new golpo শেষের পাতায় শুরু – 5 by Pinuram

bangla new golpo choti. শীতকাল, ঠান্ডার আমেজ আকাশে বাতাসে। পরিষ্কার আকাশ আর কোলকাতা মাথায় দেখা যায় না, তাও নীল আকাশের মাঝে সাদা মেঘের ভেলা। সামনের পার্কের বেশির ভাগ গাছাপালা ন্যাড়া হয়ে গেছে। পাখী গুলো যেন বড্ড বেশি কিচির মিচির করছে। মিষ্টি রদ্দুরে মাঝে মাঝে মনে হয় গা ভাসিয়ে কোথাও হারিয়ে যেতে। বাড়িতে সাজ সাজ রব, কয়েক দিন পরেই সঙ্ঘমিত্রার বিয়ে। তেইশ বসন্ত পার করে নিজের ঘরের বিছানায় গা ভাসিয়ে মোবাইলে গল্পে মশগুল সেই তন্বী তরুণী।

আষাড়ের প্রথম বারিধারায় স্নাত যেন এক অধরা গোলাপ। পাতলা গোলাপি ঠোঁট জোড়া ভীষণ কথা বলে, গাল দুটো পিচ ফলের মতন নরম, দুধে আলতা গায়ের রঙ, চওড়া কাঁধ ছাড়িয়ে ঘন চুলের ঢল নেমে এসেছে পিঠের মাঝ পর্যন্ত। অতীব আধুনিকা মেয়ে, কয়েকদিন পরেই বিয়ে তাই চুলে গাড় বাদামি রঙ করিয়েছে সেই সাথে সামনের কয়েক গোছা চুল একটু গাড় লাল রঙের, আজকালের ভাষায় যাকে বলে হাইলাটিং করান। ওর নধর দেহ পেছন থেকে দেখলে মনে হয় যেন এক বালির ঘড়ি।

new golpo

ভীষণ ভাবেই উচ্ছল ওর কাজল টানা চোখ জোড়া। ওর চোখের চাহনিতে কলেজের অনেক ছেলেই পাগল ছিল। সুন্দরী বলে কলেজে বেশ নাম ছিল, অনেক ছেলেই ওর পেছনে পড়েছিল কিন্তু কারুর সাথে বেশি মেলামেশা করেনি কোনদিন। পরনে ঢিলে একটা গেঞ্জি আর আঁটো জিন্সের হাফ প্যান্ট, প্যান্টটা সঙ্ঘমিত্রার সুগোল পাছার ওপরে দ্বিতীয় ত্বকের মতন লেপে গিয়ে আকার অবয়াব অতি সুন্দর ভাবেই ফুটিয়ে তুলেছে।

গোল গলার ঢিলে টি শারটটা বাঁ কাধের নিচে নেমে গেছে, উন্মুক্ত বাম কাঁধের ওপরে লাল ব্রার স্ট্রাপ বেড়িয়ে পরেছে। উপুড় হয়ে শুয়ে থাকার ফলে দেখলে মনে হবে যেন ধবধবে সাদা বিছানায় যেন এক জল পরী শুয়ে। কোলকাতার এক প্রাইভেট কলেজ থেকে এই বছরেই এম-বি-এ পাশ করেছে। বিয়ে করছে নিজের পছন্দের ছেলে পার্থকে, এক বছরের প্রেম, তাও যেন মনে হয় কত যুগ ধরে ওদের চেনা জানা। new golpo

ওদের বিয়ে নিয়ে বাড়িতে খুব ঝামেলা হয়েছিল, বিশেষ করে বাবা ওদের বিয়েতে রাজি ছিলেন না, কারণ পার্থ ব্যাবসায়ি পরিবারের ছেলে। ভীষণ জেদি মেয়ে, অনেক ঝগড়া ঝাটির পরে বাবা মা ওদের সম্পর্ক মেনে নিয়েছে।

“কি করছ?” ফোনের অন্য পাশ থেকে জিজ্ঞেস করে পার্থ।

ফোন ঠোঁটের কাছে চেপে ছুড়ে দেয় এক মিষ্টি মধুর চুম্বন, “মুয়া আ আ আ… এই ত তোমাকে চুমু খাচ্ছি।”

অন্যপাশ থেকে ভেসে আসে এক চুম্বনের শব্দ, “কাল চলে এসো, পরেশের ফ্লাটে একটা পারটি করছি।”

কপট রাগ দেখায় সঙ্ঘমিত্রা, “ধ্যাত কি যে বল না তুমি, মা আমাকে ছাড়বে না একদম। কি বলে আসব? আর ত কয়েকটা দিন ডারলিং ব্যাস তারপর শুধু আমি আর তুমি।”

কাতর মিনতি করে পার্থ, “প্লিজ, তুমি ঠিক ম্যানেজ করে নেবে জানি।” গলা নামিয়ে বলে, “কতদিন তোমাকে চটকে আদর করিনি বলত?” new golpo

কথাটা শুনেই শরীরের প্রতিটি রোমকূপ সজাগ হয়ে ওঠে ওর, প্রথম যেদিন ওর টপের মধ্যে হাত গলিয়ে উষ্ণ কোমল স্তন জোড়া হাতের মধ্যে নিয়ে আলতো চটকে দিয়েছিল, সেদিন পাগল হয়ে গিয়েছিল সঙ্ঘমিত্রা। তারপরে যেদিন টপ খুলে ব্রার ওপর দিয়েই চুমু খেয়েছিল ওর সুগোল স্তনের ওপরে সেদিন পার্থর মাথা চেপে ধরেছিল নিজের উষ্ণ কোমল স্তনের সাথে, কামোত্তেজনায় সারা অঙ্গ ছটফটিয়ে উঠেছিল।

বিছানায় ওলট পালট খেয়ে খিলখিল করে হেসে বলে, “আচ্ছা বাবা আচ্ছা, আমি আসব।”

পার্থ অন্য পাশ থেকে ফিসফিস করে বলে, “কালো প্যান্টিটা পরে এস কিন্তু, বড্ড সেক্সি দেখায়।”

কথাটা কানে যেতেই কামোত্তেজনায় কেঁপে ওঠে সঙ্ঘমিত্রা, সম্পূর্ণ সঙ্গমে মেতে ওঠেনি পার্থর সাথে তবে, সেদিন কালো প্যান্টির ওপর দিয়েই ওর কোমল ফোলা যোনির ওপরে আঙ্গুল দিয়ে ডলে পিশে একাকার করে দিয়েছিল। সারা শরীর ভীষণ সুখের উত্তেজনায় বারেবারে শিহরিত হয়ে ওঠে। কামাতুরা তন্বী তরুণী সুগোল মসৃণ দুই ঊরুর মাঝে বালিশ চেপে, মিহি কন্ঠে অনুরাগ প্রকাশ করে বলে, “ধ্যাত শয়তান, যাবো না যাও।” new golpo

কাতর মিনতি করে পার্থ, “প্লিজ সোনা এমন করে না, প্লিজ, বলছিত কয়েকজন বন্ধু মিলে পারটি করব, সত্যি বলছি অমন কিছুই করব না তোমার সাথে।”

কথা বলতে বলতে নিজের হাত চলে যায় বুকের ওপরে, টপের ওপর থেকেই নিজের উষ্ণ সুগোল স্তন চেপে ধরে। প্রেমিকের সাথে কথা বলতে বলতে স্তনের বোঁটা জোড়া নুড়ি পাথরের মতন শক্ত হয়ে উঠেছে। নিজের তালুর চাপেই হাঁসফাঁস করে ওঠে আঁটো ব্রার মধ্যে বন্দি স্তন জোড়া। গলা নামিয়ে জিজ্ঞেস করে, “তোমার দাঁড়িয়ে গেছে নাকি?”

অন্যপাশের থেকে হাসি ভেসে আসে, “হাতে ধরে বসে আছি গো। গতকাল রাতে তুমি যে সেলফিটা পাঠিয়েছ না মাইরি…”

সেটা শুনতেই কান লাল হয়ে যায়, পার্থ ভীষণ ভাবে নাছরবান্দা জুড়ে দিয়েছিল গতকাল রাতে, একটা সেলফি চাই। শেষ পর্যন্ত বাথরুমে ঢুকে শুধু মাত্র ব্রা আর প্যান্টি পরে মোবাইলে একটা ছবি তুলে পাঠাতে হয়েছে ওকে। “ইসসস, যাও শয়তান, ওটা কিন্তু এখুনি ডিলিট করে দেবে।” সঙ্ঘমিত্রার পায়ের মাঝে কিঞ্চিত শিরশিরানি ধরে আসে। ঊরুর মাঝের বালিশটাকে দুমড়ে মুচড়ে একাকার করে দেয়। new golpo

পার্থ বলে, “উম্মম ডারলিং, তোমার পায়ের মাঝে ফোলা দেখলেই মাথা খারাপ হয়ে যায়। আচ্ছা তুমি শেভ করেছ ত নাকি জঙ্গলে এডভেঞ্চার করতে যেতে হবে?”

কান লাল হয়ে যায় সঙ্ঘমিত্রার। সকালেই স্নান করার সময়ে সম্পূর্ণ যোনিকেশ কামিয়ে মসৃণ করে নিয়েছে। কামিয়ে ফেলার পরে কেমন যেন নিজের দেহের প্রতি আকর্ষণ বেরে যায় ওর, হ্যান্ড শাওয়ার দিয়ে ধুতে ধুতে দুই আঙ্গুল দিয়ে ডলে দেয় যোনির চেরা, শিক্ত হয়ে উঠেছিল ওর কোমল যোনি। সেই সব ভাবতেই ভীষণ ভাবে উত্তেজিত হয়ে ওঠে, “শয়তানি রাখো ত। তুমি জঙ্গলে যাবে না ময়দানে যাবে সেটা এখন জেনে কি দরকার। নিজের দিকটা দেখো, সময় মতন যেন ঠিক করে দাঁড়াতে পারে সেটার চিন্তা কর।” বলেই খিলখিল করে হেসে ফেলে।

এমন সময়ে দরজায় মায়ের গলা পেয়েই ধরমর করে উঠে বসে সঙ্ঘমিত্রা, “ঝিনুক একবার এদিকে আয়।”

জামা কাপড় ঠিক করে পার্থকে বিদায় জানিয়ে ঘর ছেড়ে বসার ঘরে ঢুকে মাকে জিজ্ঞেস করে, “কি হয়েছে এত জোরে চেল্লাচ্ছ কেন?”

পীয়ালি বড়মেয়ের আপাদ মস্তক নিরীক্ষণ করে খানিকটা ধমক দিয়েই বলে, “বিয়ের বাড়ি, যেকোনো সময়ে কোন আত্মীয় সজ্জন এসে পড়বে। তোকে বারবার বলি সালোয়ার কামিজ পর কিন্তু তুই কিছুতেই শুনবি না।” এদিক ওদিক তাকিয়ে ছোট মেয়ে শকুন্তলার খোঁজ করে পীয়ালি, “এই ঝিলিক আবার কোথায় গেল, দেখেছিস?” new golpo

পীয়ালির, ছোট মেয়ে ঝিলিক পড়াশুনায় ভালো, ক্লাস ইলেভেনে সায়েন্স নিয়ে পড়ছে। সেও বর্তমান যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আধুনিকা। ঠিক তখনি ঝিলিক মাকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে আবদার করে, “মম, দিদির বিয়েতে আমার এক বান্ধবীকে ইনভাইট করতে চাই।”

পীয়ালি বলে, “করিস তাতে অসুবিধে কোথায়?”

ঝিলিক বলে, “মম, দিয়া আমার বেস্ট ফ্রেন্ড মম, প্লিজ ওদের ফ্যামিলিকেও ইনভাইট কর।”

একটু ভেবে পীয়ালি বলে, “আচ্ছা বাবা তাই হবে। আজ বিকেলে তোর দিদির ব্রেসলেট যখন পাল্টাতে যাবো তখন না হয় ওদের বাড়ি যাবো।” ছোট মেয়ের পোশাকের ওপরে নজর বুলিয়ে আক্ষেপের সুরে বলে, “তোদের দুটোকে কে নিয়ে একদম পারি না। বলি কাজের বাড়ি তাও তোরা শুনবি না কিছুতেই।”

ঝিলিকের পরনে ওর দিদির মতন একটা ঢিলে টিশারট আর ছোট হাফ প্যান্ট। নিজের পোশাকের দিকে দেখে মাকে বলে, “যাঃ বাবা এতে খারাপ কোথায়? বাইরে ত যাচ্ছি না।” new golpo

কপালে কড়াঘাত করে পীয়ালি, “তোর বাবা আসুক তারপরে দেখিস।” বলে ঘর ছেড়ে বেড়িয়ে যায়। ইতিমধ্যে দুরের দুয়েক জন আত্মীয় বাড়িতে এসে গেছে।

বিকেলে দুই মেয়েকে নিয়ে বউবাজারে যায় পীয়ালি। ঝিনুকের কোন ব্রেসলেট পছন্দ হয় না, এটার ডিজাইন ভালো নয়, ওটা ভালো নয় ঠিক পছন্দ হচ্ছে না। বেশ কয়েকটা দোকান ঘোরার পরে অবশেষে সুন্দরী কন্যের গয়না পছন্দ হয়। গয়না কেনার পরে ঝিলিকের আবদার মেনে ওর বান্ধবীর বাড়ির দিকে রওনা দেয় ওরা। ওদের গাড়ি ঢাকুরিয়া ঢুকতেই ভ্রু কুঁচকে এপাশ অপাশ দেখে পিয়ালী। বড় মেয়ে কানে হেডফোন গুঁজে কোন ইংরেজি গানে মশগুল, ছোট মেয়ে তার বান্ধবীর সাথে ফোনে তাদের বাড়ির পথ জেনে নিচ্ছে।

সেই নির্দেশ মতন ড্রাইভার ঝিলিকের বান্ধবীর বাড়ির সামনে গাড়ি থামায়। বাড়ির দিকে তাকিয়ে, এক লহমায় হৃদস্পন্দন বেড়ে যায় পীয়ালির। অনেক বছর আগে এই বাড়িতে ওর বেশ আনাগোনা ছিল, ওর প্রিয় বান্ধবী থাকত এই বাড়িতে। সেই প্রানের বান্ধবীর সাথে বহু বছর কোন যোগাযোগ নেই, কেন সেই বান্ধবী এই শহর ছেড়ে চলে গিয়েছিল সেটা আজ পর্যন্ত ওর অজানা। new golpo

কাঁপা কন্ঠে ছোট মেয়েকে জিজ্ঞেস করে, “তোর বান্ধবীর নাম কি রে?”

ঝিলিক উত্তর দেয়, “দ্বিপানিতা, ডাক নাম দিয়া।”

গাড়ি থেকে নেমে পীয়ালি জিজ্ঞেস করে, “তোর বান্ধবীর মায়ের নাম কি জানিস?”

অবাক হয়ে প্রশ্ন করে ঝিলিক, “না সেটা ত কোনদিন জিজ্ঞেস করিনি। কিন্তু ওর মায়ের নাম কেন জিজ্ঞেস করছ বলত?”

ওর চোখ জোড়া ক্ষণিকের জন্য ঝাপসা হয়ে আসে, মেয়ের দিকে তাকিয়ে মিষ্টি হেসে বলে, “না কিছু না, অনেক পুরানো দিনের কথা মনে পরে গেল এই বাড়িটা দেখে তাই।”

দিয়া ওদের জন্য বারান্দায় অপেক্ষা করছিল, গাড়ি থেকে ঝিলিক আর তার দিদি আর মাকে দেখতে পেয়েই দৌড়ে নিচে নেমে এসে দরজা খুলে দেয়। দিয়া, পীয়ালির পায়ে হাত দিয়ে প্রনাম করতেই থমকে যায় পীয়ালি। দিয়ার মাথায় হাত বুলিয়ে আশীর্বাদ করে। দিয়ার চোখ জোড়া ভীষণ উজ্জ্বল ঠিক নীলাদ্রির মতন দেখতে। হাতে হাত রেখে এক প্রকার টানতে টানতেই দিয়া আর ঝিলিক বাড়ির মধ্যে ঢুকে পায়। ঝিনুক তার মায়ের মনের ভাব বুঝতে পেরে একটু অবাক হয়ে মাকে জিজ্ঞেস করে তার কারণ। new golpo

ওর অলক্ষ্যে চোখের কোনা মুছে হেসে সেই প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে যায়। এক পা এক পা করে বাড়ির মধ্যে ঢুকতে ঢুকতে পীয়ালির হৃদ স্পন্দন বেড়ে ওঠে। বসার ঘরে ঢুকতেই থমকে যায় পীয়ালি। দেয়ালে ঝুলানো একটা ছবিটা দেখে আর চোখের জল সামলাতে পারে না, ছবিটায় আম্বালিকা ছোট রিশুকে বুকের মাঝে জড়িয়ে ধরে। কোন রকমে চোখের জল সামলে রেখে সোফায় অধীর অপেক্ষায় বসে পরে।

সঙ্ঘমিত্রা ঘাড় ঘুরিয়ে বসার ঘর দেখে একটু অবাক হয়ে যায়, শুধু মাত্র এই বসার ঘরেই ওদের ফ্লাটের অধিকাংশ এসে যাবে। মাকে বারংবার প্রশ্ন করে হটাত করেই মায়ের চোখে কেন জল এসেছে। দিয়া আর ঝিনুক ততক্ষণে ওদের ছেড়ে হারিয়ে গেছে বাড়ির মধ্যে। বড় মেয়ের প্রশ্নের উত্তরে বাক্যা হারা পীয়ালি, কোন উত্তর দেওয়ার মতন শক্তি নেই ওর শরীরে, চুপ করে সোফায় বসে চোখের কোল মুছতে মুছতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে বসে থাকে ওর বান্ধবীর। new golpo

কিছু পরে ঝিলিক আর দিয়ার পেছন পেছন আম্বালিকা বসার ঘরে প্রবেশ করে। পীয়ালির দিকে তাকাতেই আম্বালিকার পা জোড়া মাটিতে আটকে যায়, কন্ঠ রুদ্ধ হয়ে আসে, দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে আসে ওর, সত্যি কি ওর সামনে ওর ছোট বেলার সেই বান্ধবী পীয়ালি বসে।

সোফা ছেড়ে উঠে দাঁড়িয়ে এগিয়ে যায় পীয়ালি, “তুই কেমন…” কথাটা শেষ করতে পারল না পীয়ালি।

আম্বালিকা ওকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে ফেলে, “তুই সত্যি…”

তিনটে মেয়ে নিজেদের মায়ের দিকে তাকিয়ে স্তম্ভিত হয়ে যায়। দুই মহিলা যে নিজেদের পুরানো বান্ধবীকে খুঁজে পেয়েছে সেটা ওদের বুঝতে বেশি দেরি হয় না। এক অদ্ভুত খুশির আমেজে ঘর ভরে যায়। দিয়া আর ঝিনুকের খুশির সীমানা থাকে না, ওরা দুজনে যেমন প্রানের বান্ধবী ঠিক তেমন ওদের মায়েরাও প্রানের বান্ধবী। দুই বান্ধবী নিজেদের পুরানো গল্প স্মৃতি চারনে মশগুল হয়ে যায়।

পীয়ালি বলে, যে আম্বালিকা চলে যাওয়ার পরে নীলাদ্রি বেশ কয়েকবার ওদের বাড়িতে এসেছিল ওর খোঁজ নেওয়ার জন্য, কিন্তু সেই খবর ওর কাছে ছিল না। বেশ কয়েক বছর পরে পীয়ালির বিয়ে হয়ে যায় সোমনাথের সাথে। সোমনাথ তখন রানীগঞ্জে এক কোলিয়ারি তে চাকরি করত, বিয়ের পর পীয়ালি ও কোলকাতা ছেড়ে চলে যায়। new golpo

বছর দশেক আগে সোমনাথের ট্রান্সফার হয় কোলকাতা হেডঅফিসে, সল্টলেকে একটা ফ্লাট কিনেছে সেখানেই থাকে। ঝিনুক ওদের বড় মেয়ে, কয়েক দিন পরেই ঝিনুকের বিয়ে। সেই সুবাদে ছোট মেয়ে ওদের নেমন্তন্ন করতে এসেছিল। আম্বালিকা ঝিনুকের মাথায় গালে হাত বুলিয়ে আশীর্বাদ করে, “ভালো থাকিস মা, আশীর্বাদ করি তুই যেন সুখী হস।”

পীয়ালি জিজ্ঞেস করে, “তোর ভাই এখন কি করছে?”

আম্বালিকা স্মিত হেসে বলে, “রিশুর কথা বলছিস? সে অনেক কথা।” গলা নামিয়ে কানে কানে বলে, “ও আর আমার সেই ছোট ভাই নেই, এখন ও আমার বড় পুত্র।”

আম্বালিকার কথা শুনে কিঞ্চিত আশ্চর্য হয়ে যায় পীয়ালি, কি করে এক দিদি “মাম্মা” তে পরিনত হয়েছে সেই কাহিনী বলতে শুরু করে পীয়ালিকে। দিল্লীর সব থেকে বড় মেডিকেল কলেজের অরথপেডিক সারজেন শুনে আরো বেশি অবাক হয়ে যায়। ওদের গল্প যেন আর শেষ হতে চায় না, অনেক বছর পরে দুইজনের দেখা। ইতিমধ্যে নীলাদ্রিও অফিস থেকে চলে আসার পরে ওদের গল্প গুজব আরো জমে ওঠে। দিয়া আর ঝিলিক নিজেদের নিয়েই বেশি ব্যাস্ত হয়ে পরে। new golpo

ঝিনুক ফোনে পার্থর সাথে গল্প করতে করতে ঘুরে ঘুরে বাড়িটা দেখে। ঝিলিক আবদার করে, যেহেতু ওর মা আর আম্বালিকা আন্টি দুই বান্ধবী সেহেতু বিয়ের কয়েকটা দিন দিয়া ওর সাথেই থাকবে। পীয়ালিও খানিক আবদার করে, এতদিন পরে খুঁজে পাওয়া বান্ধবী সুতরাং জোর একটু বেশি খাটবে। সম্মতি পেতেই দুই বান্ধবীর খুশির সীমানা থাকে না। পীয়ালি ফিরে যাওয়ার আগে আম্বালিকা জানায় যে পরের দিন বিকেলে সবাইকে নিয়ে ওদের বাড়িতে বেড়াতে যাবে।

শেষের পাতায় শুরু – 4 by Pinuram

3 thoughts on “new golpo শেষের পাতায় শুরু – 5 by Pinuram”

  1. dada, apner lakha onak valo, eto sundor vasa er beboher khub kom dakchi. ami hoy to apnak chini na tobe, apner lakha er dhoron dakhe mone hoy age kothaw lakha-lakhi korten ba boi lakhen. “ses er patai suru” ei golpo ta ke choti er moto likhben na pliz. ei golpe choti dukile golper shape nostow hoye jabe. baki ta ampner iccha.

    Reply
    • Lekhek e janen age ki hobe. golpoti likhechen “Pinuram“. Thank You. Eti Ekti romantic golpo….. Ami post korechi choti golper moddhe ekta onno dhorener flavour anar jonno….

      Reply

Leave a Comment