maa chhele romance মহুয়ার মাধুর্য্য- 5 by Rajdip123

bangla maa chhele romance choti. রাগের মাথায় বেরিয়ে গেলো, কোথাও কিছু বিপদ না ঘটিয়ে বসে। গভীর চিন্তায় পরে গেলো মহুয়া। সত্যি ওর এমন না করাই উচিৎ ছিল হয়ত। এইদিকে অনিমেষদাও মন খারাপ নিয়ে চলে গেলো। হটাত করে মহুয়ার মনে পরে গেলো রণের কিনে দেওয়া নতুন মোবাইল ফোনটার কথা। দৌড়ে গিয়ে নতুন ফোনটার থেকে ছেলেকে রিং করলো মহুয়া। কিন্তু বৃথাই হল মহুয়ার চেষ্টা, রণের মোবাইল সুইচ অফ বলছে। তাহলে কি রণের কিছু অঘটন ঘটেছে? মহুয়ার মনে কুচিন্তা বাসা বাঁধতে শুরু করলো, রণের দেরী দেখে।

সব কিছুর জন্য শুধু নিজেকে দায়ী মনে করতে শুরু করলো মহুয়া। কেন সে রণকে রাগাতে গেছিলো, যদি এখন রণের কোনও দুর্ঘটনা ঘটে, তাহলে সে কোনদিনই নিজেকে ক্ষমা করতে পারবেনা। এমন চিন্তা করতে করতে কেঁদে ফেলল মহুয়া। যতই হোক মায়ের মন বলে কথা, একমাত্র সন্তানের জন্য তো উতলা হবেই। রণের জন্য ঠাকুরের কাছে প্রার্থনা করতে করতে কখন যে দুপুর গড়িয়ে বিকেল হয়ে গেছে বুঝতে পারেনি মহুয়া।

maa chhele romance

অনেক বার চেষ্টা করেছে মাঝে রণকে ফোনে ধরার, কিন্তু বার বার সেই একি আওায়াজ ভেসে এসেছে অন্যপ্রান্ত থেকে, সুইচ অফ।
রাত তখন প্রায় সাড়ে নয়টা, বাড়ির বাইরে হটাত বাইকের শব্দ পেয়ে দৌড়ে বেরিয়ে আসলো মহুয়া। ঠিকই ভেবেছে মহুয়া, রণের ই বাইকের আওয়াজ। সারাদিন পরে রণ কে দেখে নিজেকে আর ধরে রাখতে পারলনা মহুয়া। পা দুটো তখন রিতিমতন কাঁপছে মহুয়ার। রণ বাইক টা রেখে এগিয়ে আসছে ওর দিকে। মহুয়া আর অপেক্ষা করতে পারলনা।

দৌড়ে গিয়ে রণকে জড়িয়ে ধরে ঘরে ঢুকিয়ে সশব্দে বাড়ির দরজা বন্দ করে দিল, বাড়ির ভেতর থেকে। এতক্ষণ একটাও কথা বলেনি রণ মহুয়ার সাথে। দরজা বন্দ করেই মহুয়া ছুটে গিয়ে ঝাপিয়ে পড়ল রণের চওড়া বুকে। বাচ্ছা মেয়ের মতন রণের বুকে মাথা গুঁজে ডুকরে কেঁদে উঠলো মহুয়া। রণের চুলের মুটি ধরে ওর মুখটা নামিয়ে এনে ওর গালে, চোখে, বুকে চুম্বনে ভরিয়ে দিচ্ছে মহুয়া।

“কোথায় গেছিলি বল আগে? কেন এতো দেরী করেছিস, তুই? একবারও কি মায়ের কথা মনে পড়েনি তোর? এতো রাগ মায়ের ওপর, তোর? তুই কি বুঝিস না কি পরিমান ভালবাসি আমি তোকে? তোকে ছাড়া আমার আর এই পৃথিবীতে কেও নেই রে, আর কবে তুই এই কথাটা বুঝবি সোনা আমার? তোর কিছু হয়ে গেলে আমি কাকে নিয়ে বাঁচব বল? নিজেকে শেষ করে ফেলবো তাহলে আমি, তুই কি এটাই চাষ? সেই সকালে রাগ করে বেরিয়েছিস, মুখটা কেমন শুকিয়ে গেছে”। maa chhele romance

পাগলের মতন চুম্বনে চুম্বনে ভরিয়ে দিচ্ছে নিজের একমাত্র সন্তানকে মহুয়া। “বল তাহলে তুমি, ওই অনিমেষের সাথে ওর বাইকে বসে যাওয়ার কি দরকার ছিল তোমার? আমি কি যাব না বলেছিলাম তোমাকে? তাহলে কেন? বলো তুমি মা, কেন করেছো আমার সাথে এমন? কি করেছিলাম আমি তোমাকে? কেন এমন অন্যায় করেছো তুমি”? কেমন যেন রাগ আর অভিমান মিশ্রিত সুরে কথাগুলো বেরিয়ে আসছে রণের মুখ থেকে। রাগে রণের শরীরের পেশীগুলো ফুলে উঠছে, জোরে জোরে নিঃশ্বাস পড়ছে রণের।

বজ্রকঠিন গলার আওয়াজে মহুয়া ভালোই বুঝতে পারছে, যে ছেলে মারাত্মক রেগে গেছে। কিছু না করে বসে মা কে রাগের মাথায়, শান্ত করতে হবে ওকে। মনে মনে একটু ভয় পেল মহুয়া। হটাত করে রণ মায়ের গলাটা বাঁ হাত দিয়ে পেঁচিয়ে ধরে নিজের ঠোঁট নামিয়ে আনল মহুয়ার উত্তপ্ত ঠোঁটের ওপর। দুই তৃষ্ণার্ত ঠোঁট পরস্পরকে স্পর্শ করার আগের মুহূর্তে থেমে গেলো, কিছুক্ষণ দুজনেরই চোখের পলক স্থির হয়ে আছে, রণ যেন এক নীরব সন্মতি আদায় করে নিতে চাইছে, মহুয়ার চোখের দিকে তাকিয়ে। maa chhele romance

নিজের দুচোখ ধীরে ধীরে বন্দ করে ফেলল মহুয়া, আর রণ যেন অনুমতি পেয়ে গিয়ে পাগলের মতন চুষতে শুরু করে দিল মহুয়ার দারুন আকর্ষণীয় ঠোঁট দুটো। ইসসস…… এটা কি শাস্তি দিচ্ছে রণ মহুয়াকে? এই আদরের মধ্যে দিয়ে তো রাগ ফুটে বেরোচ্ছে।

ভীষণ রকমের বন্য, ভীষণ রকমের আদিম, যেন আজই সব রকমের সামাজিক, মানসিক, দৈহিক বাধা নিষেধ ভেঙ্গে চুরমার করে সাঙ্ঘাতিক ভাবে শাস্তি দিতে চাইছে মহুয়াকে। মহুয়াকে চুম্বনরত অবস্থাতেই গায়ের টিশার্ট কোনোরকমে খুলে দূরে ছুরে দিল রণ। খালি গায়ে রণ, থরে থরে সাজানো মাংসপেশি গুলো যেন আজ ফুঁসে উঠছে। টিউব লাইটের আলোয় ঝলসে উঠলো রণের পেশীবহুল শরীরটা।

ততক্ষণে রণের বাঁ হাত নেমে এসে বিচরণ করতে শুরু করে দিয়েছে মায়ের মসৃণ ঘাড়ে আর খোলা পিঠে, আর ডান হাত দিয়ে নিষ্ঠুরভাবে মায়ের কোমরের মাংসগুলো খামচে ধরে ক্রমাগত চিপে চলেছে। একরকম মহুয়াকে ঠেলতে ঠেলতে দেওয়ালের সামনে এনে দাড় করাল রণ। আর জায়গা নেই মহুয়ার পেছনে যাওয়ার। রণ এটাই চাইছিল। রণ নিজের দেহের সর্বশক্তি দিয়ে মহুয়াকে দেওয়ালের সাথে ঠেসে ধরে নিজের বিরাট বড় পেশীবহুল চেহারা দিয়ে পিষতে শুরু করলো।maa chhele romance

সুখে মাতাল মহুয়া নিজের চোখ বন্দ করে ছেলের আদর কে নীরব সন্মতি জানিয়ে যাচ্ছে। উন্মত্ত রণ কে বাধা দেওয়ার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছে মহুয়া। ছেলের উদ্দাম আদরের সামনে নিজেকে যেন ধীরে ধীরে মেলে ধরতে ইচ্ছে করছে মহুয়ার, বাধা দেওয়ার সমস্ত ক্ষমতা খড় কুটর মতন উড়ে গেছে এই তীব্র ঝড়ের সামনে। মহুয়ার বন্দ ঠোঁট গুলো ঠেলে ভেতরে প্রবেশ করতে চাইছে রণের উত্তপ্ত জিবটা, একটা ভয়াল সরীসৃপের মতন।

নিজের রসে ভরা ঠোঁট আলতো করে ফাঁক করে দিলো মহুয়া, যাতে রণের জিভটা ঢুকতে পারে ওর মুখের ভেতরে। ইসসস…কি করতে চাইছে, ওর দামাল ছেলেটা ওকে? ভাবতে ভাবতে নিম্নাঙ্গ ভিজে চুপচুপে হয়ে গেলো মহুয়ার। ক্ষেপা ষাঁড়ের মতন সর্ব শক্তি দিয়ে মহুয়াকে দেওয়ালের সাথে চেপে ধরে মহুয়ার মুখের মধ্যে প্রবেশ করলো রণের জিভ। এবার দুজনের জিভ একে ওপরের স্পর্শ পেয়ে মাতাল হয়ে মহুয়ার মুখের ভেতরে খেলতে শুরু করে দিলো। ইসসস…কি ভালো লাগছে মহুয়ার। maa chhele romance

মহুয়ার শাড়ির আঁচল কান্ধের থেকে খসে মাটিতে গড়াগড়ি খাচ্ছে। ভারী স্তনগুলো চাপা পড়েছে রণের রণের বিশাল চওড়া দেহের আড়ালে। রণের পিঠের মাংসপেশি গুলোর কম্পন গুলোই বলে দিচ্ছে, কি পরিমান আসুরিক শক্তি দিয়ে মহুয়াকে দেওয়ালের সাথে চেপে ধরে আছে রণ। সামান্য নড়াচড়ার ক্ষমতা টুকুও হারিয়ে ফেলেছে মহুয়া। দুজনের মুখের মিশ্রিত লালায় ভিজে যাচ্ছে দুজনেরই ঠোঁটের চারিদিকটা। মহুয়ার ব্লাউস যেন ছিঁড়ে স্তনগুলো মুক্তি পাওয়ার জন্য ছটপট করছে।

ওফফফফফফ…… কি আসুরিক শক্তি ভর করেছে আজ রণের শরীরে। মহুয়াকে মাঝে মাঝে নিঃশ্বাস নেওয়ার সুযোগ টুকুও দিতে নারাজ রণ। ক্রমাগত চোষণ আর চুম্বনে মহুয়ার ঠোঁট গুলো লাল হয়ে যাচ্ছে। সঙ্গে চলছে হালকা কামড়, মহুয়ার গলায় কাঁধে। “আহহহহহ……ওফফফফ…ইসসস…মাগো দাগ হয়ে যাবে রণ। প্লিস করিস না…লাগছে আমার”, তীব্র শীৎকার বেরিয়ে আসছে মহুয়ার গলার থেকে। যোনি রসে ভিজে যাচ্ছে কুলকুল করে। maa chhele romance

হটাত করে মহুয়ার নতুন কেনা ফোন টা তীব্র আওয়াজে বেজে উঠলো। ব্যাপারটার জন্য দুজনের কেওই তৈরি ছিলনা। হটাত বেজে ওঠাতে, ছিটকে বেড়িয়ে আসলো মহুয়া রণের শরীরের আড়াল থেকে। ফোন টা ধরতেই অন্য প্রান্ত থেকে অনিমেষের গলা পেলো, “রণ এসেছে? কখন আসলো? রণের শরীর ঠিক আছে তো? আরও কিছুক্ষণ এটা সেটা জিজ্ঞেস করে ফোন রাখল অনিমেষ।
ধপ করে মাটিতে বসে পড়ল মহুয়া। যেন একটা ঝর বয়ে গেছে ওর শরীরের ওপর দিয়ে।

এখনো বড় ভারী বুকগুলো ওর প্রতিটা নিঃশ্বাসের সাথে ওঠানামা করছে। কি দামাল ছেলে। হাঁপিয়ে গেছে মহুয়া। সারাদিনের চরম উৎকণ্ঠার পরিসমাপ্তি যে এমন ভাবে ঘটবে, সেটা ঘুণাক্ষরেও ভাবতে পারেনি উদ্ভিন্ন যৌবনা মহুয়া। শরীর টাকে কোনো রকমে টেনে বাথরুমে নিয়ে গেলো মহুয়া। যোনির থেকে যে পরিমানে রসের বন্যা হয়েছে, তা এখনি পরিষ্কার করে ফেলতে হবে। বাথরুমে শাড়ীটা ছেড়ে একটা নাইটি পরে নিল মহুয়া। maa chhele romance

“রণননন……তুই কি আমাকে মেরে ফেলতে চাস রে? কেও এমন করে মায়ের সাথে? লোকে জানলে, কি বলবে বল তো? ইসসস… দেখ তো, দাগ দাগ হয়ে গেছে আমার গলা, বুক, কান্ধ……কি ব্যাথা করছে। এতো জোরে কেও কামড়ায়? তুই আমাকে আদর করছিলি না শাস্তি দিচ্ছিলি রে? মা কে শাস্তি দিয়ে কি একটু রাগ কমলো? নাকি আরও শাস্তি বাকী আছে? যা খুব তাড়াতাড়ি হাত পা মুখ ধুয়ে আগে খাবি আয়, সারাদিন কিছু খাওয়া হয়নি তোর” বলে আয়নার সামনে দাড়িয়ে গলায় বুকে কাঁধে বরফ ঘসতে শুরু করলো মহুয়া।

ধীরে ধীরে বাথ্রুমের দিকে এগিয়ে গেলো রণ। শরীর টা যেন আর চলছে না। সাড়াটা দিন বাইক নিয়ে পাগলের মতন ঘুরে বেড়িয়েছে সে। কোনোরকমে শরীরটাকে টেনে নিয়ে গেলো বাথরুমে। প্যান্ট জাঙ্গিয়া খুলে শাওয়ারের নীচে দাঁড়াল। রণের পুরুষাঙ্গ টা ভয়ঙ্কর ভাবে শক্ত হয়ে দাড়িয়ে আছে। লিঙ্গের মাথাটা ভীষণ জ্বলছে। বিরাট লিঙ্গটা হাতে হাত বুলিয়ে ভালো করে দেখলো, লিঙ্গের মাথাটা লাল হয়ে গেছে। মোটা পুরুশাঙ্গের শিরাগুলো ফুলে ফুলে আছে। লিঙ্গের মাথাটা চামড়া দিয়ে কোনদিনই ঢাকা থাকতো না রনের। maa chhele romance

জিন্স পরে যে ভাবে ঘষাঘসি হয়েছে, ভাবতে ভাবতে মায়ের কথা মনে পড়ে গেলো রণজয়ের। এখনো তার রাগ প্রশমিত হয়নি। হ্যাঁ, শাস্তি দিতে চেয়েছিল মা কে সে। ইচ্ছে করছিলো, মাকে আরও পিষতে, মায়ের যৌবনের সব রস চুষে খেতে। মনে মনে বললো, শাস্তি এখনো বাকী আছে। সবে শুরু হয়েছে। মা ছাড়া আর কারো কথা ভাবতে পারেনা রণ।

মায়ের সব কিছুর ওপর অধিকার শুদু মাত্র তারই আছে, আর কারো না। ভাবতে ভাবতে, বীচির থলেটার ওপর হাত বোলাতে শুরু করলো। লিঙ্গের মাথাটা লাল হয়ে ফুলে একটা বড়সড় পিয়াজের মতন মনে হচ্ছে।
লিঙ্গটা ধরে মৈথুন শুরু করলো রণ। একটা তীব্র সুখে গুঙ্গিয়ে উঠলো রণ। “ওফফফফফফ……মা… এসো আমার কাছে, জড়িয়ে ধরো আমাকে শক্ত করে। আমার বাড়াটা ধরো দুহাত দিয়ে মা।

আমাকে আরও সুখ দাও মা”, বলে গোঙাতে গোঙাতে মৈথুন করতে লাগলো রণ, চোখ বন্দ করে মায়ের রসালো দেহটার কথা ভাবতে লাগলো। বেশ কিছুক্ষণ মৈথুন করার পর ভলকে ভলকে বীর্য ছিটকে ছিটকে বের হতে শুরু করলো। অনেকটা বীর্য বেড়িয়ে যাওয়ার পর, শরীরটা হালকা মনে হতে লাগলো রনের। maa chhele romance

শাওয়ারের জল মাথায় পড়তেই শরীরের সব ক্লান্তি দূর হতে শুরু করলো রনের। কি করছিস এতক্ষণ ধরে বাথরুমে? তাড়াতাড়ি স্নান করে বেড়িয়ে আগে খেয়ে নে, তোর সাথে আমার অনেক কথা আছে রাত্রে।
কিন্তু আজ আর কারো সাথে কথা বলতে ইচ্ছে করছে না রনের। কেমন যেন লজ্জা লজ্জা করছে তার। ইসসসসস…… মৈথুন করার সময় মায়ের কথা মনে পড়ে যাওয়াতে, লিঙ্গটা কেমন যেন আরও শক্ত, আরও মোটা হয়ে উঠেছিল।

মহুয়াকে কল্পনা করে মৈথুন করতে করতে তীব্র একটা সুখে ভরে যাচ্ছিল শরীরটা। মনে মনে মায়ের মায়ের সাথে আদিম যৌন খেলায় মেতে উঠেছিল রণ। বাথরুম থেকে বেড়িয়ে সোজা নিজের রুমে চলে গেলো রণ। কিছুক্ষণ আগেও যা কল্পনা করে মৈথুন করেছিল, সেটা কি আদৌ সম্ভব? কোনোদিনও সম্ভব না। কিন্তু এটা তো মা ও যানে। যেনেও কেন এমন এমন আস্কারা দেয় ওকে? সে তার একমাত্র ছেলে, একমাত্র ভরসার জায়গা বলে কি? নাকি ও যেমন ভাবছে মহুয়াকে নিয়ে, তেমন করে মহুয়াও ভাবছে রণ কে নিয়ে?

মহুয়ার মাধুর্য্য- 4 by Rajdip123

1 thought on “maa chhele romance মহুয়ার মাধুর্য্য- 5 by Rajdip123”

Leave a Comment