maa panu choti মায়ের প্রেমে – 4 by iamilbd

bangla maa panu choti. মুখোমুখি বসে আছে দুই পক্ষ। বরের পক্ষে তমাল আর ওর মা রোকেয়া। কনের পক্ষে সায়মা আর ওর মা শিউলি। দুই পক্ষ্যের মধ্যে ঘটকের ভূমিকায় ঠিক দুইজনের মধ্যের সোফায় বসে আছে হেনা, রোকেয়া আর শিউলি দুইজনেরই বান্ধবী।

– একটা কাজ করলেই তো হয়, তমাল আর সায়মা গিয়ে বারান্দায় নিজেরে কথা বলুক, আর এই ফাঁকে আমরা নিজেদের মধ্যে কথা বলি!

হেনা প্রস্তাব দিল। রোকেয়া আর শিউলি দুইজনই সায় জানাল। উপায়ন্তর না দেখে তমাল উঠে দাড়িয়ে সায়মার দিকে তাকাল। সায়মা সলজ্জিত চোখে ওর দিকে এক পলক তাকিয়েই মুখ নামিয়ে উঠে দাড়াল।

সায়মা যাকে বলে ‘প্রথম দেখায় প্রেম’ – এ পড়েছে তমালকে দেখেই। বিষয়টা এতটাই আশ্চর্য যে সায়মা ওর মনের ভাব এখনও পুরোপুরি বুঝে উঠতে পারেনি। নিজের বিয়ের জন্য বরের বাড়িতে মাকে নিয়ে বেড়াতে আসাটা যেমন অদ্ভুত লাগছে ওর কাছে, তারচেয়েও বেশি অদ্ভুত লাগছে ওর মনের অশান্ত বুকের ঢিপঢিপ করা দেখে।

maa panu choti

সায়মা ধীর পায়ে তমালকে অনুসরণ করে বারান্দায় আসতেই এক পশলা ঠান্ডা বাতাসে ওর সবগুলো চুল উড়িয়ে দিল। বারান্দার আলোয় সায়মা নিজের চুল ঠিক করতে করতে লক্ষ্য করল তমাল ওরই দিকে তাকিয়ে আছে।

তমাল এই পরিস্থিতে খানিকক্ষণের জন্য বেশ হতভম্ব হয়ে গিয়েছিল। আজকের দিনটা সম্ভবত ওর জীবনের সবচেয়ে রঙিন দিনগুলোর একটা। আর দিনশেষে মায়ের সাথে ওর সম্পর্কটা আরো গভীর হয়েছে বলে ওর মনে যে প্রফুল্লতা এসেছিল, সন্ধ্যার টুইস্টে তার পুরোটাই উবে গেছে।

বারান্দার আলোতে তমাল সায়মার দিকে তাকাল। সায়মার উচ্চতা প্রায় মায়েরই মতো, ভাবল তমাল। তারপর আগচোখে সায়মার শরীরের দিকে তাকাল। ছোটখাট গঠন, চিকন, বুকে ছোট ছোট স্তন্যের আভাস, পাতলা ঠোঁট, জিজ্ঞাসু দৃষ্টির উপরে পাতলা ভ্রু।

একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে তমাল স্বীকার করতে বাধ্যই হল সায়মা যথেষ্ট সুন্দরী। কিন্তু তমালের মন ওর প্রতি মোটেও টানছে না। বরং তমাল যতবার সায়মার দিকে তাকাচ্ছে, ততবারই কেন জানি ওর মায়ের মুখটা ভেসে আসছে ওর চোখে। maa panu choti

স্বাভাবিকভাবে ওদের কথাবার্তা তেমন জমল না। তমালের মাঝে একটা সংকোচ লক্ষ্য করল সায়মা আর অনুমান করে নিল তমালের কারো সাথে সম্পর্ক আছে হয়তো।

চিন্তাটা সায়মার কেন জানি মোটেও ভাল লাগল না। আর এই ভাল না লাগাটা নিয়েও সায়মা বেশ বিস্মিত হল। মাত্র কিছু সময়ের পরিচয়, এত তাড়াতাড়ি এতো এটাচমেন্ট কেন!

কিছুক্ষণ পর হঠাৎ ওদের কথা বলার খেই হারিয়ে গেল। দুইজনেই বাইরের অন্ধকারের দিকে তাকিয়ে যখন নিজ নিজ চিন্তায় ব্যস্ত তখন হেনা আন্টি ওদের ডাক দিয়ে যেন রক্ষা করল।

এরপর তমাল আর সায়মার সরাসরি আর কোন কথাই হল না। রোকেয়া ওদের রাতের খাবার খাওয়ানোর পর তবে যেতে দিল। রোকেয়া আর শিউলির বন্ধুত্বপূর্ণ কথাবার্তা থেকে তমাল আর সায়মা দুইজনই বুঝতে পারলো ওদের বিয়ে হয়তো হবার পথে। maa panu choti

চিন্তাটা তমালকে বেশ নাড়িয়ে দিল। বিশেষ আজকের সারাদিনের পর ও ভেবেছিল রোকেয়া ওকে কিছুটা একান্ত স্পেস দিবে। কিন্তু রোকেয়ার চেহারায় ছেলের বিয়ে দেওয়ার চকমক করতে থাকা খুশী দেখে মনে মনে তমাল বেশ আঘাত পেল।

এদিকে পুরোটা সময় তমালকেই পর্যবেক্ষণ করেছে সায়মা। তমালের হয়তো বিয়ের প্রতি তেমন মন নেই সেটা সায়মার অনুমান করতে কষ্ট হল না। কিন্তু তবুও ওর মনের ভিতরে কেউ ওকে বলতে লাগল স্বার্থপর হতে।

সায়মাও সিদ্ধান্ত নিয়েছে সে স্বার্থপরের মতো চুপ করে থাকবে। একবার বিয়ে হয়ে গেলে সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে। ওর জীবনের এই প্রথম কারো প্রতি এতটা টান অনুভব করেছে সে। তাই অযথা চিন্তা করে ও এই মধুর সময়টাকে নষ্ট করতে চায় না।

যেতে যেতে হেনার পরামর্শে পরদিন তমাল আর সায়মাকে একসাথে বেড়াতে যাওয়ার কথা ঠিক করা হল। রোকেয়া সানন্দে রাজি হল। আর সেটা দেখে তমালের মনে হল পুরো দিনটাই ও মরীচিকার পিছনে ঘুরেছে! maa panu choti

* * * * *

মেহমান চলে যাবার পর থেকে মা ছেলের মাঝে একটাও কথা হয়নি। তমাল নিজের রুমের দরজা লাগিয়ে চুপচাপ বসে নেট চালিয়েছে। ঐদিকে রোকেয়ার মাথায় অসংখ্য চিন্তার রাশি জট পাকিয়ে গিয়েছিল যে, রোকেয়া সেগুলে থেকে বাঁচার জন্য বিছানায় ঘুমিয়ে পড়ল।

হঠাৎ দরজায় ঠকঠক কড়া নাড়ার শব্দে রোকেয়ার ঘুমটা ভেঙ্গে গেল। ঘরের দেয়াল ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখতে পেল ঘড়ির কাটা একটার উপর, রাত একটা।

বিছানা থেকে উঠে দরজা খুলল রোকেয়া। প্রায় সাথে সাথে তমাল রুমে ঢুকে ওকে জড়িয়ে ধরে কোলে তুলে নিল আর বিছানায় রোকেয়াকে শুইয়ে দিয়ে তমাল তার উপর চড়ে উঠল।

ছেলের শরীরের সম্পূর্ণ ওজন সহ্য করতে করতে রোকেয়া নিজের বিস্মিতভাব কাটানোর চেষ্টা করছে যখন, তখন তমাল রোকেয়ার ঠোঁট চুমো দিতে লাগল। maa panu choti

প্রচন্ড এক তীব্র অনিচ্ছায় রোকেয়ার শরীর শক্ত হয়ে গেল আর শরীরের সব শক্তি দিয়ে তমালকে সরিয়ে দিল।

তমালও সাথে সাথে মায়ের উপর দ্বিতীয়বারের মতো চড়ে বসল আর এবার চুমোর বদলে রোকেয়ার দুই দুধ দুই হাতে শক্ত করে চেপে ধরল।

বুকের উপর শক্ত পুরুষালী স্পর্শে সামান্য সময়ের জন্য রোকেয়া চমকে উঠলেও, তমাল অনেক জোরে চেপে ধরায় ব্যাথায় উহহহ শব্দে আত্মচিৎকার করে উঠল।

তমাল তবুও ওর মাকে ছাড়ল না। রোকেয়া ছেলের চোখের দিকে তাকিয়ে প্রচন্ড ভয় পেল। ছেলে কিছু করে ফেলবে না তো!

তমাল মায়ের সন্দেহকে আরো তা দিয়ে আবার রোকেয়ার ঠোঁটে চুমো খেতে লাগল আর এবার আরো আগ্রাসীভাবে। রোকেয়া দুই ঠোঁট একসাথে রাখতে লাগল, কিন্তু তমালের জিহ্বা, ঠোঁট ওকে চুমো দিয়ে, চুষতে চুষতে এক থাকতে দিল না। maa panu choti

তারপর হঠাৎ চুমো ভেঙ্গে তমাল রোকেয়ার মুখোমু্খি হয়ে জিজ্ঞাস করল,

– আজকের দিনটা কি অর্থহীন ছিল?

বলেই তমাল রোকেয়ার উপর থেকে সরে গেল। তারপর রোকেয়ার বুক, গলা জড়িয়ে ধরে তমাল চুপচাপ শুয়ে থাকল।

রোকেয়া একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলল। নিজের বুকের উপর ছেলের হাতটা সরানোর প্রচন্ড ইচ্ছে করল, কিন্তু এতে তমাল আরো ক্ষেপে যেতে পারে ভেবে রোকেয়া কিছু করল না। বরং মনে মনে স্বীকার করে নিল যে যদি গোটা বিষয়টা চিন্তা করে, তাহলে আজকের পুরো দিনের পর সন্ধ্যার ঘটনাটা তমালের জন্য নিষ্ঠুরতা বটে!

– নাহ, অর্থহীন ছিল না। আজকের দিনটা আমার জীবনের সেরা দিন ছিল। সবচেয়ে আনন্দের দিন ছিল। দিনটা মোটেই অর্থহীন ছিল না। তবে…

তমাল রোকেয়ার কথা শুনে মুখ তুলে তাকাল। রোকেয়া ছেলের চোখে চোখ রেখে বলল,

– তবে আমরা যেই চুক্তি করেছিলাম, সেটা অনুযায়ী আমি ভুল তো কিছুই করিনি। আমি তো আগেই বলেছি এই ছয় মাসে তোর জন্য বউ আমি ঠিক করবো। সময়টা হয়তো ঠিক হয়নি, কিন্তু এতে তো আমারও কিছু করার ছিল না। হেনা আমাকে বিকালে মেলার পর নদীর পাড়ে বসে থাকার সময় ফোন দিয়েছিল। আর সেই মুহূর্তে কীভাবে আমি ওকে না করি? maa panu choti

তমাল চুপসে গেল। মায়ের উপর থেকে নিজের হাত সরিয়ে বলল,

– তবুও, খুব নিষ্ঠুর একটা কাজ করেছ আমার সাথে। খুবই নিষ্ঠুর! তবে চিন্তা করো না, বিয়ে আমি করছি না!

রোকেয়া এবার হাসল। ছেলের দিকে তাকিয়ে মুখে হাসি রেখেই বলল,

– তাহলে তো আর কিছুই করার নেই। আমাদের ভিতর ছয়মাসের যে চুক্তিটা হয়েছিল, সেটা তাহলে আজ থেকে বাদ। কি বলিস?

তমাল কোন উত্তর দিল না। তা দেখে রোকেয়া বলল,

– যদি নিজের ছয় মাসের অবশিষ্ট সময়টুকু কাজে লাগাতে চাস, তবে কালকে কিন্তু সায়মার সাথে ঘুরতে যেতে হবে। মেয়েটাকে কিন্তু আমার খুব ভালো লেগেছে। লক্ষ্মী একটা মেয়ে! তোর সাথে মানাবেও দারুন।

তমাল কিছু বলতে গিয়েও বলল না। রোকেয়া ওকে কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে বলল,

– শোন, আমাকে যেই যেই জায়গায় নিয়ে গিয়েছিলি তার সবখানে নিয়ে যেতে হবে সায়মাকে। ওকে ফুচকা খাওয়াবি, ছবি দেখাবি, রেস্টুরেন্টে খাওয়াবি, মেলায় নিয়ে যাবি। আর হ্যা, বাসে কিন্তু ওকে সাবধানে নিয়ে আসবি। বাসে যা বদ মানুষ থাকে না। maa panu choti

মায়ের কথা শুনে তমাল হেসে উঠল। তারপর বলল,

– হ্যাঁ, চিন্তা করো না। আমিও ওর পিছনে দাড়িয়ে ওকে রক্ষা করতে করতে নিয়ে আসবো।

ছেলের কন্ঠের ব্যঙ্গটা ধরতে পেরে রোকেয়া তমালের মাথায় একটা গাট্টা মেরে বলল,

– পরিস্থিতি পড়লে করবি। আর হ্যাঁ, আমাকে রক্ষা করে করে বাড়িতে ফিরিয়ে আনার জন্য ধন্যবাদ!

এবার তমাল মায়ের কথায় ব্যঙ্গ খুঁজে পেল। সাথে সাথে রোকেয়ার দিকে তাকিয়ে দেখল সে হাসছে। তমাল হঠাৎ উঠে আবার মায়ের উপর চড়ে উঠে বলল,

– এতো যদি কৃতজ্ঞ হও, তবে এবার কিন্তু তোমাকে সাড়া দিতে হবে।

বলেই তমাল তৃতীয়বারের মতো রোকেয়ার ঠোঁটে চুমো খেতে শুরু করল। রোকেয়াও যেন এমনটাই হবে আশা করছিল। তাই তমালকে এবার সাড়া দিল। maa panu choti

কিছুক্ষণ কিস চলল মা ছেলের মধ্যে। তারপর রোকেয়া তমালকে সরিয়ে বলল,

– অনুমতি ছাড়া অনেককিছু করে ফেলেছিস! এখন যা!

তমাল তখন মায়ের ঠোঁটে ছোট্ট একটা চুমো খেয়ে ফিসফিস করে বলল,

– চিন্তা করো না মা, তোমাকে আমি শেষ পর্যন্ত হার মানাবই। তোমাকে আমি বিয়ে করবই!

রোকেয়া একটু কেঁপে উঠল তমালের কথায়। ওর খুব ইচ্ছা হল তমালকে জড়িয়ে ধরার, তমালকে দুই হাতে গ্রহণ করার। কিন্তু রোকেয়ার ভিতরের মাতৃত্ব সেই চিন্তাকে দূরে সরিয়ে দিয়ে ওর মনের চারদিকে একটা দেয়াল তৈরি করে দিল।

– আমার কথা ভাবিস না, সায়মাকে বিয়ে করলেই আমি খুশী হবো।

মুখে হাসি ফুটিয়ে রোকেয়া কথাটা বলল। তমাল কিন্তু তীক্ষ্ণ চোখে মায়ের দিকে তাকিয়ে মুচকি হেসে বিছানা ছেড়ে চলে যেতে লাগল। maa panu choti

যাবার আগে রোকেয়ার দিকে আবার তাকিয়ে হাসল তমাল। মনে মনে বলল, ‘চিন্তা করো না, তুমি আমার হবেই।’

তমাল খুশী মনে নিজের রুমে চলে আসল। ওর মায়ের গলার কেঁপে উঠাটা ওর নজর এড়ায়নি। আর সেটাই ওকে উৎসাহ দেবার জন্য যথেষ্ট।

* * * * *

পরদিন তমাল আর সায়মা একসাথে ঘুরতে বের হয়। ঘটনাগুলো এত তাড়াতাড়ি ঘটছিল যে তমাল নিজের চিন্তাগুলোকে গুছিয়ে নিতে পারছিল না। কিন্তু মায়ের কাছে কথা দেওয়ায় সায়মার সাথে বের না হয়ে পারল না।

সকালেই সায়মা আর ওর মা শিউলিকে নিয়ে তমালদের বাসায় হেনা হাজির। রোকেয়া ওদের বরণ করে নিতে নিতে তমালদের বাসা থেকে বের করে ঘুরতে যেতে বলে। তিন মহিলা ততক্ষণ বাড়িতেই থাকবে।

তমাল আর সায়মার নিজ নিজ মায়ের অতি উৎসাহের কারণে তমাল সকালের নাস্তার পর দম ফেলবার আগেই সায়মার সাথে রিক্সায়।

তমালের সাথে সায়মা কথা বলার চেষ্টা করল। টুকরো কথা হল, কিন্তু তমালের মন কেন জানি আগেরদিনে মাকে নিয়ে রিক্সার কথাই বেশি ভাবছিল।

প্রথম ডেস্টিনেশন বিনোদিনী পার্ক। আবার বেলি ফুলের মালা, আবার ফুচকা। পার্থক্য শুধু তমালের সামনে ওর মায়ের বদলে সায়মা। তমালের গতদিনের প্রতিটা কাজ করার একটুও ইচ্ছা না থাকলেও মাকে কথা দিয়েছে, তাই নিজে বিষয়টা সহজভাবে নিতে না পারলেও সবগুলোই করবে বলে ঠিক করেছে। maa panu choti

বিনোদিনী পার্কের পর সিনেমা হল। আর স্রষ্টার ব্যঙ্গের মতো আজও শ্রাবণ মেঘের দিন চলছে, যেটা নিয়ে গতকাল মাকে সে সিনেমাহলে মজার সময় কাটিয়েছিল।

সিনেমা হলের পর একটা ভালো রেস্টুরেন্টে ঢুকে দুপুরের খাবার খেলো ওরা। তমাল কেন জানি লা আমোরে ফিরে যেতে না পারায় খুব খুশী হল। যাক, অন্তত একটা বিষয় রেপ্লিকেট হয় নি।

লাঞ্চের পর ওরা দুইজন মেলার উদ্দেশ্যে রওনা দিল। মেলা গতকালে শেষ হবার কথা থাকলেও দুইদিন বাড়ানো হয়েছে এর মেয়াদ, গতকালেই মেলায় থাকার সময় তমাল তা জেনেছিল।

কয়েকটা স্টল ঘুরে তমাল ওর মায়ের পূর্ব নির্দেশ মতো সায়মাকে কিছু কিনে দিল। তারপর বিকালের ঢলে যাওয়া আলোয় ওরা দুইজন নদীর পাড়ে বসল।

নদীর দিকে তাকিয়ে তমাল বেশ উদাস হয়ে গিয়েছিল। ওর বারবার মনে হচ্ছিল গতকাল এইখানেই ওর প্রপোজাল রিজেক্ট করেছিল ওর মা।

সায়মা কিন্তু বেশ ইঞ্জয় করছিল ওর সময়। তমালের সাথে বেশ কিছু বিষয় নিয়ে কথা বলে যাচ্ছিল আর তমালও মাঝে মাঝে উত্তর দিচ্ছিল বলে সায়মা আরো উৎসাহ পাচ্ছিল।

তমাল সন্ধ্যা নামার আগেই সায়মাকে নিয়ে বাসে উঠল। বাসে আজকেও প্রচন্ড ভীড়। তবে সায়মাকে একটা সিটে বসিয়ে, তার পাশেই তমাল পাথরের মতো দাড়িয়ে রইল। maa panu choti

বাস চলতে শুরু করলে তমাল আবিষ্কার করল ও সায়মাকে নিয়ে ভাবছে। সায়মা মেয়ে হিসেবে খারাপ না। তমালের মতোই ছোটবেলায় বাবা হারিয়েছে, তারপর মায়ের কাছে মানুষ হয়েছে। আর মূলত সেই কারণেই নাকি ওদের মায়েরা ওদের বিয়ে দেবার জন্য আগ্রহী।

তমাল সেটা নিয়ে তেমন না ভাবলেও মনে মনে স্বীকার করতে বাধ্য হল যে, যদি মায়ের প্রেমে না পড়তো সে, তাহলে হয়তো সায়মাকে বিয়ে করতে ওর মনে একটুও আপত্তি থাকতো না।

সন্. ধ্যায় বাসায় ফিরার পর আবার রাতের খাবার খেয়ে সায়মারা ফিরে গেল। যাবার আগে পরদিন তমালদের দাওয়াত দিয়ে গেল। রোকেয়া তা গ্রহণও করল।

তমাল বুঝতে পেরেছে এই আকস্মিক ঘটনাগুলোয় ও খানিকটা পথভ্রষ্ট হলেও, ওর মা কিন্তু নিজের জায়গা কামড়ে রেখেছে। আজ মাস খানেক হয়ে গেল মায়ের সাথে চুক্তিটা করার, কিন্তু এত পরিশ্রমের পরেও ওদের মধ্যকার দূরত্বটা কমছে না তমালের হাজারো চেষ্টায়।

সায়মারা চলে যেতেই তমালের খুব ইচ্ছা হল মায়ের সাথে মুখোমু্খি হতে, মাকে আবার প্রপোজ করে নিজের মনের কথা বলতে। কিন্তু রোকেয়ার দিকে তাকিয়ে তমাল পুরো থ বনে যায়। maa panu choti

রোকেয়াকে প্রচন্ড সুখী দেখাচ্ছে। রোকেয়ার চেহারায় অদ্ভুত এক জ্যোতি ফুটে উঠছে যা দেখে তমাল স্পষ্ট বুঝতে পারছে ওর মা বেশ সুখী আছে। তবে কি সায়মার সাথে তমালের সম্ভাব্য বিয়েটার কথা ভেবেই ওর মা এত খুশী হচ্ছে?

তমালের মনে হল ওর পুরো জগৎটা মুহূর্তেই ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যাচ্ছে। ওর আল্টিমেট ইচ্ছা মাকে সুখী করা। আর তাই মাকে শারীরিক সুখ দেবার পথটা তমাল বেছে নিয়েছিল। কিন্তু সেই পথ কি তবে ভুল ছিল?

রাতে বিছানায় শুয়ে থেকে, তমাল হাজার চেষ্টাতেও নিজের মনকে শান্ত করতে পারল না। ওর কেন জানি মনে হচ্ছে ওর মা সুখী হচ্ছে ঠিকই, কিন্তু তাতে তমাল মোটেও সন্তুষ্ট হতে পারছে না!

আরো কিছুক্ষণ ভাবার পর তমাল প্রথমবারের মতো আবিষ্কার করল, ওর মনের ভিতরে মাকে একান্তভাবে পাবার পিছনে তীব্র কামনা ছাড়া অন্যকিছুই নেই। আর এই একমুখী কামনার চিন্তাটা, তমালের পুরো শরীরকে অবশ করে দিল।

তমাল বুঝে উঠতে পারল না সে কি করবে এখন!

তমাল প্রথমে ভেবেছিল মাকে শারীরিক সুখ দিলেই আল্টিমেট সুখ দিতে পারবে মাকে। কিন্তু ওর বিয়ে নিয়ে মায়ের খুশী খুশী ভাব দেখে তমাল কোন ভুল করে ফেলেছে কি না তা ভাবতে লাগল, প্রথমবারের মতো। maa panu choti

তমাল হাজার ভেবেও কিন্তু শেষ পর্যন্ত এই সিদ্ধান্তে আসল যে ও যেই পথ বেছে নিয়েছিল, তাতে মোটেও কোন দোষ নেই। মাকে ও মন থেকে সুখী করতে চায়। তার একটা অংশ হয়তো ওর বিয়ে। অন্যটা মাকে শারিরীক সুখ দেওয়া।

সায়মার সাথে ইদানীং মাঝে মাঝেই বাইরে বেড়াতে যাওয়া হচ্ছে তমালের। সত্যি কথা বলতে কি, সায়মাকে পছন্দ করতেও শুরু করেছে সে। কিন্তু ওর মনের ভিতরে একটা খচখচানি সবময়ই ওকে অশান্ত করে রাখে। মায়ের মনে কি তবে এতদিনে একটুও আকর্ষণ জন্মায়নি – তমাল নিজেকেই প্রশ্ন করে।

রোকেয়া সত্যি বলতে গোটা বিষয়টাকে হজম করতে পারছে না এখনও। ও প্রতিদিনই অনুভব করছে তমালের সাথে সায়মাকে একত্রে দেখলেই ওর মনে অদ্ভুত এক অনুভূতির সৃষ্টি হয়। রোকেয়া জানে বিষয়টা কি, কিন্তু এটাকে যদি প্রশ্রয় দেয়, তবে তমালের জীবনটা নষ্ট হবার সম্ভাবনা আছে। আর মা হয়ে রোকেয়া তা মোটেই করতে চায় না।

এভাবেই দিন কেটে যাচ্ছিল। তমাল আর রোকেয়ার মাঝে বেশ স্পষ্ট দেয়াল তৈরি হচ্ছিল। অন্যদিকে তমাল আর সায়মা আরো একে অপরের কাছে আসছিল।

এরই মধ্যে তমালদের বাড়িতে একটা বিয়ের দাওয়াত আসল। তমালের মামাতো ভাইয়ের বিয়ে। বয়সে তমালের চেয়ে বড়ই। বিদেশ থেকে সদ্য এসেছে। তারপরই নাকি গ্রামের এক মেয়েকে দেখে পাগল হয়ে গেছে বিয়ে করার জন্য। তাই পরিবারের সবাইও বিয়ে লাগিয়ে দিয়েছে মেয়েটার সাথে। maa panu choti

রোকেয়া আর তমাল দুইজনই যাবে বিয়েতে। তমালদের গ্রাম সীমান্তশা জেলাতেই। তবে একটু অনুন্নত দিকে – বারৈচা গ্রামে।

যাহোক গ্রামে মা ছেলে যাবে দেখে একদিন তমাল আর সায়মার দুই পরিবারের একসাথে হওয়ায় হেনা প্রস্তাব দিল,

– রোকেয়া, তুই সায়মাকেও তোদের সাথে নিয়ে যা! তমালের সাথে ঘুরে গ্রাম দেখতে পারবে!

প্রস্তাবটা রোকেয়ার মনে ধরল। তমালের সাথে যতটুকু পারা যায় দূরত্ব রাখতে চায় সে। তাই হেনার প্রস্তাবে সায় দিয়ে বলল,

– বেশ ভাল বলেছিস। তবে শিউলি আপা অনুমতি না দিলে আমি সায়মাকে নেই কি করে।

সায়মার মা তখন বলে উঠল,

– আমার কোন আপত্তি নেই। এক দিক থেকে তো তাহলে ভালই হয়, সায়মা একটু ঘুরে আসতে পারবে অন্য কোথাও। আর তমাল সাথে থাকায় তো আমি নিশ্চিন্ত হতে পারবো।

শেষে ঠিক করা হল তমালদের সাথে সায়মাও যাবে। সায়মা বেশ খুশী হয়ে গেল সাথে সাথেই। কিন্তু তমাল রোকেয়ার পলকহীন চোখের দিকে তাকিয়ে বুঝল, কফিনের শেষ পেরেকটা হয়ত ওর মা মাত্র গেঁথে ফেলেছে। maa panu choti

* * * * *

বারৈচা এসে বিয়ের আসরে রোকেয়া নানা কাজে নিজেকে হারিয়ে ফেলল। তমাল ওর মনের অশান্তভাব লুকিয়ে যথা সম্ভব সায়মাকে নিয়ে গ্রাম ঘুরা, আত্মীয়ের সাথে পরিচয়, বিয়ের আয়োজন নিয়ে ব্যস্ত থাকল।

সায়মাকে তো তমালের আত্মীয়রা অলরেডি ওর বউ হিসেবে ধরতে শুরু করে দিয়েছে। আর তমালের ছোট কাজিনরা তো সায়মাকে ভাবী বলে ডাকতেও শুরু করেছে।

সায়মা ভাবী ডাক শুনে বেশ থ্রিলড হল। অন্যদিকে তমাল ভিতরে ভিতরে মুষড়ে পড়ল। সায়মাকে নিয়ে বিয়েতে আশার আসল পরিণামটা ও এখন ধরতে পেরেছে। সব আত্মীয় এখন সায়মাকে ওর বউ হিসেবেই ভাবতে শুরু করবে আর সেই প্রেক্ষিতে যদি সায়মাকে বিয়ে না করে তমাল, তবে সেটা ওর মায়ের জন্য নিঃসন্দেহে অপমানজনক হবে।

এভাবে সময় যেতে লাগল আর বিয়ের আগের রাত, অর্থাৎ গায়ে হলুদের রাত চলে আসল।

বাড়িতে ধুমধুম শব্দে সাউন্ড বক্সে গান বাজছে। সকল মহিলারা একসাথে বসে পরদিনের খাবার আর বৌভাতের মাসলা বাটতে শুরু করে দিয়েছে অলরেডি। অল্পবয়সী মেয়েরা হবু জামাইকে নিয়ে মেতে আছে। আর পুরুষেরা একসাথে আড্ডা দিচ্ছে চা খেতে খেতে। maa panu choti

এদের থেকে দূরে একটা কলাগাছের ছোট্ট বাগানের কাছে তমাল বসে আছে, একা। ওর মনটা খুবই খারাপ হয়ে গেছে মায়ের সাথে গোটা বিষয়টা ভেবে। ও নিজেও একবার মায়ের সাথে নিজের অস্বাভাবিক সম্পর্ক স্থাপনের চিন্তা থেকে সরে আসতে চেয়েছিল, কিন্তু ওর মনকে সে শান্ত করতে পারেনি।

তমাল এখন উভয় সংকটে। কারণ সে ইতিমধ্যে উপলদ্ধি করতে পেরেছে যে সায়মার প্রতিও সে সামান্য দুর্বল হতে শুরু করে দিয়েছে।

তমাল যখন অসংখ্য চিন্তা নিয়ে মগ্ন, ঠিক তখনই ওর পাশে এসে দাড়াল একজন। বিয়ের ডেকোরেশন এর হালকা আবছা আলোয় তমাল সায়মাকে চিনতে পারল।

তারপর শুরু হলো ওদের কথা বলা। ইদানীং সায়মার সাথে স্রেফ কথা বলাটাই খুব ইঞ্জয় করে তমাল। সায়মাও তমালের অখন্ড মনোযোগের আশায় উৎসাহ নিয়ে তমালের সাথে আড্ডায় মেতে উঠে। হঠাৎ সায়মা বলে উঠল,

– আচ্ছা আমাদের বিয়ের সময়ই কি এই রকমই হবে?

বলেই সায়মা প্রচন্ড লজ্জা পেয়ে গেলো। তমাল বেশ স্বাভাবিক স্বরে বলল,

– হতেও পারে।

তমালের উত্তরে কি যেন একটা আশ্বাস ছিল যে সায়মা অনেকটা নিজের অজান্তেই তমালের গা ঘেষে বসল এবং তমালের একটা হাত নিজ হাতে চেপে ধরল। maa panu choti

সায়মার হাত ওর হাতে বেশ দৃঢ়তার সাথে আটকে আছে দেখে তমাল সায়মার দিকে তাকাল। প্রায় সাথে সাথেই গায়ে হলুদের প্যান্ডেলে আরো শক্তিশালী দুইটা লাইট জ্বলে উঠল, কন্ট্রাক্ট করা ফটোগ্রাফারের ফ্ল্যাশ লাইট। সেই আলোয় তমাল সায়মার দিকে তাকিয়ে দেখল অন্ধাকার চিরে একটা চাঁদ যেন ওর দিকে তাকিয়ে হাসছে।

এরপর যা হল তা অনেকটা রিফ্লেক্সের বশেই হল। তমাল সায়মার দিকে এগিয়ে গেল আর সায়মাও খানিকক্ষণ ইতস্তত করে তমালের দিকে এগিয়ে আসল। দুটো ঠোঁট এক হল। কিছুক্ষণ চুমো আদান প্রদান চলল বারৈচার নামহীন এক কলাগাছের বাগানে।

চুমো ভাঙ্গার পরই দুইজন বেশ লজ্জিত হয়ে মুখ ফিরিয়ে নিল। দুইজনই রিফ্লেক্সের বশেই চুমো খেয়েছে, কিন্তু ওদের সাময়িক উত্তেজনা প্রশমিত হতেই লজ্জা গ্রাস করেছে দুইজনকেই। তবে ওদের হাত তখনও একে অপরকে জাপটে ধরে আছিল।

হঠাৎ অন্ধাকারের মাঝে সায়মার মিষ্টি কন্ঠ রিনরিনিয়ে উঠল,

– পরের কাজগুলো বিয়ের পর!

তমাল সায়মার কথায় কিছু কথা না বললেও হাতের বাঁধন আরো শক্ত করল। সাথে সাথে এও বুঝল, নারী মন সে কোনদিনও বুঝতে পারবে না। না ওর মায়ের, না সায়মার। maa panu choti

সায়মা আর তমাল যখন চুমো খাওয়া শুরু করেছিল, তার বেশ কিছুক্ষণ আগ থেকেই কলাবাগানের একটা কোণায় দাড়িয়ে থেকে সব দেখতে শুরু করে রোকেয়া। সায়মাকে তমালের কাছে ও-ই পাঠিয়েছে। তারপর নিজে সায়মার পিছু নিয়েছে। ফলে ওদের চুমো আর কথা সবই রোকেয়া চাক্ষুষ সাক্ষীর মতো দেখেছে, আর শুনেছে।

তমাল যখন সায়মাকে চুমো খায়, তখন অদ্ভুত এক রক্তক্ষরণে কেন জানি রোকেয়ার কান্নার বেগ আপনাআপনিই বাঁধনহারা হয়ে অন্ধকারে নেমে আসছিল…

* * * * *

বিয়ের অনুষ্ঠান আর বৌভাত খেয়ে তমালেরা সীমান্তশা সদরে ফিরত আসবে। সত্যি বলতে কি সীমান্তশায় ফেরা ওদের তিনজনের জীবন তখন তিনদিকে ছুটছিল।

সায়মা, তমালকে স্বামী হিসেবে মেনে নিয়ে সামনের দিনগুলো ভাবতে শুরু করেছিল। তমাল মা আর হবু স্ত্রীর মধ্যকার টানাপোড়ন অনুভব করতে করতে অদ্ভুত এক কনফিউশনে ভুগছিল। আর সবার শেষে রোকেয়া কলাবাগানের তমাল আর সায়মার চুমো খাওয়া দেখার পর থেকে অদ্ভুত এক কষ্টের আগুনে জ্বলছিল। maa panu choti

এভাবেই ঘটনাবিহীন কয়েকদিন কেটে গেল। তারপর আরেকটা পরিবর্তন আসল ওদের জীবনে।

একদিন দুপুরে তমাল কম্পিউটার ব্রাউজ করছিল। ঠিক তখনই রোকেয়ার জন্য স্পেশালভাবে প্রস্তুত করা চটি কালেকশনের ফোল্ডারে ঢুকে পড়ে। আর তারপর প্রায় ঘন্টাখানেক চটি পাঠের পর, তমালের মনে আবার মায়ের জন্য প্রেমরূপ কামনা জেগে উঠে।

তমাল ওর অশান্ত মন আর ধোন নিয়ে ঠিক করে মাকে আবার প্রপোজ করবে। আর যদি প্রপোজে রাজি না হয় তাহলে আজকেই শেষবারের মতো ওদের মধ্যকার সব হিসাব চুকিয়ে দিবে। এভাবে ঝুলে থাকা আর তমালের দ্বারা হবে না। তমাল ওর মায়ের রুমের দিকে এগুবে।

রোকেয়া তখন মাত্র সবে গোছলখানা থেকে বের হয়েছে। ও তখন একটা তোয়ালে দিয়ে মাথার পানি ঝাড়ছিল। ঠিক তখনই তমাল এসে ঢুকে ওর ঘরে।

তমাল যখন ওর মায়ের ঘরে ঢুকেছে মাত্র, ঠিক তখনই তমালদের বিল্ডিংয়ের নিচে এসেছে সায়মা। গতকাল থেকে বেশ কয়েকটা ইউটিউবে পিঠার রেসিপি দেখে এসে আজ সকাল থেকে তা ট্রাই করে, অবশেষে তমালকে খাওয়ানোর জন্য এসেছে সে।

রোকেয়া সায়মাকে ঘরের একটা এক্সট্রা চাবি দিয়েছিল। সায়মা সাধারণত চাবিটা ব্যবহার করে না, কিন্তু আজ তমালকে সারপ্রাইজ দেবার জন্য চাবিটা দিয়ে দরজা খুলে তমালদের বাসায় ঢুকল সে। তারপর সন্তর্পণে তমালের রুমের গিয়ে ঢুকল। সেখানে তমালকে না পেয়ে রোকেয়ার ঘরের দিকে যেতেই অদ্ভুত একটা কথা শুনতে পেল সে। রোকেয়ার ঘরে উঁকি দিতেই সায়মা বিস্ময়ে হতবাক হয়ে গেল। maa panu choti

তমাল তখন মায়ের সামনে সদ্য হাঁটু মুড়ে অনেকগুলো কথা বলে প্রপোজ করেছে,

– মা, আমি আর পারছি না! আমার সায়মাকে বিয়ে করা সম্ভব না! আমি শুধু তোমাকেই চাই মা! আমি তোমাকেই বিয়ে করতে চাই! শুধু তোমাকে!

সায়মা বিস্ফারিত, রোকেয়া আবেগে আপ্লুত আর তমাল অতি উৎসাহী চোখে গোটা দৃশ্যপটে একত্রিত হয়ে থাকল।

রোকেয়া ছেলের দ্বিতীয়বারের মতো কনফেশন আর প্রপোজ শুনে আর নিজেকে ধরে রাখতে পারল না। তমালের সামনে কেঁদে ফেলল। তমাল সাথে সাথে রোকেয়াকে জড়িয়ে ধরে থাকল। সায়মা শরীর শক্ত করে দেখতে লাগল এক অভাবনীয় নাটকের।

তমাল রোকেয়ার চোখের পানি মুছে দিতে লাগল। রোকেয়া কাঁন্না জড়িত গলায় বলতে লাগল,

– আমিও তোকে অনেক ভালবাসি তমাল! শুধু মা হিসেবে নয়, নারী হিসেবেও! সায়মার সাথে তোর বিয়ে আমি মা হিসেবে দিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমার নারী মন তোকে কারো সাথেই ভাগ করতে চাইছে না। আমি এই দুই চিন্তাই দ্বিধাগ্রস্ত তমাল! আমি নিজেও বুঝে উঠতে পারছি না আমি কি করব! maa panu choti

তমাল মায়ের কাঁধে শক্তভাবে ধরে বলল,

– তোমাকে কিচ্ছু ভাবতে হবে না মা! আমিই সব করবো। আমরা এই সীমান্তশা ছেড়ে পালিয়ে যাবো। বুঝেছ? পালিয়ে… পালিয়ে… ঢাকা চলে যাবো। ঠিক ঢাকা চলে যাবো। সেখানে আমাদের কেউই চিনবে না। আমরা সেখানে বিয়ে করে ফেলবো। তারপর.. তারপর…

– কিন্তু সায়মা? ওর কি হবে? ওর সাথে আমরা প্রচন্ড অন্যায় হয়ে যাবে না? আর হাজার হোক আমরা সম্পর্কে মা ছেলে! আমাদের এরকম করা কি ঠিক হবে?

সায়মা দমবন্ধ করে মুখ চেপে নিজের কান্নার দমক আটকাতে লাগল। তবে পুরো ঘটনা হচ্ছে এই! প্রথমদিন থেকে তমালের ওর প্রতি অনীহা, ওর মনে তমালের অন্য কারো সাথে সম্পর্কের সন্দেহ – সবকিছুর মূলে তমালের মা!

সায়মা বিশ্বাস করতে চায় না। পৃথিবীতে এমনও কি কখনও হতে পারে? নিজের মায়ের সাথে, নিজের ছেলের সাথে কেউ কি প্রেম কিংবা শারীরিক সম্পর্কের মতো বিষয়গুলো চিন্তাও করতে পারে?

সায়মার অবিশ্বাসকে গুঁড়িয়ে দিয়ে তমাল ঠিক সেই মুহূর্তেই রোকেয়ার ঠোঁটে চুমো দিলো। সায়মা বিস্ফারিত চোখে দেখতে লাগল যে রোকেয়া ওকে সাদরে গ্রহণ করছে! maa panu choti

সায়মা দেখতে লাগল ওরা মা ছেলে বেশ পেশনেটলি একে অপরকে কিস করছে। ওদের জিহ্বা যেন একে অপরকে গলিয়ে দেওয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছিল। সায়মা গোটা দৃশ্যটা দেখে বমি পেতে লাগল। এই জঘন্য মানুষটাকে ও ভালোবেসেছে?

চুমো ভেঙ্গে রোকেয়া বলল,

– থাম তমাল! থাম! আমি পারছি না! তোকে একান্তে পাবার বাসনা আর আমার ভিতরের মাতৃত্বতে বজায় রাখার লড়াই আমি আর সহ্য করতে পারছি না। কিন্তু তবুও… তবুও… আমি তোকে নিজের করে যেমন পেতে চাই, মা হিসেবে তেমনি চাই তুই সায়মাকে বিয়ে করে সুখী হওয়া দেখতে। তাই… আমাকে কিছুদিন সময় দে, আমি আরেকটু ভাবি! এই বিষয় আমি এত সহজে তোকে উত্তরটা দিতে পারবো না, তাই আর কিছুটা দিন আমাকে সময় দে প্লিজ!

তমাল রোকেয়েরা ঠোঁটে চুমো খেয়ে বলল,

– ঠিক আছে মা। আরো কয়েকটা দিন সময় নাও। কিন্তু আমি জানি আমার ভালোবাসা তোমার কাছে ঠিকই পৌঁছাবে!

তমালের কথা শেষ হতে হতেই সায়মা ওদের বাসা থেকে বের হয়ে গেল। ওর দুই চোখে নির্ঝর ধারা নেমেছে যেন। শক্ত করে হাতের ব্যাগে থাকা পিঠাগুলোকে ডাস্টবিনে ফেলতে ফেলতে নিজের বাড়ির পথ ধরল সায়মা। maa panu choti

নিজের চোখের পানি মুছতে মুছতে যখন রিক্সায় উঠল সায়মা, তখন সে উপলব্ধি করতে পারল এত কিছুর পরও, তমালকে সে কিছুতেই ঘৃণা করতে পারছে না। বরং তমালের প্রতি ওর ভালবাসা যেন কিছুতেই কমতে চাচ্ছে না।

সায়মার চোখমুখ বাতাসের ঝাপটায় বিশুদ্ধ হতে হতে যেন সায়মা আচমকা ওর আর তমালের মিলনের সবচেয়ে বড় বাধাকে আইডেন্টিফাই করল।

রোকেয়া। অন্তত রোকেয়া যতদিন ওদের পথে থাকবে, ততদিন তমাল কিছুতেই সায়মার হবে না। কিছুতেই না। চিন্তাটা সায়মার মাথায় আসতেই আপনাআপনিই ওর চোয়াল শক্ত হয়ে গেল।

মায়ের প্রেমে – 3 by iamilbd

2 thoughts on “maa panu choti মায়ের প্রেমে – 4 by iamilbd”

Leave a Comment