romantic golpo pdf শেষের পাতায় শুরু – 16 by Pinuram

bangla romantic golpo pdf choti. রিশু বেড়িয়ে যাওয়ার পরে দরজা বন্ধ করতেই ভেঙ্গে পরে ঝিনুক, এযে একটা কারাগরে এসে পড়েছে। ছোট ফ্লাট বলে নয়, ওর যেন মনে হচ্ছে ওকে কোন তেপান্তরের মাঠ ছাড়িয়ে দুর কোন এক মহলের এক খাঁচায় বন্দী করে রেখে দেওয়া হয়েছে। পরনে শুধু টপ আর স্লাক্স ছিল তাই ঠান্ডা লাগছিল ওর, বড় ঘরটায় ঢুকে লেপ জড়িয়ে চুপচাপ বিছানায় বসে পরে। বারে বারে ওর মাথায় শুধু ঘোরে কেন ওর সাথেই এমন হল।

রানীগঞ্জে থাকাকালীন ও হাসতে জানত খেলতে জানত, বড় হওয়ার পরে চঞ্চলমতী হয়ে ওঠে, সুন্দরী বলে যেহেতু কলেজে বেশ নামডাক ছিল তাই ওর নাকের ডগায় একটা অহম ভাব সর্বদা থাকত। উপরওয়ালা কি এর শাস্তি দিয়েছে ওকে? কি দেখেছিল পার্থের মধ্যে যে ও পার্থের প্রেমে পড়েছিল? ছেলেটা হাসিখুশি ছিল, যখন ইচ্ছে তখন ওর কলেজের সামনে চলে আসত বাইক নিয়ে, কলেজ ফাঁকি দিয়ে বেড়িয়ে পড়ত ওর সাথে ঘুরতে।

romantic golpo pdf

কোলকাতা চষে বেড়িয়েছে ওর বাইকের পেছনে বসে, এমনকি কয়েকবার কোলকাতার বাইরে পর্যন্ত গেছে ওর সাথে তবে রাতে থাকেনি। ওদের মধ্যে কি ভালোবাসা ছিল নাকি শুধু মাত্র পার্থের উচ্ছন্ন জীবন যাপনের প্রতি একটা টান ছিল। নতুন জীবন, নতুন ভাবে যুদ্ধ শুরু হবে এবারে। যার সাথে বিয়ে হয়েছে, রিশু, সে কেমন হবে? সে ওর অতীতের অনেক কিছুই জানে আবার অনেক কিছুই ওর অজানা।

সম্পূর্ণ অর্থে পার্থের সাথে শারীরিক সম্পর্ক হয়নি যদিও, কামোত্তেজনার প্রবল আকর্ষণে বেশ কয়েকবার শুধু মাত্র ব্রা পান্টি পরিহিত অবস্থায় ওদের শরীর নিয়ে খেলা চলেছে। যদি রিশু জানতে পারে যে পার্থের সাথে শারীরিক সম্পর্ক ছিল ওর তাহলে সত্যি কি ওকে মন থেকে মেনে নেবে? রিশুর অতীতে এক প্রেমিকা ছিল, চন্দ্রিকা, তার সাথে কি রিশুর শারীরিক সম্পর্ক ছিল? হাজার প্রশ্ন মনের আঙ্গিনায় ভর করে আসে ওর। এই সব ভাবতে ভাবতে কখন যে আবার ঘুমিয়ে পড়েছিল সেটা খেয়াল নেই ওর। ঘুম ভাঙ্গে ফোনের আওয়াজে। romantic golpo pdf

ফোন তুলে দেখে রিশুর মা, আম্বালিকা আন্টি ফোন করেছে। ঝিনুক ঘুম জড়ানো কন্ঠে উত্তর দেয়, “হ্যালো…”

আম্বালিকা জিজ্ঞেস করে, “ঘুমাচ্ছিস, রিশু বেড়িয়ে গেছে?”

ছোট উত্তর দেয় ঝিনুক, “হ্যাঁ।”

আম্বালিকা ওকে জিজ্ঞেস করে, “রাতে ঠিক ভাবে ঘুম হয়েছে?”

মাথা দোলায় ঝিনুক, “হ্যাঁ একটু হয়েছে।”

ঝিনুকের গলার আওয়াজে ব্যাথা অনুধাবন করতে অসুবিধে হয়না আম্বালিকার, “মন খারাপ?”

চোখের কোনা উপচে আসে ঝিনুকের, মাথা দোলায়, “হুম।”

আম্বালিকা স্মিত হেসে জিজ্ঞেস করে, “যেটা পাসনি তার জন্য মন খারাপ? মনে কর তুই পথ চলতে গিয়ে হটাত করে গোবরে পা দিয়ে দিয়েছিস, তারপর কি আর সেই পা নিয়ে তুই সারাদিন থাকবি? মোটেও নয়, বাড়ি এসে তুই পা ধুয়ে নিবি, তাই না।” romantic golpo pdf

আম্বালিকা আন্টির স্বান্তনা বাক্যে বুকে একটু বল পায় ঝিনুক, মাথা দুলিয়ে বলে, “হ্যাঁ।” পার্থ ওকে কোনদিন ভালোই বাসেনি, শুধু ওর শরীর আর টাকাই দেখে গেছে।

ডান হাতের উলটো পিঠ দিয়ে চোখ মুছে ঝিনুক বলে, “খুব একা লাগছে মামনি।” বলেই ডুকরে কেঁদে ফেলে।

নতুন বোউমার মুখে মামনি ডাক শুনে বুক ভরে আসে আম্বালিকার। চোখ বুজে থাকে কিছুক্ষন, ঝিনুকের বুকের বেদনা বুঝতে পেরে সান্ত্বনা দিয়ে বলে, “কেন একা লাগছে তোর? আমি আছি তোর পাশে, এই দ্যাখ কেমন আমার সাথে কথা বলছিস। মন খারাপ করলেই আমাকে ফোন করিস। দিয়া আর ঝিলিক সাথে গল্প করিস, সব ঠিক হয়ে যাবে।” একটু থেমে আম্বালিকা ওকে বলে, “তুই আমার মিষ্টি মেয়ে তাই না! বুক ভরে শ্বাস নে, আর নিজেকে বল যে এক নতুন ঝিনুক হয়ে তুই দেখাবি।”

মাথা দোলায় ঝিনুক, “হ্যাঁ।”

আম্বালিকা হেসে বলে, “জোরে বল…”

কাঁদতে গিয়েও হেসে ফেলে ঝিনুক, “হ্যাঁ মামনি আমি নতুন ঝিনুক হয়ে দেখাব।”

ঝিনুক কে উৎসাহিত করার জন্য বলে, “এই ত আমার সোনা মেয়ে। তুই জানিস যখন একটা ঝিনুকের মধ্যে এক কণা বালি ঢুকে পরে তখন সেই বালির কি হয়?” romantic golpo pdf

মাথা দোলায় ঝিনুক, ঝিনুকের মধ্যে বালির কনা ঢুকে গেলে কি হয় সেটা ও জানে, কিন্তু আম্বালিকা আন্টি কোন পরিপ্রেক্ষিতে এই উক্তি করছেন সেটা অনুধাবন করতে সক্ষম হয় না।

আম্বালিকা ওকে বলে, “সেই বালির কনার ওপরে ঝিনুক নিজের লালার পরত লাগিয়ে সেটাকে মুক্তো করে তোলে। তোর এই বুকের মধ্যে যে বালি কণা ঢুকেছে সেটার চারপাশে নিজের আত্মবিশ্বাস আর মনের শক্তি দিয়ে গড়তে হবে এক মুক্তো।” মনে মনে মাথা নোয়ায় ঝিনুক, আম্বালিকা আন্টি সত্যিই মহামায়ার অবতার। আম্বালিকা ওকে বলে, “গা ঝাড়া দিয়ে বিছানা ছেড়ে উঠে পর।

আমি কাজের মেয়েটাকে ফোন করে দিয়েছি, এই ন’টা নাগাদ চলে আসবে। আর হ্যাঁ, রিশুর আসতে হয়ত দেরি হবে, একটা এক্সিডেন্ট হয়েছে অনেক চাপে আছে। তুই চিন্তা করিস না, তোর একা একা ভালো না লাগলে আমাকে ফোন করে নিস। আমি এখন রাখছি, রিশুর পাপা এখন অফিস বের হবে আমার স্কুলের সময় ও হয়ে এসেছে।” romantic golpo pdf

বুক ভরে শ্বাস নেয় ঝিনুক, আম্বালিকা আন্টির মতন এই কয়দিনে ওকে কেউ এমন ভাবে বুঝিয়ে বলেনি। যতবার মায়ের সাথে কথা হয়েছে মা শুধু বলে গেছে রিশুর সাথে মানিয়ে নিতে, রিশুর সাথে মানিয়ে চলতে আর বলেছে অতীতের কথা ভুলে যেতে। অতীত কি আর অত সহজে ভোলা যায়? প্রতারণা ভীষণ ভাবেই বুকের মধ্যে বাজে, কিন্তু এক দুশ্চরিত্র ছেলের জন্য কি ঝিনুক ওর আগামী জীবন কেঁদে কাটাবে নাকি? কিন্তু যার সাথে কাটাবে তাকে বিন্দুমাত্র চেনে না, যদি তার সাথে মতের মিল না হয়, যদি তার পছন্দ ওর অপছন্দ হয় তখন কি করবে?

ঘড়ি দেখল রিশু, দশটা বাজে, পর পর দুটো অপারেশান করার পরে বেশ ক্লান্ত হয়ে গেছে। ওটি থেকে বেড়িয়ে হাতে ফোন নিয়ে দেখে মায়ের একটা মেসেজ, “বাড়িতে ঝিনুক একা আছে, সময় পেলে অন্তত একটা মেসেজ করিস।” এই ছোট একটা বাক্যের মধ্যে কত কিছু লুকিয়ে রয়েছে সেটা মা না লিখলেও ওর বুঝতে অসুবিধে হয় না। মনে মনে হেসে ফেলে রিশু, ওর হৃদয় পাথরের নয় যে একটা খোঁজ নেবে না সদ্য বিবাহিতা স্ত্রীর। romantic golpo pdf

ভোরের বেলা যখন বাড়ি থেকে বেড়িয়েছিল, তখন পেছন ঘুরে ঝিনুকের দিকে তাকানোর মতন মানসিকতা ছিল না ওর। এতক্ষনে কি করছে মেয়েটা? সাধারনত এই ধরনের মেয়েদের স্বভাব ওর অজানা নয়, এরা দেরিতে ঘুম থেকে ওঠে, সব কিছুই দেরি করেই করে। দশটা বাজে এতক্ষনে নিশ্চয় উঠে পড়েছে, মা হয়ত এতক্ষনে ফোন করে উঠিয়ে দিয়েছে, এতক্ষনে নিশ্চয় রোজি চলে এসেছে কাজের জন্য।

ফ্রিজে চারটে ডিম ছাড়া আর কোন কাঁচা সব্জি নেই। যখন কোলকাতা গিয়েছিল তখন কি আর জানত রিশু যে যখন ফিরে আসবে তখন ওর সাথে আরো একজন আসবে? একবার ভাবে ঝিনুক কে একটা ফোন করে দেখে মেয়েটা কি করছে। ফোন হাতে নিয়েও শেষ পর্যন্ত মাকে ফোন করে, “কি করছ? পাপা অফিস বেড়িয়ে গেছে?”

আম্বালিকা ছেলের ফোন উঠিয়ে উত্তর দেয়, “হ্যাঁ এই’ত একটু আগেই বেড়িয়ে গেছে। তোর কি অবস্থা?”

বড় একটা নিঃশ্বাস নেয় রিশু, “এই মাত্র দুটো অপারেশান শেষ করলাম। আর বল না, বেশ বড়সড় এক্সিডেন্ট কেস, একটা ট্রাকের সাথে একটা বাসের, বেশির ভাগ লোকজন ঘুমাচ্ছিল, ক্রিটিকাল কেস বেশি।” romantic golpo pdf

রিশুর মুখে প্রায় রোজদিন এক্সিডেন্টের কথা শুনতে শুনতে অভ্যস্ত হয়ে গেছে আম্বালিকা, “তা আজকে কিসের কেস ছিল? সবকটা কি ফেমুর টিবিয়ার কম্পাউন্ড ফ্রাকচার ছিল? স্ক্রু দিলি না প্লেট?”

মাথা দোলায় রিশু, ওর মায়ের সব মুখস্থ হয়ে গেছে, “হ্যাঁ ওই আর কি, একজনের পাঁচটা স্ক্রু লাগিয়েছি অন্যটায় প্লেট বসাতে হয়েছে।”

আম্বালিকা কিছুক্ষন চুপ করে ওকে বলে, “একবার ঝিনুক কে একটা ফোন করিস, একা রয়েছে মেয়েটা।”

বাঁকা হাসি দেয় রিশু, “আচ্ছা দেখা যাবে, সময় পেলে করব।”

বড় ছেলের গলা শুনে একটু আহত হয় আম্বালিকা, “এমন করে কেন বলছিস?”

রিশু কিছুক্ষন চুপ করে থাকে, গত রাতে যেভাবে ওর মুখের সামনে দড়াম করে দরজা বন্ধ করে দিয়েছিল সেই উদ্ধত আচরনে বেশ আহত হয়ে ছিল রিশু, কিন্তু মাকে সেই আচরনের কথা বলতে গিয়েও কোথায় যেন বাধাপ্রাপ্ত হয়। মাথা নাড়িয়ে নরম গলায় বলে, “না কিছু না।”

ছেলের অনুল্লেখিত শব্দ গুলো ভীষণ ভাবেই কানে বাজে আম্বালিকার, নরম কন্ঠে জিজ্ঞেস করে, “আমার ওপরে রেগে আছিস?”

মায়ের ওপরে কোনদিন রাগ করতে পারে নাকি? হ্যাঁ, ছোট বেলায় যখন মা ওকে জোর করে খাওয়াতে বসাত, ভাতের গ্রাস মুখের মধ্যে ঠেসে দিয়ে দাঁত চিবিয়ে বলত, ‘খেতে হবে না শুধু ওই খেলা নিয়েই পরে থাক’ অথবা কান ধরে পড়াতে বসাত ‘কাণ্ডজ্ঞান নেই, সন্ধ্যে হয়ে গেছে এখন টিভি দেখছিস’ তখন মায়ের ওপরে খুব রাগ হত। রাঁচিতে থাকতে কম মার বকুনি খায়নি মায়ের কাছে, রাগ তখন হত। romantic golpo pdf

ম্লান হেসে উত্তর দেয় রিশু, “না গো, আমি তোমার ওপরে কেন রাগতে যাবো।”

ছেলেকে বুঝিয়ে বলে আম্বালিকা, “ওর মনের অবস্থা একবার বুঝতে চেষ্টা কর।”

রিশু উত্তরে বলে, “সব বুঝতে চেষ্টা করব, কিন্তু তার আগে আমার একটা প্রশ্নের উত্তর দাও।”

আম্বালিকা জিজ্ঞেস করে, “কি প্রশ্ন?”

রিশু মাকে জিজ্ঞেস করে, “তুমি বুকে হাত দিয়ে বলতে পারবে যে এই মেয়ে এরপর তোমাকে দেখবে? আমার ভাই বোন কে ভালবাসবে? ও ত নিজের…” বলতে গিয়ে থেমে যায় রিশু, বাবা মাকে সেই ভাবে সন্মান দেয় না।

বুক ভরে শ্বাস নেয় আম্বালিকা, বড় ছেলের এই দুশ্চিন্তা একদম আমুলক নয়, তাও ছেলেকে বুঝিয়ে বলে, “একটু সময় দে ওকে সব ঠিক হয়ে যাবে। আমি আছি’ত তোদের সাথে।”

মায়ের এই একটা বাক্যে অনেক শক্তি রয়েছে, যতই জটিল সমস্যার হোক না কেন যখন ওর মা ওকে বলে, “আমি আছি’ত সাথে” তখন ধমনীতে এক নতুন বল খুঁজে পায়। romantic golpo pdf

স্মিত হাসে আম্বালিকা ছেলের মনের অবস্থা অনুধাবন করতে পেরে বলে, “এত কি ভাবছিস? তুই এক পা এগো তাহলে দেখবি ও এক পা এগোবে।” মাথা দোলায় রিশু, তাই করবে, কিন্তু কোথা থেকে শুরু করবে ভেবে পায়না। “পারলে একটা ফোন করে জিজ্ঞেস কর কিছু খেয়েছে কি না, কি করছে, এইসব।”

হেসে ফেলে রিশু, “এইসব খবর তোমার কাছে অবশ্যই আছে, তুমিই আমাকে বলে দাও।”

আম্বালিকা স্নেহের বকুনি দিয়ে বলে, “আমি বলেছি ফোন করতে, ফোন কর।”

মায়ের ফোন রাখার আগে, মাকে উত্তর দেয়, “আচ্ছা বাবা ফোন করে নেব। এখন রাখছি তাহলে।”

ডাক্তারদের বিশ্রামের জায়গায় ঢুকতেই অনেক সহকর্মী ডাক্তার বন্ধুরা ওকে ছেঁকে ধরে, প্রশ্নে প্রশ্নে জেরবার হয়ে যায় রিশু। “হটাত করে কাউকে না জানিয়েই বিয়ে?” “পুরানো প্রেম নাকি?” “গার্লফ্রেন্ড প্রেগ্ন্যান্ট হয়ে যায়নি ত?” “বিয়ের একদিন পরেই কেন ফিরেছে, রিসেপসান কবে হচ্ছে, পারটি কবে দেবে।” ইত্যাদি। এক এক করে সবার উত্তর দেয় রিশু, মায়ের ছোট বেলার বান্ধবীর বড় মেয়ের সাথে বিয়ে, হটাত করেই ঠিক হয়েছে তাই তাড়াহুড়ো করে বিয়ে করতে হয়েছে। romantic golpo pdf

সদ্য বিবাহিতা স্ত্রীর অতীত বাইরের লোকের সামনে উজাগর করতে চায় না। রিশু সবাইকে শান্ত করে বলে, সময় পেলে একদিন সবাইকে একটা বড় রেস্টুরেন্টে খাওয়াবে। ওর বোন গতকাল ওর ফোনে ওদের বিয়ের ছবি গুলো পাঠিয়েছিল, সেই গুলো দেখাল বন্ধুদের। সবার মুখে এক কথা, বাঁদরের গলায় মুক্তের মালা। বিশেষ করে ব্রিজেশ, তোর মতন মুখ চোরা পাব্লিক কে এই মেয়ে কি করে পছন্দ করল। মনে মনে হাসে রিশু, এখন পর্যন্ত কেউই কাউকে সঠিক ভাবে চেনে না, চিনলে হয়ত কেউই কাউকে পছন্দ করত না।

ফোনে ঝিনুকের নাম্বার, সঙ্ঘমিত্রা নামে লিখে রেখেছিল। বেশ কিছুক্ষন ওদের বিয়ের সময়ের ঝিনুকের একটা হাসি হাসি ছবির দিকে তাকিয়ে শেষ পর্যন্ত একটা মেসেজ করে ঝিনুককে, “হাই, আমার দেরি হবে তুমি খেয়ে নিও।”

সঙ্গে সঙ্গেই ওর মেসেজের উত্তর আসে, খুব ছোট্ট, “ওকে”

এক কাপ কফি নিয়ে মোবাইলে ঝিনুকের বিয়ের আগের একটা ছবির দেখে। ছবিটা ওর বোন ওকে পাঠিয়েছিল ওদের বিয়ের একদিন আগে। এতদিন ঠিক ভাবে সেই ছবি দেখার সময় পায়নি। একটা হাল্কা নীল রঙের জিন্সের ক্যাপ্রি ওপরে হলদে একটা ফুল শারট হাতা গুটিয়ে পরে, চোখে বড় একটা সানগ্লাস, মাথায় একটা বড় টুপি। romantic golpo pdf

কমলা লেবুর কোয়ার মতন নরম ফোলা ঠোঁটে লেগে রয়েছে মোহিনী এক হাসি, হাওয়ায় কিছু চুল ওর পানপাতার আকারের মুখ মন্ডলের ওপরে চলে এসে এক অভাবনীয় সৌন্দর্যের সৃষ্টি করেছে। ছবিটা কোন পাহাড়ি নদীর তীরে তোলা। মনে মনে হেসে ফেলে রিশু, এই মেয়েই গতরাতে ওর মুখের সামনে দড়াম করে দরজা বন্ধ করে দিয়েছিল, কথা বলার ইচ্ছে ছিল বটে কিন্তু কি বলবে ভেবে পায়নি তাই একটা ছোট মেসেজ করেছে।

দড়াম করেই পিঠের ওপরে চাপড় খায় রিশু, ঘাড় ঘুরিয়ে দেখে ওর সহপাঠি ডাক্তার বন্ধু সুদিপ্ত, “বাল আর কত দেখবি, নেশা এখন কাটেনি মনে হচ্ছে?” বলেই গান ধরে, “রাত কা ন্যাশা অভি আঁখ সে গ্যায়া নেহি, তেরা নশিলা বদন বাহো নে ছোড়া নেহি… ”

একটু লজ্জিত হয়ে হেসে ফেলে রিশু, “চল চল, আমার পেশেন্ট কোন ওটিতে?”

সুদিপ্ত উত্তর দেয়, “চারে আছে, হরিশ করে নেবে তুই বাড়ি যা।”

মাথা নাড়ায় রিশু, “না না, আমি এটা করে তবেই যাবো।”

দুইজনে ওটির দিকে চলে যায়, হিপ্পোক্রাটিক শপথটা যতটা পারা যায় ততটা মেনে চলার চেষ্টা করে রিশু। মায়ের কথা বারে বারে স্মরনে আসে, টাকার জন্য তোকে ডাক্তারি পড়াইনি। romantic golpo pdf

কোলকাতায় থাকতে খুব ইচ্ছে করত একা একা ঘরে থাকার, নিজের ঘরের দরজা বন্ধ করলেই সম্পূর্ণ একা হয়ে যেত ঝিনুক আর সেই একাকীত্ব ভীষণ ভাবে উপোভগ করত। বন্ধুদের সাথে মোবাইলে গল্প জুড়ে দেওয়া, ফেসবুকে ইন্সটাগ্রামে প্রত্যেক দিন নিজের নিত্য নতুন ভঙ্গিমায় ছবি দেওয়া, পার্থের সাথে দুষ্টু গল্প করা ইত্যাদি। মাঝে মাঝেই মায়ের বকুনি শুনতে হত, কি করিস দরজা বন্ধ করে? দিনের বেলায় একদম দরজা বন্ধ করে থাকবি না। সেই থেকে ওর খুব শখ ছিল একা থাকার যেখানে ওর মা ওকে বারন করবে না।

সেই স্বপ্ন যে এইভাবে পূরণ হবে সেটা ভাবতে পারেনি ঝিনুক। একটা ফ্লাটে সম্পূর্ণ একা, কারুর সাথে কথা বলার নেই, মোবাইল খুলে কারুর সাথে গল্প করার নেই, ইন্সটাগ্রাম আর ফেসবুক থেকে প্রচুর ছবি সরিয়ে দিয়েছে, নতুন কোন ছবি আর লাগায় নি। কোলকাতায় ওর কাছে সময় থাকত না কিন্তু এখন ওর হাতে অঢেল সময় কিন্তু কি করবে ঝিনুক? এইভাবে বন্দিনী জীবন কাটাতে হবে ওকে, ভাবতেই কেমন যেন মনে হয়। মায়ের সাথে ফোনে কথা বলার পরে একটু ভালো লাগে ওর। romantic golpo pdf

স্নান সেরে বেড়িয়ে হেয়ার ড্রাইয়ারে চুল শুকোতে শুকোতে সেই একাকীত্ব অনেকটাই কেটে যায় ওর। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে চুল আঁচড়ে সিঁথির দিকে তাকাতেই কেমন যেন মনে হয় ওর, গতদিনের সেই লাল সিঁদুরের দাগটা আর নেই, শ্যাম্পু করার সময়ে সেই দাগ ওর কপাল থেকে মুছে গেছে। মা বারবার করে বলে দিয়েছিল যে স্নানের পরে সিঁথিতে যেন সিঁদুর পরে, সিঁদুরের কৌট খুলে বেশ কিছুক্ষন হাতে নিয়ে দেখে তারপর ডান হাতের কড়ে আঙ্গুলের ডগায় এক ফোঁটা সিঁদুর লাগিয়ে সিঁথিতে টেনে দিয়ে সেটা আবার চুল দিয়ে ঢেকে দেয়।

যার নাম করে সিঁদুর পড়া সে কোথায়? বাঁকা এক হাসি মাখিয়ে নেয় ঠোঁটে। গালের দিকে তাকিয়ে দেখে নিজেই একটু লজ্জায় পরে যায়, নখের দাগ গুলো এখন পর্যন্ত মিলিয়ে যায়নি, বোকা মেয়ের মতন নিজেকে কষ্ট দিয়ে কি লাভ হল। জামা কাপড় পরে আবার সোফায় বসে অপেক্ষা করে ঝিনুক, যদিও ওকে বলেছে খেয়ে নিতে কিন্তু একা খেতে একদম ইচ্ছে করেনা ওর আর দশ মিনিট অপেক্ষা করে দেখা যাক। romantic golpo pdf

ভাত ডাল আর কিসের একটা বাদামি রঙের বিন্সের মতন দেখতে তার তরকারি, রাজমা, এর আগে কোনদিন খায়নি ঝিনুক। কিন্তু কোন সব্জি না থাকায় কাজের মেয়েটা এটাই রান্না করে গেছে। বাড়িতে মাইক্রো ওয়েভ ওভেন নেই যে খাবার গুলো একটু গরম করে নেবে, শেষ পর্যন্ত গ্যাসেই খাবার গরম করতে হয়। ওয়শিং মেশিন নেই, মাইক্রো ওয়েভ নেই, ফ্রিজটা ছোট, ড্রেসিং টেবিল নেই, তবে একা একটা ছেলের ঘরে এইসব থাকতে যাবে কেন?

কখন আসবে ঠিক নেই, ডাক্তার মানুষ আম্বালিকা আন্টি ওকে বলেছিলেন যে রিশুর সময়ের কোন ঠিক নেই, অগত্যা একা একাই খেতে বসে যায়। বাড়িতে মাঝে মাঝে যখন একা থাকত তখন একটা ডিমের অমলেট আর ম্যাগি বানিয়ে নিজে নিজে খেয়ে বেশ আনন্দে থাকত, আজ একা একা খেতে বসে মনে পরে যায় বোনের কথা, মায়ের কথা, মাছের পেটি নিয়ে বোনের সাথে ঝগড়া হওয়ার কথা, একটু আলু ভাজা বেশি খাওয়ার জন্য মায়ের কাছে বায়না ধরা। romantic golpo pdf

ওটি থেকে বেড়িয়ে ঘড়ি দেখে রিশু, তিনটে বেজে গেছে। খিধেতে পেটের মধ্যে নাড়ি ভুড়ি তাল গোল পাকিয়ে উঠেছে, অন্যদিন হলে হসপিটালের ক্যান্টিনেই খাওয়া দাওয়া সেরে নিত, কিন্তু বাড়িতে কাজের মেয়ে রান্না করে গেছে হয়ত আর সেই সাথে বাড়িতে একজন হয়ত ওর অপেক্ষায় বসে রয়েছে।

সাতপাঁচ ভাবতে ভাবতে নিজের জিনিস পত্র গুছিয়ে নিয়ে ক্যান্টিনের দিকে যেতে গিয়েও পারকিঙ্গের দিকে হাঁটা দিল রিশু। মা বলেছিল একটা ফোন করতে সেটা করা হয়ে ওঠেনি। বাইকে কিক মারার আগে একবার ফোন করার কথা ভাবে, কথা একদম হয়নি ঝিনুকের সাথে, কি করছে একবার জানা দরকার, শেষ পর্যন্ত ফোন করে ঝিনুক কে।

একা একা খাওয়ার পরে প্রচন্ড ভাবেই শুন্য হয়ে যায় ওর হৃদয়, কিছুই করার নেই, কারুর সাথে কথা বলার নেই, হাতে কোন কাজ নেই, উড়ে বেড়ান নেই এমনকি প্রান ভরে হাসবে সেই উপায় ও নেই। চুপচাপ বিছানায় বসে থেকে থেকে এক সময়ে ঘুমিয়ে পরে ঝিনুক। ফোন এক নাগারে বেজে চলেছে দেখেই ধরমরিয়ে উঠে পরে। ফোনে রিশুর নম্বর ডক্টর অম্বরীশ সান্যাল নামে লিখে রেখেছিল, সেই নামটা চোখে পড়তেই ঘুমের আবেশ কেটে যায় ওর। romantic golpo pdf

ঘুম জড়ানো কন্ঠে উত্তর দেয় ঝিনুক, “হ্যালো…”

গম্ভির গলায় জিজ্ঞেস করে রিশু, “কি হল, ঘুমিয়ে পড়েছিলে নাকি?”

ছোট্ট ঝিনুক উত্তর দেয়, “ওই একটু চোখ লেগে গেছিল।”

রিশু জিজ্ঞেস করে, “খেয়েছ?”

মাথা দোলায় ঝিনুক, “হ্যাঁ।”

বাইক স্টারট করে রিশু বলে, “আমি বেড়িয়ে গেছি এই আসছি।”

যাক শেষ পর্যন্ত বাড়িতে আসছে। অপেক্ষা করতে করতে ঝিনুক একবার ভেবেছিল হয়ত ওকে এখানে একা রেখেই চলে গেছে রিশু। তোয়ালে দিয়ে চোখ মুখ মুছে ঠিক করে নেয়, চুল একটু আঁচড়ে নেয়, চোখের কোলে কি এখন কালি নাকি? গত রাতে সেই ভাবে ঘুম হয়নি ওর। বাড়িতে কোনদিন মাক্সির মতন জামা কাপড় পড়ত না ঝিনুক, সর্বদা আধুনিক পোশাক আশাক পরে থাকত, টপ, গেঞ্জি, ক্যাপ্রি হাফ প্যান্ট ইত্যাদি। romantic golpo pdf

স্নান সেরে তেমন একটা পোশাক পড়েছিল, একটা ঢিলে প্লাজো আর একটা গোল গলার ঢিলে টপ, ঠান্ডার জন্য টপের ওপরে একটা কারডিগান চাপিয়ে নিয়েছিল। তাড়াহুড়োতে নিজের জিনিস পত্র ঠিক ভাবে গুছানো হয়নি, যা হাতের সামনে পেড়েছিল তাই ছোট সুটকেসে গুছিয়ে নিয়ে চলে এসেছে, সেই জন্য চপ্পল আনা হয়নি, তাই রিশুর চপ্পল পড়ে নেয় পায়ে।

যা বাবা কত বড় পা, ধ্যাত কেমন ঢলঢল করছে। বেশ কিছুক্ষন অপেক্ষা করার পরে বাড়ির সামনে বাইকের আওয়াজ পেতেই কান খাড়া হয়ে যায় ঝিনুকের, ত্রস্ত পায়ে বারান্দায় গিয়ে একবার তাকিয়ে দেখে, ওর ডাক্তার এলো কি না।

বাড়ির সামনে বাইক দাঁড় করিয়ে চোখ চলে যায় নিজের ফ্লাটের বারান্দায়, সদ্য বিবাহিতা স্ত্রী ওর জন্য দাঁড়িয়ে সেখানে। হেলমেট নিয়ে বাড়িতে ঢোকার মুখে নিচের এক তলার বুড়ো প্রমথেশ বাবুর সঙ্গে দেখা হয়ে যায়।

এক গাল দেঁতো হাসি হেসে রিশু কে প্রশ্ন করেন প্রমথেশ বাবু, “রাতে আসা হল নাকি?” romantic golpo pdf

মাথা দোলায় রিশু, এই ভদ্রলোককে একদম সহ্য হয় না ওর, সব কিছুতেই কেমন যেন আগ বাড়িয়ে কথা বলতে আসে। এক বার মায়ের সাথে প্রায় ঝগড়া লেগে গিয়েছিল, আপনার অত কিসের দরকার আমার বাড়িতে কে এসেছে না এসেছে সেটা নিয়ে মাথা ঘামানোর। এর জন্যেই শেষের দিকে রিশু নিজেই চন্দ্রিকাকে ওর ফ্লাটে নিয়ে আসা কমিয়ে দিয়েছিল।

ভুরু নাচিয়ে হেসে জিজ্ঞেস করে প্রমথেশ বাবু, “কে এসেছে?”

রিশু হেসে ফেলে, “আমার মিসেস।”

চোখ কপালে তুলে প্রশ্ন করে প্রমথেশ বাবু, “যাঃ বাবা জানতেও পারলুম নে, একেবারে চট মাঙ্গনি পট বিয়া করে ফেলেছ দেখছি?”

বাঁকা হাসি হাসে রিশু, “না তা ঠিক নয়, আগে থেকেই দেখা সাক্ষাৎ ছিল তাই হয়ে গেল তাড়াতাড়ি।”

কথাটা ঠিক পছন্দ হল না প্রমথেশ বাবুর, “এই’ত গেলে চারদিন আগে, এরমধ্যেই বিয়ে বোউভাত সব মিটে গেল?”

প্রশ্নের জেরবারে বেশিক্ষন দাঁড়ানোর ইচ্ছে ছিল না রিশুর, কিন্তু যেভাবে ছেঁকে ধরেছে অগত্যা একটা উত্তর দিতেই হয়, মা থাকলে এতক্ষনে ঝ্যাঁটা পেটা করে বিদায় দিয়ে দিত। “হ্যাঁ অসুবিধে কোথায়, বিয়ের দিন গেলাম তার একদিন পরে বউভাত হল, এদিকে হসপিটাল আছে তাই তার পরের দিন চলে এলাম।” romantic golpo pdf

বুড়ো প্রমথেশ মেনে নিতে পারল না রিশুর যুক্তি তাই মাথা ঝাঁকিয়ে কিছু একটা বলতে যাচ্ছিল ওকে, কিন্তু রিশু ততক্ষনে সেই প্রশ্নের জাল থেকে নিজেকে টেনে বার করে সিঁড়ি দিয়ে উপরে চলে যায়। ফ্লাটের দরজা খুলে ওর জন্যে দাঁড়িয়ে ছিল ঝিনুক, ওকে দেখে ভদ্রতার এক হাসি দেয়, প্রত্যুত্তরে ঝিনুক একটু হেসে ওর দিকে হাত বাড়িয়ে দেয় ব্যাগ আর এপ্রন নেওয়ার জন্য।

রিশু মাথা নাড়িয়ে ওকে বলে, “হসপিটাল থেকে এসেছি, এগুলো হাতে নিও না।” বাধ্য মেয়ের মতন মাথা দোলায় ঝিনুক। রিশু ওকে জিজ্ঞেস করে, “সব ঠিক আছে ত?”

বাধ্য মেয়ের মতন মাথা দুলিয়ে উত্তর দেয়, “হ্যাঁ।”

সেই ভোর চারটে থেকে এক প্রকার ঘরের মধ্যে বন্দি, এক সময়ে এই একাকীত্ব ভীষণ ভাবেই আকাঙ্ক্ষিত ছিল ওর, সেই একাকীত্ব যে এইভাবে প্রকট হয়ে ওর সামনে এসে দাঁড়াবে সেটা আশাতীত।

সদর দরজা বন্ধ করে নরম স্বরে জিজ্ঞেস করে রিশুকে, “কিছু খাওয়া হয়েছে?” romantic golpo pdf

ততক্ষনে নিজের শোয়ার ঘরের মধ্যে ঢুকে পড়েছে রিশু, সারাদিন তিনটে অপারেশান করে ভীষণ ক্লান্ত। শরীর ছিঁড়ে যাওয়ার উপক্রম, ঘাড়ে ব্যাথা, আর দাঁড়িয়ে থাকতে ইচ্ছে করছে না একদম। ঝিনুকের প্রশ্ন কানে ভেসে আসতেই ঘাড় ঘুরিয়ে একবার দেখে উত্তর দেয়, “না খাওয়া হয়নি, এই স্নান সেরে আমি খেয়ে নেব।” একটু থেমে ওকে বলে, “তোমার কাজ থাকলে তুমি করতে পার আমার জন্য অপেক্ষা করতে হবে না।”

কথাটা শুনে কান্না পেয়ে যায় ঝিনুকের, এতটাই কি অস্পৃশ্য যে ওর সামনে দাঁড়াতে নেই? কলেজে ওর দেখা পাওয়ার জন্য ছেলেরা যেখানে মুখিয়ে থাকত সেখানে এই ডাক্তার ওকে চোখের সামনে থেকে সরে যেতে বলছে? কেন তাহলে এই দূরদেশে বিয়ে করে এনেছে?

জলভরা চোখে রিশুর দিকে চোখ তুলে তাকায় ঝিনুক, কিন্তু যেহেতু রিশু ওর দিকে পিঠ করে দাঁড়িয়েছিল তাই ঝিনুকের সেই আশ্রুভরা বেদনা কাতর দৃশ্য চোখে পড়েনা। ঝিনুক কিছুক্ষন ওর শোয়ার ঘরের দরজায় দাঁড়িয়ে থাকার পরে চুপচাপ নিজের ঘরের মধ্যে ঢুকে পরে। আম্বালিকা আন্টি ওকে বলেছিল পেয়িং গেস্টের মতন থাকতে, কিন্তু এইভাবে কি কেউ এড়িয়ে চলে নাকি?

শেষের পাতায় শুরু – 15 by Pinuram

2 thoughts on “romantic golpo pdf শেষের পাতায় শুরু – 16 by Pinuram”

Leave a Comment