fantasy choti মিলির ফ্যান্টাসি

bangla fantasy choti. স্বামী খুব একটা সময় না দিলেও সংসার নিয়ে অসুখী নয় মিলি। বাঙালি আট দশটা স্ত্রীর মতোই শাড়ির আঁচল কোমরে গুঁজে দিব্বি সংসার চালিয়ে যাচ্ছে। মিলি যেমন চঞ্চল প্রকৃতির, উচ্ছল তারুণ্যে ভরপুর, স্বামীটা ঠিক তার উল্টো। একদমই সময় নেই তার। সবকিছুতেই তাড়াহুড়ো আর পেশাদার ভাব। সপ্তাহে বা মাসে একবার এক বিছানায় শুলেও রুটিনমাফিক সেক্সটাকেও মিলির কাছে মনে হয় নিতান্তই কিছুক্ষণের ব্যায়াম। শারীরিক সম্পর্কে যে উপভোগের বিষয়টা আছে সেটা তার মাথাতেই আসে না।

তবে একদিনের পর থেকে বিষয়টা নিয়ে আসলেই ভাবনায় পড়ে গেল মিলি। যেদিন তার সঙ্গে দেখা হলো বহুদিনের পুরনো বান্ধবী হিমির। ধনীর মেয়ে হিমির লাইফস্টাইলটাও অন্যরকম। বাঙালিপনায় ভরপুর মিলির সঙ্গে সেটা যায় না। তবে হিমির সেদিনের কথার পর মনে হলো বাইরের দিকটা যেমনই হোক, বিশেষ বিশেষ চাহিদার ক্ষেত্রে প্রত্যেকেই এক। হিমি যেদিন বাসায় এলো সেদিন মিলির স্বামী ঢাকায় ছিল না। তাই অনেকটা মন খুলেই কথা হয়েছে দুই বান্ধবীর।

fantasy choti

হিমি: যাই বলিস সেক্সুয়াল লাইফটা অনেক বড়। এটাকে উপভোগ করতে না পারলে পনের আনাই মিস। তার উপর তোর এখনও বাচ্চাকাচ্চাও হয়নি।

মিলি: কী করবো…. সে তো এটা নিয়ে কথাই বলে না।

হিমি: আরে! সব কিছুতেই সে এটা বলে না….সে এটা করে না। সব কি সে-ই ঠিক করবে নাকি!

মিলি: তো! কী বলিস তুই!

হিমি: আরে বাবা, তোর শরীরটা তোর। উপভোগ করার অধিকারও তোর।

মিলি: করি-ই তো।

হিমি: কচু করিস।

মিলি: সপ্তাহে একবার…।

হিমি: আরে ধুর! ওটাকে সেক্স করা বলে নাকি। আসল মজার কানাকড়িও তুই পাস না, এটা তোর চেহারা দেখেই বুঝি। fantasy choti

মিলি: তুই বুঝি খুব পাস!

হিমি: আমাকে দেখে কী মনে হয়! হুমম।

মিলি: আমি আর কী করবো।

হিমি: কী করবি মানে! অনেক কিছু করার আছে। তু্ই শুধু বল, তুই আমার কথা মতো কাজ করবি কিনা।

মিলি: মানে কি! কী বলিস তুই। আমি বাপু আর কারোর সঙ্গে শুতে টুতে পারবো না।

হিমি: উফফ। তুই শুধু শোয়াটাই দেখলি। মজাটা দেখবিনা! বোকার হদ্দ। যৌবনটা যে ফুরিয়ে যাচ্ছে, সে খেয়াল আছে? এখন না মজা করলে আর কখন!

মিলি: তোর আইডিয়াটা কী শুনি?

হিমি: প্রথমত, ওই সব সংস্কার ছাড়তে হবে।

মিলি: কিন্তু স্বামী ছাড়া অন্য কারো সঙ্গে এসব চিন্তাও করতে পারি না আমি। সত্যি।

হিমি: আরে বাবা! আসল কথাটাই তো বলতে দিচ্ছিস না। তোকে আমি এমন বুদ্ধি দেব… যাতে অন্য কারো সঙ্গে ওটা করলেও তোর খারাপ লাগবে না। এই যেমন ধর, কারো সঙ্গে সেক্স চ্যাট করলে কি তোর খারাপ লাগবে? fantasy choti

মিলি: তা হয়তো না…. কিন্তু সরাসরি।

হিমি: আমার আইডিয়া মতো হলে, একটু খারাপ লাগবে না। প্রমিস। বরং এমন মজা পাবি, যা জীবনেও পাসনি।

মিলি: কী সেটা?

হিমি: তুই রাজি থাকলে বলবো।

মিলি: আগে বল না।

হিমি: একটা স্পেশাল সার্ভিস নিতে হবে তোকে। তবে এর জন্য পুরো একটা দিন হাতে রাখতে হবে।

মিলি: এক দিন!

হিমি: হুম। যা হবে তোর বেডরুমেই হবে। তবে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত। মাঝে খাওয়া দাওয়া করে নিবি। তবে পুরো সেশনটার জন্য কমপক্ষে দিনটা লাগবেই। fantasy choti

মিলি: বলিস কী! এমনিতে তো ও আধ ঘণ্টাও টেকে না।

হিমি: হুমম,, বন্ধু্ এজন্যই তো বললাম,, এটা স্পেশাল। তোর ওই স্বামীর মতো দুই মিনিটেই শেষ হবে না।

মিলি: নারে…. তবু! খারাপ লাগবে আমার।

হিমি: কচু লাগবে। আমি যেভাবে বলবো…. সেভাবে হলে আর যা-ই হোক খারাপ লাগবে না।

মিলি: ঠিক আছে বল। দেখি তোর আইডিয়া কেমন।

হিমি: এমনিতে তুই চাইলেই হাজার হাজার ছেলে দাঁড়িয়ে যাবে তোর সঙ্গে সেক্স করার জন্য। কিন্তু আমি যে সার্ভিসটার কথা বলছি, ওটা তোকে সহজে কেউ দিতে পারবে না। এ জন্য তোকে পে করতে হবে।

মিলি: ও বাবা! আমাকে করবে, আবার আমাকেই টাকা দিতে হবে?

হিমি: হুম হবে। কারণ সার্ভিসটা এমনই।

মিলি: কত?

হিমি: হাজারখানেকেই কাজ হবে। ছেলেটা আমার পরিচিত। ছেলে না বলে লোক বলা ভালো। বয়স চল্লিশের মতো। হ্যান্ডস্যাম। অবশ্য এতসবে তোর কাজ নেই। কারণ তুই ওর চেহারা দেখবি না। fantasy choti

মিলি: চেহারা না দেখে….।

হিমি: ইশ…. একটু আগে তো রাজিই হচ্ছিলি না…. এখন আবার চেহারা দেখার শখ।

মিলি: আরে না…. আমি তো বলিনি আমি রাজি। আমি আগে শুনি ব্যাপারটা।

হিমি: চেহারা দেখতে পাবি না। কারণ তোর চোখ থাকবে বাঁধা।

মিলি: বলিস কি। পুরোটা সময়?

হিমি: হুম। আর সত্যি বলছি। তোর কাছে মনে হবে পুরোটা তোর স্বপ্ন। একটা ফ্যান্টাসি। এজন্য খারাপও লাগবে না।

মিলি: নাহ তা কি আর হয়। হুমম ব্যাপারটা ইন্টারেস্টিং বটে। কিন্তু স্বামী ছাড়া অন্য কেউ আমার শরীর ছোঁবে, নাহ…. ভাবতেও নিজেকে বেশ অপরাধী মনে হচ্ছে রে।

হিমি: ইয়াম্মি! গিল্টি ফিলিংস হচ্ছে? এতে তো মজা আরো বেশি রে! জাস্ট একবার নিজের শরীরের কথা শোনা। না হলে পরে পস্তাবি।

মিলি: তুই একটু বেশি বেশি! fantasy choti

হিমি: ওকে…. তাহলে কবে সেটল করবো ডেট।

মিলি: মানে!

হিমি: ওমা…. তুই তো রাজি। তোর চোখ মুখ অলরেডি লাল হয়ে গেছে। আমি বুঝি না ভেবেছিস?

মিলি: অবশ্যই না! অসভ্য।

হিমি: উফফ। আমি তোর বেস্ট ফ্রেন্ড। আমার কাছে ফ্রি হবি না তো কার কাছে হবি বল! তা তোর স্বামী আসবে কবে?

মিলি: ওর ফিরতে আরো তিন দিন।

হিমি: ওয়াও! তাহলে কালকেই ঠিক করি। আর প্রথম দিনের চার্জ আমার পক্ষ থেকে উপহার। তোকে এক টাকাও দিতে হবে না।

মিলি: বাড়াবাড়ি হচ্ছে কিন্তু।

হিমি: কাল সকালে একদম ফ্রেশ হয়ে তৈরি থাকবি। আর হ্যাঁ, আমি প্রথমে ঘরে ঢুকবো। তারপর তোকে রেডি করে চলে যাব।

মিলি: আমাকে রেডি করে মানে!

হিমি: মানে আমি আগে ঢুকে তোর চোখ বেঁধে ওকে রেখে যাব। কাজ শেষে ও চলে যাবে। তুই ওর চেহারা দেখবি না। এটাই শর্ত।

মিলি: উফফ। আমি করবো না! ভয় করে! fantasy choti

হিমি: ওলে বাবা! এখনও তুই কি কিশোরি আছিস! বয়স তো সাতাশ আঠাশ হল!

মিলি: তো কী হয়েছে! আমি পারবো না।

হিমি: একশো বার পারবি। এখন আমি গেলাম,….। কাল ঠিক দশটায় হাজির হবো ওকে নিয়ে। তৈরি থাকবি।

মিলি: তৈরি থাকবো মানে। আমার এখুনি বুক ঢিপঢিপ করছে।

হিমি: আরে এটাই তো মজা। সাসপেন্স। ইশশ…. কী যে ফিল করবি তুই।

মিলি: উমমম…. না… নারে। থাক।

হিমি: চুপ! কাল দশটায়। তৈরি থাকবি।

মিলি: তৈরি থাকবো কিভাবে?

হিমি: বুঝিসনি ! গাধা। ক্লিন থাকবি। মানে একদম পরিষ্কার। চান টালও করবি। তারপর বুঝবি কেন বলেছি।

মিলি: আমার ভয় করছে।

হিমি: ভয় করুক। ভয়ের মাঝেই মজা। ওকে গেলাম বাই। fantasy choti

রাত দশটা। ডিনার খেয়ে বিছানায় শুয়ে চোখ বন্ধ করে পড়ে আছে মিলি। ঘুম যে আসবে না সেটা জানা কথা। বুকটা ঢিপ ঢিপ করছে। ভয়, আনন্দ আর অপরাধবোধ একসঙ্গে মিলে মিশে অদ্ভুত এক অনুভূতি। নিজের স্বামীকে ছেড়ে অন্য পুরুষ এভাবে তার চিন্তার জগত দখল করে রাখবে, এটা একেবারেই ভাবেনি সে। হিমিটাও বেশি বেশি। এমনভাবে বলল, মিলি কিছুতেই চিন্তাটা ঝেড়ে ফেলতে পারছে না। কেবলই মনে হচ্ছে সে একটা ফাঁদে পড়ে গেছে। ফাঁদে পড়ে যাওয়া নরম কচি একটা পাখি মনে হচ্ছে।

মনে হচ্ছে অদৃশ্য কেউ তাকে নিয়ন্ত্রণ করতে শুরু করে দিয়েছে। এই যেমন একটু আগেই বাথরুমে গিয়ে নিজেকে পরিষ্কার করেছে। অনেক দিন খেয়াল করা হয়নি। আজ দেখলো। বাহুর নিচে গজিয়ে ওঠা হাল্কা চুল, আর তলপেটেও। দুটোই পরিষ্কার করেছে সময় নিয়ে। করার সময়ও অপরাধবোধ জাপটে ধরেছিল ওকে। ভাবছিল, ইসসস, নিজের স্বামী ছাড়া অন্য এক পুরুষের জন্য নিজেকে তৈরি করছি আমি! কাল সকালে যেন আমি নিজেকে আরেকজনের হাতে সঁপে দিতে বাধ্য। এসব কী করছি! উফফ…. কেন…. কী দরকার ছিল এসবের? fantasy choti

তবে হিমির কথাটা বেশ কাজে আসছে। যে পুরুষ আসবে, মিলি তাকে দেখবে না। না দেখলে মনে হবে কিছুই তো হয়নি। কিন্তু চোখ বাঁধা থাকলে কীভাবে কী করবে সে। নাহ…. ভাবতে গিয়ে পারছে না। বুকের ঢিপঢিপানিটাই বাড়ছে শুধু। কখন যে মিলি ঘুমিয়ে পড়েছিল জানে না। ঘুম ভেঙেছে সকাল আটটায়। ধড়ফড় করে বিছানা ছাড়লো। ছোট্ট দুই রুমের ফ্ল্যাট। তাও মনে হলো কত কাজ বাকি। কত কিছু গোছাতে হবে। আজ তো বিশেষ একটা দিন! হিমির তিনটা মিসকল দেখে আগে তাকে ফোন করল।

হিমি: কীরে! ঘুম ভাঙলো!
মিলি: হুম।
হিমি: ঠিক দশটায় আসছি কিন্তু।
মিলি: উমমম… ইয়ে… মানে…।

হিমি: একদম চুপ। তৈরি হয়ে থাকিস।
মিলি: উফফ।
হিমি: রাখলাম বাই। fantasy choti

বিছানা ছাড়লো মিলি। আয়নায় নিজেকে দেখলো। এখনও সে নিশ্চিত নয় যে চার বছরের সংসার করে আসা স্বামী ছাড়া আরেকজনের সঙ্গে সে ঘনিষ্ঠ হবে কিনা। মনের ভেতরের একটা অংশ এখনও সায় দিচ্ছে না। তবে সেটা যে দুর্বল অংশ তা প্রমাণ হলো একটু পরেই। চান করতে বাথরুমে ঢুকলো মিলি। আয়নায় দেখলো নিজেকে। আজ বড্ড বেশি কোমল মনে হচ্ছে নিজেকে। শরীরটাকেও মনে হচ্ছে তুলোর মতো। হাত দিয়ে বাহু টিপে দেখলো…. নাহ মাখনের মতোই নরম।

আজ কি তবে এই নরম মাখনের দলাটা শক্ত একটি হাতের খেলনা হবে? ভাবতেই মনের মধ্যে শিরশিরে একটা অনুভূতি টের পেল মিলি। উফফ…. কী ভয়ানক…. কী আনন্দ…. কী নিষিদ্ধ এক অনুভূতি। অনেক সময় নিয়ে চান করলো। গাটা এরমধ্যেই গরম হয়ে গেছে। জ্বর নয়। টেনশন…. উত্তেজনা। এমন অনুভূতিতে শরীর এমনিতেই একটু গরম গরম হয়। কী পরবে মিলি? আলমারি খুলে শাড়ি ব্লাউজ বের করলো। ব্রা কি পরবে? ব্লাউজ পরলে কোনটা পরবে? fantasy choti

স্বামীর সামনে কী পরবে সেটা নিয়ে সে কোনোদিন ভাবেনি। অশালীনভাবে নিজেকে কখনও মেলেও ধরেনি। কিন্তু আজ কেন যেন মনে হচ্ছে তাকে বিশেষভাবে সাজতে হবে। কেন মনে হচ্ছে তা জানে না মিলি, হয়তো জানতে চায় না। শেষে সাদা রঙের ব্রার সঙ্গে একটা স্লিভলেস ব্লাউজ পরে নিল। ফর্সা চঞ্চলবতী শরীরে বেশ মানিয়ে গেল সেটা। এরপর বাঙালিয়ানা ধাঁচে পেঁচিয়ে নিল একটা লাল শাড়ি। কপালে বসিয়ে দিল টিপ। ঠোঁটে হালকা লিপস্টিক ঘষে নিল। সকালের খাবার শেষ করতে করতে বেজে গেল সাড়ে ৯টা।

সময় ঘনিয়ে এসেছে। হিমি আসলো বুঝি। আর তার সঙ্গে! নাহ….উত্তেজনায় মিলির দম বন্ধ হয়ে আসছে। দশটা বাজার দশ মিনিট আগেই কলিং বেল বেজে উঠলো! ধড়ফড় করে উঠে বসলো মিলি। পা দুটোর উপর আর যেন নিয়ন্ত্রণ নেই ওর। এক ছুটে গিয়ে দরজা খুলতেই তাকে ধাক্কা দিয়ে ভেতরে ঢুকিয়ে দিল হিমি। fantasy choti

হিমি: চল, ভেতরে চল। তোর রুমে চল। ও পরে ঢুকবে।
মিলি কিছু বুঝে ওঠার আগেই তার হাত ধরে তার বেডরুমে নিয়ে গেল হিমি। দরজার আড়ালে থাকা কাউকে দেখার সুযোগই পেল না। অবশ্য শর্ত অনুযায়ী মিলিরও কেন যেন চেহারা দেখতে ইচ্ছে হলো না।

হিমি: শান্ত হয়ে বোস। একদম ঘাবড়াবি না।
মিলি: আচ্ছা আচ্ছা।
হিমি: দাঁড়া, আমি নিয়ে এসেছি।
মিলি: কী!

হিমি: তোর চোখ বাঁধতে হবে না! কালো কাপড় নিয়ে এসেছি।
মিলি: আমার ভয় করছে।
হিমি: ইশশ। ভয় করলে একেবারে সেজেগুজে বসে আছিস কার জন্য শুনি! তাও আবার স্লিভলেস ব্লাউজও পরেছিস। নে চুপটি করে বস। fantasy choti

মিলিকে আর কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে হিমি তার ব্যাগ থেকে কালো একটা পট্টি বের করে বেঁধে দিল মিলির চোখ। বাধা দিলো না মিলি। শুধু একটা হাত বুকের কাছে চেপে ধরে রাখলো। স্বাভাবিকের চেয়ে একটু জোরেই ওঠানামা করছে বুকটা আজ। তবে ঘামছে না। এসি চলছে। পরনের সিল্কের শাড়িটা তার পছন্দের। ওটা আজ গায়ে কেমন যেন এক চিলতে কাপড়ের মতো সেঁটে আছে। মিলির মনে হচ্ছে সে উন্মুক্ত হয়ে গেছে। ভীষণ লজ্জাও করছে এখন। হিমি উঠে চলে গেলো। ড্রয়িং রুমে তার গলা শোনা গেল। পুরুষটির কণ্ঠ চাপা।

তবে পরিষ্কার বোঝা গেল না। ঢোক গিলল মিলি। নিজের বাসায় নিজের বেডরুমটাকেই এখন তার মনে হচ্ছে অজানা অচেনা পরিবেশ। যে বেডরুমটা ছিল এতদিন তার আর তার স্বামীর, আজ মনে হলো যেন সেটা অন্যের অধিকারে চলে গেছে। মিলির হাত পা কেমন অসাড় হয়ে আসছে। শব্দ শুনেই সচকিত মিলি। কেউ একজন রুমে ঢুকেছে। তার বেডরুমে! অন্য পুরুষ! মিলি আড়ষ্ট হয়ে গেলে খানিকটা। নিজের অজান্তেই যেন ডান হাতটা চলে গেল বাম বাহুতে। নিজের নগ্ন বাহু খানিকটা খামচে ধরলো। fantasy choti

লোকটা চুপচাপ দাঁড়িয়ে আছে বোঝা গেল। হাল্কা একটা পারফিউমের ঘ্রাণ। লোকটা সামনে এসে দাঁড়ালো। কিছু না দেখলেও সব বুঝতে পারছে মিলি। লোকটা কিছু বলছে না। বোধহয় মিলিকে দেখছে। স্লিভলেস ব্লাউজে ডানা কাটা পরীর মতো দেখাচ্ছে মিলিকে। ফর্সা বাহু দুটোর দিকে নিশ্চয়ই নির্লজ্জের মতো তাকিয়ে আছে লোকটা। মিলির বুকের ধড়ফড়ানি বেড়ে যাচ্ছে। কী হবে কী হবে এখন! মিলি তার অজান্তেই যা ভেবে ফেলেছে, লোকটা কিছু করছে না কেন! সঙ্গে সঙ্গে আবার অপরাধবোধ…. তার স্বামী আছে।

fantasy chotiআহা স্বামী! মিলির মন আবার বলছে, যাহ…. একটা দিনই তো। এমন সময় স্পর্শ! লোকটা মিলিকে ছুঁলো। কুঁকড়ে গেল মিলি। খানিকটা কেঁপেও উঠলো। লোকটা দুই হাত দিয়ে মিলির দুই বাহু চেপে ধরেছে। তবে জোরে নয়। আলতো করে। এই প্রথম অজানা অচেনা কোনো পুরুষ মিলির দুই নগ্ন বাহু স্পর্শ করলো। স্বামী ছাড়া এই প্রথম কোনো পুরুষের স্পর্শ। মিলি বার বার শিউরে উঠছে। লোকটা আলতো করে হাত নামিয়ে আনলো। মিলি একটু দম নিল। fantasy choti

একটু পর আবার ধরলো। মিলি ভাবছে, লোকটা নিশ্চয়ই মেয়েদের নগ্ন বাহু পছন্দ করে। এ জন্য বারবার ছুঁয়ে দেখছে।
‘হাত উপরে তুলুন।’
চমকে উঠলো মিলি। পুরুষালী কণ্ঠ। কেমন যেন নির্দেশ আর অনুরোধের মতো শোনালো। মিলি যেন এখন তার খেলনা। যা বলতে তাই করতে হবে তাকে। মিলি আড়ষ্ট হয়ে গেল।

‘দুহাত উপরে তুলুন।’
মিলি কিছু বললো না। জড়তা কাটছে না তার। হাত দুটো কিভাবে উপরে তুলবে বুঝতে পারছে না। একটু খানি উঁচু করলো দুই হাত। সঙ্গে সঙ্গে নির্দেশদাতার আপত্তি।
‘উঁহু। এভাবে নয়। আচ্ছা শুধু ডান হাত উঁচু করে তুলে ধরুন। একদম উঁচু করে।’

মিলির তার নিজের বুকের ঢিপঢিপ শব্দ নিজেই শুনতে পাচ্ছে। চিনচিনে একটা অনুভূতি। ডান হাত উ্পরে তুললে কী হবে সেই টেনশনের অনুভূতি এটা। তবে এবার আর ভুল হলো না। মিলি ডান হাত ধীরে ধীরে তুললো। একেবারে উঁচু করে। তার বাহু, বাহুর তলা সব উন্মুক্ত লোকটার সামনে। অচেনা লোকটা, যে তার স্বামী নয়, তার সামনে। মিলির লজ্জা হলো। মাথা খানিকটা নিচু করলো। আবার লজ্জাকে ছাপিয়ে যাচ্ছে উত্তেজনা। লোকটা আর দেরি করলো না। এগিয়ে আসলো। মিলি লোকটার নিশ্বাসের শব্দ পাচ্ছে। fantasy choti

একটু পর ডান বাহুর বগলে ভেজা ভেজা একটা অনুভূতি। শিরশির করে উঠলো মিলির সারা শরীর। লোকটার জিভ মিলির ডান হাতের বগলের তলায়। লোকটা তার জিভ চেপে ধরে রেখেছে। মিলির সঙ্গে সঙ্গে বুকটা গুমরে উঠলো। স্বামী ছাড়া অচেনা লোকের সঙ্গে সেক্স হচ্ছে তার। কিন্তু এতো সেক্সের চেয়েও বেশি কিছু। রীতিমতো নোংরামো হচ্ছে। মিলি জোর করে শ্বাস নিল। লোকটা তার জিভ সরাচ্ছে না। চাটছেও না। ধরে রেখেছে। মিলি ঘন ঘন নিশ্বাস নিচ্ছে। লোকটা আলতো করে চাটলো।

কেঁপে উঠলো মিলি। সুড়সুড়ি লাগলেও অন্যরকম এক আনন্দের কাছে হার মানলো সেটা। মিলির মনে মিশ্র অনুভূতি। লোকটা তার আন্ডারআর্ম চাটছে। এমন সুখ সে আগে কখনও পায়নি। আবার মনে হচ্ছে লোকটা তাকে ইউজ করছে। তার ইচ্ছামতো। মিলি যেন একটা আইসক্রিম। চেটে চেটে খাচ্ছে লোকটা। মিলি অন্যের স্ত্রী। এটা জেনেও লোকটা তাকে এভাবে….।
-দেখি এবার এদিকে ফিরুন। fantasy choti

লোকটার কথা আদেশের মতো শোনালেও। এমন আদেশ যেন মিলির কাঙ্ক্ষিত। মিলি কি চাইছে অচেনা লোকটা তাকে কন্ট্রোল করুক? কে জানে। মিলি এখন এক অদ্ভুত ঘোর লাগা পরিস্থিতিতে আছে। বুক টিপটিপ করছে এখনও। লোকটা কোমরে হাত রেখে মিলিকে ডান পাশে ঘোরালো। চোখে কালো কাপড় বাঁধা থাকায় মিলি বুঝতে পারছে না কিছুই।
-এবার এ হাত তুলুন।

যন্ত্রের মতো বাম হাত উপরে তুলল। ধীরে ধীরে। সংকোচ হচ্ছে খুব। আবার না তুলেও পারছে না। এবার বাম পাশের বগল ও আর বাহুর নিচের দিকটা চাটতে শুরু করলো লোকটা। মিলি ভেবেছিল, নিয়মমাফিক প্রথমে চুমু, পরে বুকে হাতটাত দেবে। কিন্তু না সেসব বোধহয় আরো পরের ধাপে। পরের ধাপের কথা মাথায় আসতেই আবার শিরশিরে অনুভূতি। যে লোক দশ মিনিট ধরে শুধু তার বগলতলা চাটছে, সে যে পরে মিলির চঞ্চলবতী যৌবনে ভরা নরম শরীরটাকে নিয়ে কী করবে! মিলি সত্যিই কিছু ভাবতে পারছে না। চাটা থামলো। fantasy choti

লোকটা এবার মিলির সামনে। কোমরে হাত দিয়ে ধরে মিলিকে এদিক ওদিক ঘোরালো। মিলিকে বিছানায় বসালো। স্লিভলেস বাহু আঁকড়ে আছে লোকটার পুরুষালী হাত। মিলির ভাবছে তার স্বামীর কথা। আহারে বেচারা। তার বিয়ে করা বউটা এখন অন্যের হাতের পুতুল। বউয়ের বাহু খামছে ধরে আছে অচেনা এক জোড়া হাত। নিশ্বাসের শব্দ। খুব কাছে। মিলি জানে কী ঘটতে চলেছে। মিলির চিবুকের কাছে এসে বাড়ি খেল লোকটার নিশ্বাস। মিলির ঠোঁট কাপছে। সেই বিখ্যাত স্পর্শের জন্য তৈরি হচ্ছে তার ঠোঁট।

কিন্তু একি! এবারও ভেজা অনুভূতি! উফফ। সঙ্গে সঙ্গে মিলির নিজেকে মনে হলো সে একটা রাস্তার বেশ্যা। লোকটা তাকে ইচ্ছেমতো ব্যবহার করছে। যেন মিলি এখন কারো স্ত্রী নয়, এক পরপুরুষের খেলনা! লোকটার জিভ মিলির ঠোঁটের আগায়। লোকটা চুমু দেয়নি। মিলির ঠোঁট চাটছে। মিলি তার ঠোঁটজোড়া চেপে আছে। তা না হলে লোকটার জিভ তার মুখের ভেতরই ঢুকে যাবে। লোকটা আইসক্রিমের মতো করে চাটছে। যাকে বলে রীতিমতো লেহন করা। মিলির মনে হলো সে পরাজিত। fantasy choti

তাকে লোকটা চেটেপুটেই খাবে আজ। নিজেকে পরাজিত ভাবার মাঝেও মিলির বুকের গভীরে একটা পুলক খেলে গেল। খাক, মিলিকে চেটেপুটে খাক। স্বামীতো কখনও এত সময় ধরে তাকে নিয়ে খেলেনি। আজ না হয় এক পরপুরুষই খেলুক। জিভ চাটা শেষে লোকটা আবার মিলিকে দাঁড় করালো। ধীরে ধীরে মিলির পিঠে খেলা করতে লাগলো লোমশ হাত। শাড়ির একটা প্রান্ত ধরলো। ধীরে ধীরে প্রান্তটাকে ঘুরিয়ে সামনে নিয়ে এলো। মিলির বুকের নিরাপত্তায় এখন শুধু কালো একটা লো কাট ব্লাউজ।

শাড়িটা পেঁচিয়ে কোমর পর্যন্ত খুলল লোকটা। কোমরে গুঁজে রাখা শাড়ির ভাঁজটাকে ওঠালো। খুব ধীরে ধীরে। মিলি টুঁ শব্দটিও করছে না। সে শুধু তির তির করে কাঁপছে। যেন ফাঁদে পড়া পাখি। শাড়িটা পায়ের কাছে দলা পাকিয়ে পড়ে গেল। এখন শুধু ব্লাউজ আর পেটিকোট। লোকটার হাত মিলির কোমরে। লোকটা তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছে মিলিকে। মিলির প্রতিটি নিশ্বাসের সঙ্গে তার ৩২ সাইজের বুকটা ওঠানামা করছে। লোকটা বোধহয় লোলুপ চোখে সেই বুকের ওঠানামা দেখছে। খুব কাছ থেকে। fantasy choti

এতদিন অন্য পুরুষের চোখ এড়ানোর জন্য মিলি যে বুকের ওড়না বারবার ঠিক করে এসেছে, সেই মিলির বুক আজ আরেক পুরুষের সামনে হা হয়ে আছে। মিলির অস্বস্তিটা চরমে ওঠার পর যেন লোকটার দেখা থামলো। এরপর একটা হাত উঠে এলো মিলির গলায়। গলা থেকে নামতে নামতে বুকের ঠিক মাঝের উপত্যকায়। মিলি এবার শিউরে উঠলো্। লোকটার হাত থামলো। স্তনে হাত দেয়নি। মিলির বাম স্তনের খানিকটা ওপরে লোকটার ডান হাত। মৃদু চাপ দিল। তাতেই মিলির স্তনবৃন্ত যেন প্রতিবাদে ফুলে উঠলো।

লোকটার বাম হাত মিলির পিঠে চলে গেল। খানিকটা নিয়ন্ত্রণের ভঙ্গিতে চেপে ধরলো মিলির পিঠ। মিলি খানিকটা হড়কে গিয়ে সামনে এগিয়ে গেল। লোকটার বুকের সঙ্গে মিলির বুকের অগ্রভাগ লাগলো বলে। মিলি কাঁপছে। লোকটা তার ডান হাত দিয়ে মিলির বুকের উপরের দিকের নরম জায়গায় মৃদু চাপ দিচ্ছে। কিন্তু মিলির স্তন যেন বিদ্রোহ করে বসেছে। সে চায় লোকটার হাত তার উপরেই আসুক। নিজের প্রতি এক ধরনের রাগ হলো মিলির। পরপুরুষের হাতে স্তনটা নিষ্পেষিত হোক, এমন ভাবনার জন্য। fantasy choti

লোকটা ব্লাউজের কারণে মিলির ক্লিভেজ মানে দুই স্তনের মাঝের উপত্যকা বেশ খানিকটা উন্মুক্ত। লোকটা ধীরে ধীরে সেখানে তার জিভ রাখলো। উত্তেজনায় মিলির মুখ দিয়ে অজান্তেই বেরিয়ে এলো ‘আহ!’ লোকটা আবারো অসভ্য ভাবে আইসক্রিম খাওয়ার মতো করে মিলির বুকের মাঝে জিভ বুলোতে লাগলো। যেন বুকটা নরম মাখন আর লোকটা সেটা চেটে চেটে খাচ্ছে। মিলির পিঠে লোকটার হাতের চাপ আরেকটু বাড়লো। মিলি আরেকটু এগিয়ে আসতে বাধ্য হলো। লোকটার জিভ আরো জোরে চেপে বসলো মিলির বুকে।

ব্রা পরেনি মিলি। টাইট ব্লাউজটাই ব্রার মতোই ছিল। লোকটা এবার নাক ঘষতে শুরু করলো। মিলির বুকের ঢিপঢিপ শব্দটাও বোধহয় সে শুনতে পাচ্ছে। একটু পর থামলো লোকটা। বড় বড় শ্বাস নিচ্ছে মিলি। যেন তাকে একটু বিরতি দিল। কিন্তু বেশিক্ষণ না। লোকটার দক্ষ হাত মিলির ব্লাউজের হুক খুলতে বেশি সময় নিল না। মিলির এবার লজ্জা করলো। অদ্ভুত এক অনুভূতি। মনের একটা অংশ চাইছে খুলুক, আরেকটা বারণ করছে খুব। ততক্ষণে ব্লাউজের স্ট্র্যাপ কাঁধের দুপাশে নেমে গেছে। এই বুঝি উন্মুক্ত হলো স্তন। কিন্তু না। fantasy choti

লোকটা আবারও জিভ বুলোতে লাগলো স্তনের উপরের দিকে বুকের নরম অংশে। মিলি শিউরে শিউরে উঠছে। লোকটা থামলো আবার। এবার দুহাতে একটু আদরের ঢঙে নামিয়ে আনলো মিলির ব্লাউজ। মিলির স্তনজোড়া যেন খুব অভিমান করেছে। এভাবে পরপুরুষের সামনে অনাবৃত হয়ে যাওয়ায়। মিলির নিশ্বাস দ্রুততর। লোকটার ডান হাত এগিয়ে আসছে। বুঝতে পারছে মিলি। বাম স্তন আলতো করে ছুঁলো। এরপর যেন নরম একটা তুলোর বল টিপছে এমন করে চাপ দিলো লোকটা। মিলি কেঁপে উঠলো। যেন তার সব শেষ।

সব পেয়ে গেলো অচেনা লোকটা। চোখ বাঁধা মিলি যার চেহারাটাও দেখলো না। লোকটা স্তন হাতে বেশ পটু। দুহাতে দুই স্তন ধরে আলতো করে টিপছে। মাঝে সামান্য জোরেও টিপছে। আর তখন মিলির মুখ দিয়ে বেরিয়ে আসছে ‘আহ’। লোকটা এবার ত্রস্ত হাতে মিলির পেটিকোটে মনোযোগ দিল। মিলিরও যেন তর সইছে না। সব খুলে যাক। সব বাঁধন খুলে যাক। মন বলছে, সব ন্যাংটো হয়ে যাক স্বামী ছাড়া অন্য এক পুরুষের সামনে। মিলি অপেক্ষা করছে। মিলি এখন পুরো নগ্ন। পরপুরুষের সামনে। স্বামীর সামনে হতো এতদিন। fantasy choti

তবে সেটা অন্ধকারে। রাতে, বিছানায়। এখন দিনের বেলায়। উজ্জ্বল আলোয়। লোকটা গিলে খাচ্ছে মিলির ভরাট শরীরটাকে। মিলির চোখ বাঁধা। লোকটা কী কী দেখছে তা সে বুঝতে পারছে না। মিলি সটান দাঁড়িয়ে। দুইহাত দুপাশে রাখা। লোকটা তার হাত দুটোকে কোমরে ধরে রাখতে বলেছে মিলি তাই রেখেছে। লোকটার নির্দেশ মতো দু পা কিছুটা ফাঁক করে দাঁড়িয়েছে মিলি। মানে তার যৌনাঙ্গটাও এখন উন্মুক্ত লোকটার চোখের সামনে। লোকটা একবার সামনে, একবার পেছন থেকে ঘুরে ঘুরে মিলিকে দেখছে।

‘বাহ!’

fantasy chotiলোকটার প্রশংসা শুনে লজ্জায় আরো কুঁকড়ে গেল মিলি। তবে কোমর থেকে হাত সরায়নি। পাও ফাঁক করা আছে। যেন ফ্যাশন শো হচ্ছে। তবে পার্থক্য হলো এখন একটা সুতোও নেই মিলির শরীরে। লোকটা মিলির পেছনে গিয়ে দাঁড়ালো। পেছন দিক থেকে ঘাড়ে হাত রাখলো। শিউরে উঠলো মিলি। চিবুক খানিকটা উপরের দিকে মেলে ধরলো। লোকটা ঘাড়ের দুপাশে আলতো করে চাপ দিল। মিলির ঘাড় টিপছে। কেমন যেন সুড়সুড়ি একটা অনুভূতি হলো। ভালো লাগছে ভীষণ মিলির। fantasy choti

লোকটা ধীরে ধীরে তার লোমশ হাতদুটো পেছন দিক থেকে মিলির ফাঁক করা বগলতলা দিয়ে ঢুকিয়ে দিল। পেছন দিক থেকে লোকটার পুরুষালী দুটো হাত মিলির দুই স্তন চেপে ধরলো। এবার টেপার পালা। মিলি তৈরি। তার শরীরও তৈরি। লোকটা আয়েশ করে আস্তে আস্তে মিলির স্তন টিপছে। মিলির শরীর কুঁকড়ে কুঁকড়ে আসতে লাগলো ক্রমশ। লোকটা মিলির ঘাড়ের কাছে নিশ্বাস ফেলছে। এবার জোরে জোরে টিপছে।

‘আহ…. আহ…. আহ’

নিজের গলার ওপর এখন আর নিয়ন্ত্রণ নেই মিলির। মুখ দিয়ে অনবরত বের হচ্ছে সুখে শীৎকার।

‘উহহ উহহ আহহ।’

‘উমমম…. বেবি। কেমন লাগছে এখন।’

‘ভালো। উহহ।’ fantasy choti

বেহায়ার মতো কথাটা বলে ফেলল মিলি। লোকটা থামলো না। একবার এক হাতে স্তন টিপছে, অন্য হাতে মিলির আন্ডার আর্ম চটকে দিচ্ছে। পালাক্রমে দুই স্তনে এভাবে চললো দশ মিনিট। সুখের জোয়ারে মিলি খানিকটা সামনের দিকে ঝুঁকেও গেছে ততক্ষণে। লোকটা সামনে এলো। উবু হয়ে বসলো। মিলিকে সোজা হয়ে আবার দাঁড় করালো। দুই হাত বসিয়ে দিল কোমরে। আবারও পা ফাঁক করে দাঁড়াতে বাধ্য হলো মিলি। এবার লোকটা বসে পড়লো মিলির সামনে। মিলি তিরতির করে কাঁপছে।

সে বুঝতে পেরেছে এবার লোকটা তাকে মেরেই ফেলবে। মিলির ভেজা যৌনাঙ্গে আরেকটি ভেজা স্পর্শ। লোকটার জিভ। চাটছে না। বসিয়ে রেখেছে। যেন অনুমতি চায়। মিলির হাত তার অজান্তেই চলে গেল লোকটার মাথায়। চাটতে শুরু করলো লোকটা। মিলির ক্লিটোরিসে লোকটার জিভ। অজানা অচেনা এক পরপুরুষের জিভ মিলির যৌনাঙ্গে। মিলি শিউরে শিউরে উঠছে। আচমকা বন্ধ হলো চাটা। লোকটা এবার মিলিকে পাঁজাকোলা করে তুলে নিল দ্রুত। নগ্ন মিলি এখন লোকটার কোলে। fantasy choti

লোকটার এক হাত মিলির ন্যাংটো নিতম্ব স্পর্শ করে আছে। লোকটা কি মিলিকে এখন বিছানায় শোয়াবে? মিলি ভাবছে। কিন্তু না। লোকটা তাকে কোলে নিয়ে দোলাচ্ছে। যেন মিলি তার বিয়ে করা বউ। অথচ সে তো পরপুরুষ। মিলি লোকটার গলা জড়িয়ে ধরলো। তা না হলে ব্যালেন্স রাখতে পারছিল না। লোকটা মুখ নামিয়ে মিলির বুকে চুমু খেলো। মিলিকে কোলে করে নিয়ে গেল ড্রয়িং রুমে। সেখানে সোফায় বসালো মিলিকে। মিলির চিবুকে হাত রাখলো। মিলি বুঝতে পারছে না কী ঘটবে এখন।

জিপারের শব্দ শুনে বুঝলো লোকটা তার প্যান্ট খুলছে। মিলির গা হিম হয়ে গেল। এখন উপায়? লোকটা মিলির চিবুক ধরে তার মুখটাকে সামনের দিকে রেখেছে। মিলি মাথা নিচু বা ডানে বামে সরাতে পারছে না। একটু পর গরম মাংসপিণ্ডের স্পর্শ মিলির মুখে। লোকটার উত্তপ্ত পুরুষাঙ্গ মিলির নাকে মুখে গালে বাড়ি খাচ্ছে। ঘষা খাচ্ছে। মিলির ঠোঁটের ওপর কিছুক্ষণ পুরুষাঙ্গের আগা ঘষলো লোকটা। তারপর গালের দুপাশে চাপ দিতেই হা হয়ে গেল মিলির মুখ। মিলি এমনটা মোটেও চায়নি। fantasy choti

কিন্তু উপায় নেই। নাচতে নেমে ঘোমটা দেওয়া অন্যায়। উত্তপ্ত পুরুষাঙ্গটা মুখে পুরে নিল মিলি। কখনও স্বামীরটা মুখে নেয়নি ও। অনেকবার চেষ্টা করেছিল ওর স্বামী। কিন্তু মিলির প্রতিবাদের মুখে পারেনি। এখন কোথায় গেল সেই প্রতিবাদ। পরপুরুষের পুরুষাঙ্গ মিলিকে মুখে নিতে হলো স্রেফ নিজের যৌন সুখের জন্য। কিছু যেন করারও ছিল না। মিলি জানে কিভাবে চুষতে হয়। এটা শিখিয়ে দিতে হয় না। লোকটা তাও মিলির মাথায় চুল মুঠো করে ধরে মাথাটাকে সামনে পেছনে সরাচ্ছে।

মিলির জিভ ঘষা খাচ্ছে লোকটার পুরুষাঙ্গের নিচের ফুলে ওঠা রগে। কতক্ষণ এভাবে চুষলো মিলি জানে না। তবে তার মনে হচ্ছে সে অনন্তকাল এভাবে চুষে যেতে পারবে। পুরুষাঙ্গ চুষতেও এক অদ্ভুত আনন্দ গ্রাস করলো তাকে। এরপর যথারীতি লোকটা তাকে আবার কোলে করে নিয়ে গেল বেডরুমে। যে বেডরুমে মিলি ও তার স্বামীর থাকার কথা, সেখানে এক পরপুরুষ নগ্ন মিলিকে বিছানায় ফেলে পিষতে শুরু করলো বর্বরের মতো। যেন মিলি একটা মশলা। fantasy choti

লোকটা তাকে পিষছে। পিষে পিষে আরো নরম করছে, তরল হচ্ছে মিলি। তার যৌনাঙ্গের দেয়ালে উত্তপ্ত এক পুরুষাঙ্গের ঘর্ষণে ঘর্ষণে মিলি ক্রমশ পরাজিত হচ্ছে।

‘উহহআহহ…. মাগো….আস্তে’

এসব শব্দ মিলির নিজের কানেআর অচেনা ঠেকছে না। লোকটাও জোরে জোরে হাঁপাচ্ছে। একসময় গরম লৌহদণ্ডটা একরাশ লাভা ত্যাগ করে থামলো তার ভিতরে। তবে শান্ত হলো না। মিলির মুখে চরম তৃপ্তির ছাপ না আসা পর্যন্ত চলতে থাকলো মর্দন, ঘর্ষণ আর ভেতর-বাহির।এ কটা পর্যায়ে পুরো শরীরটাকে উপচে পড়তে দিল মিলি। চোখ বুজে বুজে আসলো তার। শান্ত হলো। লোকটা কখন চলে গেছে টের পেল না মিলি। সে নিজে চোখ বাঁধা অবস্থায় পুরো নগ্ন হয়ে বিছানায় পড়ে রইল অনেক্ষণ।

সমাপ্ত

বাবার প্রোমোশানের জন্য মায়ের ইজ্জত

Leave a Comment