erotic maa chhele মহুয়ার মাধুর্য্য- 6 by Rajdip123

bangla erotic maa chhele choti. প্রশ্নটা মনের মধ্যে আসতেই, মাথায় চিরুনি করতে করতে থেমে গেলো রণের হাত। টাওয়ে্ল ছেড়ে একটা ঢিলা হাফপ্যান্ট পড়ে নিল রণ। এখনো ব্যাথা করছে লিঙ্গের মাথাটা। আসতে আসতে একটু খুঁড়িয়ে হেঁটে খাওয়ার টেবিলে গিয়ে বসলো রণ, মুখটা নিচু করে। ইসসসস…… রণটার বোধহয় স্নান হয়ে গেছে। বাথরুম থেকে আর জলের শব্দ আসছেনা। কাঁধে বরফ ঘষা থামিয়ে, রুমের থেকে বেড়িয়ে সোজা রান্নাঘরে চলে গেলো মহুয়া খাবার বাড়তে।

রণটা কিছু খায়নি সারাদিন, কথাটা মনে পড়তেই, মনটা মমতায় ভরে গেলো মহুয়ার। খাওয়ার টেবিলে তেমন কোনও কথা হল না দুজনের। রণ খাওয়া শেষ করে, হাত ধুয়ে মুছতে মুছতে বলল, “মা আজ আর কোনও কথা বলনা, ভীষণ ঘুম পাচ্ছে, পরে বোলো, আমি সব শুনবো তোমার কথা। আমারও অনেক কথা জমে আছে তোমাকে বলার জন্য। আজ ঘুমিয়ে পড়ি, আগামীকাল সকালে উঠে আবার অফিস যেতে হবে। দেরী হয়ে গেলে ব্যাপারটা ভালো হবেনা”।

erotic maa chhele

রনের কথায় চোখ তুলে তাকালো মহুয়া, কিন্তু রণটা খুঁড়িয়ে হাঁটছে কেন? বাইরে বাইরে ঘুরে বেড়িয়ে সারাদিন পরে ঘরে এসেছে, কোথাও চোট আঘাত লাগেনি তো? ইসসসসস…… বেচারা কত কষ্ট পেয়েছে সারাদিন। “হ্যাঁ রে, তুই খুঁড়িয়ে হাঁটছিস কেন? কোথাও চোট লাগেনি তো? পায়ে লেগেছে নাকি তোর? কই দেখি তো সামনে আয়”।

মায়ের প্রশ্ন শুনে, ঘাবড়ে গিয়ে বলে উঠলো রণ, “ও তেমন কিছু নয়। না…না পায়ে লাগেনি… ও তুমি চিন্তা করোনা। তবে চোট লেগেছে কোথাও একটা, সেই জায়গাটা তোমাকে এখন দেখাতে পারবনা…পরে দেখে নিও। এখন আমি শুতে যাচ্ছি। ভোরবেলায় আমাকে ডেকে দিও তাড়াতাড়ি, নাহলে ওফিসের দেরী হয়ে যাবে”, বলে মুচকি হেসে নিজের রুমে ঢুকে গেলো।

ইসসসস… রণটার শুদু শরীরটাই বড় হয়েছে, মনের দিক থেকে এখনো বাচ্ছাই রয়ে গেছে। বেচারার কোথায় চোট লেগেছে কে জানে? ইসসস… ভীষণ ব্যাথা করছে বোধহয় ছেলেটার, তাই খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটছে। নিশ্চয় পায়ে কোথাও লেগেছে ওর। আগামীকাল ঘুম থেকে ওঠানোর সময় ওর পায়ে যেখানে লেগেছে, সেই জায়গাটা একটু মালিশ করে দেবো, ছেলেটা খুব আরাম পাবে……কথাগুলো ভাবতে ভাবতে চিন্তামগ্ন ভাবে খাওয়া শেষ করে নিজের রুমের দিকে হাঁটা দিলো মহুয়া। erotic maa chhele

পুরো শরীরটা ব্যাথা করছে মহুয়ার। যে ভাবে রণ আজ ওকে দেওয়ালের সাথে চেপে ধরে আদর করছিলো, একটুও নড়তে পারছিলনা মহুয়া। নরম বিছানায় শরীরটা ছেড়ে দিয়ে চিন্তা করছিলো মহুয়া। রণ যখন এমন করে ওর সাথে, একটা সুন্দর ভালোলাগায় কানায় কানায় ভরে যায় মনটা। কি ভীষণ পুরুষালী চেহারা ওর ছেলের। বিকাশ কোনোদিনও এমন করে আদর করেনি ওকে। এমন এক শক্তিশালী পুরুষ কেই তো কল্পনা করে এসেছে ও চিরকাল। তবে কি রণ ই তার সেই আকাঙ্ক্ষিত স্বপ্নের পুরুষ?

যার জন্য সে বছরের পর বছর অপেক্ষা করেছে, সব দুঃখ কষ্ট মুখ বুজে সহ্য করেছে, নিজেকে আরও সুন্দর করে সাজিয়েছে। কিছুতেই বাধা দিতে ইচ্ছে করেনা, রণকে। উল্টে আরও প্রশ্রয় দিয়ে ওর মাথা খারাপ করে দিতে ইচ্ছে করে। ইচ্ছে করে নিজের সমস্ত শারীরিক সৌন্দর্য আর সম্পদ দিয়ে ওকে সুখে ভরিয়ে দিতে। সুখে মাতাল করে দিতে। ধ্যাত… তা কি করে হয়? ভাবতে গিয়ে নিজেই হেসে ফেলল মহুয়া। ছিঃ কি সব ভাবছি আমি। রনের আদরে আদরে হয়ত আমার মাথাটাই খারাপ হয়ে গেছে। তা আবার হয় নাকি? erotic maa chhele

রণ ওর গর্ভের সন্তান। নিজের গর্ভজাত সন্তানকে নিয়ে কেও এই সব ভাবে নাকি? বালিশে মুখটা গুঁজে নিজের কাছে নিজেই লজ্জা পেয়ে গেলো মহুয়া। কথাগুলো ভাবতে ভাবতে কখন যে ঘুমের কলে ঢলে পড়েছিল মহুয়া, নিজেই বুঝতে পারেনি। ভোরের দিকে খোলা জানালা দিয়ে বৃষ্টির ছাঁট গায়ে পড়তেই ঘুমটা ভেঙ্গে গেলো মহুয়ার। ভোরের দিকে কখন বৃষ্টিটা শুরু হয়েছে জানতে পারেনি মহুয়া। বৃষ্টির সাথে দমকা ঠাণ্ডা হাওয়া চোখে মুখে লাগতেই হুড়মুড় করে উঠে জানালা বন্দ করে রুমের ছোটো লাইট জ্বেলে দিলো মহুয়া।

ঘড়িতে ৫ টা বাজে। একটু পরেই রণকে ডাকতে হবে। আজ আর ও ব্যায়াম করবে কিনা জানা নেই মহুয়ার। কাল বেচারা খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটছিল, কি হয়েছে, কোথায় আঘাত লেগেছে কে জানে ছেলেটার? ইসসস… জিজ্ঞেস করলেও বলেনা, একটাও কথা শোনে না রণটা আজকাল। ভীষণ দুষ্টু হয়ে গেছে। একবার ওর কাছে গিয়ে দেখা উচিৎ মহুয়ার, কে জানে ব্যাথায় সারারাত ঘুমল কি না?

রনের রুমের দরজায় গিয়ে ভেতরে উঁকি মারতেই দেখল রণ ঘুমিয়ে আছে। চাদর টা সরে গিয়ে পায়ের কাছে গুটিয়ে আছে। খালি গায়ে , একটা ঢিলা হাফপ্যান্ট পড়ে সুয়ে আছে রণ। কাঁচের জানালার বাইরে বৃষ্টিটা পড়েই চলেছে। হাওয়াটা একটু কমেছে। আস্তে আস্তে ভোর নামছে কলকাতার বুকে। বাইরে হাওয়ার দাপট কমলেও, মহুয়ার মনে একটা ঝর বইছে, যেটা থামতেই চাইছে না। ঘরের ছোটো বাল্বটা জ্বেলে দিলো মহুয়া। হালকা নীল আলতে রনের দিকে তাকাতেই, আঁতকে উঠলো মহুয়া। erotic maa chhele

হাফপ্যান্ট টা নাভির অনেক টা নীচে অব্দি নেমে গেছে রনের। প্রায় ছোটো খাটো তাঁবুর মতন হয়ে গেছে জায়গা টা। প্যান্টের ভেতরে যেন একটা গাছের গুঁড়ি উঁচু হয়ে আছে। দেখতে দেখতে শরীরটা কেমন যেন হয়ে যাচ্ছে মহুয়ার। মনে মনে ওটার আকার টা ভাবতে গিয়ে কেঁপে উঠলো মহুয়া। মনে হচ্ছে, একটা আস্ত শিলনোড়া। যেমন মোটা, তেমন লম্বা। গতকাল রাত্রে খুঁড়িয়ে হাঁটছিল রণ। হটাত মনে একটা প্রশ্ন এলো মহুয়ার, রণ ওর কাছে চোটের জায়গাটা লুকচ্ছে না তো? ওর ওই পুরুষাঙ্গে কিছু হয়নি তো?

কথাটা মনে হতেই এক অজানা আশঙ্কায় মনটা ভোরে গেলো মহুয়ার। বেচারা খুব কষ্ট পেয়েছে মনে হয় কালকে। ইসসস… একবার জায়গাটা দেখতে পারলে ভালো হতো। ও তো এখন বেঘোরে ঘুমচ্ছে। একটু হাত দিলে জানতে পারবে কি? জেনে গেলে লজ্জায় পড়ে যাবে মহুয়া। কিন্তু ভীষণ ইচ্ছে করছে, জায়গাটা একবার হাত দিয়ে দেখতে। পা টিপে টিপে পাশের রুম থেকে একটা ছোটো টর্চ নিয়ে এলো মহুয়া। রনের রুমের বাল্ব নিভিয়ে দিলো মহুয়া, পাছে ওর ঘুম ভেঙ্গে যায়। erotic maa chhele

টর্চ টা জ্বেলে ধীরে ধীরে এগিয়ে গেলো মহুয়া রনের বিছানার দিকে। চিত হয়ে সুয়ে আছে রণ। কি ভীষণ সুপুরুষ দেখতে ওর ছেলে। একটুও মেদ নেই সাড়া শরীরে। মহুয়া আস্তে করে গিয়ে রণের পায়ের কাছে গিয়ে দাঁড়াল। একবার রণের মুখের দিকে তাকিয়ে নিল মহুয়া। নাহহহ…… গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন রণ। বুকের ঢিপ ঢিপানীটা বেরেই চলেছে। আস্তে করে রণের ঢিলা হাফপ্যান্টের ইলাস্টিকের জায়গাটায় হাত দিল মহুয়া। আর একবার দেখে নিল মহুয়া রণের মুখের দিকে। কিছুটা আশ্বস্ত হল মহুয়া।

নাহহহহ… উঠবে না ওর ছেলে। এবার ইলাস্টিক টা ধরে আস্তে আস্তে নামাতে শুরু করলো। একটু নামাতেই চমকে শিউরে উঠলো মহুয়া। ততক্ষণে রণের পুরুষাঙ্গের মাথাটা বেড়িয়ে এসেছে। লাল একটা বড়সড় টমেটো। এতো বড় পুরুষাঙ্গের মাথা সম্ভব নাকি? এটা যদি কোনও নারীর যৌনাঙ্গে প্রবেশ করে, তাহলে সেই নারীর যৌনাঙ্গের অবস্থা খারাপ হয়ে যাবে। একটু যেন নড়ে উঠলো রণ। সঙ্গে সঙ্গে ছিটকে সরে আসলো মহুয়া।

গোটা শরীর টা তিরতির করে কাঁপছে তখন মহুয়ার। বুকের মধ্যেকার হৃৎপিণ্ডটা বোধহয় এবার বেরিয়ে আসবে। মাথাটা ঘুরছে মহুয়ার। ইসসস… আর একটু হলেই রণ জেগে যেত। কি ভাবতো? এবার ছেলেটাকে ঘুম থেকে ওঠানো উচিৎ এবার ।
“এই রণ… রণ… উঠবিনা? উঠে পড় সোনা আমার। রাত্রে ঘুম হয়েছে সোনা? উঠে পড়, ব্যায়াম করবি না, আজ তুই”? বলে ছেলের খোলা পিঠে হাত বুলিয়ে দিতে শুরু করলো মহুয়া। erotic maa chhele

মায়ের গলার আওয়াজ পেয়ে নড়ে উঠলো রণের বিশাল মেধহীন শরীরটা। কোনোরকমে অল্প একটু চোখটা খুলে দেখলো, মা পাশে দাড়িয়ে আছে। মায়ের পরনের ছোটো নাইটি টা, হাঁটুর ওপরে এসে শেষ হয়ে গেছে। “উমমমমম……কটা বাজে? আজকে আর ব্যায়াম করতে ইচ্ছে করছেনা। তুমিও দাড়িয়ে না থেকে আমার পাশ দিয়ে একটু শুয়ে পড়ো। এখনো অফিসের অনেক দেরী আছে। তুমি এসো আমার কাছে”, বলে ডানদিকে পাশ ফিরে মায়ের হাতধরে বিছানায় নিজের পাশে বসিয়ে দিলো মহুয়াকে।

“এখন ছেড়ে দে সোনা, আমার অনেক কাজ আছে, আমার কি এখন ছেলের আদর খাওয়ার, আর ছেলেকে আদর করার সময় আছে? কত কাজ পড়ে আছে”। কিন্তু মহুয়া ভালোকরে বুঝতে পারছিল, ছেলের এমন আদুরে ডাককে উপেক্ষা করার সাধ্য তার নেই। মহুয়া রণের কোল ঘেঁসে বসলো, ওর বিছানাতে। রণ মায়ের নরম কোমরটা ধরে তাঁকে আর ও নিজের কলের কাছে টেনে নিল। রণের টানে নিজেকে সামলাতে না পেরে, মহুয়ার শরীরের ওপর ভাগটা রণের মুখের ওপর ঝুঁকে পড়ল। erotic maa chhele

দুহাত দিয়ে রণের অবিন্যস্ত চুলগুলো কপালের থেকে সরিয়ে দিতে লাগলো। রণের বাঁ হাত তখন মহুয়ার পিঠে ঘুরে বেড়াতে শুরু করেছে। বাঁ হাতের চাপে মহুয়ার মুখটা আরও কাছে চলে আসলো রণের। মহুয়ার বিশার বড় বড় আর ভারী কুচ যুগল রণের আদুরে বুকে চেপে বসে গেলো, সুগোল স্তনের বেশীর ভাগ গোলাকার অংশ উপচে বেরিয়ে এসেছে নাইটির ফাঁক দিয়ে, না চাইতেও রণের আগুনে চাহনি বারেবারে মায়ের ফুলে ওঠা গভীর বক্ষ বিদলনে আটকে যায়।

রণের প্রশস্ত বুকে মহুয়ার মহুয়ার স্তনাগ্র ভীষণ ভাবে ঘষা খেতে থাকে। রক্ত চাপ বেড়ে যায় রণের দামাল শরীরে। রণ মহুয়ার স্তনব্রিন্তের কাঠিন্যতা নিজের প্রশস্ত ছাতিতে অনুভব করতে শুরু করে। রক্ত ছলকে ওঠে রণের, বিশাল রাক্ষুসে পুরষাঙ্গটা দপদপ করে ওঠে, প্যান্টের ভেতরে। মনে হয় শিকার তার মুঠোয়, ভীষণ ভাবে ইচ্ছে করছে, মহুয়ার স্তনব্রিন্ত গুলো চুষে, কামড়ে, লেহন করে লাল করে দিতে। নিজেকে সংযত করে রাখে রণ। রণের ডান হাত ততক্ষণে মহুয়ার ভারী গোলাকার নিতম্বের ওপরে বিচরণ করতে শুরু করেছে। erotic maa chhele

নিতম্বের মাংসল দাবনা গুলোতে রণের কঠিন আঙ্গুলের পুরুষালী ছোঁয়ায়, এক পাগল করা সুখ মহুয়ার সর্বাঙ্গে ছড়িয়ে পড়ছে। নিঃশ্বাস ঘন হয়ে ওঠে মহুয়ার। ডান হাত দিয়ে কোমর টা পেঁচিয়ে ধরে টেনেই চলেছে রণ নিজের দিকে। “না আজ আর ব্যায়াম করবনা। উমমমম……আর একটু ঘুমোতে দাও তুমি আমাকে। অনেক দেরী আছে এখন অফিসে যেতে”। মহুয়া কিছু একটা বলতে গিয়েও রণের গলার আওয়াজের কাঠিন্যে চুপ হয়ে যায়।

রণ একটা আঙ্গুল দিয়ে মহুয়ার রসে ভরা পুষ্ট রসালো ঠোঁটের ওপর চেপে ধরে চুপ করিয়ে দিলো। “এখন আর কথা বোলো না ডার্লিং। শুদু তোমার শরীরের উত্তাপ্ টা আমাকে গ্রহন করতে দাও। তোমার গায়ের নেশা ধরানো গন্ধটা আমাকে মন প্রান ভরে নিতে দাও। আহহহহহ…… মাগো কথা বলে আমার নেশা টা ভেঙ্গে দিও না”। মহুয়ার কানের পাশে হিসহিসিয়ে ওঠে রণের কণ্ঠস্বর। মহুয়াকে আরও নিবিড় ভাবে জড়িয়ে ধরে মায়ের শরীরের আঘ্রান মন ভরে নিতে নিতে মহুয়াকে নিজের বুকের সাথে চেপে ধরে মিশিয়ে নেয় রণ। erotic maa chhele

“আমার কি এখন তোর পাশে সুয়ে তোর আদর খেলে চলবে রে? সংসারের সব কাজ পড়ে রয়েছে। স্নান সেরে, পুজো সেরে, তোর জলখাবার বানাতে হবে”। মুখে বলল বটে মহুয়া, কিন্তু উঠে যেতে মটেই ইচ্ছে করছেনা মহুয়ার। ইতিমদ্ধেই নিজে ভালোই বুঝতে পারছে, যে ওর স্তনবৃন্ত গুলো শক্ত হয়ে গেছে। উরুসন্ধি একটু একটু করে সিক্ত হতে শুরু করেছে। তীব্র যৌন আবেদন, লাস্যে ভরা বছরের পর বছর তৃষ্ণার্ত থাকা মহুয়ার যৌনতা যেন ধীরে ধীরে জাগতে শুরু করেছে।

শরীরের প্রতিটা শিরা উপশিরা তে আবার উত্তপ্ত লাভা ছড়িয়ে পড়ছে। ইসসসস… প্রচণ্ড আস্কারা দিতে ইচ্ছে করছে নিজের গর্ভজাত সন্তানকে। মনে হচ্ছে, রণ তার সন্তান না, তার সেই ভাবনায় বার বার চলে আসা সেই সুঠাম দেহের লৌহপুরুষ, তার স্বপের পুরুষ। তার রাজকুমার, তার প্রেমিক।

ভাবতে ভাবতে, মহুয়া আস্তে আস্তে চিত হয়ে সুয়ে পড়ল রণের বালিশে মাথা দিয়ে। রণের বাঁ হাত তার মাথার নীচ দিয়ে গলাটা জড়িয়ে ওর পু্রু রসে ভরা ঠোঁটের ওপর বিচরণ করছে, আর এক হাত দিয়ে মায়ের কোমর জড়িয়ে শক্ত করে নিজের দিকে টেনে রেখেছে। ধীরে ধীরে একটা পা মহুয়ার রোমহীন মসৃণ পুরুষ্টু জঙ্ঘার ওপর দিয়ে আস্তে আস্তে ঘসে চলেছে। যার ফলে মহুয়ার নাইটি টা প্রায় ওর প্যান্টি অব্দি গুটিয়ে এসেছে। erotic maa chhele

আস্তে আস্তে রণ নিজের কোমর নাচিয়ে নাচিয়ে নিজের বিশাল শিলনোড়ার মতন পুরুষাঙ্গটা মহুয়ার উরুতে ঘসে চলেছে। আহহহহহ……ওফফফফফফ…ব্যাথায় কঙ্কিয়ে উঠলো রণ। “কি হলো সোনা আমার? কোথায় ব্যাথা সোনা”?বল আমাকে। মহুয়া আঁতকে উঠলো, রণের আওয়াজে। ও কিছু না। তেমন কিছু না। মাকে কেমন করে বলবে সে, যে তার পুরুষাঙ্গের মাথাটা কালকের ঘষাঘষিতে একটু ছড়ে গেছে।

মহুয়া এখন ভালোই বুঝতে পারলো, রণের ব্যাথাটা কোথায়। কিন্তু কেমন করে জিজ্ঞেস করবে সে, কিন্তু মহুয়া কিছুতেই বুঝতে পারছেনা, কি হয়েছে রণের পুরুষাঙ্গে, যার জন্য সে এতো কষ্ট পাচ্ছে।
“সোনা, আমাকে ছাড় এবার। তুই এক কাজ কর, অফিসের থেকে আসার সময় একটু ডাক্তারের কাছে হয়ে আয়। ওনাকে বল, তোর কি হয়েছে। উনি ঠিক কোনও ভালো ওষুধ দিয়ে দেবে, দেখবি দুদিনে ভালো হয়ে গেছিস। erotic maa chhele

নে, এবার ছাড় দেখি আমাকে, উঠতে দে সোনা, প্লিস…… অনেক কাজ পড়ে আছে। আবার পরে আদর করে দেব”। বলে, রণের হাত টা সরিয়ে উঠে বসলো মহুয়া।
“আর একটু বস না মা, আমার কাছে। বস একটা কথা বলি তোমাকে, রেগে যাবে না তো”? বলে মায়ের হাত টা ধরে থাকল রণ।
“না বল সোনা, রাগব কেন”? মহুয়া কিছুটা উৎকণ্ঠা ভরা আজয়াজে জিজ্ঞেস করলো।

“তোমার মনে আছে মা, আমি যখন ছোটো ছিলাম, তোমার পাশে সুয়ে ঘুমতাম, তখন আমার একটা অভ্যাস ছিল। বড় হওয়ার সাথে সাথে অই অভ্যাসটা ধীরে ধীরে শেষ হয়ে গেছে”। “কি বলতো, ঠিক মনে পড়ছে না। একটু মনে করিয়ে দে রণ। কিছুতেই মনে পড়ছে না”। সত্যি কিছুতেই মনে করতে পারছেনা মহুয়া। কি এমন অভ্যাস ছিল রণের।

“মা মনে কর আমি তোমার পেটে হাত না বোলালে আমার ঘুম আসত না কিছুতেই। তুমিও আমাকে তোমার শাড়ীর আঁচল সরিয়ে, আমাকে সুবিধা করে দিতে, যাতে আমি তোমার পেটে হাত বোলাতে পারি, আর তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে পড়ি। মনে পরে তোমার”? “ও… হ্যাঁ, কেন মনে পড়বে না? খুব মনে পড়েছে। কম বদমাশ ছিলি নাকি তুই? আমার পেটে হাত না দিলে তুই কিছুতেই তুই ঘুমোতিস না। আমাকে জড়িয়ে ধরে না সুলে তুই ঘুমোতিস না। তোর এখনো মনে আছে? সে অনেক বছর আগের কথা রে রণ”। erotic maa chhele

“জানো মা আমার এখনো ওমনি করে সুতে ইচ্ছে করে”। বলে মায়ের দিকে তাকিয়ে রইলো রণ। মহুয়ার মনটা হটাত করে অন্যমনস্ক হয়ে গেলো। কত কষ্ট করে বড় করেছে, সে তার সবেধন নীলমণি রণকে। ছোটবেলার থেকেই বোর্ডিং স্কুলে বড় হওয়া রণ ক্লাস এইটের পড় থেকে আর মায়ের সান্নিধ্য পায়নি তেমন করে। স্কুল ফাইনাল পাশ করার পড় আবার ডিপ্লোমা করতে চলে যাওয়া পুনেতে, তার আরও তিন বছর পর একবারে ডিপ্লোমা পাশ করে আবার কলকাতাতে ফিরে আসা। যেন হটাত করে বড় হয়ে গেলো রণ।

প্রথম প্রথম তো লজ্জাই পেত মহুয়া। রণ ও লজ্জা পেত মায়ের কাছে, ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়েছে দুজনের সম্পর্ক। মাঝের সময়টা শুধু শূন্যতায় ভরা। এতো বড় ঘরে শুধু মহুয়া আর রোজকার কাজের মানুষ নমিতা। একা সুন্দরী মেয়ে মানুষ দেখে, অনেক পুরুষ মানুষই সুযোগ নেওয়ার চেষ্টা করেছে। কিন্তু মহুয়া কাউকে পাত্তা দেয়নি। অনিমেষ সেই সময় খুব সাহায্য করেছে মহুয়াকে। পুনেতে মহুয়ার এক মাসতুতো দাদার বাড়ি, যারা রণের পড়াশুনার ব্যাপার গুলো দেখত। মহুয়া সেই দাদার কাছেই টাকা পাঠিয়ে দিত রণের জন্য। erotic maa chhele

নমিতাও খুব দেখাশুনো করতো মহুয়ার। ওর মদ্দপ স্বামী প্রায় রোজ রাত্রে মাতাল হয়ে নমিতাকে মারধর করতো। মহুয়াই ওকে বলেছিল, রাত্রে তার কাছে থাকার জন্য। সেই থেকে নমিতা রোজ রাত্রে মহুয়ার কাছে চলে আসত। নমিতার বড় ভাসুরের এক ছেলেকে কলে পিঠে করে নমিতাই মানুষ করেছে। দিনের বেলাতে সেই ছেলের সাথে নমিতা থাকত।

“রণের এমন আব্দার শুনে প্রথমে একটু হেসে ফেলল মহুয়া। কিন্তু তুই তো এখন বড় হয়ে গেছিস সোনা। চাকরী করছিস। এমন অভ্যাস থাকলে কাল গিয়ে তোর বিয়ে হবে, তখন তোর নতুন বউ কি ভাববে বল তো”? সঙ্গে সঙ্গে রণ নিজের হাতে ধরা মহুয়ার হাত টা এক ঝটকায় সরিয়ে দিয়ে চিৎকার করে বলে উঠলো, “খবরদার তুমি এই বিয়ের কথাটা আর কোনোদিনও বলবে না আমাকে। বিয়ে টিয়ে আমি করতে পারবোনা। আমি আমার জীবনে তোমাকে ছাড়া আর কাউকে চাই না। আমার সব কিছু তুমি।

আমার বন্ধু, আমার মা, আমার সব কিছু তুমি। তোমাকে ছাড়া আমি আমার জীবনে আর কাউকে ভাবতেও পারিনা”। রণের মুখে এমন কথা শুনে, মহুয়ার দুচোখ বেয়ে জলের ধারা নেমে এলো। এই কথাগুলোই হয়তো শুনতে চাইছিল মহুয়া রণের মুখ থেকে। এই কথাগুলোর জন্যই তো গতকাল অনিমেষ কে আস্কারা দিয়ে, রণকে রাগিয়ে তুলেছিল। “এতো ভালবাসিস তুই সোনা আমাকে? সত্যি করে বল, আমাকে ছেড়ে তুই কোথাও যাবি না। চিরদিন এমন করেই আগলে রাখবি আমাকে”? erotic maa chhele

বলে রণের বুকে মাথা রেখে কাঁদতে লাগলো মহুয়া। রণ দুহাতে জড়িয়ে ধরল মাকে। “কাঁদতে নেই মা, তুমি চিরকাল আমার সাথে থাকবে। তোমাকে ছেড়ে কোথায় যাব বোলো আমি? কোথায় এতো ভালবাসা পাবো আমি? তুমি আমার স্বপ্ন, তুমি আমার সত্যি, তুমি আমার সাহস, তুমি আমার প্রান, তুমি আমার জীবন, তুমি আমার যৌবন, তুমি আমার সখ, তুমি আমার আহ্লাদ, তোমাকে ছেড়ে কি যাওয়া যায় সোনা? তুমি সুদুই আমার, চিরকালের জন্য সুদু আমার”। মহুয়া বাকরুদ্ধ হয়ে রণের চোখের দিকে তাকিয়ে ছিল।

“হ্যাঁ সোনা, তুই আমার আশা, আমার ভরসা, আমার সাহস, আমার সন্তান, আমার ভালোলাগা, তোকে ঘিরেই আমার যাবতীয় স্বপ্ন”। বলতে বলতে, মহুয়ার চোখের জল, বুকের হাহাকার, হৃদয়ের শূন্যতা, সব মিলে মিশে, চোখের জল হয়ে বেরিয়ে আসতে শুরু করলো।
বাইরের বৃষ্টিটা থেমে গেলেও, মহুয়ার চোখের জল যেন আজ কোনও বাধা মানছে না। “আচ্ছা সোনা, আজ থেকে তুই যেমন চাইবি, তেমনই হবে”। বলে উঠে দাঁড়াল মহুয়া। মনে কিন্তু চিন্তার জাল টা নতুন করে বুনতে শুরু করলো মহুয়া। erotic maa chhele

এটা বলে কোনও ভুল করলো না তো সে? রণ যখন ওকে আদর করে, মনে হয়না যে তার ছেলে তাঁকে আদর করছে, মনে হয় অন্য কোনও নাছোড়বান্দা দামাল বিরাট চেহারার এক স্বপ্নের রাজকুমার তাঁকে নিজের ইচ্ছেমতন ভোগ করতে চাইছে। যাকে নিষেধ করার, বাধা দেওয়ার ক্ষমতা তার নেই। নাহহহ……আর চিন্তা করতে পারছেনা মহুয়া। একদিকে মাতৃস্নেহ আর দিকে তার প্রেমিক রুপী সুঠাম দেহের অধিকারী সন্তান রণজয় মাঝে তার তৃষ্ণার্ত দেহ।

ধীরে ধীরে উঠে দাঁড়াল মহুয়া। বাথরুমে ঢুকে নাইটি টা খুলে ফেলে দিলো। ইসসসস…… প্যান্টি টা রসে ভিজে জবজব করছে। পা গলিয়ে প্যান্টি টা খুলে দিলো মহুয়া। সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে বাথ্রুমের আয়নায় নিজের লাস্যময়ী রূপ দেখে মহুয়ার ঠোঁট আলতো গোল হয়ে খুলে যায়। চোখের পাতা কামুকী আবেগে ভারী হয়ে আসে। দু আঙ্গুলের মধ্যে শক্ত হয়ে ফুটে ওঠা স্তনবৃন্ত চেপে ধরে মহুয়া। মহুয়ার সিক্ত কামার্ত শরীর এক অজানা সুঠাম চেহারার সুপুরুষের ভারী দেহ মাথার মধ্যে এঁকে নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ খেলা করে চলে মহুয়া। erotic maa chhele

ধীরে ধীরে ওর নরম হাত স্তন ছেড়ে, বুকের খাঁচা চেপে নীচের দিকে নেমে আসে। কোমরে হাত রেখে একটু ঘুরে দাড়িয়ে নিজেকে জরিপ করতে থাকে মহুয়া। নাহহহ… এখনো বয়সের কোনও ছাপই পড়েনি তার কামাতুরা দেহে। আর একটু ঘুরে দাড়িয়ে কোমরে হাত রেখে আয়নার প্রতিফলনে নিজের সুগোল নরম মাংসল পাছার আকার দেখে নেয় মহুয়া। ভারী নিতম্বের দুলুনি দেখে গর্বে ভরে ওঠে মনটা।

তলপেট ছাড়িয়ে ওর ডান হাত চলে যায় উরুসন্ধির ওপর। যোনি বেদী কুঞ্চিত কেশে ঢাকা। অনেক দিন হয়ে গেছে, ছাঁটা হয়নি যোনির চারিদিকে গজিয়ে ওঠা কেশ গুচ্ছ। মহুয়ার ভাবনায় তখন সেই অজানা সুঠাম দেহের সুপুরুষের জায়গাটার দখল নিয়ে ফেলেছে, টার একমাত্র সন্তান রণ। “ইসসসসস…… কি ভাবে আদর করে ওকে। কত বড় আর মোটা ওর ওইটা। যেন আস্ত একটা সোল মাছ”, ভাবতে ভাবতে কেঁপে ওঠে মহুয়া।

ওর স্বপ্নের পুরুষ মানুষের এমনই বিশাল আর মোটা পুরুষাঙ্গ হওয়া উচিৎ, দুই পেলব জঙ্ঘার ওপরে নখের আঁচড় কাটতে কাটতে ভাবে মহুয়া। ছিঃ ছি…একি ভাবছে সে? কিন্তু মন কি আর মানতে চায়?
কিছুক্ষণ আগে মহুয়ার ভাবনায় যে ওকে জড়িয়ে ধরেছিল, সে কে? টার মুখমণ্ডল তা খুব আবছা, মহুয়া কিছুতেই বুঝতে পারেনা সেই বিশাল দেহের অধিকারীর পুরুষটির পরিচয়। আর নাহহহ…… ভাবতে পারেনা মহুয়া, মন আকুলি বিকুলি করে ওঠে ওর। erotic maa chhele

উন্মুক্ত যোনিচেরার ওপর আঙ্গুল বোলাতে বোলাতে, প্রচণ্ড কামাবেগে দুই চোখ আধবোজা হয়ে আসে মহুয়ার। ডান হাতের মুঠিতে, ডান স্তনটা চেপে ধরে, বাম হাতের দুই আঙ্গুল সোজা করে যোনি চেরার ওপরে ঘসতে ঘসতে কামাসিক্ত মনের আগুন দাউ দাউ করে জ্বালিয়ে নেয় মহুয়া।

নিঃশ্বাসের গতি বেড়ে ওঠে, দুই স্তন ফুলে ফুলে ওঠে আবেগ ঘন নিঃশ্বাসের ফলে। গোলাপি ঠোঁট জোড়া গোল হয়ে ফাঁক হয়ে যায়। মাথার মধ্যে আবার পাক খায় সেই অজানা অচেনা বিরাট বলশালী সুপুরুষের চেহারা, যার স্বপ্ন অনেক রাতে একাকী বিছানায় সুয়ে সুয়ে দেখেছে মহুয়া। কিছুক্ষন পরে বাথরুমে চলে যায় মহুয়া।

দুই পা একটু বেঁকিয়ে পেলব মসৃণ উরুজোড়া একটু ফাঁক করে যোনির চেরায় আঙ্গুল ঘসতে থাকে মহুয়া। চোখ বন্দ করে ফেলে হিসহিসিয়ে বলে ওঠে, “উফফফফফ…..উফফফফ….ইসসসস……সসসস….উম্মম্মম্ম….নাহহহ….নাহহহ….” মিহি শীৎকার করতে করতে আঙ্গুল চেপে ধরে সিক্ত যোনির ওপরে। আঙ্গুলের ওপর ফুটে ওঠা ভগাঙ্কুর ভীষণ ভাবে ডলা খেতে থাকে। ওর শরীর বেয়ে এক তীব্র বিদ্যুতের ঝলকানি বয়ে যায়। ভগাঙ্কুর ডলতে ডলতে কামাবেগে আচ্ছন্ন হয়ে যায় মহুয়ার কামার্ত অসম্ভব আবেদনময়ী দেহ মন। erotic maa chhele

শরীর তীব্র কামনার আগুনে দাউ দাউ করে জ্বলে ওঠে। চিনচিন করতে শুরু করে দেয় মহুয়ার তলপেট। তিরতির করে যোনি রস কাটতে থাকে সিক্ত যোনির মধ্যে, যা ঝরনার মতন যোনির বাইরে বয়ে এসে মসৃণ উরুকে সিক্ত করে দেয়। অনেকক্ষণ বাথরুমে থাকার পর, বেরিয়ে আসে মহুয়া। শরীরের কামনার আগুনকে কিছুটা প্রশমিত করে বেরিয়ে আসে মহুয়া। কিছুটা হালকা লাগে শরীরটা। তবে মনে মনে ঠিক করে সে, এবার একটু নিজের যত্ন নিতে হবে। এক ঢাল মেঘের মতন কেশরাশি মহুয়ার, অনেকদিন কাটা হয়নি।

বগলে, উরুসন্ধিতেও অবাঞ্ছিত চুল গজিয়ে উঠেছে। অনেক অবহেলা করেছে নজের প্রতি। তবে আর না। বাথরুম থেকে একটা ভিজে টাওয়েল নিজের উলঙ্গ শরীরে জড়িয়ে বাথরুম থেকে বেড়িয়ে আসে। রণটা মনে হয় এখনো ঘুম থেকে ওঠেনি।

মহুয়ার মাধুর্য্য- 5 by Rajdip123

Leave a Comment