paribarik choti কামাগ্নি- 1 By Kamonamona

bangla paribarik choti. আমি মোকতার হুসেন মিশু,বয়স ২৪,উচ্চতা ৬’।
৫ বছর আগে আর্মিতে ভর্তি হয়েছি,
বর্তমান পোস্টিং রাঙ্গামাটি।

বাড়ী রাজশাহী।
বাড়ীতে মা আর ছোট একটা বোন আছে,
বাব মোশারফ হুসেন, অনেক আগে মারা গেছে,আমি তখন নাইনে পড়ি আর ছোট বোনটা ফাইবে।
তখন থেকে মা নিজে সংগ্রাম করে সংসার চালিয়েছে,ঘরে বসে সেলাইমেশিন দিয়ে মানুষের কাপড় বানিয়ে বানিয়ে আমাদের ভরনপোষণ করেছে,কিছু চাষের জমি ছিলো তাই রক্ষে।
না-তো আমার চাচা কাকারা যেমন হারামী এক মুঠো ভাত তুলে দেওয়ার মানুষ ছিলো না।

paribarik choti

নানা নানী দাদা দাদী অনেক আগেই পটল তুলেছে,মামা মামীরা কিছুটা সহযোগিতা করেছে, তাও না-করার মতো,
করেছে যাতে মা যা ভাগে পেতো তা লিখিয়ে নিতে পারে।
আমার ভোলি মা সরল মনে তা দিয়েও দিয়েছে।
যা হোক আমি কলেজে ভর্তি হয়েছি কেবলই,
এমন সময় শুনলাম আর্মিতে লোক নিবে।

মা’কে বলে লাইনে দাঁড়িয়ে গেলাম।
আমার নিজের উপর ভরসা ছিলো,
কারন আমি মোটামুটি সব দিকেই ফিট্।
যেমন উচ্চতা তেমন বডি,মা বলে আমি আমার নানা মামাদের মতো হয়েছি, ঠিক পালোয়ান। paribarik choti

বাবা কাকারা তো একেকটা টিনটিনে, সব কয়টা শুধু বদের হাড্ডি।
যা হোক ভালোই ভালোই টিকে গেলাম।
বাড়ীতে খুশির ঢোল বেজে উঠলো,

সবাই বলা বলি করলো, যাক ছেলেটা কাজে লাগলো এখন যদি সোনালীর কষ্ট দুর হয়।
হা আমি আমার মা’র কষ্ট দুর করার জন্য কোন দিকে না তাকিয়ে খেলাধুলা করার বয়সে চাকরিতে চলে গেলাম।
গ্রামের বাড়ী হওয়াতে ভয়ের কিছু নেই,আশে পাশে তো কাকা চাচারা আছে।

বর্তমান —
বোন সারমিন আক্তার ১৯, ইন্টার সেকন্ড ইয়ারে পড়ে,বাবার মতো টিন টিনে কাঠি,
আমারই এমন মেয়ে পচ্ছন্দের না,
জানি না অন্য ছেলে কি বাল পচ্ছন্দ করবে। paribarik choti

মা সোনালী বেগম,বয়স মনে হয় ৪১- বা ৪২ হবে, দারুন দেখতে,এখনো যুবতী মেয়েদের সাথে পাল্লা দিতে পারবে,।
ভরাট দেহ,ফর্সা লাল টকটকে, মা’র দিঘল কালো চুল ঘনো মেঘের ভেলা, এতো ঘনো লম্বা চুল যে তা সারা পিঠ বেয়ে কোমর ছড়িয়ে নিচে নেমে যায়।
মা’র পেটের ভাজ দেখলে যে কেও অবাক হয়ে চেয়ে থাকবে।

মা বসে কাজ কাম করলে পিঠের দুই সাইডেও চামড়ার ভাজ পড়ে,যা ব্লাউজের নিচ থেকে শুরু হয়।
অনেক দিন মা সেলাই করছে আর আমি পিছোনে দাঁড়িয়ে এটা ওটা করার বাহানায় তা দেখছি,
মা’র দুধ দুটো এতো ভরাট যে মনে হয় সারা বুক জুড়ে ছড়িয়ে থাকে,যেদিন যেদিন খাবার বেড়ে দেওয়ার সময় ক্লিভেজ দেখতে পেয়ে যায়,
সেদিন তো দিনটায় রঙিন হয়ে যায়। paribarik choti

paribarik choti ৩৬ সাইজের দুধ আর ৪০ সাইজের পাছা,৩২ সাইজের কোমর,ভিষণ সেক্সি লাগে দেখতে।
লাল টকটকে ঠোঁট আর টানাটানা চোখ,
সব মিলিয়ে আমার কামনার নারী আমার জন্মদানকারি বিধবা নধর যৌবনা রসালো মা।
যা চরম পাপ,যা কখনো পাওয়ার নয়,।

সবই জানি, সবই বুঝি,তারপরও মনের কোথায় যেন সোনালীকে নিয়ে স্বপ্নের নীড় রচনা করি।
যেখানে মা নয় সে আমার সোনালী,শুধু সোনালী।
আমার মনের এ গোপন চাওয়ার কথা শুধু আমি জানি। paribarik choti

আমার সরকারি বেতনে মা’র রুপ যেনো দিনকে দিন বেড়েই চলছে।
মা’র গর্বে বুক সব সময় ফুলে থাকে,
গ্রামে সব সময় আমার জয় জয়কার।

পাঁচ বছরে ভাঙা ঘর পাকাঁ করেছি,
এখন চার রুমের বাড়ীটা আমাদের শান্তির নীড়।

এবার ছুটিতে এসেই মা বাইনা শুরু করলো আমার বিয়ে দিবে।
যদিও এটা অনেক আগে থেকেই চলছে।
আমি শুধু বার বার এড়িয়ে যাচ্ছি,
আজ এ নিয়ে মা’র সাথে মুখ কালাকালি হয়ে গেলো। paribarik choti

মা’র এক কথা সারমিন বড়ো হয়েছে বিয়ে দিতে হবে,এরি মাঝে কয়েকটা সম্বন্ধ এসেছিলো,
তার বিয়ে হয়ে গেলে সে একা একা কিভাবে থাকবে,হ্যান ত্যান কতো কথা।
আমি এসেছি শুনে ছোট মামা এলো,সারাদিন থেকে বিকেলে যাওয়ার সময় আমাদের সবাইকে নিয়ে যেতে চাইলো,আমরা না যাওয়াতে জোর করে সারমিনকে নিয়ে গেলো,বললো দু’দিন পর মা বেটা গিয়ে বেড়িয়ে আসবে আর সারমিনকে নিয়ে আসবে,,
আমাকে আর মা’কে নিয়ে যাওয়ার জন্য আর কি এমনটা করলো।

সন্ধ্যা থেকে আকাশটা মেঘলা হয়ে আছে দেখে বাইরে গেলাম না,।
না হলে দু’দিন থেকে এসে সন্ধ্যার পর বন্ধুদের সাথে আড্ডা মারতে বেরিয়ে পড়ি।
আজ গেলাম না দেখে মা-ও খুব খুশি।
গরম গরম পকোড়া ভেজে দিলো।
বিছানায় বসে মা বেটা মিলে আরাম করে খাচ্ছি। paribarik choti

মিশু?
হু মা?
কাউকে পচ্ছন্দ করিস?
আমি মা’র মুখের দিকে তাকিয়ে মুচকি মুচকি হাসছি।

বল না করিস?
করলে এতোদিন তুমি জানতে না,তবে হা এক জন’কে খুব ভালো লাগে,এবং এ-ও জানি তাঁকে আমি পাবো না।
কেন কেন পাবিনা,আমার ছেলে কি দেখতে খারাপ,কোন লাটসাহেবে বেটি সে রে?
হা হা তুমি দেখি রেগে গেলে। paribarik choti

রাগবো না,এমন সোনার ছেলে আমার,
আর কি না —বল তুই কে সে?
বাদ দাও মা,আমার যাকে ভালো লাগে তার কথা দুনিয়ার কাওকে বলতে পারবো না,শুধু খোদাকে ছাড়া।
মা আমার এমন গম্ভীর কথা শুনে অবাক হয়ে চেয়ে রয়েছে।
এটা কি কথারে বাবা,আমাকে বলতে না পারিস তোর ভাবি মানে রাসেলের বউয়ের কাছে বলিস তুই।

না মা,তা না,তুমি আমার সব চেয়ে বড়ো বন্ধু, তোমাকেই যেহেতু বলতে পারছি না সেখানে বলতে গেলে তারা তো আমাদের শত্রু,তাদের বলতে যাবো কেন?

গল্পটি পাঠিয়েছেন : Kamonamona
আপনারা গল্প পাঠাতে পারেন [email protected] অথবা ওপরের গল্প পাঠান লিংক এ ক্লিক করে।

লেখক কে উৎসাহ দিতে দয়া করে কমেন্ট করে জানাবেন কেমন লাগলো।

পরের পর্ব

কামাগ্নি- 2 By Kamonamona

এই গল্পটাও পরে দেখতে পারেন

আমার প্রথম সেক্স টিচার

1 thought on “paribarik choti কামাগ্নি- 1 By Kamonamona”

Leave a Comment