙ্গ মনে হচ্ছে চিৎকার করে করে তার জানান দিচ্ছে। যোনিদ্বার অল্প হাঁ হয়ে গেছে, রণের ওই বিশালাকার ভীমাকৃতি পুরুষাঙ্গের ক্রমাগত মন্থনের ফলে। প্রস্রাব করার সময় একটা মিষ্টি জ্বলুনি, একটা চিনচিনে ব্যথা মহুয়াকে অস্থির করে তোলে। যোনিমুখে হাত দিতেই, একটা মিষ্টি শিহরণ তার সর্বাঙ্গকে অবশ করে তোলে। চোখ বন্ধ করে, কিছুক্ষণ সে যোনি মুখটা হাত দিয়ে ডলতে ডলতে ব্যথা টা উপভোগ করে। erotic incest

ঘরে ঢুকে সারা রাত ধরে একনাগাড়ে চলা রুমের এসি টা বন্ধ করে দেয় মহুয়া। ঘরের জানালা খুলে, খোলা জানালায় দাঁড়াতেই, বাইরের ঠাণ্ডা মিষ্টি বাতাসের ঝাপটা মহুয়ার চোখে মুখে এসে পড়ে। সারা রাতের পরিশ্রমে ক্লান্ত দেহ মন দুটোই যেন পুনরুজ্জীবিত হয়ে ওঠে মহুয়ার। বেশ কিছুক্ষণ খোলা জানালার কাছে দাঁড়িয়ে থাকে মহুয়া।

ইসসসস……কি ভাবে শুয়ে আছে রণটা, সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায়। ঘুমন্ত ছেলের দিকে তাকিয়ে কপট রাগে চোখ পাকিয়ে মৃদু ভাবে হাসি খেলে যায় মহুয়ার ঠোঁটের কোনায়, মনে মনে বলে ওঠে ছেলেকে, “হুম্মম……সারা রাত আমাকে জ্বালিয়ে, এখন এমন ভাবে শুয়ে আছে, যেন কিছুই যানে না। লজ্জা করেনা, মাকে এমন ভাবে আদর করতে? অসভ্য ছেলে কোথাকার”। একটা চাদর দিয়ে রণের উলঙ্গ শরীরটা ঢেকে দিল মহুয়া। erotic incest

ঘিঞ্জি অপরিসর সরু গলি, চারিদিকে নোংরা, পাশেই নর্দমা উপচে ময়লা কাদা জল, ডিঙ্গিয়ে কোনোরকমে একটু খুঁড়িয়ে হাঁটছিল লোকটা। বয়স প্রায় পঞ্ছান্ন ছাপ্পান্ন, পরনে বহু ব্যবহিত নোংরা একটা ঢিলা প্যান্ট, ওপরে একটা ছেড়া জামা, মাথায় একটা টুপি, মুখে বহুদিনের না কাটা দাড়ি, কালো বেঁটে মতন লোকটা, উদাস শুকনো দৃষ্টি, গলির শেষ প্রান্তে বড় রাস্তার মোড়ে একটা পান দোকানের সামনে এসে দাঁড়াল লোকটা। পানওয়ালা দোকানদার মনে হয় পূর্ব পরিচিত।

লোকটি শুকনো দৃষ্টি মেলে পানওয়ালার দিকে তাকাতেই, পানওয়ালা খিস্তি মেরে উঠলো, “বানচোদ, আজকেও এসে গেছিস। শুয়োরের বাচ্চা, তোকে বার বার বলেছি না, আমার দোকানের সামনে এসে দাঁড়াবি না। তা বানচোদ তোর কি কানে কথা যায় না নাকি? নে আজকে একটা বিড়ি দিলাম, আবার যদি এসেছিস, তাহলে এই বিড়ি তোর পেছনে গুঁজে দেবো শালা হারামি”, বলে একটা বিড়ি ওই লোকটার দিকে ছুঁড়ে দিল সেই পানওয়ালা। erotic incest

“বিড়ি যখন দিলি, তাহলে দশটা টাকা দে না, দু দিন ধরে পেটে কিছু পড়েনি আমার। দে না রে, কিছুদিন পরে আমি তোকে ঠিক শোধ করে দেবো”, পানওয়ালার কাছে কাকুতি মিনতি করতে থাকে লোকটা। নাছোড়বান্দা অবস্থা দেখে, পকেট থেকে দশটা টাকা বের করে ছুঁড়ে দেয়, সেই লোকটির দিকে।

চিলের মতন ছোঁ মেরে টাকাটা প্যান্টের পকেটে ঢুকিয়ে নিয়ে, শয়তানের মতন দীর্ঘদিনের অযত্নে লাল হয়ে যাওয়া দাঁত বের করে হাসতে হাসতে বলে ওঠে, “সব শালা কে দেখে নেব আমি, আর কিছুদিন অপেক্ষা কর, তারপর তোদের সব অপমানের বদলা নেব আমি, শালা শুয়োরের বাচ্চা”, বলেই কিছুক্ষণ আগে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটতে থাকা লোকটি হন হন করে হেঁটে বড় রাস্তার দিকে চলে গেলো। কিসের যেন খুব তাড়া।

বড় রাস্তা দিয়ে অনেকক্ষণ হেঁটে, কোনও রকমে একটা বাসে উঠে পড়লো। বেশ কিছুক্ষণ বাসের পাদানিতে দাঁড়িয়ে, এই রাস্তা ওই রাস্তা হয়ে, একটা মোড়ের কাছে এসে ঝুপ করে বাসের থেকে নেমে পড়লো লোকটা। যেন এই রাস্তা তার খুব পরিচিত, প্রতিটা মোড় খুব চেনা। বড় রাস্তা থেকে এগিয়ে গিয়ে আর একটা মোড়ের কাছে এসে একটা ছোট্ট ঝুপড়ি মার্কা চায়ের দোকানের বাইরে একটা মোটা বট গাছের আড়ালে একটা ভাঙ্গা বেঞ্চের ওপর বসে পড়লো। “কি কর্তা, এসে গেছো”? ঝুপড়ির ভেতর থেকে একটা কর্কশ আওয়াজ ভেসে আসে। erotic incest

এই মোড়ের সামনের থেকে রাস্তাটা সোজা হয়ে কিছুদুর গিয়ে, একটা বাঁক খেয়ে সামনের একটা কলোনির গেটকে ছুয়ে দূরে আর একটা বাঁকের পর আবার বড় রাস্তায় গিয়ে মিলেছে। ফলে ওই কলোনির থেকে যারাই বেরোয় কিম্বা কলোনিতে ঢোকে, এই বিরাট মোটা বট গাছটার আড়াল থেকে ইচ্ছে করলে সবটাই দেখা যায়।

ওই লোকটা কারোর কথার কোনও উত্তর না দিয়ে, ওই গাছের আড়ালে বেঞ্চে বসে, তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে সেই কলোনির গেটের দিকে তাকিয়ে থাকে। যেন কারোর জন্য প্রতিক্ষা করতে থাকে সে। বেলা বাড়তে থাকে, কিন্তু লোকটির প্রতিক্ষা যেন শেষ হয় না। ঝুপড়ির চা ওয়ালার উদ্দেশ্যে কঠিন স্বরে বলে ওঠে, “কি রে কতক্ষণ ধরে বসে আছি, দেখতে পারছিস না, চা আর পাউরুটিটা কি তোর বাপ আমাকে দেবে”?

ঝুপড়ির ভেতর থেকে উত্তর ভেসে আসে, “আরে গালি কেন দিচ্ছ কর্তা? তোমার কি আর খাওয়ার দিকে মন আছে? তুমি তো আসো শুধু ওই কলোনির ভেতর থেকে কে বের হচ্ছে, কে ঢুকছে, সেটা দেখতে। আমাকে একবার বলে দিলেই তো চা পাউরুটি দিয়ে দেবো। তোমার টাকায় তো কম ফুর্তি করিনি আমরা একদিন। কি বলে? বুঝি কর্তা, যে এখন তোমার ভিখারির মতন অবস্থা। তাই বলে কি আমাদের মতন তোমার ভক্তরা কি তোমার কথা অমান্য করতে পারি”? erotic incest

চা পাউরুটি খেয়ে আরও কিছুক্ষণ একি ভাবে বসে থাকে, লোকটা। অবশেষে ওখানে যে উদ্দেশ্য নিয়ে বসা, সেটা সফল না হওয়াতে উঠে পড়লো লোকটা। ধীরে ধীরে হাঁটতে হাঁটতে, আপন মনে বিড়বিড় করতে শুরু করলো, “ শালা বানচোদ……আজকেও বেরালো না। আমাকে জানতেই হবে, শালির নাগরটা কে? বয়সটা তো শালির থেকে অনেক কম মনে হচ্ছে।

আমাকে যেমন করেই হোক জানতেই হবে, মালটা কে? সেটা যতক্ষণ না জানতে পারছি, কিছুতেই কাজ এগোবে না। মালটা কি আজ অফিসে যাবেনা? দেখা যাক”, বলে লোকটা কিছুটা নিরাশ আর বিরক্ত হয়ে নিজের মনে বকবক করতে করতে ওখান থেকে বেরিয়ে গেলো অন্যমনস্ক ভাবে হাঁটতে হাঁটতে।

“নাহহহ……দেরী করা চলবে না। হতভাগী নমিতাটা এখনি এসে পড়বে। তার আগে স্নান করে ফ্রেশ হয়ে নিতে হবে”, মনে মনে বলে, বাথরুমে ঢুকে যায় মহুয়া। বেশ কিছুক্ষণ ধরে নিজেকে নগ্ন করে বাথরুমের আয়নায় নিজেকে দেখে নেয় মহুয়া। সারা শরীরে রাতের আদরের দাগে ভরে গেছে। erotic incest

গলা, বুক, ভারী সুউচ্চ গোলাকার স্তনের উপরের ভাগে, কালো কালো হয়ে রক্ত জমে গেছে। নিম্নাঙ্গে উরুতেও কালশিটে পরে গেছে। “ইসসসসস………চুষে, কামড়ে, চেটে কি করেছে ছেলেটা তাঁকে”। জায়গাগুলোতে হাত দিতেই একটা টনটনে ব্যথা , “ওফফফফফফ………”, করে ওঠে মহুয়া।

কতক্ষণ শাওয়ারের নিচে দাঁড়িয়ে ছিল মনে নেই মহুয়ার। দরজায় কলিংবেলের আওয়াজে সচকিত হয়ে ওঠে মহুয়া, “নমিতাটা মনে হয় এসে পড়েছে”, বলে হুড়মুড় করে গায়ে শুধু একটা তোয়ালে জড়িয়ে বাথরুম থেকে বেরিয়ে আসে মহুয়া। সঙ্গে সঙ্গে মনে পরে যায়, রণ রুমে নগ্ন অবস্থায় শুয়ে আছে, নমিতা যদি ওকে ওই অবস্থায় দেখে, তাহলে খুব খারাপ দাঁড়াবে ব্যাপারটা। ভাবা মাত্র, ছুটে যায় রণের রুমে। একি ভাবে শুয়ে ছিল রণ। মহুয়া চটজলদি রণের গায়ের চাদরটা টেনে টুনে ঠিক ঠাক করে দেয়।

“নাহহহহ……এই রুমে নমিতাকে ঢুকতে দেওয়া ঠিক হবে না। রণের রুম টা সে নিজেই পরিস্কার করে নেবে”। তাড়াতাড়ি হাঁটতে গিয়ে, বুঝতে পারে, যে সে এখনও ঠিক মতন হাঁটতে পারছেনা। ছেলের সঙ্গে সারারাত ধরে চরম সম্ভোগের ফলে, ঊরুসন্ধি ব্যথা য় টনটন করছে। দরজা খুলতেই দেখে নমিতা সেজে গুজে দাঁড়িয়ে আছে। erotic incest

“কি গো মৌ দিদি এতো দেরী কেন গো দরজা খুলতে? কি করছিলে গো ভেতরে”? প্রশ্নটা করে ঠোঁটটা বেঁকিয়ে একটা চটুল হাসি হেসে মহুয়ার দিকে তাকায়।

কিছুনা……বলে দরজাটা বেশী করে খুলতে গিয়েই মনে পরে যায়, যে সে শুধু একটা তোয়ালে জড়িয়ে এসেছে, সারা শরীরের দাগ গুলো আরও স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। “একমিনিট তুই দাঁড়া”, বলে পুনরায় দরজাটা বন্ধ করে দেয় মহুয়া। “আরে, কি হল বলবে তো? ওফফফফফ………আচ্ছা মানুষ রে বাবা তুমি, দরজা খুলে কেউ আবার বন্ধ করে দেয় নাকি? কি গো আজকে ঢুকতে দেবেনা নাকি”?

বলে চিৎকার করতে থাকে নমিতা। ভেতর থেকে চিৎকার দেয় নমিতা, “চুপ করে দাঁড়িয়ে থাক, আমি শুধু নাইটিটা পরে নিয়ে আসছি, আর বেশী জোরে কথা বলিস না, দাদাবাবু ঘুমোচ্ছে রে হতভাগী”, বলতে বলতে কোনোরকমে নাইটিটা পরে বেরিয়ে এসে দরজা খুলে দেয় মহুয়া।

নমিতার দিকে চোখ পাকিয়ে বলে ওঠে, “কি রে হতভাগী, চিৎকার করছিলিস কেন? দাদাবাবু ঘুমোচ্ছে, সে খেয়াল নেই বুঝি? আজকে দাদাবাবুর অফিস ছুটি, তাই একটু বেশীক্ষণ ঘুমোবে। তুই ওই রুমটা ছেড়ে দে, ওই রুমটা আমি নিজেই পরিষ্কার করে নেব, বুঝলি। নে নে তাড়াতাড়ি কর, তুই তো দেখছি আজকাল তোর গতর নড়াতেই পারিস না, বেশ মোটাও হয়েছিস। কি ব্যাপার রে নমিতা, শরীরে বেশ জল টল পড়ছে মনে হচ্ছে”। “কি যে বল মৌ দিদি, আমার আর কে আছে গো সাত কুলে? এক স্বামী, সেও তো মদ মাতাল। erotic incest

তাঁর শরীরে তো কিছুই নেই। অনেকেই পেছনে ছুক ছুক করে, তবে আমি কাউকে পাত্তা দি না বুঝলে গো। থাকার মধ্যে তো শোবে ধন নীলমণি এক ভাসুরপো। সেও হয়তো কোনোদিন বিয়ে টিয়ে করে অন্য কাউকে নিয়ে ঘর বান্ধবে”, বলতে বলতে চোখের কোনা জমে থাকা জলটা শাড়ীর আঁচলের কোনা দিয়ে মুছে নিল নমিতা। “ভাসুরপো কে, ধরে বেঁধে যত্ন করে রাখ, দেখবি সে অন্য কোথাও যাবেনা, তোর কাছেই থাকবে”, বলে নমিতার দিকে তাকিয়ে ওর মনের ভাব বোঝার চেষ্টা করলো মহুয়া।

মহুয়ার কথা শুনে, মুখটা উজ্জ্বল হয়ে উঠলো নমিতার, একটা লাজুক হাসি হেসে, মুখটা একটু নিচে নামিয়ে বলে উঠলো, “তা তো অনেক করি গো মৌ দিদি, এই তো গতকালের কথাই ধরো না, দিনের বেলা অনেক খাটা খাটনি গেছিলো বেচারার ওপর, রাত্রে বিছানায় শুয়ে ছট পট করছিলো, শরীরের যন্ত্রণায়। আমি রাত্রে সর্ষের তেল গরম করে, সারা রাত ধরে ওকে তেল মালিশ করেছি, জোয়ান মরদ, প্রচণ্ড খাটা খাটনি করে, একটু তেল মালিশ করে দিলে, খুব আরাম পায় গো মৌ দিদি”। erotic incest

“হুম্মমম………ও যা যা করলে আরাম পায়, সেই সব কিছু কর। দেখবি ও তোকে ছেড়ে অন্য কোথাও যাবেনা”, বলে ধীরে ধীরে নিজের বেডরুমের দিকে চলে গেলো মহুয়া। মহুয়া যেমন করে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে নিজের বেডরুমের দিকে হেঁটে গেলো, সেই দিকে একভাবে তাকিয়ে ছিল নমিতা। মহুয়া বেডরুমে ঢুকে যেতেই, একটা মুচকি হাসি দিয়ে নিজের কাজে লেগে পড়লো নমিতা।

মহুয়া নিজের বেডরুমে ঢুকে নিজের বিছানাতে শুয়ে থাকলো। মনে মনে চিন্তা করছিলো, “মাগীটার মনে কোনও রকম সন্দেহ জাগে নি তো? কেননা তোয়ালে পরে দরজা খুলে, আবার দরজা বন্ধ করে নাইটি পড়তে চলে যাওয়া, রণের রুম নমিতাকে পরিষ্কার করতে মানা করা.

তারপর সে যখন বেডরুমের দিকে হেঁটে যাচ্ছিল, তখন মাগীটা নিশ্চয় অসভ্যের মতন ওর খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটা তা লক্ষ্য করেছে, করুক লক্ষ্য………নিজে যে সারা রাত ধরে, নিজের ভাসুরপো কে তেল মালিশ করেছে, মুখে তেল মালিশ বলছে, আসলে মাগীটা নিশ্চয় ওর ভাসুরপোর সঙ্গে সারা রাত করেছে, বোকা ভেবেছে নাকি আমাকে”? মনে মনে একটু নিশ্চিন্ত বোধ করে মহুয়া। erotic incest

নাহহহ……রণটাকে এখন উঠিয়ে দিতে হবে। নমিতা অন্য দিকে কাজ করছে, তাছাড়া রণের রুমে ওর ব্রা, প্যান্টি, শাড়ী, ব্লাউস, রণের জাঙ্গিয়া সব ছড়িয়ে ছিটিয়ে পরে আছে, নমিতা যদি হটাত করে ওই রুমে কোনও কারণে ঢুকে যায়, তাহলে সর্বনাশ হবে। উঠে পরে মহুয়া। ধীরে ধীরে নিজেকে কোনোভাবে টেনে টেনে নিয়ে যায় রণের রুমে। রণ তখনও ঘুমোচ্ছে। ধীরে ধীরে ঘরের মেঝের থেকে নিজের আর রণের যাবতীয় অন্তর্বাস আর শাড়ী ব্লাউস গুলো উঠিয়ে ফেলে। কি অবস্থা হয়েছে ঘরটার।

মনে হচ্ছে সারারাত ধরে এখানে একটা ঝড় বয়ে গেছে। চারিদিকে, সব কিছু ছড়িয়ে ছিটিয়ে পরে আছে। বিছানার চাদর ও জায়গায় জায়গায় বীর্য শুকিয়ে খড়খড়ে হয়ে আছে। প্রেম, ভালবাসা, আদর, দৈহিক সুখের সুনামি যেন রুমটাকে লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছে। সেই সঙ্গে মুক্তি পেয়েছে, মহুয়ার দীর্ঘদিনের তৃষ্ণার্ত জিভন। রণ নামের একটা কালবৈশাখী ঝড় এসে তাঁকে শৃঙ্খল মুক্ত করে দিয়েছে।

ভাবতে ভাবতে একটা দলা পাকানো কান্না মহুয়ার গলার কাছে এসে আটকে থাকে। একটা ভালবাসার ঢেউ যেন আছড়ে পড়তে চায় রণের ওপর। ধীরে ধীরে রণের মাথার কাছে বসে, রণের মাথায় হাত বুলিয়ে দেয় মহুয়া পরম স্নেহে। আস্তে আস্তে নড়ে ওঠে রণ। মায়ের গায়ের গন্ধে মাতয়ারা রণ হাত বাড়িয়ে মহুয়ার কোমরটা শক্ত করে পেঁচিয়ে ধরে। erotic incest

“উঠে পড় সোনা, নমিতা এসে গেছে রে, ও যদি তোকে আর আমাকে এই অবস্থায় দেখে তাহলে, খারাপ ভাববে রে, উঠে পড় বাবাই, ফ্রেশ হয়ে নে। সারারাত একটুও ঘুমোসনি তুই, উঠে তাড়াতাড়ি ফ্রেশ হয়ে কিছু খেয়ে নে আগে, দেখবি ভালো লাগবে। আমি তো আছি তোর কাছে, কোথাও যাইনি”, বলে হাত বোলাতে থাকে রণের মাথায় মহুয়া।

মহুয়ার মাধুর্য্য- 17 by Rajdip123

Leave a Comment