maa chhele romance মহুয়ার মাধুর্য্য- 7 by Rajdip123

bangla maa chhele romance choti. মহুয়া রণের পাশ থেকে উঠে চলে যাওয়ার পর আরও কিছুক্ষণ সুয়ে ছিল রণজয়। মনে মনে ঠাকুর কে ধন্যবাদ জানাল, এমন একটা সকাল উপহার দেওয়ার জন্য। কিছু কিছু মনের কথা আজ মা কে বলতে পেরেছে সে, মায়ের চোখ মুখ দেখে মনে হল মা ও মনে মনে খুশী হয়েছে। ওফফফফফ……… কি বিশাল হয়ে আছে রণের সোল মাছের মতন রাক্ষুসে বাড়া টা। নিজের লিঙ্গের দিকে তাকিয়ে, মনে মনে একটু খুশী হল রণ। চোখ বন্দ করে কিছুক্ষণ নিজের পুরুষাঙ্গে হাত দিয়ে ওপর নীচ করতে থাকল, রণ।

মায়ের রসালো শরীর টা চোখের সামনে উঠতেই, বাড়াটা আরও শক্ত হয়ে গেলো রণের। নাহহহহ…এবার উঠতে হবে, অফিসে পৌছতে হবে তাড়াতাড়ি। উঠে ব্রাশ করতে করতে ডাইনিং স্পেসের জানালা দিয়ে বৃষ্টি ভেজা বাইরের দিকে তাকিয়ে থাকল। হটাত খুট করে বাথরুমের ছিটকিনি খোলার শব্দে, বুঝতে পারলো মা বাথরুম থেকে বের হচ্ছে। সদ্য স্নান করা মা কে দেখার লোভটা সামলাতে পারলো না রণ। মায়ের না আসা অব্দি তাকিয়ে থাকল সেই দিকে। বেরিয়ে আসলো উদ্ভিন্ন যৌবনা রূপসী মহুয়া।

maa chhele romance

পাগল করা মহুয়ার রূপ দেখে ঝলসে উঠলো রণের চোখ। ওই টুকু একটা ছোট্ট টাওয়েল কি ঢাকতে পারে, মহুয়ার লাস্যময়ী শরীরটাকে? বুকের কাছে গিঁট বাধা টাওয়েলটা কোনও রকমে আড়াল করে রেখেছে মহুয়ার পীনোন্নত কুচ যুগলকে। টাওয়েলটা বুকের থেকে নামতে নামতে বিরাট চওড়া উঁচু হয়ে থাকা সুডৌল নিতম্ব আর উরুসন্ধিকে ঢেকে, কদলি বৃক্ষের মতন রোমহীন উরুজোড়ার একটু নীচ অব্দি এসে শেষ হয়ে গেছে।

মেঘের মতন কেশরাশি থেকে ফোঁটা ফোঁটা জল মহুয়ার কান্ধ হয়ে স্তনের ওপর এসে টাওয়েলের অন্তরালে মিলিয়ে গেছে। মন্ত্রমুগ্ধের মতন তাকিয়ে থাকল রণ সেইদিকে। মহুয়ার চোখ রণের দিকে পড়তেই লজ্জায় একটু কুঁকড়ে গেলো মহুয়া। “এই ছেলে, কি দেখছিস রে ওমন করে। অন্যদিকে তাকা। অসভ্য কোথাকার। মাকে কি ওমন করে দেখতে আছে”? রণ দৌড়ে এসে দুইবাহু প্রসারিত করে মহুয়ার পথ আটকে দাঁড়াল। maa chhele romance

“দাঁড়াও দাঁড়াও প্লিস……আর একটু দেখতে দাও। ওফফফফ……কি লাগছে গো মা তোমাকে, টসটস করেছে তোমার শরীরটা। ইচ্ছে করছে তোমার ওই চুলের থেকে ঝরে পড়া ওই বিন্দু বিন্দু জলের ফোঁটা গুলো জিভ দিয়ে চেটে মুছে দিতে”। “প্লিস রণ, এখন আবার শুরু করিস না। খুব মারব কিন্তু দুষ্টুমি করলে, যা তাড়াতাড়ি ফ্রেশ হয়ে নে। অফিসের দেরী হয়ে যাবে”। বলেই, রণের দিকে একটা দুষ্টুমি ভরা তির্যক বাঁকা চোখের চাউনি দিয়ে, রণের প্রসারিত হাতের নীচ দিয়ে গলে কোনোরকমে নিজের রুমে ঢুকে পড়ল সুন্দরী মহুয়া।

রন ঘুরে দাড়িয়ে মহুয়ার চলে যাওয়ার দিকে তাকিয়ে, মহুয়ার ভারী গোলাকার নিতম্বের দুলুনি দেখতে লাগলো। ইসসসস…… প্যান্টের ভেতরের রাক্ষসটা বিদ্রহ করতে শুরু করে দিয়েছে, রীতিমতন। নাহহ……অফিসের দেরী হয়ে যাবে, ভাবতে ভাবতে বাথরুমে ঢুকে পড়ল রণ। ইসসসস…… রণ টা ভীষণ অসভ্য হয়ে গেছে। কেমন করে তাকিয়ে থাকে ওর দিকে। মনে হয় এখনি গিলে খেয়ে ফেলবে। এমন করে কেও তাকায় মায়ের দিকে? মনে হয় মা তো না, ওর প্রেমিকা। ভাবুক ও। আজ তো বলেই দিলো কত কথা। maa chhele romance

ওর জন্য ভীষণ সাজতে ইচ্ছে করছে মহুয়ার। রণ ওকে নতুন ভাবে বাঁচতে শেখাচ্ছে। মনে মনে ভাবতে থাকে মহুয়া। নিজেকে আরও আধুনিক করে তুলতে হবে। ভাবতে ভাবতে আয়নার সামনে এসে দাড়ায় মহুয়া। নিজের রুমে ঢুকেই দরজাটা বন্দ করে দেয় মহুয়া। ড্রেসিং টেবিলের সামনে দাঁড়িয়ে নিজের প্রচণ্ড লাস্যময়ী শরীরটার দিকে ভালো করে নজর দেয় মহুয়া। ঘন কালো রেশমি মেঘের মতন কেশরাশি ইতস্তত ভাবে ছড়িয়ে আছে সুন্দর মুখমণ্ডলের চারিপাশে। কোমল নিটোল কুচযুগল দেখে মনে মধুর রসের ভাণ্ডার।

উপরি বক্ষে অতি ক্ষুদ্র জলের বিন্দু গুলোর ওপর ঘরের আলো পড়ে ঝিকিমিকি করে উঠছে। তোয়ালেটা ঠিক ওর পাছার নীচে এসে শেষ হয়ে গেছে। কিছুক্ষণ আগে, রণ কেমন করে তাকাচ্ছিল ওর এই শরীরটার দিকে। তোয়ালের নীচ থেকে নেমে এসেছে পুরুষ্টু মসৃণ রোমহীন কদলী কাণ্ডের মতন দুই জঙ্ঘা। এতটাই পুরুষ্টু যে, দুই জঙ্ঘার মধ্যে একটা ঘাস ও গলবে না। সুগোল কোমল অথচ ভারী নিতম্বের দুলুনি দেখে যে কোনও পুরুষ মানুষের মাথা খারাপ হয়ে যেতে বাধ্য। নিজেকে দেখে নিজেরই কেমন লাগে মহুয়ার। maa chhele romance

কই আগে তো নিজেকে এতো সুন্দর মনে হতো না মহুয়ার। তাহলে কি রণের আদর, ওর প্রতি রণের চরম ভালবাসা, ওকে আরও সুন্দর করে তুলেছে? আয়নায় নিজেকে দেখে, কচি দুষ্টু মেয়ের মতন চোখ পাকিয়ে, ঠোঁট বেঁকিয়ে নিজেকে মৃদু বকুনি দিয়ে তোয়ালে টা টান দিয়ে খুলে ফেলে মহুয়া। ঘরের আলোতে নধর উলঙ্গ দেহ টা ঝলসে ওঠে আয়নার সামনে। ভারী স্তন জোড়া সামনের দিকে উঁচিয়ে আছে, পাহাড়ের মতন। দুই স্তন হাতের মধ্যে নিয়ে টিপে টিপে দেখে নেয় মহুয়া।

হালকা বাদামি স্তন ব্রিন্তের মাঝে ফুটে ওঠা গাড় বাদামি রঙের স্তনাগ্র ঠাণ্ডা জলের পরশে বেশ শক্ত হয়ে আছে। তোয়ালে দিয়ে স্তনের ওপরের জলের ফোঁটা গুলো মুছে নেয় মহুয়া। দুই পেলব উরুর মাঝে ভিজে ভিজে ঠেকে। উরুসন্ধি কোমল রেশমি যোনিকেশে আবৃত। শিশির ভেজা ঘাসের মতন যোনিকেশ চকচক করছে। তোয়ালে দিয়ে যোনি বেদি আর যোনি কেশ মুছতে মুছতে শরীরে আগুন লেগে যায়। তোয়ালে দিয়ে আসতে আসতে যোনিচেরা ডলতে শুরু করে মহুয়া। তিরতির করে কেঁপে ওঠে লাস্যময়ী রমণীর নধর দেহপল্লব। maa chhele romance

আয়নায় নিজেকে দেখে, মৃদু ভাবে বকে দেয় মহুয়া, “এই মৌ, এই সব কি করছিস, তুই”? মহুয়া ভালোই জানে, এখন ওর নগ্নতা উপভোগ করার মতন কেউ নেই আসেপাশে। তাই ওই অবস্থাতেই, নিশ্চিন্ত হয়ে, তোয়ালে টা বিছানায় ছুরে দিয়ে মনের আনন্দে হেঁটে যায় আলমারির দিকে। আলমারির থেকে গোলাপি রঙের একটা সালওয়ার কামিজ বের করে মহুয়া। অনেক দিন পড়া হয়নি। জানেনা, হয়্ত এতদিনে টাইট হয়ে গেছে না ঠিক ঠাক আছে। রণ টা অফিসে চলে যাওয়ার পড়ে একটু বেরোবার ইচ্ছে আছে মহুয়ার।

কিছু ড্রেস কিনতে হবে নিজের জন্য। রণ ওকে যেমন দেখতে চায়, সেই ভাবে নিজেকে তৈরি করতে হবে, নিজেকে সাজাতে হবে। আজ থেকে, ও রণের জন্য সাজবে। আলমারি থেকে একটা কালো প্যান্টি আর একি রঙের ব্রা বের করে পড়ে নিল মহুয়া। বেশী দেরী করা চলবে না। এখনি রণ অফিসের জন্য তৈরি হয়ে যাবে। ওর জন্য জলখাবার তৈরি করে দিতে হবে, তাড়াতাড়ি।

ব্রা প্যান্টি পড়ে, শুদু কামিজ টা পড়ে নিয়ে নিজেকে আয়নায় দেখল মহুয়া। একটু টাইট হচ্ছে কামিজটা। নাহহ… চলবে না, এটা। রণ বেরোনোর পড়ে অন্য কিছু একটা পড়ে নিতে হবে। নীচের সালওয়ার টা না পড়েই, শুদু কামিজ টা পড়ে বেরিয়ে আসলো মহুয়া। কামিজ টা হাঁটুর একটু ওপর পর্যন্ত এসে শেষ হয়ে গেছে। কামিজের সাইডের চেরা কাট টার ফাঁক থেকে ফর্সা নরম মাংসল রোমহীন উরুগুলো আর তার ওপর চেপে বসা কালো প্যান্টি টা হাঁটার ফাঁকে ফাঁকে ঝলসে উঠছে, সাথে রয়েছে বড়, সুডোল নিতম্বের দুলুনি। maa chhele romance

মাথার ভেজা চূলে তোয়ালে টা পেঁচিয়ে, মুখে একটা দামী ক্রিম মেখে, রুম থেকে বেরিয়ে আসলো মহুয়া। “রণ তোর হল? তাড়াতাড়ি ড্রেস করে নে সোনা। নাহলে অফিসের দেরী হয়ে যাবে। আজকে কি বাসে করে যাবি? না বাইক নিয়ে বেরবি? অফিসের থেকে আসার সময় ডাক্তারের কাছে হয়ে তারপর আসবি কিন্তু। ভুলে যাস না। আর একটা কথা। অফিসের কোনও সুন্দরী মেয়ে দেখে তোর এই দুঃখিনী মাকে ভুলে যাস না। আমি কিন্তু তাহলে খুব কাঁদবো”। কথাটা বলেই জোরে হেসে উঠলো মহুয়া।

রণ প্রায় তৈরি হয়েই গেছিলো, অফিসের জন্য। মায়ের গলার আওয়াজ পেয়ে ফুল স্লীভ জামার হাতের বোতাম টা লাগাতে লাগাতে বেরিয়ে এলো। বেরিয়ে এসে, সোজা রান্নাঘরে এসে, মহুয়ার হাত টা ধরে নিজের দিকে ঘুরিয়ে, চোখে চোখ রেখে, একহাতে মহুয়ার থুতনি টা উঁচু করে ধরে বলল, “তোমার কাঁদার দিন শেষ হয়ে গেছে মা। তোমাকে আমি আর কাঁদতে দেব না। প্রচণ্ড ভালবাসি তোমাকে আমি।

আমি আর কাউকে চাই না। আমার শুদু তোমাকেই চাই। তোমার ভালবাসা চাই, তোমার ভালবাসার উষ্ণতায় ভিজে যেতে চাই”, বলে মহুয়াকে নিজের আরও কাছে টেনে নিয়ে, একটা হাত মহুয়ার কোমরে পেঁচিয়ে ধরে নিজের শরীরের সাথে মিশিয়ে দিয়ে একটু ঝুঁকে মহুয়ার কাঁধে নিজের থুতনিটা রেখে, কানের কাছে মায়ের শরীরের ঘ্রান নিতে নিতে ফিসফিস করে বলল, “I love you jaan, can I kiss you, my sweet heart”? maa chhele romance

রণ অমন করে মহুয়াকে নিজের কাছে টেনে ধরতেই, তিরতির করে কাঁপতে শুরু করে দিয়েছিল, মহুয়া। বুকের মধ্যে আবার সেই ধুকপুকানি টা বেড়ে গেছিলো। ইসসস……ছেলেটা আবার কি বলবে কে জানে? ইসসস…কেমন করে ওকে জড়িয়ে ধরে রয়েছে দস্যুটা, হাতের থাবা গুলো কি ভীষণ পুরুষালী। খুব সুন্দর একটা বিদেশী ডিও লাগিয়েছে মনে হয়, রণ যেটার সুগন্ধ যেন মাতাল করে দিচ্ছে মহুয়াকে। ইসসস… দস্যুটা ওর কাঁধে মাথা রাখছে। ধীরে ধীরে মহুয়ার শরীর জাগতে শুরু করে দিয়েছে।

পায়ের পাতা গুলো ধীরে ধীরে কাঁপছে। রান্নাঘরের খোলা জানালা দিয়ে বৃষ্টির পরের ঠাণ্ডা হওয়া পরিবেশটাকে বেশ রোমান্টিক করে দিয়েছে। ইসসস…কি বলল কানের পাশে মুখ রেখে, রণ? ঠিক সুনল তো মহুয়া? মহুয়ার চোখ ভারী হয়ে বন্দ হয়ে আসছে। মুখটা ওপরে তুলে দিয়ে, রসালো ঠোঁট দুটো নড়ে উঠলো মহুয়ার। “আহহহহহহ……আর একবার বল। প্লিস আর একবার……”, হিসহিসিয়ে একটা শীৎকার বেরিয়ে আসলো মহুয়ার গলার থেকে।

রণ মহুয়ার কোমরটা পেঁচিয়ে ধরে নিজের আরও কাছে টেনে নিল মহুয়াকে, মহুয়ার সুগোল বড় নিতম্বের ওপর চাপ দিয়ে, মহুয়ার উরুসন্ধিকে নিজের নিম্নাঙ্গের সাথে চেপে ধরল রন। নাক টা আর ঠোঁট টা মহুয়ার গলায় ঘসতে ঘসতে মহুয়ার কানের পাশে নিয়ে আবার বলে উঠলো, “I love you jaan, can I kiss you, my sweet heart”? maa chhele romance

মহুয়ার বন্দ হয়ে যাওয়া চোখ ধীরে ধীরে খুলে আধবোজা ভাবে রণের দিকে তাকাল। যেন একটা বিদ্যুৎ খেলে গেলো মহুয়ার শরীরে। মুখের ভেতর দুধ সাদা দাঁতের পাটি একে ওপরের ওপর চেপে বসলো। একটা মিষ্টতা ভরা কাঠিন্য মহুয়ার চোখ মুখের থেকে ঠিকরে বেরিয়ে আসতে লাগলো। ডান হাত দিয়ে রণের মাথার পেছনের চুলগুলো মুঠো করে শক্ত করে ধরে রণের মুখটা নিজের কান্ধের ওপর থেকে তুলে ধরল তীব্র যৌন আবেদনময়ী মহুয়া।

তারপর ডান হাত রণের বুকের ওপর রেখে আলতো আলতো চাপ দিয়ে রণকে পেছনে ঠেলতে শুরু করলো মহুয়া। রণ ধীরে ধীরে পেছু হটতে শুরু করলো। কিছুটা অবাক হল রণ। বিস্ময় চকিত হয়ে মায়ের মুখের দিকে তাকাতে তাকাতে পেছুতে লাগলো রণ। বুঝতে চেষ্টা করলো মা কি করতে চাইছে। এক পা এক পা করে পেছনে হাঁটছে রণ, আর রণের বুকে হাত দিয়ে এক পা এক পা করে এগিয়ে আসছে মহুয়া। দুজনের চোখ একে ওপরের ওপর নিবদ্ধ। যেন এক বাঘিনী নিজের শিকার কে গ্রাস করার জন্য ধীরে ধীরে আগ্রসর হচ্ছে।

ওই কথাটা মায়ের কানে বলে দেওয়াতে কি রেগে গেলো মহুয়া? মহুয়া রণকে ঠেলতে ঠেলতে নিয়ে এসে নিজের বেডরুমের পালঙ্কের পাশে রাখা একটা চেয়ারের ওপর ঠেলে বসিয়ে দিলো। মাঝের এই সময় টুকুতে কেও কারো ওপর থেকে, অল্প সময়ের জন্য চোখ সরাতে পারেনি। কে যেন এক বিশেষ মন্ত্রবলে সম্মোহন করে দিয়েছে দুই তৃষ্ণার্ত শরীর আর মনকে। রণকে ঠেলে চেয়ারে বসিয়ে, ডান হাত দিয়ে আবার ওর মাথার পেছনের চুলের মুটি শক্ত করে ধরে রাখল। কি করবে বুঝে উঠতে পারছেনা রণ। maa chhele romance

কিংকর্তব্যবিমুঢ় হয়ে মায়ের মুখের দিকে তাকিয়ে রইলো। মহুয়া চোখ বড় বড় করে রণের চোখে চোখ রেখে, যথা সম্ভব নিজের মুখটা রণের মুখের কাছে এনে ফিসফিস করে বলে উঠলো, কি বললি তুই আমাকে? আর একবার বল। রণ ভয়ার্ত গলায় বলে উঠলো, “না না মানে তেমন কিছু……”, কথাটা শেষ করতে দিলো না মহুয়া। রণের মুখোমুখি হয়ে, রণের কোলে, ওর ছড়িয়ে রাখা পায়ের দুদিকে নিজের পা ছড়িয়ে বসে পড়ল। যেন এক ক্ষুদারতো বাঘিনী নিজের শিকার কে খাওয়ার জন্য তৈরি হচ্ছে।

রন ভয়ে দুচোখ বন্দ করে ফেলল। মহুয়া রণের কোলে পা ছড়িয়ে বসার ফলে কামিজ টা অনেক টা গুটিয়ে গেছিলো আগেই। ফর্সা মাংসল উরুজোড়া রণের দু পায়ের পাশে উদ্ভাসিত হয়ে আছে। এক হাত দিয়ে, রণের চুলের মুটি ধরে ওর চোখ বন্দ হয়ে যাওয়া মুখটা টেনে ধরে সজরে কামড়ে ধরল ওর কাঁপতে থাকা ওষ্ঠদ্বয়। এহেন ব্যাপারের জন্য রন একদমই তৈরি ছিলনা। মায়ের এমন মূর্তি কোনোদিনও দেখেনি।

মহুয়ার যোনিপ্রদেশ ওর কালো প্যানটির ওপর দিয়ে ক্রমাগত ঘষা খাচ্ছে প্যান্ট পরে থাকা রণের নিম্নাঙ্গের সাথে। ভীষণ ভাবে বন্য, যেন আদিম রতিক্রীড়ায় মগ্ন কামন্মাদ এক রমণী। কোনও ভ্রুক্ষেপ নেই মহুয়ার সেই দিকে। যেন কত দিনের তৃষ্ণার্ত রমণী মহুয়া।
চুষেই চলেছে মহুয়া, নিঃশ্বাস ঘন হয়ে আসছে, ভারী সুডৌল স্তন দুটো খুব দ্রুত গতিতে ওঠানামা করছে। সময় যেন থেমে গেছে। চোখ বুজে এক ভাবে রণের মোটা পুরু ঠোঁটের সব রস চুষে নিংড়ে খেয়ে নিজের তৃষ্ণা নিবারন করছে উদ্ভিন্ন যৌবনা তৃষ্ণার্ত এক রমণী। maa chhele romance

বেশ কিছুক্ষণ একইভাবে রণের পুরুষালি ওষ্ঠে নিজের ওষ্ঠ ডুবিয়ে রস পান করার পর, হাসি মুখে রণের দিকে তাকায় মহুয়া। রণের মুখটা দুহাতে ধরে আবার একবার ছোট্ট করে একটা চুমু দিলো রণের লাল হয়ে যাওয়া ঠোঁটের ওপর।
“হয়েছে সোনা? আরও চাই? ওঠ এবার, অফিসে যেতে হবে না? নাকি ঘরে বসে বসে মায়ের আদর খাবি”? বলে রণের দিকে তাকিয়ে এক বিজয়িনীর হাসি মুখে নিয়ে উঠে দাঁড়াল তৃষ্ণার্ত মহুয়া। আকস্মিক এই ঘটনায় বিহ্বল হয়ে অবাক দৃষ্টিতে মায়ের মুখের দিকে তাকিয়ে থাকল রণ।

“ওফফফফফ….তুমি যা খাওয়ালে তারপরে আর জলখাবার খাওয়া চলেনা গো। ইসসস… রোজ যদি এমন খাবার পাওয়া যায় তাহলে সংসারের কত খরচ বেঁচে যায় বোলো তো”? বলে, নিজের জামার বোতাম লাগাতে লাগাতে উঠে দাঁড়াল রন।
ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখে বলে উঠলো রন, “মা যা আছে একটু দিয়ে দাও, দেরী হয়ে যাচ্ছে আমার, আজ আর বাসে করে যাব না”। রণের গলার আওয়াজ পেয়ে তাড়াতাড়ি রান্না ঘরের থেকে বলে উঠলো, “হয়ে গেছে সোনা। এখনি নিয়ে আসছি”। maa chhele romance

কোনোরকমে চার পিস ব্রেড আর ওমলেট খেয়েই উঠে দাঁড়াল রন। “মা আর কিছু খেতে পারবোনা। দেরী হয়ে যাবে। প্লেটে দুই পিস ব্রেড পড়ে রইলো, তুমি খেয়ে নিও। আমি বেরলাম”। বলে উঠে দাঁড়াল রন। হেলমেট মাথায় গলিয়ে, বাইক স্টার্ট করে হুসসসস…করে বেরিয়ে গেলো। মহুয়া জানালা দিয়ে রণের যাওয়ার পথের দিকে তাকিয়ে রইলো। মনে মনে বলে উঠলো, “ওফফফফফ……দামাল ছেলে হয়েছে একটা। পাগল করে ছেড়ে দেয় মা কে। বদমাশটা”।

তারপর কি যেন একটা ভেবে নিজে নিজেই হেসে দৌড়ে চলে আসলো নিজের বেডরুমের আয়নার সামনে। আয়নার সামনে কোমরে দুহাত রেখে দাঁড়িয়ে নিজেকে দুষ্টুমি ভরা চোখে তির্যক ভাবে আয়নায় দেখে, বলে উঠলো, “I love you Ron. খুব মায়ের পেটে হাত দিয়ে শোওয়ার সখ, তাই না? ওসভ্য ছেলে, মাকে বলতে একটুও লজ্জা করলো না, তাই না? দুষ্টু কোথাকার। মায়ের সাথে দুষ্টুমি করা হচ্ছে? হুমমমম…… কর দুষ্টুমি। আরও কর। পাগল করে দে তোর মা কে। তোর মা তোর সব রকম পাগলামি সহ্য করবে”।

বলে, কিছুক্ষণ চুপ করে দাঁড়িয়ে থেকে, ড্রেসিং টেবিল থেকে গাড় লাল রঙের লিপস্টিক টা হাতে তুলে নিল অতীব সুন্দরী মহুয়া। আয়নায় নিজেকে দেখে একটা অর্থপূর্ণ দুষ্টুমি ভরা হাসি হেসে, আয়নার কাঁচে লিপস্টিক দিয়ে বড় বড় করে লিখল, “I LOVE YOU, RON DARLING”। লেখাটার দিকে কিছুক্ষণ গর্ব সহকারে তাকিয়ে থাকতে থাকতে মৃদু ভাবে হেসে লজ্জায় দু হাত দিয়ে নিজের মুখ ঢাকল মহুয়া। ঠিক যেমন করে বর কনের শুভ দৃষ্টির আগে কনে দুই হাত দিয়ে পান পাতা ধরে নিজের মুখমণ্ডল ঢেকে রাখে। maa chhele romance

একটা তীব্র খুশীর হিল্লল যেন সারা শরীরে বয়ে গেলো লাস্যময়ী সুন্দরীর। আর সেখানে দাঁড়াতে পারলো না মহুয়া। দু হাত মুখের থেকে সরিয়ে, নিজেকে পালঙ্কের নরম বিছানায় নিক্ষেপ করলো। বাইক নিয়ে বাড়ির থেকে বেড়িয়ে বাস স্ট্যান্ডের সামনের রাস্তায় ওঠার আগেই দেখল, কাবেরি দাঁড়িয়ে আছে। মনে মনে ভাবল, “এই রে, যেটা চাইছিলাম না সেটাই করালে ঠাকুর তুমি”। ততক্ষণে কাবেরি ওকে দেখে ফেলেছে। হাত নেড়ে রণকে থামতে বলে কাবেরি।

পরনে একটা ডিপ নীল রঙের মিনি স্কার্ট, যেটা কোমর থেকে নীচে নেমে ফর্সা সুন্দর উরুজোড়াকে জড়িয়ে ধরে হাঁটুর অনেক আগেই শেষ হয়ে গেছে। পায়ে একটা হাইহিল জুতো। ওপরে একটা পা্তলা ফিনফিনে ডিপ কাট ক্রিম রঙের টপ, যেখান থেকে বুকের ক্লিভেজটা মারাত্মক ভাবে এক দেখা যাচ্ছে। বড় গোলাকার স্তন দুটো পাহাড়ের মতন উঁচু হয়ে আছে। রণ বাইক টা নিয়ে একেবারে ওর সামনে এসে দাঁড়াল। “হাই হ্যান্ডসাম, এতো তাড়া কিসের?

আমি যদি তোমার বাইকের পেছনে বসি তাহলে তোমার বাইকের দাম কত বেড়ে যাবে, সেটা কবে বুঝবে? বলে একটা অর্থপূর্ণ হাসি হেসে তির্যক ভাবে তাকাল কাবেরি। রণ আঙ্গুল দিয়ে চোখের সানগ্লাস টা একটু নামিয়ে, কাবেরির দিকে তাকিয়ে হেসে বলল, “থাক আর দাম বাড়াতে হবে না, আমার বাইকের। অফিসে যাচ্ছি, তিন পর্যন্ত গুনবো, যদি তার আগে বাইকে বসেছ, তাহলে ঠিক আছে, নাহলে হাওয়া হয়ে যাব বিউটিফুল”। রণ গোনা শুরু করার আগেই কাবেরি রণের কাঁধে হাত দিয়ে লাফিয়ে বাইকের পেছনে বসে পড়ল।

মহুয়ার মাধুর্য্য- 6 by Rajdip123

3 thoughts on “maa chhele romance মহুয়ার মাধুর্য্য- 7 by Rajdip123”

Leave a Comment