romantic golpo রাগ অনুরাগ by আরুষি

bangla romantic golpo choti. একটু সকাল সকাল উঠতে পার না? সবাই কেমন মর্নিং ওয়াক যায় একটু মর্নিং ওয়াক করলে পারো’ত? সারাদিন অফিসে বসে বসে কাজ করো, হাটা চলা হয় না একদম। দেখবে একদিন পিঠের ব্যাথা উঠবে তোমার তখন দেখবে কাঙালের কথা বাসি হলে খাটে। রোজ বলি স্নান করার সময়ে একটু ঘাড়ে আর বগলে সাবান লাগাবে। জা ভ্যাপসা গরম পড়েছে, ঘামের দুর্গন্ধ বের হয়, ছিঃ। কিছুতেই শোনোনা আমার কথা, কি হল বলছি কানে যাচ্ছে না কথা গুলো।

জাঃ বাবা এমন কি বললাম যে শেষ পর্যন্ত না খেয়ে চলে গেলে, এই প্লিস খেয়ে যাও, এই দেখ কান ধরছি, সোনা প্লিস। ব্যাস এমনকি বললাম যে তুমি শেষ পর্যন্ত না খেয়ে অফিস চলে গেলে, একটা উত্তর পর্যন্ত দিলে না আমাকে। অফিসে পৌঁছে একটা ফোন করলে না আমাকে। ঠিক আছে আমিও করব না তোমাকে ফোন, বয়ে গেছে, আমি’ত তোমার ভালোর জন্য বলছিলাম গো। হ্যাঁ হ্যাঁ, অফিসের কেউ যখন বলবে, স্যার আজ ডিও দেননি, ব্যাস তারপরের দিন একদম ডিও মেখে, ফিটফাট হয়ে যাবে তাই না।

romantic golpo

বুঝেছি বুঝেছি, আমি’ত বিয়ে করা বাঁদি, বাইরের বিরিয়ানি খেতে বেশি মজা। মনে রেখ ফিরে কিন্তু এই ডাল ভাতের কাছেই আসতে হবে। বেশি বিরিয়ানি খেলে কিন্তু পেটের বারোটা বেজে যাবে। সারাদিন আমি একা একা বাড়ি থাকি, সেটা একবারের জন্য ভেবে দেখেছ? তাও তুমি দুপুরে ফোন করলে না। আমার মন কি আর মানে বল খুব ছটফট করছিল জানো। শেষ পর্যন্ত থাকতে না পেরে একটা ফোন করলাম। আর তুমি কি না চাপা গলায় বলে দিলে যে তুমি মিটিঙ্গে আছো।

এত করে বললাম যে মিটিঙ্গের পরে দয়া করে ফোন করো, সকালে খেয়ে যাওনি, মনের ভেতরটা কেমন করে না আমার, বল। তুমি সে সময়ে ফিরে ও তাকালে না। জানো, দুপুরে খাওয়ার সময়ে গলা দিয়ে ভাত নামছিল না, বারে বারে মনে হচ্ছিল যে তুমি লাঞ্চ করলে কি না। শেষ পর্যন্ত একটু খানি জল দিয়ে ভাত খেলাম খেলাম। তোমার গলা না শুনলে একদম ভালো লাগে না। romantic golpo

সারাদিন তোমার কথা ভাবতে ভাবতে দিন কেটে গেল। তুমি শেষ পর্যন্ত করলে আমাকে কাঁদিয়ে ছাড়লে, বিকেলে ফোন করে বলছ যে ফিরতে দেরি হবে? বুক ফেটে গেছিল কান্নায়, আমি এমন কি বলেছি যে তুমি এত দেরি করে ফিরবে? মিটিং না ছাই, তুমি আমার মুখ দেখতে চাও না তাই দেরি করে আসবে তাই না। যাও আজ সত্যি বলছি আমি তোমার সাথে একদম কথা বলব না, আমি খাবো না দেখে নিও তুমি। যাও ফোন রাখ এবারে। এই এক বছরে আমি এত খারাপ হয়ে গেলাম তোমার কাছে। সন্ধ্যে বাতি দিতে বসেও তোমার কথা মনে পরে যাচ্ছিল বারেবারে।

আজ কাল সিরিয়ালে শুধু এর বউ ওর সাথে, ওর বর অন্যের কোলে, ধুর ব্যাঙ্গের ছাতা কিছুই ভালো লাগে না যে।বাইরে আবার আজ একটু বৃষ্টি শুরু হয়েছে। বড় ঠাণ্ডা হাওয়া বইছে, এমন সময় তুমি থাকলে বড় ভালো লাগে। শুধু তুমি সামনে থাকলেই হল। জানি তুমি সেই সময়ে টিভি দেখবে, তাও আমাকে ওই যে জড়িয়ে বসে থাক তাতেই বড় ভালো লাগে। তোমার ওই বুকের ওপরে মাথা রেখে শুতে বড় ভালো লাগে, তুমি যখন আমাকে দুই হাতে জড়িয়ে ধরে থাক, তখন মনে হয় চুপ করে চোখ বন্ধ করে পরে থাকি। romantic golpo

তুমি আলতো করে মাথার ওপরে ঠোঁট ছুঁইয়ে দাও, আমার হাত নিজের হাতের মুঠির মধ্যে নিয়ে আংলের ওপরে ছোটো ছোটো চুমু খাও, মাঝে মাঝে আঙুল গুলো নিয়ে খেলা করো, খুব ভালো লাগে। দুই কঠিন বাহু মাঝে প্রগাড় আলিঙ্গনে বেঁধে রাখ, কত শান্তি ওই বন্ধনে, বুক ভরে ওঠে। বাথরুমে ঢুকে পড়লাম একটু স্নান করতে, সারাদিনের কাজের পরে শোয়ার আগে গা ধুয়ে বেশ ফুরফুরে লাগে। শাওয়ারের নিচে দাঁড়িয়ে থাকি। মাথার উপরে ঠাণ্ডা জলের ধারা বয়ে চলেছে। বুকের আগুন কি আর সেই জল নিভাতে পারে বল?

আয়নায় চোখ গেল, ইমা, বুকের ওপরে দাঁতের দাগ এখন মেলায় নি? ইসস, ভাগ্য ভালো ব্রার ভেতরে ছিল, না হলে ইসস কি লজ্জা। ভাবতেই কেমন গা শিরশির করে উঠল আমার, হাতে পায়ে কাঁটা দিয়ে উঠল। তুমি যা কামরা কামড়ি কর, উম্মম, সেই প্রেমের কাঁটা বিধলে কি আর ব্যাথা করে? উম্মম, নিজের অজান্তেই হাত চলে যায় আমার উন্নত কোমল স্তনের উপরে, আলতো করে হাত বুলিয়ে আদর করে দিলাম তোমার দাঁতের দাগ। একটু চিনচিন করে বৃন্তটা ব্যাথা ব্যাথা করে উঠল, না না, বাদিকে বুক, কেন তোমার সাথে ঝগড়া করলাম বলত? romantic golpo

অবিরাম বারিধারা আমার কুন্তল রাশি ভিজিয়ে দিল, ভিজে সাপের মতন নেমে এল আমার প্রসস্থ পিঠের উপরে। নিজের দিকে তাকাতেই একটু লজ্জা করছে, ওই আয়না বলছে, আমি যেন এক জলপরী। কপাল ভিজে, চোখের পাতা থেকে টপটপ করে জল ঝরছে। হাল্কা গোলাপি ঠোঁট দুটি একটু খোলা, বিন্দু বিন্দু জলের ফোঁটা, ইসস, এযে দেখি পদ্ম পাপড়ির উপরে শিশির বিন্দু। নাকের ডগায় এক ফোঁটা জল গড়িয়ে নেমে এল নিচে, আবার জলের ফোঁটা জমা হয়ে উঠল।

উদ্ধত স্তন জোড়া ঠিক আমার দিকেই মানে আমার প্রতিফলনের দিকে উঁচিয়ে। বাম স্তনের ওপরে তোমার দাঁতের হাল্কা দাগ, ঠিক বৃন্তের কাছে। অজস্র জলের বিন্দু ভরিয়ে দিয়েছে আমার পীনোন্নত বক্ষ যুগল। ঠিক বৃন্তের ওপরে জলের ফোঁটা, টপটপ করে গড়িয়ে যায়, যেন সরু নদী সুউচ্চ শৃঙ্গ বেয়ে পৃথিবীর বুকে নেমে এসেছে। নেমে এসেছে আমার ছোটো গোল পেটের ওপরে। গভীর নাভিদেশে চারদিকে একটু গোল ঘুরে আরও নিচে নেমে গেছে সেই সরু সরু জলের ধারা। romantic golpo

আমি যেন এই পৃথিবী, আমার শরীরে সব আছে, পীনোন্নত দুই শিখর, সেই শিখরে শোভা পায় দুই কৃষ্ণকায় নুড়ি। দুই শিখরের নিচে নেমে আসে সমতল ভুমি, মাঝে এক নাতিগভীর নদী নেমে গেছে আমার গোল সমতল অধিত্যকায়। সেই নরম মালভূমিরে মাঝে এক সুগভীর কুয়ো। জলের রেখা গড়িয়ে যায় আমার তলপেটের উপর দিয়ে, ভিজিয়ে দিল জানুসন্ধি মাঝের অতি যত্নে সাজানো বাগান। দুই পেলব জঙ্ঘা যেন মসৃণ দুই কদলিকান্ড, সরু সরু গলের ধারা এঁকে বেঁকে বয়ে চলেছে, ওই বক্র পায়ের গুলির ওপর দিয়ে।

আমি দুই হাতে আঁজলা করে জল ভরে নিজের মুখের ওপরে ছিটিয়ে নিলাম। অজান্তেই হাত দুটি নিজের শরীর আদর করে দিল। শেষ পর্যন্ত লাজুক চোখে, দাঁতের মাঝে আঙুল কেটে লুকিয়ে ফেললাম চাহনি। বাড়িতে কেউ নেই, তুমি আস নি, আমি একা তাই তোয়ালে দিয়ে মাথা হাত মুছতে মুছতে বেড়িয়ে এলাম বাথরুম থেকে। তোয়ালে একদিকে ফেলে লম্বা আয়নায় নিজেকে দেখে নিলাম, উম্মম, সত্যি অনেক কিছু আছে এই শরীরে, পরতে পরতে লেগে আছে বিদ্যুতের ঝলকানি, অবশ্য সেটা তোমার কথা। romantic golpo

না, কেন ভাবছি, আজকে অনেক কাদিয়েছ তুমি। আমি আজ অভিমান করে থাকব, যতক্ষণ তুমি এসে আমার মান না ভাঙ্গাবে ততক্ষণ আমি কথা বলব না। কিন্তু একটু সাজতে দোষ কি? আলমারি খুলে দেখলাম কি পরা যায়। আচ্ছা, এটাই ভালো, মনে আছে রোমে কিনে দিয়েছিলে, তুঁতে রঙের লঞ্জারি। উফফ, প্রায় সবকিছু দেখা যায়, কিন্তু আমার ফর্সা মাখনের মতন দেহপল্লব যখন নীল রঙ্গে থাকে ঢাকা তখন তোমার মাথা পাগল হয়ে যায়। তাই সেটাই পড়ব বলে ঠিক করলাম।

ইসস, প্যান্টি কি ছোটো, শুধু মাত্র জানুসন্ধি, নারীত্বের দ্বার ঢেকে রাখে, বাকি সব উন্মুক্ত। পেছন দিক থেকে দেখলে ত সরু দড়িটা দেখা যায় না, ওই হারিয়ে গেছে দুই নিটোল নিতম্বের মাঝে। পরার সময়ে নিজেই ধিরে ধিরে পায়ের উপরে গলিয়ে নিয়ে নিজের পুরুষ্টু উরুর উপরে হাত বুলিয়ে নিলাম। তোমার আঁচরের অপেক্ষায় এই দুই পেলব জঙ্গা, জানি চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দেবে এই দুই রাঙ্গা পা, লাল হয়ে যাবে জানুর ভেতরে নরম মসৃণ ত্বক। romantic golpo

ক্ষুদ্র কটিবস্ত্র চেপে বসে গেল জানুসন্ধিতে, একটু টেনে নিলাম যাতে নারীসুধার দ্বারের আবছা অবয়াব দেখতে পাও, জানি তুমি সেই লুকোচুরির খেলা দেখতে বেশি ভালোবাসো। আজ সত্যি তোমাকে পাগল করে তুলবো আমি। কে জেতে কে হারে তার খেলা দেখব। ইসস, তুমি থাকলে আমার ব্রা’র পেছনের হুক লাগিয়ে দিতে। আর সেই সাথে সাথে ঘাড় থেকে চুমু খেতে শুরু করতে, সেই কাঁধের গোলা পর্যন্ত আমি বারে বারে কেঁপে উঠতাম, তুমি ইচ্ছে করে তোমার ঠোঁট চেপে ধরতে আমার ঘাড়ের পেছনে।

আমি চুল সরিয়ে দিতাম পিঠের উপর থেকে মৃদু বকুনিতে কাজ হত না। তুমি হুক লাগাতে প্রায় দশ মিনিট লাগিয়ে দিতে, সারা পিঠের উপরে আলতো করে আঙুল বুলিয়ে দিতে, সেই শিরদাঁড়ার শেষ সীমানা পর্যন্ত। আমি পেছনে হেলে পরে তোমার প্রসস্থ বুকের ওপরে এলিয়ে পড়তাম। তুমি নেই, অগত্যা নিজেকে ব্রা’র হুক লাগাতে হল। কাপ দুটি আমার পীনোন্নত বক্ষযুগল অর্ধেক টাই ঢেকে রাখতে সক্ষম, গভীর বক্ষ বিদলন সম্পূর্ণ উন্মুক্ত। সোনার হার খানি যেন ম্লান হয়ে গেছে ওই ফর্সা মসৃণ গোলকের উপরে। romantic golpo

চোখের কণে একটু কাজলের দাগ কেটে নিলাম। দুই ভুরুর ওপরে কাজল পেন্সিল বুলিয়ে চাবুকের মতন এঁকে নিলাম। লম্বা চোখের পাতার উপরে একটু মাস্কারা লাগিয়ে নিলাম। ঠোঁট গোলাপি গাড় বাদামি রঙ্গে রাঙ্গিয়ে তুললাম, তোমার এই রঙটা বিশেষ ভাবে পছন্দ, জানি। তুমি বল যে আমার গাড় ঠোঁটে নাকি অনেক রস ভরা। প্রসস্থ ললাটে একটি বড় লাল টিপ, তাঁর উপরে কুমকুম দিয়ে একটি ছোটো বিন্দু এঁকে দিলাম। চুল একদিকে সিথে করে আঁচরে নিলাম। গায়ে চড়িয়ে নিলাম লঞ্জারির উপরের স্লিপটা।

শুধু মাত্র বুকের কাছে একটা ছোটো সুত দিয়ে বাঁধা, দুই ফ্লাপ হাওয়ায় উড়ে যায় বারেবারে। কাঁধে দুটি পাতলা সুত দিয়ে বাঁধা ওই কাপড়, ঠিক নিতম্বের নিচে এসে শেষ হয়ে গেছে। আয়নার সামনে নিজেকে ঘুড়িয়ে ফিরিয়ে দেখে নিলাম। গোড়ালিতে নুপুর’টা ঠিক করে বেঁধে নিলাম, ওই নুপুরের রিনিঝিনি তোমাকে পাগল করে তোলে, তুমি বারে বারে আমার রাঙ্গা পায়ে চুমু খাও। বারন করলে ও শোনোনা তুমি, আমি যত বার বলি যে কাতুকুতু লাগছে তাও তুমি জোর করে ধরে থাক। romantic golpo

দুই হাতে ময়েসচারাইজার নিয়ে দুই হাতে মেখে নিলাম, দুই পায়ে দুই জঙ্ঘায় মেখে নিলাম। মসৃণ ত্বক যেন স্ফটিকের মতন চকচক করছে। লোহা বাঁধানোর সাথে কয়েক গাছি সোনার চুড়ি গলিয়ে নিলাম, এই চুড়ির ছনছন আওয়াজে তোমার ঘুম ভাঙ্গত এক সময়ে। আর কি কিছু বাকি আছে, নিজের মুখের দেখি তাকিয়ে দেখি। ইসস, এত বড় ভুল, সিঁথিতে যে সিন্দুর পরতেই ভুলে গেছি। ডান হাতের কেড় আঙ্গুলে তোমার নামের সিন্দুর নিয়ে, সিঁথিতে মেখে নিলাম, আর বাকি’টা মুছে নিলাম লোহা বাঁধানোর উপরে। এবারে আমি তোমার জন্য তৈরি।

কিন্তু তুমি কোথায়? আমি কিন্তু আজ অভিমান করে বসে থাকব, যতক্ষণ তুমি আমার মান ভাঙ্গাতে না আসছ। অনেক কষ্ট দিয়েছ আমাকে, আজ তোমার সাজা হচ্ছে যে শুধু তুমি আমাকে দেখে যাবে, ছুঁতে দেব না। তোমার সামনে ঘোরা ফেরা করব কিন্তু তুমি শুধু দাঁড়িয়ে দেখবে। বুঝলে, বাপু কি ভেবেছ। কি করি আর, দেখতে দেখতে যে অনেক রাত হয়ে গেল। তোমার ফোন রিং হয়ে গেল তুমি উঠালে না আর। আমি শেষ পর্যন্ত রেগে মেগে ঠিক করে নিলাম যে, না আমিও রাগ করতে জানি। romantic golpo

আমি ও জানি কি করে মুখ ফুলিয়ে বসে থাকতে হয়। একি রাত প্রায় ন’টা বাজে, কি হল তুমি অফিস থেকে বেরিয়েছ? আচ্ছা ঠিক আছে কথা বলবে না। আমি চললাম। না না, আমি বেশি দুরে কি করে যাব বল, তুমি ছাড়া কে আছে। আমি চললাম বেডরুমে, শুতে।

এমন সময়ে দরজায় বেলের রিং হল। যাক ফিরে এসেছ তাহলে। তাড়াতাড়ি একটা সুতির গাউন গায়ে জড়িয়ে দৌড় লাগালাম দরজার দিকে। বুকের ভেতরে ধুকপুক অনেক বেড়ে গেছে, না মুখের ওপরে রাগ মাখিয়ে রাখব, একদম হাসব না। তোমাকে দেখলেও না, তুমি ধরতে গেলে আমি পালিয়ে যাব। বুকের মাঝে যেন চাপা অগ্নিকুণ্ড, তোমার ছোঁয়া পেলেই ফেটে পরবে, কিন্তু তোমাকে কিছুতেই আজ ধরা দেব না বলে প্রন করেছি।

ও এসে গেছ, শেষ পর্যন্ত এই বাঁদির কাছে ফিরতে হল’ত? যাবে আর কোথায়? তুমি যে আমার ঘুড়ি, সারা দিন আকাশে উড়ে বেড়াবে, কিন্তু ঘুড়ির সুতো আমার হাতে, টান দিলেই কিন্তু আমার কাছে ফিরে আসতে হবে। দাও ব্যাগ টা দাও, কি হয়েছিল? এত দেরি কেন? অফিসে কাজ ছিল, সত্যি না ছাই, ব্যাঙ। যাও হাত মুখ ধুয়ে নাও। এই, ওই রকম ভাবে আমার দিকে তাকিয়ে কেন? বউকে কি প্রথম দেখছ নাকি? ইসস, জানতাম, আমার মুখ দেখে তুমি ঠিক বুঝে ফেলবে মনের কথা। না সাজলেই ভালো হত, কিন্তু কি করে তোমার ওপরে রাগ করে থাকি বলত? romantic golpo

তোমার হাত আমার দিকে এগিয়ে এল, তুমি আমার হাত ধরতে চাইলে, আলতো করে আমার নরম চাপার কলি আঙ্গুলের সাথে তোমার আঙুল ছুঁয়ে গেল। আমি মনে মনে হেসে ফেললাম। মুখ লুকিয়ে লাজুক হাসি লুকিয়ে নিলাম তোমার ওই ভালোবাসার চাহনি থেকে। দু’পা পেছনে সরে এলাম তোমার হাতের ছোঁয়ার বাইরে চলে এলাম।

তুমি চুপ করে ঢুকে গেলে। তোমার গোমড়া মুখের ছায়া দেখে বড় হাসি পাচ্ছিল জানো, কত কষ্ট করে সেই হাসি লুকিয়ে রেখেছিলাম। বারেবারে ঘাড় ঘুড়িয়ে আমার দিকে তাকিয়েছিলে, তোমার চোখ দেখে মনে হয়েছিল যে পারলে তুমি সত্যি যেন আমাকে গিলে নেবে। ইসস, গিলতে দিলে ত।

যাও হাত মুখ ধুয়ে নাও আমি খাবার বাড়ছি।

আমি খাবার কি বাড়ব, তার আগেই দেখলাম যে তুমি একদম ঝটপট স্নান সেরে ফেলেছ। দেখে খুব হাসি পাচ্ছিল, সকালের বকা কিছু কাজ দিয়েছে তাহলে। তুমি এলে আর আমাকে পেছন থেকে জাপটে ধরলে। দুই কঠিন বাহু আমার শরীর খানিটা অবশ করে দিল। সকালে শেভ করা একটু দাড়ি গালে লাগল, বড় মিষ্টি লাগে এই গালেগাল ঘষা। আর তোমার গা থেকে যখন আরাম্যাস্কের গন্ধ বের হয়, তখন আরও পাগল করে দেয় আমাকে। romantic golpo

এই কি করছ, আমার পেটের ওপরে, নাভির চারপাশ ওই ভাবে প্লিস আঙুল দিয়ে খেলা করো না, জানো আমি ওই জায়গায় বড় স্পর্শকাতর। তোমার শক্ত আঙুল ঠিক খুঁজে নিল নিজের জায়গা, ঠিক তুমি এক হাতের তালু চেপে ধরলে আমার নাভির ওপরে আর অন্য হাত নামিয়ে দিলে, ছিঃ খেতে বসতে হবে, ছাড়ো প্লিস। এই প্লিস কানের লতিতে চুমু খেও না, উম্মম… ছাড়ো না বলছি। তুমি কথা শুনলে না, আমার কানের লতি ঠোঁটের মাঝে নিয়ে চুষতে ছুরু করে দিলে।

জিবের ডগা বের করে কানের ফুটতে অল্প ঢুকিয়ে দিলে, ভিজে জিবের ডগার পরশ পেতেই আমি আমার সারা শরীর শিরশির করে উঠল। প্রেয়সীর মান ভাঙ্গাতে সত্যি তোমার তুলনা হয় না। কি, কি এনেছ? ইসস, এত খরচ করতে গেলে কেন? এই দেখি না, কেমন। হ্যাঁ হাত যখন পেটের ওপরে রেখেছিলে তখন কিছু খচখচ করছিল বুঝেছিলাম। উম্ম সত্যি খুব সুন্দর হার’টা নাও পড়িয়ে দাও। এই তুমি না, বড় দুষ্টু, সেই’ত আমার মরালী গর্দান দেখে মজে গেলে? এই বলছি’ত সুড়সুড়ি লাগছে। romantic golpo

এই আমি ঘাড়ের ওপর থেকে চুল সরিয়ে দিলাম। লকেট’টা নেমে এল ঠিক আমার বুকের মাঝে, একটা সোনার চেন পড়েই ছিলাম তাঁর ওপরে আরো একটা, মনে পরে যায় হানিমুনের কথা। হার পড়াতে গিয়ে ছোটো ছোটো চুমুতে ভরিয়ে দিয়েছিলে আমার ঘাড়, কাঁধ। পেছন থেকে জাপটে ধরেছিলে আমাকে, তোমার পা দুটি মেলে ধরা ছিল আর আমি সেই দুই পায়ের মাঝে তোমার দিকে পেছন করে বসেছিলাম।

নাও চল খেতে বসি। ঠিক আছে বাবা, আমি খাইয়ে দেব, কিন্তু একটা সর্তে, তুমি খাওয়ার সময়ে দুষ্টুমি করতে পারবে না।

তুমি কি আর শোনো আমার কথা? সেই’ত টেনে কোলের ওপরে বসিয়ে নিলে। উম্ম, নিচে কিছু শক্ত ঠেকছে মনে হচ্ছে, এখুনি তোমার ইয়েটা এত বড় হয়ে গেল? না, গো সত্যি তোমাকে নিয়ে আর পারলাম না।

তুমি ফিসফিস করে কানে বললে, ছিঃ আমার নরম নিটোল নিতম্বের ছোঁয়ায় তোমার ইয়ে’টা সেটা হয়ে গেছে শেষে। ছাড়ো’ত সব পাগলামি। এবারে খেয়ে নাও। এই কি করছ? আমি জানি কেন তুমি আমার হাতে খেতে চাও। গ্রাস সাথে সাথে নিয়ে মুখের ভেতরে টেনে নেবে আমার আঙুল আর মধ্যমা আর অনামিকা একদম গোড়া থেকে ডগা পর্যন্ত চুষে দেবে। এই প্লিস খেয়ে নাও লক্ষ্মীটি। romantic golpo

কিছুতেই তুমি আঙুল টেনে বের করতে দেবে না। উফফ, দেখ দেখ আমার হাতে কেমন কাঁটা দিয়ে উঠেছে। আমার কোমর জড়িয়ে কোলের ওপরে বসিয়ে রাখলে। আমার দিকে মুখ তুলে তাকিয়ে আছো, ওই চোখের মনির ভেতরে আমি নিজের প্রতিফলন দেখতে পাচ্ছি। তোমার ওই পেশিবহুল লোমশ বুকের দিকে তাকতেই বুক টা ছ্যাঁত করে উঠল। আমি তোমাকে আর খাওয়াব কি নিজেই কেমন অবশ হয়ে আসছি। নিতম্বের নিচে তোমার শক্ত ইয়ে’টা বারেবারে খাঁজের মধ্যে ঢুকে পড়ছে আর নাচানাচি করছে।

তার ওপরে তুমি যেমন ভাবে আমার মুখের দিকে তাকিয়ে আছো তাতে আমি শেষ পর্যন্ত অবশ হয়ে গেলাম। তুমি আমার হাত চেটে, আঙুল চেটে পরিষ্কার করে দিলে।এই প্লিস হাত ধুতে হবে, ব্রাস করে নাও, রাত পরে আছে, শুধু তুমি আর আমি। তুমি শুনলে না, মুখটাও ধুলে না। তুমি সেই আমাকে কোলের উপরে তুলে বাথরুমে নিয়ে গিয়ে বললে, যে এখানে যেন আমি হাত ধুয়ে নেই। আমি হাত ধুয়ে নিলাম আর তুমি হাত ধুয়ে আমার জামায় হাত মুছে দিলে। romantic golpo

romantic golpoআবার জড়িয়ে ধরলে পেছন থেকে, ঠেলে দিলে নিজের দেহ আমার পেছনে। তোমার কঠিন হাতের ওপরে হাত রেখে ওই বাহুবেষ্টনী আর প্রগাড় করে নিলাম। প্রসস্থ বুকে মাথা হেলিয়ে দিলাম। তোমার দুষ্টু আঙুল এবারে খেলতে খেলতে আমার পাতলা গাউনের বেল্ট খুলে দিল। আমার বাধা দেওয়ার মতন অবস্থা ছিল না। কাঁধ ঝাঁকিয়ে আলগা করে পরনের গাউন মেঝেতে পরে গেল। তোমার ঠোঁট দিয়ে একটা উফফফ বেড়িয়ে এল, জানি এই লঞ্জারি দেখে তুমি পাগল হয়ে উঠেছ।

তোমার ডান হাত ঠিক আমার পীনোন্নত স্তনের নিচে, ইচ্ছে করেই উপর দিকে ঠেলে দিলে তুমি। সেই কোমল দুই শৃঙ্গ উপচিয়ে পড়ল বক্ষবন্ধনির ভেতর থেকে। তুমি হাত দিলে না আমার বুকে, তুমি হাত চেপে ধরলে গলার কাছে। জোর করে আমার মাথা ঘুড়িয়ে দিলে তোমার দিকে। আমার চোখের পাতা ভারী হয়ে নেমে আসে। বন্ধ চোখের সামনে শুধু তোমার ছবি। তয়ার উষ্ণ শ্বাস বয়ে চলে আমার মুখের ওপরে। তোমার ঠোঁট চেমে এল আমার ঠোঁটের ওপরে, তুমি আমার ঠোঁট চুষে নিলে। romantic golpo

আমি অবশ হয়ে গেলাম, তোমার হাতের ওপরে হাত রেখে দিলাম। আমার শরীর যেন আর আমার আয়ত্তে নেই, চলে গছে তোমার কাছে। তোমার হাত নগ্ন পেটের ওপরে ঘোরাফেরা করছে, ঠিক আমার নাভির কাছে। তুমি নাভির চারদিকে আলতো করে আঙুল বুলিয়ে দিলে। হটাত করে ঠোঁট ছেড়ে আমার কোমরে হাত দিয়ে আমাকে ঘুড়িয়ে দিলে তোমার দিকে। আমি হাঁপিয়ে উঠি তোমার চুমুর ফলে, শ্বাসের গতি বেড়ে যায়। তুমি আমাকে দেয়ালের সাথে চেপে ধরলে, আমার বুকের ওপরে চেপে ধরলে তোমার লোমশ বুক।

আমার নরম মসৃণ স্তনের ত্বকের ওপরে তোমার কঠিন লোমশ ছাতি পিষে গেল। আমার বুক জোড়া গলে মিশে যেতে লাগল যেন। আমি তোমার বুকের ওপরে হাত মেলে ধরলাম। তোমার দিকে চোখ মেলে তাকালাম, আমার ঠোঁট জোড়া ঈষৎ খোলা। অমার ঠোঁট জোড়া ঈষৎ খোলা। তোমার শ্বাস আমার মুখের ওপরে, তুমি এক দৃষ্টিতে আমার বুক বিঁধে ফেলেছ। ওই চাহনির কাছে আমি পাগল হয়ে যাই। তুমি আমার কোমর জড়িয়ে কাছে টেনে নিলে।

কপালের সাথে কপাল ঠেকিয়ে আমার নাম নিয়ে বললে যে আই লাভ ইউ। উফফফ, কত কোটি বার ওই বুলি শুনেছি তোমার ঠোঁটে তাও যেন নতুন লাগে ওই তিনটি শব্ধ। চোখ জোড়া অল্প সিক্ত হয়ে আসে, প্রেমের বুলিতে। তুমি কানেকানে ক্ষমা চেয়ে নিলে, আমি ফিসফিস করে বললাম যে আমার কথা একটু মান সোনা। romantic golpo

তোমার মাথা নেমে এল আমার ঘাড়ের ওপরে, আমি চোখ বন্ধ করে নিলাম। তোমার হাত দুটি আমার পিঠের ওপরে ঘোরাফেরা করতে শুরু করে দেয়। আমি প্রানপন শক্তি দিয়ে তোমার গলা জড়িয়ে ধরলাম। তোমার ঠোঁট নেমে এল আমার ঘাড়ে। চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিলে আমার ঘাড়, কাঁধ। আলতো করে দাঁত দিয়ে টেনে নামিয়ে দিলে ব্রা’র স্ট্রাপ। নেমেও নামল না সেই ক্ষীণ কাঁচুলি, আটকা পরে গেল আমার পীনোন্নত বুকের ওপরে। তোমার ঠোঁট নেমে আসে আমার বুকের ওপরে।

তুমি আমার উপরিবক্ষে চুমু খেতে লাগলে আমি পাগলের মতন তোমার মাথার চুল আঁচড়াতে লাগলাম। তোমার ঠোঁট নেমে এল আমার বুক ছাড়িয়ে নিচের দিকে। তুমি আমার সামনে হাঁটু গেড়ে বসে পড়লে। আমি চোখ বন্ধ করে তোমার মাথার ওপরে হাত রেখে দিলাম। তুমি আমার কোমরের পাশে হাত দিয়ে দেয়ালের সাথে চেপে ধরলে। তুমি আমার মধ্যচ্ছদার ওপর দিয়ে চুমু খেতে খেতে নিচে নামতে শুরু করে দিলে। আমার ঠোঁট ঈষৎ খুলে গরম শ্বাস বের হতে লাগল। আমি ভাষা ভুলে গেলাম, তোমার আদরে পাগল হয়ে এক অনাবিল সাগর তীরে চলে এলাম। romantic golpo

তোমার ঠোঁট নিচে নেমে এল আমার নাভির কাছে। আমি আমার লজ্জা লুকাতে চেষ্টা করলাম, কিন্তু অজান্তেই যে সেই লজ্জা তোমার সামনে মেলে ধরেছি সেটা আর খেয়াল হল না। তোমার ঠোঁট আমার নাভি ছাড়িয়ে ঠিক প্যান্টির কাছে আলতো কামড় বসিয়ে দিল। আমি আর থাকতে পারলাম না, সেই দাঁতের পরশে শীৎকার করে উঠলাম। তুমি যে এত দুষ্টু, এত শয়তান, ইচ্ছে করেই তুমি আমার সিক্ত নারীদ্বারে উষ্ণ ফুঁ দিলে। কেঁপে উঠল আমার নারীত্বর দ্বার, পরনের পাতলা কাপড় ভিজে গেল।

বন্ধ চোখে আমি দেখতে পেলাম যে তুমি চেয়ে আছো আমার ভিজে ওঠা নারীত্বের পাপড়ির দিকে। বুক তোলপাড় করে উঠল আমার, কেঁপে উঠলাম আমি, তোমার মাথা শক্ত করে চেপে ধরলাম দশ আঙ্গুলে। তুমি ঠোঁট ছুঁইয়ে দিলে আমার সিক্ত আবরনে, ভিজে ওঠা নারীত্বের ঠোঁটে।

আমি থাকতে পারলাম না, তোমার চুল ধরে উপরে টেনে বললাম, আমাকে তোমার বুকে করে নাও।

তুমি আমাকে কোলে তুলে নিলে। বিছানায় নিয়ে শুইয়ে দিলে যেন আমি তোমার পদ্ম পাতার শিশির। এবারে আমাদের রাগ অনুরাগের খেলা হবে শুরু, এই পাতলা লঞ্জারির নিচে লুকিয়ে তোমার প্রেয়সী, উন্মুক্ত কর আমার আবরন, তোমার বাহু মাঝে করি সমর্পণ।

আমার কলেজবেলা

Leave a Comment